JUST NEWS
SYLHET RANGE DIG MOFIZ UDDIN AHMED PPM SAID THAT NO ONE HAS THE RIGHT TO DESTROY HARMONY IN BANGLADESH
সংবাদ সংক্ষেপ
National Girl Child Day is celebrated in various programs in Sylhet কন্যা শিশুরা অধিকার সচেতন হলে সমাজে উপযুক্ত জায়গা করে নেবে Government has ensured equal rights for people of all religions: Nasir সরকার সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছে : নাসির No one has the right to destroy social harmony : Sylhet range DIG সামাজিক সম্প্রীতি নষ্ট করার অধিকার কারো নেই : শাল্লায় সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মাধবপুরে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা সুনামগঞ্জে মহানবমীতে মণ্ডপে মণ্ডপে দেবীর চরণে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ মধ্যনগরে দুর্গোৎসবের মহানবমীতে প্রতিটি মণ্ডপে ব্যাপক ভক্ত সমাগম সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিভিন্ন এলাকার পূজামণ্ডপ পরিদর্শন গোলাপগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কার্যালয়ে নার্সারি প্রশিক্ষণ কর্মশালা দক্ষিণ সুরমায় কাঁশবন রাস্তা সংস্কার দাবিতে স্মারকলিপি পেশ নবীগঞ্জে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের দুর্গাপূজা পরিদর্শন আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম মহানগর শাখার কর্মী সম্মেলন সম্পন্ন শ্রীমঙ্গলে কুমারী পূজার আনন্দে মেতেছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মধ্যনগরে বংশীকুণ্ডা ইউনিয়ন যুবদলের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত

সিলেটে গুলশান সেন্টারে গ্রেনেড হামলার ১৬তম বার্ষিকী আজ

  • শুক্রবার, ৭ আগস্ট, ২০২০

আল আজাদ : আজ ৭ আগস্ট শুক্রবার। গুলশান সেন্টারে গ্রেনেড হামলার ১৬তম বার্ষিকী। দিনটি পালনে সকাল সাড়ে ১০টায় সিলেট মহানগরীর চালিবন্দরে ইব্রাহিম স্মৃতি সংসদে দোয়া ও শিরণি বিতরণের কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।
২০০৪ সালে গ্রেনেড-বোমায় ক্ষত-বিক্ষত সিলেটে আগস্টের ৭ তারিখ ছিল শনিবার। সন্ধ্যায় তালতলা এলাকার গুলশান সেন্টারে (হোটেল গুলশান সংলগ্ন এবং একই মালিকানাধীন) অন্যান্য সময়ের মতোই মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী পরিষদের একটি সভা বসেছিল। প্রধান আলোচ্যসূচি ছিল জাতীয় শোকদিবস পালন। সভাপতিত্ব করছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সিলেট সিটি করেপারেশনের মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান (সদ্য প্রয়াত)। সভায় প্রায় ৩৭ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন।
তবে কয়েকদিনের ঘটনাবলীর পরিপ্রেক্ষিতে মূলত জাতীয় শোকদিবসের কর্মসূচি চূড়ান্ত করেই রাত ৮টার দিকে অনেকটা তাড়াহুড়ো করে সভা শেষ করা হয়। মেয়রের তখন প্রয়াত এক নাগরিকের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সস্ত্রীক খাসদবির এলাকায় যাবার কথা ছিল। গুলশান সেন্টার থেকে বের হয়ে তিনি অভ্যাসবশত পাশের দোকান থেকে একটি পান খান। এই ফাঁকে গাড়িচালক গাড়িটি নিয়ে সামনের দিকে অগ্রসর হয়। এক পর্যায়ে মেয়র তাতে উঠে বসেন। তার স্ত্রী আসমা কামরান আগে থেকেই গাড়িতে বসা ছিলেন। গাড়িটি প্রধান সড়কে উঠে তালতলা সেতু পার হতেই মিনিট দেড়েকের ব্যবধানে পেছনে শোনা যায় প্রচণ্ড শব্দ। সাথে সাথে মেয়র গাড়ি ঘুরিয়ে হোটেল গুলশানে ফিরে যান। ততক্ষণে সেখানে রক্তের স্রোত বয়ে যেতে শুরু করেছে।
মহানগর আওয়ামী লীগের সভা চলাকালে মেয়রের গাড়ির উত্তর পাশে আগে থেকে দাঁড়ানো একটি জিপে বোমাটি বিস্ফোরিত হয়। মেয়রের গাড়ি ছিল মাঝখানে। দক্ষিণ পাশে ছিল আরেকটি জিপ। সেটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই গাড়িটি ছিল প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা এস. এম নুনু মিয়ার (এখন বিশ্বনাথ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান)। বোমা বিস্ফোরণের তীব্র প্রতিবাদ করায় পুলিশ তাকে হোটেল গুলশান থেকে গ্রেফতার করে। তার উপর অকথ্য নির্যাতন চালানো হয়। পরে তিনি মুক্তি পান।
খবর পেয়ে মিনিট দু’য়েকের মধ্যেই দমকল বাহিনীর লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে এসে আগুন নেভায়। এ বোমা হামলায় কমপক্ষে ৪০ জন আহত হন। এরমধ্যে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল ২৫ জনকে। গুরুতর আহত কয়েকজনের মধ্যে রাত ১টা ১০ মিনিটে মোহাম্মদ ইব্রাহিম (গড়দুয়ারা, হাটহাজারী, চট্টগ্রাম) মৃত্যুবরণ করেন। সিলেটে প্রায় ৩০ বছর ধরে বসবাস করছিলেন। এছাড়া মহানগর আওয়ামী লীগের তৎকালীন সহ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শওকত আলী স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করতে পারেন না। সাধারণ সম্পাদক (পরবর্তী সময়ে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক) অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, প্রবীণ নেতা এনামুল হক ও অন্যতম নেতা অ্যাডভোকেট রাজ উদ্দিন, অ্যাডভোকেট মফুর আলী, অধ্যাপক জাকির হোসেন (বর্তমানে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক), ফয়জুল আনোয়ার আলাওর, আনোয়ার হোসেন রানা, এ টি এম হাসান জেবুল, জুবের খান, কবির আহমদ, অ্যাডভোকেট রাধিকা রঞ্জন চৌধুরী ও তপন মিত্র এখনো ক্ষতচিহ্ন বয়ে বেড়াচ্ছে।
দমকল বাহিনীর উপপরিচালক তাজ উদ্দিন আহমদ ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সর্বপ্রথম ১২জন আহতকে নিয়ে যান। এর পর যে যেভাবে পারে আহতদেরকে চিকিৎসার জন্যে দ্রুত সেখানে নিয়ে যেতে থাকে। একপর্যায়ে প্রয়োজন দেখা দেয় রক্তের। এগিয়ে আসেন ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের ছাত্রছাত্রী এবং আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা। সেদিন চিকিৎসকরাও চিকিৎসা সেবায় নিজেদের দায়িত্বাবোধের যে পরিচয় দেন তা অবশ্যই সিলেটবাসী মনে চিরদিন মনে রাখবেন।
অ্যাডভোকেট রাজউদ্দিন সেই ভয়ংকর স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে জানান, ৫ আগস্ট সিলেটে বিভিন্ন সিনেমা হলে বোমা ও গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে বিকেলে কোর্ট পয়েন্টে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের জনসভা শেষ করে তারা গুলশান সেন্টারের সভায় যোগ দেন।
জুবের খান জানান, সভার শুরুতেই হোটেল গুলশানের একজন কর্মকর্তা নেতৃবৃন্দকে সতর্ক করে দেন, তাদেরকে নানা ধরনের হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest