NEWSHEAD

স্বাধীন স্বদেশে ফিরলেন স্বাধীনতার মহানায়ক : আল আজাদ

Published: 09. Jan. 2019 | Wednesday

এক গর্বিত বাঙালি কবির দৃপ্ত উচ্চারণ…‘এই বাংলায় শুনেছি আমরা সকল করিয়া ত্যাগ/ সন্ন্যাসী বেশে দেশবন্ধুর শান্ত মধুর ডাক।/ শুনেছি আমরা গান্ধীর বাণী জীবন করিয়া দান/ মিলাতে পারেনি প্রেম-বন্ধনে হিন্দু-মুসলমান।/ তারা যা পারেনি তুমি তা করেছ ধর্মে ধর্মে আর/ জাতিতে জাতিতে ভুলিয়াছে ভেদ সন্তান বাংলার।’
কবির এই তুমি আর কেউ নন, তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই মহান নেতা জাতিকে দেশ দিয়েছেন, পতাকা দিয়েছেন, পরিচিতি দিয়েছেন। আর এ জন্যে জীবনের মূল্যবান দিনগুলো কাটিয়েছেন আন্দোলনে, কারাগারে, কঠোর পরিশ্রমে। মানুষকে জাগিয়েছেন, বজ্রকণ্ঠের আহ্বানে। হয়েছেন মৃত্যুর মুখোমুখি; কিন্তু আপস করেননি। করলে জীবনটা অন্যরকম হতে পারতো।
ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবন শুরু। মহান ভাষা আন্দোলনে পালন করেন, অন্যতম শীর্ষ সংগঠকের ভূমিকা। যুক্তফ্রন্ট নির্বাচনে ছিলেন অন্যতম চালিকাশক্তি। নির্বাচনী ফলাফলে জাতির সামনে আবির্ভূত হলেন, ভবিষ্যৎ কাণ্ডারি রূপে। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীও চিনে নিলো তাকে। তার উপর শুরু করলো নির্যাতন-নিপীড়িন। কারাগারে দিন কাটতে থাকলো বাঙালির হাজার বছরের আরাধ্য পুরুষের। তবু তিনি মাথা নত করলেন না।
বঙ্গবন্ধু ঘোষণা করলেন ছয়দফা দাবি, আর তা হয়ে উঠলো বাঙালির মুক্তিসনদ। এর সাথে যুক্ত হলো ছাত্র সমাজের এগারো দফা। ভড়কে গেলো পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী। বঙ্গবন্ধুকে প্রধান আসামি করে দায়ের করলো সাজানো ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’। এই চক্রান্তের বিরুদ্ধে ছয়দফা-এগারো দফায় ঐক্যবদ্ধ হলো জাতি। দমন-পীড়ন তুচ্ছ করে রাজপথে নামলো জনতার ঢল। হলো গণঅভ্যুত্থান। গণরোষের কাছে পরাজয় স্বীকার করে স্বঘোষিত লৌহমানব আয়ুব খান তখন গদি ছাড়তে বাধ্য হলেন।
১৯৭০ সাল। পাকিস্তানের ইতিহাসে সত্যিকার অর্থে প্রথম সাধারণ নির্বাচন। ঐতিহাসিক রায় দিলো জাতি। একক নেতত্বের অর্পণ করলো বঙ্গবন্ধুর উপর। তিনি দৃঢ় প্রত্যয়ে ঘোষণা করলেন, ছয়দফার কোন বিকল্প নেই। সবকিছু হবে বাঙালির মুক্তিসনদের ভিত্তিতে। আৎকে উঠলো শাসকগোষ্ঠী। স্পষ্টতঃ বুঝতে পারলো, আর শোষণ-পীড়ন নয়, এবার বাঙালি জাতির প্রাপ্য হিসেব বুঝিয়ে দিতে হবে।
পশ্চিমারা তখন নতুন করে লিপ্ত হলো চক্রান্তে। এর বিরুদ্ধে গর্জে উঠলো বাঙালিরা। একাত্তরের সাতই মার্চ বঙ্গবন্ধু রমনা রেসকোর্সের জনসমুদ্রে বজ্রকণ্ঠে উচ্চারণ করলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। ছাব্বিশে মার্চ ঘোষণা করলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতা; কিন্তু এর পরপরই পাকিস্তানি সেনারা বাঙালির অবিসংবাদিত এই নেতাকে গ্রেফতার করে তখনকার পশ্চিম পাকিস্তানে নিয়ে যায়।
মহান মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস বঙ্গবন্ধু বন্দি ছিলেন পাকিস্তানের কারাগারে। সেখানে বিচারের তাকে মৃত্যুদণ্ড দেয়ার চক্রান্ত করা হয়েছিল; কিন্তু বিশ্ব জনমতের চাপে তা সম্ভব হয়নি।
এদিকে বঙ্গবন্ধুর নামে এবং তার রেখে যাওয়া নির্দেশেই মুক্তিযুদ্ধ পরিচালনা করে সফল পরিণতিতে নিয়ে যায় তার অনুপস্থিতিতে তাকে রাষ্ট্রপতি করে গঠিত প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার। তিনিই ছিলে মূল প্রেরণা। তখনকার সাড়ে সাতকোটি বাঙালি প্রতি মুহূর্তে প্রিয় নেতার উপস্থিতি উপলব্ধি করতো।
পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পরাজিত হলো। শত্রুমুক্ত হলো স্বাধীন বাংলাদেশ; কিন্তু জাতির পিতা তখনো পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি। তার মূল্যবান জীবন নিযে উদ্বিগ্ন প্রত্যেক বাঙালি-গোটা বিশ্ব। পশ্চিম দিকে অপলক চেয়ে থেকে দিন কাটে-রাত কাটে বাংলাদেশের আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার। কখন আসবেন নেতা। মুক্তিযোদ্ধারা ঘোষণা করলেন, বঙ্গবন্ধুকে মুক্ত করে আনতে প্রয়োজনে পাকিস্তানের বুকে আঘাত হানবেন।
এ ঘোষণার পাশাপাশি বিশ্ব নেতাদের চাপ। তাই শেষপর্যন্ত পাকিস্তানি সামরিক জান্তা বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে সসম্মানে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। বাহাত্তরের দশই জানুয়ারি স্বাধীনতার মহানায়ক স্বাধীন স্বদেশে বীরের বেশে প্রত্যাবর্তন করেন।
তাই বাংলা ও বাঙালির ইতিহাসে ১০ জানুয়ারি শুধু একটি দিন নয়, এর ঐতিহাসিক গুরুত্বও রয়েছে। এ দিনে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। স্বাধীনতার মহানায়কের স্বদেশে প্রত্যাবর্তনে পূর্ণতা পায় স্বাধীনতা। সকল শংকা থেকে মুক্ত হয়ে নতুন উদ্দীপনায় মহান নেতার নেতৃত্বে জাতি শুরু করে ধ্বংসস্তুপের উপর সমৃদ্ধ স্বদেশ গড়ার সংগ্রাম। নব্য স্বাধীন বাংলাদেশকে দ্রুত স্বীকৃতি দিতে থাকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ; রূঢ় হলেও সত্য যে, বঙ্গবন্ধু ফিরে না এলে পরিস্থিতি অন্যদিকে চলে যাবার আশংকা ছিল যথেষ্ট। একারণে, ইতিহাসের প্রয়োজনে তার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন অপরিহার্য ছিল।

Share Button
November 2019
M T W T F S S
« Oct    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

দেশবাংলা