JUST NEWS
SECENDERY SCHOOL CERTIFICATE-SSC EXAM RESULTS PUBLISHED ACROSS THE COUNTRY: PASS RATE IN SYLHET EDUCATION BOARD IS 78.82 PERCENT
সংবাদ সংক্ষেপ
নবীগঞ্জে নেশা জাতীয় দ্রব্যে আসক্তির প্রতিকারে সচেতনতা কর্মশালা লতিফা-শফি চৌধুরী মহিলা ডিগ্রি কলেজে ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম সিলেট রেলওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিদায়ী শিক্ষিকা সংবর্ধিত সিলেট ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রশংসা করলেন ডা ফারুক আহমেদ হবিগঞ্জে গানে গানে নন্দিত শিল্পী সুবীর নন্দীর জন্মবার্ষিকী উদযাপন মাধবপুরে আর্থিক অনুদান দেওয়া হলো আহত অটোরিকশা চালককে সোয়া ৫ লাখ টাকার বেশি জরিমানা আদায় করলো পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট জেলা প্রশাসন এবারও বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরণ করবে মহান বিজয়ের মাসকে SCC will formulate a realistic and far-reaching budget সিলেট গ্যাস ফিল্ডস’ সিবিএ নির্বাচনে কর্মচারী লীগের জয় লাভ আল-কবির টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির ভর্তিমেলার মেয়াদ বৃদ্ধি দিলোয়ারের পিতার মৃত্যুতে বিএনপি নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ নতুন সদস্য নিচ্ছে সিলেটে টেলিভিশন সাংবাদিকদের সংগঠন ইমজা সিলেটে ভারতীয় নাট্য গবেষকদের নিয়ে সুবর্ণযাত্রার ‘একান্ত আলাপন’ মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হলো সংসদীয় বিতর্ক সাংবাদিক আহমেদ ইমরানকে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

বাঙালির জীবনে বাংলা নববর্ষ ও কিছুকথা>প্রভাষক উত্তম কুমার পাল হিমেল

  • শুক্রবার, ১৫ এপ্রিল, ২০২২

নবীগঞ্জ, হবিগঞ্জ : নববর্ষ হলো নতুন একটি বছরের শুরু। পৃথিবীর প্রায় প্রত্যেকটি দেশেই নববর্ষ উদযাপিত হয়ে থাকে। বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন্ সময়ে নববর্ষ উদযাপন করা হয়। ইউরোপ অঞ্চলে ইরেংজি বছরের হিসেবে ও আরব অঞ্চলে হিজরি বছরের হিসেবে নববর্ষ উদযাপিত হয়ে থাকে।
বাংলাদেশেও উদযাপিত হয় বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা নববর্ষ। আর এই বাংলা বর্ষ শুরু হয় বৈশাখ মাসের প্রথম দিন। তাই এ দিনটি আমাদের জাতীয় জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। পুরনো বছরকে বিদায় জানিয়ে ১লা বৈশাখকে নানা আয়োজনের মাধ্যমে বরণ করে নেওয়া হয় বাংলা নববর্ষের প্রথম দিন হিসাবে। এ দিন শহর থেকে গ্রাম পর্যন্ত উৎসবের জোয়ার বয়ে যায়।
বাংলা নববর্ষ একটি সার্বজনীন উৎসবের দিন। এটি কোন নির্দিষ্ট ধর্মীয় সম্প্রদায়ের উৎসব নয়। হিন্দু, মুসলমান, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান-যে ধর্মেরই লোক হোক না কেন, এদেশে যাদের জন্ম, বাংলা ভাষায় যারা কথা বলে, বাংলা নববর্ষ তাদের সকলেরই প্রাণের উৎসব। তাই বাংলাদেশের ন্যায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও জাকজমকের সাথে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত হয়। তবে এখন আমাদের নিজস্ব বর্ষপঞ্জি অনুসারে আমরা যেদিন বর্ষবরণ করি তার পরদিন ভারতের বাঙালি নাগরিকরা বর্ষবরণ করেন।
বাংলাদেশে ব্যবসা-বাণিজ্যে যারা দেশীয় লেনদেন ও বেচাকেনার হিসাব নিকাশ রাখেন, বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে তারা পালন করেন ‘শুভ হালখাতা’ উৎসব। বৈশাখের শুরুতেই পুরনো হিসাব চুকিয়ে মিষ্টি মুখের মাধ্যমে নতুন হিসাব চালু করা হয়।
ড মুহাম্মদ এনামুল হক তার ‘বাংলা নববর্ষ’ প্রবন্ধে লিখেছেন ‘হালখাতার অনুষ্ঠান পয়লা বৈশাখের একটি সার্বজনীন আচরণীয় রীতি। শুভ হালখাতা নতুন বাংলা বছরের হিসাব পাকাপাকিভাবে টুকে রাখার জন্য ব্যবসায়ীদের নতুন খাতা খোলার এক আনুষ্ঠানিক উদ্যোগ। এতে তাদের কাজ কারবারের লেনদেন, বাকি-বকেয়া, উসুল-আদায় সবকিছুর হিসাব-নিকাশ লিখে রাখার ব্যবস্থা করা হয়। নানা লেনদেনে সারাবছর যারা তাদের সাথে জড়িত থাকেন অর্থাৎ যারা তাদের নিয়মিত গ্রাহক, পৃষ্ঠপোষক ও শুভানুধ্যায়ী তাদেরকে পত্রযোগে বা লোক মারফত নিমন্ত্রণ দিয়ে দোকানে একত্রিত করে সাধ্যমত মিষ্টি ও জলযোগে আপ্যায়িত করা হয়। এ অনুষ্ঠানে সামাজিকতা, লৌকিকতা, সম্প্রীতি ও সৌজন্যের দিক একান্তভাবে গুরুত্বপূর্ণ।’
‘নববর্ষ উপলক্ষ্যে বৈশাখী মেলা আরো একটি সার্বজনীন অনুষ্ঠান। বৈশাখের শুরু থেকে প্রায় সারা মাসব্যাপী দেশের বিভিন্ন স্থানে মেলা বসে। মেলার নাচ, গান, সার্কাস, নাগরদোলা ইত্যাদি মেলাগুলোকে আনন্দময় করে তোলার প্রধান উৎস। জমিদারী আমলে নববর্ষের আরও একটি সার্বজনীন অনুষ্ঠান ছিল ‘পুন্যাহ’। এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে জমিদার ও প্রজার মধ্যে দূরুত্ব কমে আসতো এবং প্রজারা আপ্যায়িত হতো জমিদার বাড়িতে। জমিদারী প্রথা বিলুপ্তির পর এই অনুষ্ঠানও বিলুপ্ত হয়ে গেছে।’
‘বাঙালির ব্যক্তি জীবন ও জাতীয় জীবনে নববর্ষের প্রভাব অপরিসীম। ব্যবসায়-বাণিজ্যে, কৃষি ও জীবন যাত্রায়, সাহিত্যে ও সংস্কৃতিতে নববর্ষ মিশে আছে অত্যন্ত নিবিড়ভাবে। বাংলাদেশ একটি কৃষি প্রধান দেশ। তাই আমাদের সভ্যতা, সংস্কৃতি, লোকাচার, উৎসব ও পার্বন কৃষিকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠে। কৃষিনির্ভর এ দেশের মানুষ বৈশাখ মাসকেই তাদের ফসল তোলার মাস বলে গ্রহণ করেছে। এই প্রভাব শুরু হয়েছিল সম্রাট আকবরের শাসনামলের সূচনায়, বাংলা নববর্ষ প্রবর্তনের পর থেকে।’
বাংলা সনের উৎপত্তি সম্পর্কে ড আশরাফ সিদ্দিকী তার ‘শুভ নববর্ষ’ গ্রন্থে লিখেছেন, ‘হিজরী চান্দ্র বৎসরের হিসাবে প্রতি বছর এগার দিন এগিয়ে যায় বলে সম্রাট আকবর চান্দ্র হিসাবকে সৌর বৎসরের গণনায় রূপান্তরিত করেন। অথাৎ হিজরী ৯৬৩ সন থেকেই বাংলা সনের উৎপত্তি হয়েছে। বাংলা সনের উৎপত্তির সাথে সাথেই বাংলা নববর্ষ এতটা জাকজমকভাবে পালিত না হলেও বর্তমানে এই বাংলা নববর্ষ বাঙ্গালীদের মাঝে মহাসমারোহে পালিত হচ্ছে।’
এছাড়া বাংলা ভাষা বর্তমানে বিশ্বের ২ শতাধিক দেশে আন্তজার্তিক মর্যাদায় একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষাদিবস হিসাবে পালিত হওয়ায় বাংলার পরিচিতি এখন বিশ্বজুড়ে স্বীকৃত। বর্তমান সময়ে নববর্ষ উপলক্ষে বৈশাখী মেলার সাথে নতুন সংযোজন হয়েছে বইমেলা। বাংলা একাডেমিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বসে এই মেলা। বই পিপাসুরা নববর্ষের এই শুভদিনে একে অন্যের ও প্রিয়জনের মধ্যে উপহার হিসাবে বই আদান প্রদান করে থাকেন। সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আয়োজন করে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের, যেখানে নানান মাধ্যমে আবহমান বাংলার বিভিন্ন কৃষ্টি ও ঐতিহ্য তুলে ধরা হয়।
বাঙালির প্রাণের উৎসব বাংলা বর্ষবরণে সকল শ্রেণিপেশার মানুষ একসাথে মিলিত হয়ে আনন্দে আত্মহারা হয়ে সমস্বরে গেয়ে উঠে, ‘হিংসা-বিদ্বেষ ভুলে এসো সবাই বাংলার জয়গান গাই’।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest