NATIONAL
On the occasion of Eid-ul-Azha, RAB's intelligence surveillance is continuing at every station to ensure the safety of the Eid journey of people at home || ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে প্রতিটি স্টেশনে র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেট আবার বন্যা কবলিত || মহানগরীতে জলাবদ্ধতায় ঈদের জামাত ও কোরবানি ব্যাহত মৌলভীবাজারে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি উপক্ষো করে পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন সিলেট চেম্বারের প্রাক্তন সভাপতি রাজ্জাক চৌধুরীর স্ত্রীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ গোয়াইনঘাটে পানিবন্দি মানুষের মাঝে পুলিশের ঈদ উপহার বিতরণ সিলেটে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় পবিত্র ঈদুল আযহা উদযাপন || ব্যাহত হচ্ছে কোরবানি শাল্লায় বীর মুক্তিযোদ্ধা জমিলা খাতুনের ইন্তেকাল || রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ৩য় ধাপে নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণ সিসিকের প্রথম মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত সিলেটে এবার ট্রাকভর্তি পাথরের নিচ থেকে পৌণে ১২ লাখ টাকার চিনি উদ্ধার আটক ২ ত্রাণ নিয়ে নিজের নির্বাচনী এলাকায় বন্যার্তদের ঘরে ঘরে প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী শাল্লায় শিক্ষা ও চিকিৎসায় সহযোগিতার হাত বাড়ালেন প্রকৌশলী সৌমেন সেন হবিগঞ্জে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট || দাম উঠছে ৪ লাখের উপরে মাধবপুরে কোরবানির পশুর হাটে ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ২৮৮ বোতল ভারতীয় মদসহ গ্রেফতার ১ কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিতদের দেশে বা বিদেশে চাকরির অভাব নেই : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী কার্যকর হয়নি রাজনের খুনিদের মৃত্যুদণ্ড || পরিবার পায়নি অর্থমন্ত্রীর ৫ লাখ টাকা

সিলেট সিটি করপোরেশনের নতুন হোল্ডিং ট্যাক্সের ভাগ্য নির্ধারণ হবে আজ

  • শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেট সিটি করপোরেশনের নতুন ‘গৃহ কর’ বা হোল্ডিং ট্যাক্সের ভাগ্য নির্ধারণ আজ। রাত ৮টায় এ ব্যাপারে সিসিকের নতুন সিদ্ধান্ত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নগরবাসীকে জানানোর কথা রয়েছে।
প্রচলিত বিধি অনুযায়ী প্রতি ৫ বছর পরপর সিটি করপোরেশনের হোল্ডিং ট্যাক্স পুনঃনির্ধারণের কথা থাকলেও প্রায় ১৭ বছর পর সিলেটে তা করা হয়। নেওয়া হয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন; কিন্তু সাবেক সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী তা কার্যকর না করে সাময়িক স্থগিত রাখেন।
বর্তমান মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী দায়িত্ব গ্রহণের মাস ছয় পর অনুমোদিত সিলেট সিটি করপোরেশনের সেই হোল্ডিং ট্যাক্স কার্যকরের উদ্যোগ নিলে নাগরিকদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। প্রতিবাদী হয়ে উঠেন সর্বস্তরের মানুষ। রাতারাতি কয়েকটি সংগঠনও গড়ে উঠে। আরম্ভ হয় প্রতিবাদী স্মারকলিপি পেশ, মানববন্ধন ও সমাবেশ। সবার কথা একটাই, এই করারোপ অযৌক্তিক, অস্বাভাবিক, অতিমাত্রার। তাই অবিলম্বে বাতিল করতে হবে।
অন্যদিকে সিসিক নতুন ১৫টি ওয়ার্ডে হোল্ডিং ট্যাক্স কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করে আর পুরনো ২৭টি ওয়ার্ডে পুনর্বিবেচনার জন্যে ‘রিভিউ বোর্ড’ গঠনের ঘোষণা দেয়।
মেয়র আরও ঘোষণা করেন, হোল্ডিং ট্যাক্স সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা হবে; কিন্তু তাতেও নাগরিক ক্ষোভ-বিক্ষোভ প্রশমিত না হওয়ায় ২২ মে রাতে মহানগরীর একটি কনভেনশন হলে সিলেট সিটি করপোরেশন একটি মতবিনিময় সভার আয়োজন করে, যাতে বিভিন্ন শ্রেণিপেশার কয়েকশ নাগরিক যোগ দেন। প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। বিশেষ অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট রঞ্জিত সরকার, হাবিবুর রহমান হাবিব ও বীর মুক্তিযোদ্ধা রুমা চক্রবর্তী।
সভার শুরুতে সিসিকের পক্ষ থেকে হোল্ডিং ট্যাক্স সংক্রান্ত আইন, বিধি ও প্রক্রিয়া পাওয়ার পয়েন্টে উপস্থাপনের মাঝামাঝিতে হঠাৎ করে কিছু নাগরিক প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠেন। দাবি জানাতে থাকেন, কেন অস্বাভাবিক হারে করারোপ করা হলো সেই ব্যাখ্যা দিতে। রীতিমতো হুলস্থুল পড়ে যায় একাংশজুড়ে। আশংকা দেখা দেয় পরিস্থিতি নিয়েন্ত্রণের বাইরে চলে যাওয়ার। আর ঠিক তখনই মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী মাইক্রোফোন হাতে তুলে নেন এবং তার তাৎক্ষণিক নাতিদীর্ঘ বক্তব্য দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে দেয়। তিনি নাগরিকদেরকে মুক্তকণ্ঠে নিজ নিজ অভিমত প্রকাশের আহ্বান জানান। একই সঙ্গে স্মরণ করিয়ে দেন, নগরবাসী তাকে ও কাউন্সিলরদেরকে সেবক হিসেবে নির্বাচিত করেছেন। তাই নগরবাসীর জন্যে অসহনীয় কিছু নগর পরিষদ করবে না। তবে সকলকেই কর দিতে হবে।
এই মহানগরীর অনেক বিত্তশালী সিসিকের কর পরিশোধ করেন না-মেয়র এমন তথ্য প্রকাশ করলে উপস্থিতি সাধারণ নাগরিকরা কর পরিশোধ না করা ব্যক্তিদের প্রতি ধিক্কার জানান।
মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল নাগরিকদের মতামতকে মূল্যায়ন করে যৌক্তিক, প্রাসঙ্গিক ও সহনীয় মাত্রায় কর ধার্য্য করার আহবান জানান।
অন্যদিকে সিসিক মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী আবারও নিশ্চয়তা দেন, দ্রুত সময়ে মধ্যে কাউন্সিলরদের নিয়ে সাধারণ সভা করে যৌক্তিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে হোল্ডিং ট্যাক্স সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা হবে।
সিসিকের এই সাধারণ সভা ডাকা হয়েছিল বৃহস্পতিবার রাত ৯টায়। পরে তা পিছিয়ে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় নেওয়া হয়েছে।
এই সভায়ই ভাগ্য নির্ধারিত হবে সিলেট সিটি করপোরেশনের নতুন হোল্ডিং ট্যাক্সের। তা স্থগিত না বাতিল হবে নাকি বহাল রেখেই মেয়রের ঘোষণা অনুযায়ী বিধিসম্মতভাবে পুনর্বিবেচনার মাধ্যমে ‘গৃহ কর’ সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা হবে তা জানার জন্যে রাত ৮টা পর্য়ন্ত অপেক্ষা করতেই হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest