সুনামগঞ্জে ১০ শিশু অপরাধের মামলার যুগান্তকারী রায় : সাজা ভোগ বাড়িতে

Published: 14. Oct. 2020 | Wednesday

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জে বখাটেপনা ও মাদক গ্রহণসহ বিভিন্ন অপরাধের মামলার রায়ে ১৪ শিশুকে কারাগারে না পাঠিয়ে প্রবেশনে নিজ বাড়িতে থেকে সাজা ভোগ করার আদেশ হয়েছে।
বুধবার সকাল সাড়ে ১১টায় ১০টি পৃথক মামলার একসঙ্গে দেওয়া রায়ে সুনামগঞ্জের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো জাকির হোসেন এই আদেশ দেন।
সাজাপ্রাপ্ত শিশুদের অপরাধের মধ্যে রয়েছে, পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস করে টাকা গ্রহণ, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নিজের ছবি অন্যের ছবির সঙ্গে যুক্ত করে ফেসবুকে ছড়িয়ে অশ্লীল ও মানহানিকর তথ্য প্রকাশ, পুলিশকে গ্রেফতারি পরোয়ানা তামিলে বাধা প্রদান, আসামিকে পলায়নে সহায়তা, শ্লীলতাহানি, দায়বদ্ধভাবে লাঠি দিয়ে মারপিট করা, মাদক রাখা এবং জুয়া খেলা।
আদেশে বলা হয়েছে, শিশুরা বাড়িতে থেকে সাজা ভোগ করার সময় তাদেরকে পর্যবেক্ষণে রাখবেন প্রবেশন কর্মকর্তা।
নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আদালতের পিপি নান্টু রায় এই রায়কে যুগান্তকারী উল্লেখ করে জানান, আদেশে বিচারক বলেছেন, প্রবেশনের সময় এই শিশুদেরকে বাবা মার আদেশ নির্দেশ মেনে চলতে হবে। বাবা-মার সেবাযত্ন করতে হবে। ধর্মীয় অনুশাসন মানতে ও ধর্মগ্রন্থ পাঠ করতে হবে।
আদেশে আরো বলা হয়েছে, এই শিশুদের প্রত্যেককে কমপক্ষে ২০টি করে গাছ লাগাতে ও গাছের পরিচর্যা করতে হবে। অসৎ সঙ্গ ত্যাগ ও মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে। ভবিষ্যতে কোন অপরাধের সঙ্গে নিজেকে জড়াতে পারবে না।
প্রবেশন কর্মকর্তা শাহ মো শফিউর রহমান বলেন, আদালতের উদ্দেশ্য হচ্ছে, শিশুদের কারাগারে না দিয়ে প্রবেশনের সময় পারিবারিক বন্ধনে রেখে সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করা। প্রবেশন কর্মকর্তা ও অভিভাবকদের নিবিড় তত্ত্বাবধানে থেকে ভবিষ্যতে যেন শিশুরা অপরাধে না জড়ায়, জীবনের শুরুতেই যাতে শাস্তির কালিমা তাদের স্পর্শ না করে, সংশোধনাগারে অন্যান্য যারা বিভিন্ন অপরাধে আটক আছে, তাদের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকে ও পরিবারের সংস্পর্শে থেকে শিশুদের স্বাভাবিক মানসিক বিকাশের ব্যবস্থা করা। সর্বোপরি যাতে প্রতিটি শিশুর সার্বিক কল্যাণ সাধিত হয়।

Share Button
October 2020
M T W T F S S
« Sep    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

দেশবাংলা