NATIONAL
Prime Minister Sheikh Hasina's visit to China has elevated bilateral relations to a comprehensive strategic cooperative partnership : Chinese media || প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফর দুদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে একটি ব্যাপক কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বে উন্নীত করেছে : চীনের বিভিন্ন গণমাধ্যম
সংবাদ সংক্ষেপ
মাদকের ভয়াল গ্রাস থেকে সন্তানদেরকে বাঁচাতে হবে : বিভাগীয় কমিশনার কোটা সংস্কার দাবিতে সুনামগঞ্জে পদযাত্রা ও স্মারকলিপি প্রদান ব্রিটেনের কার্ডিফে বার্মিংহামে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কনস্যুলার সার্ভিস প্রদান শাল্লায় বন্যা পরবর্তী পরিস্থিতি || উপজেলাজুড়ে জ্বরের প্রকোপ সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশের অভিযানে একদিনে দেড় হাজার বস্তা ভারতীয় চিনি আটক দক্ষিণ সুরমাসহ সিলেটের বিভিন্ন এলাকায় সড়কে ও পরীক্ষাকেন্দ্রে এখনও পানি সুনামগঞ্জে সংবাদিকদের সঙ্গে নবাগত পুলিশ সুপারের মতবিনিময় মৌলভীবাজারে ইউপি উপনির্বাচন ২৭ জুলাই || প্রতীক বরাদ্দ || ভোটগ্রহণ ইভিএমে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৫ কার্টন সিগারেট ও ৮ কেজি জর্দা আটক সিলেট বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে দক্ষিণ সুরমায় ত্রাণ বিতরণ শ্রীমঙ্গলে প্রতিপক্ষের হামলায় বার কাউন্সিলের পরীক্ষার্থী নিহত প্রবাসীরা দুর্যোগে-ক্রান্তিকালে দেশের মানুষের পাশে থাকেন : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ মৌলভীবাজারে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত || বিশেষ সম্মাননা প্রদান প্রবাসীরা দেশের অর্থনীতির অন্যতম চাবিকাঠি : মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সুশাসন নিশ্চিত করতে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করবেন সিলেটের নবাগত পুলিশ সুপার

সিলেটে যেভাবে উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল কবি শামসুর রাহমানের সংবর্ধনার

  • সোমবার, ৩ জুলাই, ২০২৩

বাংলাদেশের প্রধান কবি হিসেবে নন্দিত শামসুর রাহমানকে সিলেটে সংবর্ধনা জ্ঞাপনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল প্রায় ২৮ বছর আগে; কিন্তু সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেও উদ্যোগটিকে সফলতার মুখ দেখানো যায়নি। কারণ তখন রাষ্ট্রব্যবস্থা ছিল প্রতিকূলে। তাই একাত্তরে ‘তুমি আসবে বলে হে স্বাধীনতা’ আকুতি নিয়ে অপেক্ষমান কবিকে সংবর্ধনা জ্ঞাপনের গর্ববোধের সুযোগ হলোনা সিলেটবাসীর। ব্যর্থতার এই গ্লানি এখনও মুছে যায়নি। শুকোয়নি সেই ক্ষতগুলো। কবি নজরুল অডিটোরিয়ামে সর্বশেষ প্রস্তুতি চলাকালে বাইরে থেকে আয়োজকদের হত্যার হীন উদ্দেশ্যে অগ্নিসংযোগ, উদ্যোক্তাদের উপর সশস্ত্র হামলা আর হুমকির অশ্রাব্য শব্দগুলো ইতিহাসের কালো অধ্যায় হয়ে আছে।
ইতিহাস ঘেঁটে তুলে আনা তথ্য অনুযায়ী : সিলেটে কবি শামসুর রাহমানকে সংবর্ধনা জ্ঞাপনের উদ্দেশ্যে ১৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫, বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টায় মদনমোহন কলেজ গ্রন্থাগারে (প্রধান ফটক সংলগ্ন ছিল) বৃহত্তর সিলেটের কবি-সাহিত্যিক, সাংবাদিক, সংস্কৃতিকর্মী, শিক্ষাবিদ, জনপ্রতিনিধি ও রাজনীতিবিদসহ সর্বস্তরের সুধীবৃন্দের সমন্বয়ে এক প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম উপাচার্য ভাষাসংগ্রামী প্রফেসর সদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরী।
প্রাপ্ত তালিকায় উল্লেখিত নাম ও ক্রম অনুসারে প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত ছিলেন অধ্যাপক মো হাবিবুর রহমান, অ্যাডভোকেট সুধীরেন্দ্রনাথ অর্জুন, অধ্যাপক ড সফিউদ্দিন আহমদ, প্রবীণ রাজনীতিবিদ দেওয়ান ফরিদ গাজী, অধ্যাপক মোহাম্মদ আবুল বশর, প্রবীণ রাজনীতিবিদ প্রসূন কান্তি রায় (বরুন রায়), সুনামগঞ্জ পৌসভার চেয়ারম্যান মমিনুল মউজদীন, সিলেট পৌরসভার চেয়ারম্যান বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, অধ্যাপক প্রশান্ত কুমার সাহা, ফখরুল ইসলাম, সমাজসেবী শামসুল আলম চৌধুরী, সাংবাদিক আহমেদ নূর, সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ, সাংবাদিক আল আজাদ, সংগঠক আমিনুল হক চুন্নু, জহির উদ্দিন আমীন, সুকেশ চন্দ্র দেব, সুরাজ চৌধুরী, জাহিদুল ইসলাম, বাদল কর, লেখক মো ফারুক আহমদ, পরিবেশ কর্মী আব্দুল করিম কিম, সাংবাদিক ইব্রাহীম চৌধুরী খোকন, অধ্যাপক শামসুল আলম, সফিকুল ইসলাম, সাংবাদিক ইখতিয়ার উদ্দিন, সংগঠক এ এ সাকির আহমদ সিকদার, মো আব্দুল আলীম, সংস্কৃতিকর্মী এনামুল মুনীর, ওস্তাদ রামকানাই দাস, শাহেদ আলী, গোলাম রাব্বি, কবি মুতাসিম আলী, লেখক রফিকুর রহমান লজু, সংগঠক মোহাম্মদ নূরুজ্জামান, অভিজিৎ চৌধুরী, রজত কান্তি সোম, মুজিবুর রহমান, শামস নূর, সালেহ আহমদ খান, অরুণ কান্তি পুরকায়স্থ, তাপসী চক্রবর্তী, অধ্যাপক ক্যাথারীনা রোজারীও, গল্পকার মাহবুবুজ্জামান চৌধুরী, গবেষক মিহির কান্তি চৌধুরী, আফতাব হোসেন, অধ্যাপক গ ক ম আলমগীর, সালেহ আহমদ চৌধুরী, মনিরুজ্জামান চৌধুরী, সেলিম আহমদ সেলিম, মাহফুজুর রহমান, বিশ্বরূপ দে পিকলু, তৌফিক দোলন, ক্রীড়া সংগঠক দিলদার হোসেন সেলিম, ব্রজগোপাল চৌধুরী, গণসংগীত শিল্পী ভবতোষ চৌধুরী, চিত্রশিল্পী অরবিন্দ দাসগুপ্ত, দীপক ভট্টাচার্য, সংস্কৃতিকর্মী আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন, সোহেল আহমদ খান, কবি সাব্রী সাবেরীন, শামীমুল হক শামীম, ফয়সাল আহমেদ, কবি জফির সেতু, কবি শামীম শাহান, রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রানাকুমার সিনহা, নাট্যকার বিদ্যুৎ কর, প্রিয়ক রশীদ, সংস্কৃতিকর্মী রাকেশ ভট্টাচার্য, আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, অ্যাডভোকেট বেদানন্দ ভট্টাচার্য, অধ্যাপক বাহাউদ্দিন জাকারিয়া, নাট্যজন হেমচন্দ্র ভট্টাচার্য, এনজিওকর্মী সদানন্দ ভট্টাচার্য, নজমুল হক, গৌরগবিন্দ গোস্বামী, অধ্যাপক ড গৌরাঙ্গ দেবরায়, সংস্কৃতিকর্মী শামসুল বাসিত শেরো, ছড়াকার ফতেহ ওসমানী, রফিক আহমদ, কবি তুষার কর, সংগঠক সুপ্রিয় চক্রবর্তী, অধ্যাপক গোলাম হোসেন আজাদ, অধ্যাপক আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, নূরুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান মাহবুব, সাংবাদিক ইকরামুল কবির, সংস্কৃতিকর্মী আব্দুল কাইয়ুম মুকুল, আমিরুল ইসলাম বাবু, দেলোয়ার হোসেন দিলু, কবি শুভেন্দু ইমাম, মৌলভীবাজার পৌরসভার চেয়ারম্যান সৈয়দ মহসীন আলী, কবি আকমল হোসেন নিপু, সাংস্কৃতিক সংগঠক মাহফুজুর রহমান, সংস্কৃতিকর্মী অনুপ কুমার দেব, আনোয়ারুল হক লাভলু, নৃত্যগুরু শ্রীহরি দাস, ডা সুধাময় মজুমদার, জয়নুল আবেদীন, শাহীন আহমদ, কবি মাহবুব লীলেন, আসাদুর রহমান তুষার, সাংবাদিক আজিজ আহমদ সেলিম, অধ্যাপক মো আব্দুল আজিজ ও কবি এ কে শেরাম।
সভার শুরুতে উদ্যোক্তাদের পক্ষে স্বাগত ভাষণ দেন প্রফেসর হাবিবুর রহমান। তিনি সিলেটে কবি শামসুর রাহমানকে সংবর্ধনার উদ্যোগের পটভূমি বর্ণনা করে বলেন, রাষ্ট্র যেখানে দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সম্মাননা ও পৃষ্ঠপোষকতায় উদাসীন ও কৃপণ-সেখানে সিলেটের জনসাধারণ তাদের প্রিয় কবিকে আন্তরিক ভালোবাসা দিয়ে সংবর্ধনা প্রদর্শনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য ও মতামত উপস্থাপন করেন, দেওয়ান ফরিদ গাজী, বরুণ রায়, প্রফেসর আবুল বশর, প্রফেসর মো আব্দুল আজিজ, সফিউদ্দিন আহমদ, হেমচন্দ্র ভট্টাচার্য, বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সৈয়দ মহসীন আলী, মমিনুল মউজদীন, বেদানন্দ ভট্টাচার্য, আল আজাদ, সুপ্রিয় চক্রবর্তী, আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, ইব্রাহীম চৌধুরী খোকন, দিলদার হোসেন সেলিম প্রমুখ।
সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত :
১. এই সভা কবি শামসুর রাহমানকে বৃহত্তর সিলেটবাসীর পক্ষ থেকে সংবর্ধনা প্রদানের ব্যাপারে সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।
২. এই সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ‘কবি শামসুর রাহমান সংবর্ধনা পরিষদ, সিলেট’নামে সাধারণ কমিটি গঠনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রস্তুতি সভায় উপস্থিত সকল সদস্যসহ বৃহত্তর সিলেটে কবির গুণগ্রাহীরা এই কমিটির সদস্য থাকবেন। কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সিদ্ধান্তক্রমে সাধারণ সদস্যের তালিকা চূড়ান্ত করা হবে।
৩. সভায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষ্যে ৪১ সদস্য বিশিষ্ট একটি কার্যনির্বাহী কমিটি গঠন করা হয়। কার্যনির্বাহী কমিটি নিম্নরূপ :
সভাপতি : প্রফেসর সদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরী। সহসভাপতি প্রফেসর আবুল বশর, প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ, দিলওয়ার, লেখক আকাদ্দস সিরাজুল ইসলাম ও শিক্ষাবিদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী।
সাধারণ সম্পাদক : প্রফেসর হাবিবুর রহমান। যুগ্মসম্পাদক : তুষার কর ও শুভেন্দু ইমাম। কোষাধ্যক্ষ : সুপ্রিয় চক্রবর্তী। সদস্য : শহীদ চৌধুরী (হবিগঞ্জ পৌরসভার চেয়ারম্যান), সৈয়দ মহসীন আলী, বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, মমিনুল মউজদীন, মহসিন আলী মধু (শ্রীমঙ্গল পৌরসভার চেয়ারম্যান), ড সফিউদ্দিন আহমদ, বাহাউদ্দিন জাকারিয়া, রামকানাই দাস, বিদিত লাল দাস (ওস্তাদ), হেমচন্দ্র ভট্টাচার্য, ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আরশ আলী, বিরাজ মধাব চক্রবর্তী (শিক্ষক), রাবেয়া খান আহমদ (অধ্যক্ষ ব্লুবার্ড স্কুল), দিলদার হোসেন সেলিম, মহিউদ্দিন শীরু (সাংবাদিক), হ্যারল্ড রশীদ চৌধুরী (সাংস্কৃতিক সংগঠক), অরবিন্দ দাসগুপ্ত, মুতাসীম আলী, মাহবুব আহসান চৌধুরী (সংগঠক), আল আজাদ, আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, গোলাম হোসেন আজাদ, শামসুল আলম, নজমুল হক, তনুজ কান্তি দে, মাহবুবুজ্জামান চৌধুরী, আফতাব হোসেন, সুধাময় মজুমদার, হোসেইন তওফিক চৌধুরী, রানাকুমার সিনহা ও মোস্তফা কামাল আহমদ।
৪. সভায় কবি শামসুর রাহমান সংবর্ধনা পরিষদের নিম্নলিখিত ১০টি উপ পরিষদ গঠন করা হয়।
এই উপজেলা পরিষদগুলো ছিল নিম্নরূপ।
অভ্যর্থনা উপ পরিষদ
আহবায়ক : প্রফেসর মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ। সদস্য : প্রফেসর আব্দুল মতিন, প্রফেসর আ ন আ আ মাহবুব আহমদ, প্রফেসর মুহম্মদ জাফর ইকবাল, ড সফিউদ্দিন আহমদ, বাহাউদ্দিন জাকারিয়া, ড গৌরাঙ্গ দেবরায়, প্রশান্ত কুমার সাহা, শামসুল আলম চৌধুরী, সুলতানা কামাল, রফিকুর রহমান লজু, সুরাইয়া রাজা চৌধুরী, দিলদার হোসেন সেলিম, আলতাফ হোসেন চৌধরী ও মনিরুজ্জামান চৌধুরী।
অর্থ উপ পরিষদ
আহবায়ক : সুপ্রিয় চক্রবর্তী। সদস্য : প্রফেসর হাবিবুর রহমান, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, শহীদ চৌধুরী, সৈয়দ মহসীন আলী, মমিনুল মউজদীন, মহসিন আলী মধু, অধ্যাপক মোহাম্মদ শফিক, ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আরশ আলী, যেহীন আহমদ (নির্বাহী পরিচালক এফআইভিডিবি), মনির উদ্দিন চৌধুরী, ডা ইহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল, সেলিম আহমদ, দেবাশীষ দে বাসু ও তুষার নাগ।
প্রচার উপ পরিষদ
আহবায়ক : মহিউদ্দিন শীরু। সদস্য : মুহম্মদ আব্দুস সাত্তার (সাংবাদিক), খুরশিদ আনোয়ার খান, আব্দুল মালিক চৌধুরী (সাংবাদিক), আজিজ আহমদ সেলিম, পার্থসারথি চৌধুরী (সাংবাদিক, হবিগঞ্জ), ইব্রাহীম চৌধুরী খোকন, অজয় পাল (সাংবাদিক), ইসহাক কাজল (সাংবাদিক), সৈয়দ আবু জাফর (সাংবাদিক, মৌলভীবাজার), ইখতিয়ার উদ্দিন, ইকরামুল কবির, আহমেদ নূর, আব্দুল হামিদ মাহবুব (সাংবাদিক, মৌলভীবাজার), আইনুল ইসলাম বাবলু (সাংবাদিক, সুনামগঞ্জ), আসাদুর রহমান তুষার, সিরাজ উদ্দিন আহমদ সোহাগ ও পীর হাবিবুর রহমান (সাংবাদিক, সুনামগঞ্জ)।
প্রকাশনা উপ পরিষদ
আহবায়ক : শুভেন্দু ইমাম। সদস্য : তুষার কর, মমিনুল মউজদীন, নূরুজ্জামান মনি, আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, আকমল হোসেন নিপু ও সাব্রী সাবেরীন।
সাংস্কৃতিক উপ পরিষদ
আহবায়ক (যুগ্মভাবে) : রামকানাই দাস ও হেমচন্দ্র ভট্টাচার্য। সদস্য : বিদিত লাল দাস, রঙ্গলাল দেব চৌধুরী (স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী), শ্রীহরি দাস, অনিল কিষণ সিংহ, শম্পা রেজা (নাট্যজন), হিমাংশু বিশ্বাস (কণ্ঠশিল্পী), রানাকুমার সিনহা, অভিজিৎ চৌধুরী, দিগ্বিজয় চৌধুরী (কণ্ঠশিল্পী, সুনামগঞ্জ), সিদ্ধার্থ বিশ্বাস, সালেহ আহমদ চৌধুরী, ভবতোষ চৌধুরী, মানবেন্দ্র গোস্বামী, শামীমা চৌধুরী, নজরুল কবির, আমিনুল ইসলাম চৌধুরী লিটন, ক্যাথারীনা রোজারীও, মাহফুজুর রহমান (মৌলভীবাজার), অনুপ কুমার দেব, প্রতীক এন্দ, সাকেরা আক্তার ও উত্তম ভৌমিক।
মঞ্চ ও সাজসজ্জা উপ পরিষদ
আহবায়ক : অরবিন্দ দাসগুপ্ত। সদস্য : ইসফাক আফরোজ, বিদ্যুৎ কর, আব্দুল কাইয়ুম মুকুল, শামসুল বাসিত শেরো, মালিক আক্তার, বিশ্বরূপ দে পিকলু, পরিতোষ হাজরা, পংকজ দাস, বিভাসশ্যাম পুরকায়স্থ, জয়নুল আবেদীন, ইন্দিরা অমৃত সিংহ, মিলন কুমার দাস ও শাহীন আহমদ।
আপ্যায়ন উপ পরিষদ
আহবায়ক : মাহবুব আহসান চৌধুরী। সদস্য : মোহাম্মদ ফারুক আহমদ, মনির আহমদ, এ কে শেরাম, শামশাদ হুসাম (সাংবাদিক), মোহাম্মদ নূরুজ্জামান, সেকিল চৌধুরী, হামিদ মোহাম্মদ (সাংবাদিক), তাপসী চক্রবর্তী, জহির খান লায়েক, শাহেদ আলী, গোলাম রাব্বি, শাহ আবু তাহের ও মানস সোম।
শোভাযাত্রা উপ পরিষদ
আহবায়ক (যুগ্মভাবে) : বিরাজ মাধব চক্রবর্তী ও রাবেয়া আহমদ খান। সদস্য : ফখরুল ইসলাম, গ ক ম আলমগীর, গৌরগোবিন্দ গোস্বামী, ভবতোষ রায় বর্মন (নাট্য সংগঠক), মাহবুবুজ্জামান চৌধুরী, মুহিব আলী, অরুণ কান্তি পুরকায়স্থ, শামীমুল হক শামীম, সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী ও তাজুল ইসলাম।
প্রদর্শনী উপ পরিষদ
আহবায়ক : আল আজাদ। সদস্য : নৃপেন্দ্র লাল দাশ (অধ্যাপক), নিতাই সেন, রফিক আহমদ, আফতাব হোসেন, মিহিরকান্তি চৌধুরী, জহির উদ্দিন আমিন, তাজুল মোহাম্মদ, প্রিয়ক রশীদ, আহমদ মিনহাজ, মাহবুব লীলেন, জগলু চৌধুরী, জফির সেতু, তৌফিক দোলন, সোহেল আহমদ খান ও মোস্তাক আহমাদ দীন।
হল ব্যবস্থাপনা ও শৃঙ্খলা উপ পরিষদ
আহবায়ক : ব্যারিস্টার মোহাম্মদ আরশ আলী। সদস্য : নিজাম উদ্দিন লস্কর (নাট্য সংগঠক), তনুজ কান্তি দে, আশরাফুল ইসলাম চৌধুরী, এনামুল মুনীর, এস এম আব্দুল হাকিম, আশরাফ আলম মামুন, অরিন্দম দত্ত চন্দন (নাট্য সংগঠক), আব্দুল করিম বাবুল, প্রিয়জ্যোতি দাস বাবু, রাকেশ ভট্টাচার্য ও শামস নূর।
এছাড়াও বৃহত্তর সিলেটের বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে পৃষ্ঠপোষক কমিটি গঠন করা হয়। এতে ছিলেন দেওয়ান ফরিদ গাজী, কমলা কান্ত গুপ্ত (গবেষক), শাহ আব্দুল করিম, বরুণ রায়, পীর হবিবুর রহমান (প্রবীণ রাজনীতিবিদ), আব্দুজ জহুর (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, সুনামগঞ্জ), চৌধুরী আব্দুল হাই (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, হবিগঞ্জ), মোস্তফা শহীদ (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, হবিগঞ্জ), সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, সুনামগঞ্জ), আজিজুর রহমান (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, মৌলভীবাজার), এম এ শহীদ (প্রবীণ রাজনীতিবিদ, মৌলভীবাজার), কৃষ্ণ কুমার পাল চৌধুরী (শিক্ষাবিদ), আব্দুল হামিদ (প্রবীণ রাজনীতিবিদ), সা’আদত খান (প্রবীণ রাজনীতিবিদ), সুধীরেন্দ্রনাথ অর্জন, এস কে রায়, আ ফ ম কামাল, নূরুল ইসলাম, এম মুহিবুর রহমান ও ডা রশিদী মাহবুব।
সভায় সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, কার্যনির্বাহী কমিটি বিভিন্ন উপ পরিষদে নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্ত করতে পারবে।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের জন্য প্রয়োজনীয় তহবিল সংগ্রহের লক্ষ্যে এই সভা কার্যনির্বাহী কমিটিকে ক্ষমতা প্রদান করে।
সভায় ‘কবি শামসুর রাহমান সংবর্ধনা পরিষদ, সিলেট’নামে একটি ব্যাংক হিসাব (একাউন্ট) খোলার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়, যা কার্যনির্বাহী কমিটির কোষাধ্যক্ষ সহ সভাপতি অথবা সাধারণ সম্পাদকের যৌথ স্বাক্ষরে পরিচালিত হবে।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের তারিখ কবির সম্মতি সাপেক্ষে নির্ধারণের জন্য সভায় কার্যনির্বাহী কমিটিকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।
সভায় উদ্যোক্তাদের পক্ষে আগত সুধীবৃন্দকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন শুভেন্দু ইমাম।
এর দু’দিন পর ১৮ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৩টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমি কার্যালয়ে কবি শামসুর রাহমান সংবর্ধনা পরিষদ, সিলেটের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভা প্রফেসর সদরুদ্দিন আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
এতে উপস্থিত ছিলেন, মো আবুল বশর, হাবিবুর রহমান, সফিউদ্দিন আহমদ, রামকানাই দাস, বিরাজ মাধব চক্রবর্তী, আল আজাদ, মাহবুব আহসান চৌধুরী, মাহবুবুজ্জামান চৌধুরী, অরবিন্দ দাসগুপ্ত, মহিউদ্দিন শীরু, মোহাম্মদ আব্দুল আজিজ, আবুল ফতেহ ফাত্তাহ, শুভেন্দু ইমাম, শামসুল আলম, সুপ্রিয় চক্রবর্তী, আফতাব হোসেন, তুষার কর, সুধাময় মজুমদার, গোলাম হোসেন আজাদ, হেমচন্দ্র ভট্টাচার্য ও মোহাম্মদ আরশ আলী।
সভায় গৃহীত সিদ্ধান্ত :
১. সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের তারিখ ৩১ মার্চ ১৯৯৫ কবির অনুমতি সাপেক্ষে নির্ধারণ করা হয়।
২. সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের স্থান সিলেট অডিটোরিয়াম (এখন কবি নজরুল অডিটোরিয়াম) নির্ধারণ করা হয়।
৩. কবি শামসুর রাহমান সংবর্ধনা পরিষদের কার্যনির্বাহী কমিটির জন্য প্যাড, সিল ও রসিদ বই প্রস্তুত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
৪. সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে কবিকে প্রদানের উদ্দেশ্যে একটি মানপত্র রচনার দায়িত্ব তুষার কর, শুভেন্দু ইমাম ও আবুল ফতেহ ফাত্তাহকে প্রদান করা হয়।
৫. ৫ মার্চ ১৯৯৫ তারিখের মধ্যে প্রত্যেক উপ পরিষদের সভা অনুষ্ঠানের জন্য সংশ্লিষ্ট আহবায়কদের অনুরোধ জানানো হয়।
৬. ৬ মার্চ বিকেল ৩টায় শিল্পকলা একাডেমিতে কার্যনির্বাহী কমিটির সভা অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
৭. কার্যনির্বাহী কমিটিতে ফখরুল ইসলাম ও শিক্ষাবিদ আবু হেনা চৌধুরীকে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
৮. অভ্যর্থনা উপ পরিষদে সিলেট শাখা বিএমএর সাধারণ সম্পাদক ডা মঈনুল ইসলামকে অন্তর্ভুক্তির সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
৯. কবি শামসুর রাহমানের সংবর্ধনা উপলক্ষে আবৃত্তি, বক্তৃতা, প্রবন্ধ রচনা ও চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতার আয়োজনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।
সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest