সিলেটের কয়েকজন শহীদ বুদ্ধিজীবী : আল আজাদ

Published: 13. Dec. 2019 | Friday

একাত্তরের মধ্য ডিসেম্বর। বাংলাদেশের হারিয়ে যাওয়া স্বাধীনতা সূর্য উঁকি দিচ্ছে পূর্ব দিগন্তে। জাগতে খুব বেশি দেরি নেই আর। অকুতোভয়ে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছেন এ মাটির বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা। পাশে মিত্রবাহিনী। পাকিস্তানি হানাদার কর্তৃপক্ষ বুঝে নিলো, পরাজয় নিশ্চিত। তাই বুনলো চক্রান্তের নতুন জাল। আল-বদর, আল-শামস ও রাজাকারদেরকে নির্দেশ দিলো, এদেশের বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করে বাঙালি জাতিকে মেধা শূন্য করে দিতে। মীর জাফরের বংশধররা অবলীলায় তাই করলো।
কেবল ডিসেম্বর নয়, এর আগে এমনকি পঁচিশে মার্চের কালো রাতে ‘অপারেশন সার্চ লাইট’ শুরুর মুহূর্তেও এ মাটির সেরা সন্তান বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করা হয়। পাকিস্তানি হানাদাররা এদেশীয় ঘাতকদের সহায়তায় এ নিধনযজ্ঞ চালায় অবিরাম পুরো ন’মাস। পরাজয়ের ও আত্মসমর্পণের দু’দিন আগ পর্যন্ত। তবে সবচেয়ে বড় হত্যাকাণ্ডটি ঘটানো হয় ১৪ ডিসেম্বর রাজধানী ঢাকার বুকে। নৃশংসতার এমন নজির আর কোথাও নেই।
মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সিলেটের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের একজন ডা শামসুদ্দিন আহমদ। তিনি ছিলেন প্রগতিশীল রাজনীতির সমর্থক। ১৯৬৯ সালে রাজশাহীতে কর্মরত থাকা অবস্থায় পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ শহীদ ড শামসুজ্জোহার মরদেহের ময়না তদন্তের প্রতিবেদন কর্তৃপক্ষীয় ইচ্ছানুযায়ী দেওয়ার জন্যে তাকে নির্দেশ দেয়; কিন্তু এতে সফলকাম হতে না পারায় ক্ষেপে যায় তার উপর। একাত্তরে সেই ‘অবাধ্যতার’ প্রতিশোধ নেয়।
একাত্তরে ডা শামসুদ্দীন আহমদ সিলেট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। অসহযোগ আসেন্দালনের সময়ই তিনি রাজনৈতিক নেতাদের সাথে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেন, মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আহতদের শুশ্রুষার জন্যে শহরতলিতে খোলা হবে পাঁচটি চিকিৎসা কেন্দ্র। তার এই উদ্যোগ সফল না হলেও জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তাকে গুলিবিদ্ধ আর বোমার আঘাত প্রাপ্তদের সেবা করতে দেখা গেছে।
পাক সেনারা ৯ এপ্রিল সিলেট শহর পুন:দখল করে নেয়। সেদিন প্রচনণ্ড যুদ্ধ হয় মুক্তিবাহিনী ও পশ্চিমা দস্যুদের মধ্যে। আহত হয় অসংখ্য সাধারণ মানুষও। সামরিক কর্তৃপক্ষ ডা শামসুদ্দীন আহমদকে নির্দেশ দেয়, সেনা ছাউনিতে গিয়ে জখমপ্রাপ্ত সেনাদের চিকিৎসা করতে; কিন্তু তিনি তা উপেক্ষা করে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালেই আহত লোকজনের সেবা করতে থাকেন। এতে তার উপর আরো ক্ষেপে যায় জল্লাদরা। তাই তাকে ওইদিনই সহযোগী ডা শ্যামল চন্দ্র লালা ও আরো কয়েকজন সহ হত্যা করে।
বিয়ানীবাজার উপজেলার মাথিউরা গ্রামের শহীদ কমর উদ্দিন। তিনি ছিলেন বাউল শিল্পী এবং লন্ডন প্রবাসী। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হবার কিছুদিন আগে ফিরে আসেন দেশে। অগ্নিঝরা গান গেয়ে উদ্দীপ্ত করতে থাকেন মানুষকে। তার এই দেশাত্ববোধ এবং কর্মচাঞ্চল্যকে দালালরা মেনে নিতে পারেনি। এ কারণেই ১৯৭১ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর পাকিস্তানি হানাদারদের দিয়ে তাকে হত্যা করায়।
মাওলানা অলিউর রহমান পেশায় ছিলেন হোমিও চিকিৎসক। তার মূল বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার মইয়ারচর গ্রামের হলেও তিনি থাকতেন ঢাকায়। একাত্তরের ১২ ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার সেনারা লালবাগ মসজিদ থেকে স্থানীয় দালালদের সহযোগিতায় তাকে ধরে নিয়ে ১৪ ডিসেম্বর রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে হত্যা করে।
এই প্রখ্যাত আলেম অলিউর রহমান রাজনীতি করতেন। প্রথমদিকে জড়িত ছিলেন জামাতে ইসলামীর সাথে; কিন্তু এক পর্যায়ে এই ধর্ম ব্যবসায়ী রাজনৈতিক দলটির সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে গড়ে তুলেন আওয়ামী ওলামা পার্টি। প্রকাশ্যে সমর্থন জানান, ঐতিহাসিক ছয় দফার প্রতি। এছাড়া ‘ইসলামের দৃষ্টিতে ছয়দফা’ ‘যুক্তি ও কষ্টি পাথরে ছয়দফা’ ‘জয়বাংলা ও কয়েকটি শ্লোগান’ প্রভৃতি বইও লিখেন।
স্বতন্ত্র ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জন্যে মাওলানা অলিউর রহমানই প্রথম দাবি তুলেছিলেন।
রামরঞ্জন ভট্টাচার্য ছিলেন একজন আইনজীবী এবং সহকারী পাবিলিক প্রসিকিউটর (এপিপি)। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাত থেকে বাঁচতে তিনি স্ত্রী সহ সিলেট শহরের চালিবন্দরে বাসা ছেড়ে চলে যান বালাগঞ্জ উপজেলার বুরুঙ্গা এলাকায় তার এক পরিচিত জনের বাড়িতে। তবে সেখানেও তাকে নিরাপত্তার প্রয়োজনে একাধিকবার অবস্থান পরিবর্তন করতে হয়।
একাত্তরের ২৬ মে পশ্চিমা জল্লাদরা বুরুঙ্গায় গণহত্যা চালায়। হত্যা করে ৭৮ জন স্বাধীনতাকামী বাঙালিকে। এরমধ্যে অ্যাডভোকেট রামরঞ্জন ভট্টাচার্যও একজন। অন্য সবাইকে এক সাথে মারা হলেও এই নিঃসন্তান দেশপ্রেমিক আইনজীবীকে আলাদাভাবে চেয়ারে বসিয়ে প্রাণ সংহার করা হয়।
বিয়ানীবাজার উপজেলার কসবা গ্রামের আব্দুল মান্নান ছিলেন একজন ক্রীড়া সংগঠক ও ফুটবল রেফারি। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সাথে সাথেই তিনি হয়ে উঠেন অন্য মানুষ। ঝাঁপিয়ে পড়েন প্রিয় জন্মভূমির মুক্তির লড়াইয়ে। এ ‘অপরাধে’ পশ্চিমা জল্ল­াদরা তাকে ধরতে হানা দেয় বাড়িতে; কিন্তু না পেয়ে তার স্ত্রী-সন্তানদেরকে ধরে নিয়ে যায়।
আব্দুল মান্নান স্ত্রী-সন্তানদেরকে মুক্ত করতে শেষ পর্যন্ত ধরা দিতে বাধ্য হন। হানাদাররা ৮ জুন হত্যা করে তাকে। এর আগে তিনি তার এক ভাইকে পাকিস্তানি পশুদের উপর প্রতিশোধ নেয়ার নির্দেশ দিয়ে একটি চিঠি লিখে যান।

Share Button
August 2020
M T W T F S S
« Jul    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

দেশবাংলা