JUST NEWS
TEA WORKERS' 10 POINT IMPLEMENTATION MOVEMENT COMMITTEE HAS CONVENED A NATIONAL CONVENTION AT 11 AM ON SUNDAY AT THE PREMISES OF SYLHET CENTRAL SHAHID MINAR
সংবাদ সংক্ষেপ
The first meeting of Moulvibazar Zilla Parishad হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে ৩ দিন যাবত পানির অভাবে হাহাকার মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের নতুন চেয়ারম্যান-সদস্যদের প্রথম সভা Two-day Digital Innovation Fair started in Sylhet সিলেটে শুরু হয়েছে দুদিনব্যাপী ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা-২০২২ জাতীয় ইমাম সমিতি দক্ষিণ সুরমা উপজেলা কমিটি পুনর্গঠিত কেমুসাসে সিলেট ক্যালিগ্রাফি সোসাইটির ক্যালিগ্রাফি প্রদান Phon-o-live quiz show ‘Football Mastermind’ বিশ্বকাপ নিয়ে টফিতে চলছে ফুটবল মাস্টারমাইন্ড || জিততে পারেন উপহার গায়েবি মামলায় সেলিমকে কারাগারে পাঠানোর অভিযোগ বিএনপির সিলেট ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে লিটারারি ফেস্ট বাংলাদেশ অর্থনৈতিক দিক থেকে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় : চেম্বারস ওয়েলসের নির্বাহী চেয়ারম্যান বাহুবল উপজেলা ছাত্রলীগের পদ প্রত্যাশীদের মধ্যে হাতাহাতি সুনামগঞ্জ বুলচান্দ উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষকের মৃত্যুতে শোকসভা ও দোয়া সিলেট মোবাইল পাঠাগারের ৮০১ তম সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত মাহা-সিলেট জেলা প্রেসক্লাব অভ্যন্তরীণ ক্রীড়ার শনিবারের ফলাফল

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে জাতি পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করলো সেরা সন্তানদের

  • মঙ্গলবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

আল-আজাদ : ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে আমাদের বিজয় যখন সুনিশ্চিত এবং স্বাধীনতার লাল সূর্য উদয়ের পথে ঠিক তখনই ১৪ই ডিসেম্বর পশ্চিমা হানাদার সেনারা তাদের এ দেশীয় দোসর আল বদর ও আল শামসদের সহায়তায় বাঙালির মেধাবী সন্তানদের বেছে বেছে হত্যা করে।
এই নৃশংসতার উদ্দেশ্য ছিল, আমাদেরকে মেধাশূন্য করে দেয়া, যাতে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করলেও স্বাধীনতার স্বাদ উপলব্ধি করতে না পারি।
জাতি তাই প্রতি বছর একটি নির্দিষ্ট দিনে সেই শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণ করে। এ দিনটিই শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। বর্ষ পরিক্রমায় দিনটি বাঙালিকে বিশেষভাবে নাড়া দেয়।
এবারও জাতি শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে ড জি সি দেব, অধ্যাপক মুনীর চৌধুরী ও ডা শামসুদ্দিন আহমদদের পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করেছে।
শহীদ বুদ্ধিজীবী : সিলেট
একাত্তরের মধ্য ডিসেম্বর। বাংলাদেশের হারিয়ে যাওয়া স্বাধীনতা সূর্য উঁকে দিচ্ছে পূর্ব দিগন্তে। জাগতে খুব বেশি দেরি নেই আর। অকুতোভয়ে দুর্বার গতিতে এগিয়ে চলেছেন এ মাটির বীর সন্তান মুক্তিযোদ্ধারা। পাশে মিত্রবাহিনী। পাকিস্তানি হানাদার কর্তৃপক্ষ বুঝে নিলো, পরাজয় নিশ্চিত। তাই বুনলো চক্রান্তের নতুন জাল। আল-বদর, আল-শামস ও রাজাকারদেরকে নির্দেশ দিলো, এদেশের বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করে বাঙালি জাতিকে মেধাশূন্য করে দিতে। মীর জাফরের বংশধররা অবলীলায় তাই করলো।
কেবল ডিসেম্বর নয়, এর আগে এমনকি ২৫শে মার্চের কালরাতে ‘অপারেশন সার্চ লাইট’ শুরুর মুহূর্তেও এ মাটির সেরা সন্তান বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করা হয়। পাকিস্তানি হানাদাররা এদেশীয় ঘাতকদের সহায়তায় এ নিধনযজ্ঞ চালায় অবিরাম পুরো নয়মাস। পরাজয়ের ও আত্মসমর্পণের দুইদিন আগে পর্যন্ত। তবে সবচেয়ে বড় হত্যাকাণ্ডটি ঘটানো হয় ১৪ই ডিসেম্বর রাজধানী ঢাকার বুকে। নৃশংসতার এমন নজির আর কোথাও নেই।
সিলেট অঞ্চলের অধিবাসী অনেক বুদ্ধিজীবীও দেশমাতৃকার মুক্তির সংগ্রামে আত্মাহুতি দেন। পাকিস্তানি হানাদার সেনারা জাতির এই শ্রেষ্ঠ সন্তানকে হত্যা করে নির্মমভাবে। এই শ্রেষ্ঠসন্তানদের কয়েকজনের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি এখানে তুলে ধরা হয়েছে।
ডা  শামসুদ্দিন আহমদ
মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় সিলেটের শহীদ বুদ্ধিজীবীদের একজন ডা শামসুদ্দিন আহমদ। তিনি ছিলেন প্রগতিশীল রাজনীতির সমর্থক। ১৯৬৯ সালে রাজশাহীতে কর্মরত থাকা অবস্থায় পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ শহীদ ড শামসুজ্জোহার মরদেহের ময়না তদন্তের প্রতিবেদন কর্তৃপক্ষীয় ইচ্ছানুযায়ী দেয়ার জন্যে তাকে নির্দেশ দেয়; কিন্তু এতে সফলকাম হতে না পারায় ক্ষেপে যায় তার উপর। একাত্তরে সেই অবাধ্যতার প্রতিশোধ নেয়।
একাত্তরে ডা শামসুদ্দীন আহমদ সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কর্মরত ছিলেন। অসহযোগ আন্দোলনের সময়ই তিনি রাজনৈতিক নেতাদের সাথে পরামর্শ করে সিদ্ধান্ত নেন, মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে আহতদের শুশ্রুষার জন্যে শহরতলিতে খোলা হবে পাঁচটি চিকিৎসা কেন্দ্র। তার এই উদ্যোগ সফল না হলেও জীবনের শেষদিন পর্যন্ত তাকে গুলিবিদ্ধ আর বোমার আঘাত প্রাপ্তদের সেবা করতে দেখা গেছে।
পাক সেনারা ৯ই এপ্রিল সিলেট শহর পুনঃদখল করে নেয়। সেদিন প্রচণ্ড যুদ্ধ হয় মুক্তিবাহিনী ও পশ্চিমা দস্যুদের মধ্যে। আহত হয় অসংখ্য সাধারণ মানুষও। সামরিক কর্তৃপক্ষ ডা শামসুদ্দীন আহমদকে নির্দেশ দেয় সেনা ছাউনিতে গিয়ে জখমপ্রাপ্ত সেনাদের চিকিৎসা করতে; কিন্তু তিনি তা উপেক্ষা করে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই আহত লোকজনের সেবা করতে থাকেন। এতে তার উপর আরো ক্ষেপে যায় জল্লাদরা। তাই তাকে ঐ দিনই সহযোগী ডা শ্যামল চন্দ্র লালা ও আরো কয়েকজন সহ হত্যা  করে।
কমর উদ্দিন
বিয়ানীবাজার উপজেলার মাথিউরা গ্রামের কমর উদ্দিন। তিনি ছিলেন বাউল শিল্পী এবং লন্ডন প্রবাসী; কিন্তু দেশের প্রতি টান ছিল বলে শত ব্যস্ততার মাঝেও সবসময় দেশে কখন কি ঘটছে সে খবর রাখতেন।
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হবার কিছুদিন আগেই তিনি দেশে ফিরে আসেন। অগ্নিঝরা গান গেয়ে উদ্দীপ্ত করতে থাকেন মানুষকে। তার এই দেশাত্ববোধ এবং কর্মচাঞ্চল্যকে দালালরা মেনে নিতে পারেনি। এ কারণেই ১৯৭১ সালের ১৯শে সেপ্টেম্বর পাকিস্তানি হানাদারদের দিয়ে তাকে হত্যা করায়।
মাওলানা অলিউর রহমান
মাওলানা অলিউর রহমান পেশায় ছিলেন হোমিও চিকিৎসক। তার মূল বাড়ি সিলেট সদর উপজেলার মইয়ারচর গ্রামের হলেও তিনি থাকতেন ঢাকায়। একাত্তরের ১২ই ডিসেম্বর পাকিস্তানি হানাদার সেনারা লালবাগ মসজিদ থেকে স্থানীয় দালালদের সহযোগিতায় তাকে ধরে নিয়ে ১৪ই ডিসেম্বর রায়ের বাজার বধ্যভূমিতে হত্যা করে।
এই প্রখ্যাত আলেম অলিউর রহমান রাজনীতি করতেন। প্রথমদিকে জড়িত ছিলেন জামাতে ইসলামীর সাথে; কিন্তু এক পর্যায়ে এই ধর্ম ব্যবসায়ী রাজনৈতিক দলটির সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে গড়ে তুলেন আওয়ামী ওলামা পার্টি। প্রকাশ্যে সমর্থন জানান ঐতিহাসিক ছয় দফার প্রতি। এছাড়া ‘ইসলামের দৃষ্টিতে ছয়দফা’ ‘যুক্তি ও কষ্টি পাথরে ছয়দফা’ ‘জয়বাংলা ও কয়েকটি শ্লোগান’ প্রভৃতি বইও লিখেন।
স্বতন্ত্র ধর্ম মন্ত্রণালয়ের জন্যে মাওলানা অলিউর রহমানই প্রথম দাবি তুলেছিলেন।
অ্যাডভোকেট রামরঞ্জন ভট্টাচার্য
রামরঞ্জন ভট্টাচার্য ছিলেন একজন আইনজীবী এবং সহকারী পাবিলিক প্রসিকিউটর (এপিপি)। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাত থেকে বাঁচতে তিনি স্ত্রী সহ সিলেট শহরের চালিবন্দরে বাসা ছেড়ে চলে যান বালাগঞ্জ উপজেলার বুরুঙ্গা এলাকায় তার এক পরিচিত জনের বাড়িতে। তবে সেখানেও তাকে নিরাপত্তার প্রয়োজনে একাধিকবার অবস্থান পরিবর্তন করতে হয়।
একাত্তরের ২৬শে মে পশ্চিমা জল্লাদরা বুরুঙ্গায় গণহত্যা চালায়। হত্যা করে ৭৮জন স্বাধীনতাকামী বাঙালিকে। এরমধ্যে অ্যাডভোকেট রামরঞ্জন ভট্টাচার্যও একজন। অন্য সবাইকে এক সাথে মারা হলেও এই নিঃসন্তান দেশপ্রেমিক আইনজীবীকে আলাদাভাবে চেয়ারে বসিয়ে প্রাণ সংহার করা হয়।
আব্দুল মান্নান
বিয়ানীবাজার উপজেলার কসবা গ্রামের আব্দুল মান্নান ছিলেন একজন ক্রীড়া সংগঠক ও ফুটবল রেফারি। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরুর সাথে সাথেই তিনি হয়ে উঠেন অন্য মানুষ। ঝাঁপিয়ে পড়েন প্রিয় জন্মভূমির মুক্তির লড়াইয়ে। এ ‘অপরাধে’ পশ্চিমা জল্লাদরা তাকে ধরতে হানা দেয় বাড়িতে; কিন্তু না পেয়ে তার স্ত্রী-সন্তানদেরকে ধরে নিয়ে যায়।
আব্দুল মান্নান স্ত্রী-সন্তানদেরকে মুক্ত করতে শেষ পর্যন্ত ধরা দিতে বাধ্য হন। হানাদাররা ৮ই জুন হত্যা করে তাকে। এর আগে তিনি তার এক ভাইকে পাকিস্তানি পশুদের উপর প্রতিশোধ নেয়ার নির্দেশ দিয়ে একটি চিঠি লিখে যান।
অন্যান্য
এছাড়া অ্যাডভোকেট এম এ হাফিজ, ডা আব্দুন নূর, ঢাকায় আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন দার্শনিক ড জি সি দেব, ড এম এ মুক্তাদির, অধ্যাপক অনুপ দ্বৈপায়ন ভট্টাচার্য ও প্রকৌশলী মোজাম্মেল আলী এবং চট্টগ্রামে বাঙালি সেনা কমকর্তা কর্নেল এম আর চৌধুরী ও উচ্চপদস্থ রেল কর্মকর্তা শফি আহমদকে পশ্চিমা হায়নার দল এবং ঘাতক রাজাকার-আল বদর-আল শামসরা হত্যা করে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest