JUST NEWS
DURGA PUJA THE BIGGEST FESTIVAL OF TRADITIONAL BENGALIS ACROSS THE COUNTRY INCLUDING SYLHET HAS STARTED.
সংবাদ সংক্ষেপ
শ্রীমঙ্গলে কুমারী পূজার আনন্দে মেতেছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মধ্যনগরে বংশীকুণ্ডা ইউনিয়ন যুবদলের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত সিলেট কেন্দ্রীয় শহিদমিনার পুত-পবিত্রতা অক্ষুন্ন রেখেই মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে থাকলো Kumari Puja held at Habiganj Ramakrishna Mission and Sewashram সুনামগঞ্জে দুর্গাবাড়িতে ভক্তদের পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ ও মহাপ্রসাদ বিতরণ মাধবপুরে দুর্গাপূজার মহাঅষ্টমীতে মন্দিরগুলোতে ভক্তদের ঢল মহাঅষ্টমীতে হবিগঞ্জ রামকৃষ্ণ মিশন ও সেবাশ্রমে কুমারী পূজায় দেবীরূপে ৮ বছরের মিষ্টু সিকৃবিতে উপাচার্যের অতিরিক্ত দায়িত্ব গ্রহণ করলেন ড মেহেদী হাসান কাউন্সিলর তৌফিক বকস লিপনের উদ্যোগে শাড়ি ও নগদ অর্থ বিতরণ সিসিকের নবগঠিত ওয়ার্ডগুলোর জনদুর্ভোগ লাঘবের আহ্বন পঞ্চগড়ে নৌকাডুবিতে নিহতদের পরিবারকে মৌলভীবাজার দুর্গাবাড়ির আর্থিক সহায়তা সিলেট প্রিমিয়ার ডিভিশন ফুটবল লীগ ২০২২-২৩ শুরু ৬ অক্টোবর || অংশ নিচ্ছে ১০টি দল জামালগঞ্জে বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করলেন এমপি রতন হবিগঞ্জে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব হাসানুজ্জামান মাধবপুরে বৃষ্টি উপেক্ষা করে সপ্তমি পূজা দেখতে ভক্তদের ভিড় মৌলভীবাজারে ১ হাজার ৭টি পূজামণ্ডপ নিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব

সুনামগঞ্জে ভাইয়ের হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি প্রবাসী ভাইবোনদের

  • শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : সুনামগঞ্জ আদালত চত্বরে মিজানুর হোসেন খোকন হত্যামামলার পলাতক আসামিদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে দ্রুত বিচারের মাধ্যমে ফাঁসি নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়েছে।
শনিবার বিকেলে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে খোকনের যুক্তরাজ্য প্রবাসী ভাই ও বোনেরা এ দাবি জানিয়ে আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতে প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশের আইজিপির হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
গত ২১ জুলাই সুনামগঞ্জ আদালত চত্বরে সন্ত্রাসীদের প্রকাশ্যে ছুরিকাঘাতে খুন হন জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের গলাখাল গ্রামের মিজানুর রহমান খোকন। খবর পেয়ে তার চার ভাই ও দুই বোন দেশে থাকা একমাত্র ভাইকে শেষবারের মতো দেখতে যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ছুটে আসেন।
সংবাদ সম্মেলনে খোকনের বড় ভাই মো মোশারফ হোসেন জানান, মিজানুর হোসেন খোকন তার বাবা ও তিন শিশু সন্তানকে নিয়ে সিলেট মহানগরীতে বসবাস করতেন। গ্রামের বাড়িঘর ও সহায় সম্পত্তি দেখাশোনা সহ পরিবারিক সকল দায়িত্ব তার উপর ছিল। অন্যদিকে এই সহায় সম্পত্তি ও বাড়িঘর দখল করার জন্য দীর্ঘদিন ধরে চক্রান্ত করছিল, তার কাছে চাঁদা দাবি করছিল এমনকি প্রকাশ্যে তাকে হত্যার হুমকি দিচ্ছিল একই গ্রামের মৃত মহিবুর রহমানের ছেলে ফয়েজ আহমেদ, আফরোস মিয়ার ছেলে সেবুল মিয়া, সাজিদ মিয়া, বাদশা মিয়ার ছেলে শাহান মিয়া, মৃত লাল মিয়ার ছেলে ঈসরাইল ও ওমান প্রবাসী বাদশা।
সংবাদ সম্মেলনে আরও জনানো হয়, গত বছরের ২৪ অক্টোবর তাদের আত্মীয় কাপ্তান মিয়ার নিকট থেকে দেড় শতক জমি ক্রয় করে তাদের পরিবার। এই জমিও দখল করতে মরিয়া হয়ে উঠে বাদশা ও সহযোগীরা। গত ২১ এপ্রিল এই জায়গাটি দেখতে গেলে ফয়েজ আহমদ সহ অন্যরা পূর্ব পরিকল্পিতভাবে খোকনকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনায় তিনি বাদি হয়ে জগন্নাথপুর থানায় অভিযোগ দাখিল করেন।
এর পরিপ্রেক্ষিতে তদন্তকারী কর্মকর্তা জগন্নাথপুর থানার এসআই সাত্তার ফয়েজ হামলাকারীদের থানায় ডাকেন; কিন্তু তারা না এসে উল্টো কল্প-কাহিনী সাজিয়ে থানায় অভিযোগ দেয়। তাই কারও অভিযোগ না নিয়ে আদালতে যেতে পরামর্শ দেয় পুলিশ। তখন মিজানুর হোসেন খোকন বাদি হয়ে সুনামগঞ্জ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে (সিআর মামলা নং-৭২/২২ইং) দায়ের করেন।
মো মোশারফ হোসেন জানান, খবর পেয়ে ওমান থেকে ফোন করে বাদশা বিভিন্ন জনকে জানিয়ে দিতে থাকে, খোকনকে খুন করিয়ে মামলর স্বাদ মিটিয়ে দেবে। এদিকে তার পক্ষের লোকাজন এলাকায় প্রকাশ্য অস্ত্রের মহড়া দিয়ে নানাভাবে হুমকি দিতে থাকে। মিজানুর হোসেন খোকনকে যেখানেই পাওয়া যাবে সেখানেই শেষ করে দেওয়ার হুমকিও দেওয়া হতে থাকে।
বাড়িতে থাকা খোকনদের চাচতো ভাই মাসুক মিয়া এবং তার ছেলেদেরকেও তারা প্রকাশ্যে ভয়ভীতি প্রদর্শন ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করতে থাকে।
এ ঘটনায় মাসুক মিয়া বাদি হয়ে জগন্নাথপুর থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। তদন্ত অভিযোগ সত্য প্রমাণিত হলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা, যা জগন্নাথপুর থানার নন জিআর মামলা (নং ১৬৬/২২ইং) হিসেবে আদালতের কার্যক্রম শুরু হয়।
গত ২১ জুলাই সুনামগঞ্জ আদালতে এই মামলার ধার্য তারিখ ছিল। তাই আদালতে হাজিরা দিতে যায় ফয়েজ আহমদ, ঈসরাইল, শাহান, সাজিদ ও সেবুল। অন্যদিকে মাসুক মিয়ার সঙ্গে আদালতে যান মিজানুর হোসেন খোকন। সেখানে সুনামগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত এবং জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনে সুনামগঞ্জ জেলা আইনজীবী সহকারী সমিতির অফিস আঙ্গিনায় জনসম্মুখে ছুরি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে তাকে খুন করে পালিয়ে যাওয়ার সময় উপস্থিত লোকজন ফয়েজ আহমদ, সেবুল ও সাজিদকে আটক করেন। তবে ঈসরাইল ও শাহানকে জনতা ও আদালত চত্বরে থাকা পুলিশ আটক করলেও তারা কৌশলে পালিয়ে যায়।
আটক ফয়েজ আহমদ আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলকজবানবন্দি দিয়েছে; কিন্তু ঘটনার ১৫ দিন পরও ঈসরাইল, শাহান ও অন্যদেরকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।
সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন, খোকনের যুক্তরাজ্য প্রবাসী ভাই মো দেলোয়ার হোসেন, মো আনোয়ার হোসেন ও শিপন মিয়া, বোন রুসনা বেগম ও সালমা বেগম, বোন জামাই ওমর মিয়া, ভাগনি নাদিয়া বেগম, শিশু সন্তান মাহফুজ হোসেন, মাহমুদ হোসেন ও মেয়ে ফাইজা এবং আত্মীয় কয়ছর আহমদ সাজু।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest