NATIONAL
Prime Minister Sheikh Hasina said that by ensuring education, health and other basic rights for the large number of people in the world, they should be converted into public resources || প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিশ্বের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীর জন্য প্রয়োজনীয় শিক্ষা, স্বাস্থ্য ও অন্যান্য মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার মাধ্যমে তাদেরকে জনসম্পদে রূপান্তর করতে হবে
সংবাদ সংক্ষেপ
মাধবপুরে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ জঙ্গি ও সন্ত্রাসী তৎপরতা সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে : সুনামগঞ্জে আইজিপি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন জামালগঞ্জ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রীষ্টান মহিলা ঐক্য পরিষদের কমিটির পরিচিতি সভা জকিগঞ্জে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে এক কিশোরের মৃত্যু শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে সিকৃবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থেকে ৯৮৯০ পিস ইয়াবাসহ একজনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ফেসবুকে ও ইউটিউবে মুক্ত হলো শাল্লার তরুণ সাংবাদিক বিপ্লবের লেখা গান ঝুঁকিমুক্ত আর্থিক ব্যবস্থার লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু জীবন বীমা কর্পোরেশন প্রতিষ্ঠা করেন : মেয়র শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসে মহানগর আ লীগের দোয়া মাহফিল আইজিপি চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন সুনামগঞ্জ আসছেন শুক্রবার মাথা নত না করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে নিয়ে নিজেদের সিদ্ধান্তে অটল থাকি : শফিক চৌধুরী সুনামগঞ্জ পৌরসভা পরিচালিত বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের ড্রেস প্রদান জুড়ীতে দুদিনব্যাপী মণিপুরী ফেস্টিভেল ও ইন্দো-বাংলা সাংস্কৃতিক উৎসব অনুষ্ঠিত বিপিজেএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইউসুফকে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের অভিনন্দন সিলেটে ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশের শিশু ও যুবদের নিয়ে সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ সিলেটে ওয়ার্ল্ডভিশন বাংলাদেশের শিশু ও যুবদের নিয়ে সাংবাদিকতা প্রশিক্ষণ

৫০ শয্যার নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জনবল ৩১ শয্যার

  • শুক্রবার, ৯ জুলাই, ২০২১

উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ : সিলেট বিভাগের চার জেলার মিলনস্থল ছুঁয়ে ৪৩৯.৬০ বর্গ কিলোমিটার আয়তন বিশিষ্ট হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার সাড়ে ৪ লাখ মানুষের চিকিৎসার প্রধান ভরসাস্থল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটি দীর্ঘদিন ধরে জনবল সংকটে ভুগছে। ফলে ব্যাহত হচ্ছে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা। তারউপর করোনাকালীন পরিস্থিতি এই সংকটকে আরো প্রকট করে তুলেছে।
প্রায় ৩ বছর আগে এই স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীত করা হয়; কিন্তু নিয়োগ দেওয়া হয়নি প্রয়োজনীয় জনবল। অথচ ৩১ শয্যা বিশিষ্ট থাকাকালেই জনবল সংকট নিয়ে চলছিল এই সরকারি স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানটি। এ কারণে জনবল না বাড়ানোয় ডাক্তার ও স্বাস্থকর্মীদের উপর চাপ বেড়ে গেছে। প্রায়ই রোগীর অবস্থা একটু জটিল হলে সিলেট পাঠিয়ে দিতে হয়।
করোনার চিকিৎসার জন্যে নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ৪টি কেবিন ও ১৫টি শয্যা প্রস্তুত করা হয়েছে। অক্সিজেন সিলিন্ডার আছে ২২টি। এখানে করোনার র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টও করানো হচ্ছে; কিন্তু অপারেটর না থাকায় এক্স-রে মেশিন ব্যবহার করা যাচ্ছেনা। প্রায় ৬ বছর ধরে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (রেডিওগ্রাফি) পদটি শূন্য পড়ে আছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানিয়েছেন, ৫০ শয্যায় উন্নীত করার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়োগ দেওয়ার কথা ছিল; কিন্তু এখনো তা দেওয়া হয়নি। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাসহ ৫ জন মেডিক্যাল অফিসার থাকলেও ইউনিয়নভিত্তিক কমিউনিটি ক্লিনিকে উপ সহকারী মেডিক্যাল অফিসার ও মেডিক্যাল এসিসটেন্টের অনেক পদ খালি রয়েছে।
৩১ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জনবল কাঠামোর মধ্যেই মেডিক্যাল অফিসারের একটি পদ শূন্য। এছাড়া স্ত্রীরোগ, সার্জারি ও অ্যানেসথেসিয়া বিভাগে একজন করে চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও তিনটি বিভাগই চিকিৎসক শূন্য। মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট (রেডিওগ্রাফি) পদটি খালি রয়েছে। এক্স-রে মেশিন নষ্ট ১১ বছর ধরে। প্রায় ৭ বছর ধরে মেডিক্যাল টেকনোলজিস্টের (ল্যাব) ২টি পদের একটি শূন্য। তাই সাধারণ পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য রোগীদের বিভিন্ন ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ছুটতে হয়।
অন্যদিকে নার্সের ১৪টি পদের ৭টি, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শকের ১১টি পদের ৭টি, স্বাস্থ্য পরিদর্শকের ৪টি পদের ৪টিই, অফিস সহকারীর ৩টি পদের ১টি ও ক্লিনারের ৫টি পদের ১টি শূন্য। এছাড়া এমএলএসএসের ৩টি, আয়ার ২টি, ওয়ার্ড বয়ের ২টি, বাবুর্চির ২টি ও মালির ১টি পদ থাকলেও এসব পদে কেউ নেই। অথচ এখানে প্রতিদিন বহির্বিভাগে ৩০০ থেকে ৪০০ রোগী বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা নিতে আসে।
অন্যদিকে রোগীদের অভিযোগ, এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সরকারি ঔষধ পাওয়া যায়না। চিকিৎসাসেবায় অবহেলা করা হয়। নার্সরা উৎকোচ দাবি করেন। চিকিৎসাসেবা দেওয়ার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও কোন কোন রোগীকে হবিগঞ্জ বা সিলেট পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
নবীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা আব্দুস সামাদ জানান, সীমিত জনবল নিয়েও তারা সাধ্যমতো জনগণকে স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। জনবল নিয়োগের ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। নিয়োগ কার্যক্রম চলমান। জনবল বাড়লে স্বাস্থ্যসেবার মান আরো বৃদ্ধি করা সম্ভব হবে।
তিনি আরো জানান, করোনার মৃদু থেকে মাঝারি উপসর্গের রোগীদের এই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সেই চিকিৎসা দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। তবে গুরুতর উপসর্গের করোনা রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রেফার করা ছাড়া বিকল্প নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest