সিলেটে যে আলো নিভে গেলো হঠাৎ করেই : আল আজাদ

Published: 25. May. 2020 | Monday

২০০২ সালের শেষদিক। সেন্টার ফর ইমপ্রুভমেন্ট অব প্রেস (সিআইপি) আয়োজিত শুধুমাত্র নারীদের জন্যে সাংবাদিকতা বিষয়ক প্রশিক্ষণের দিনক্ষণ চূড়ান্ত। প্রস্তুতিও প্রায় সম্পন্ন। এমনি অবস্থায় একদিন সন্ধ্যার পর ফোন। ‘হ্যালো’ বলতেই অপর প্রান্ত থেকে ভেসে এলো মিষ্টি নারী কণ্ঠ, ‘আমার নাম রাহেনা। বাসা আপনাদের পাশেই-জল্লারপারে। আমি সাংবাদিকতা করতে আগ্রহী। তাই প্রশিক্ষণ নিতে চাই। পত্রিকায় দেখলাম, আপনাদের একটি প্রশিক্ষণ শুরু হচ্ছে; কিন্তু সামনে আমার পরীক্ষা। একারণে অংশ নিতে পারিছনা। যদি তারিখটা পিছিয়ে দিতে পারেন তাহলে অংশ নিতে পারো। দেখুন না, আমাকে সুযোগটা দিতে পারেন কি না।’
এক নিঃশ্বাসে কথাগুলো বলা হয়ে গেলো বলে আমি মাঝখানে কিছু বলার কোন সুযোগই পেলাম না।
শেষ বাক্যটায় ছিলো আব্দার; কিন্তু আমার কেন জানি মনে হলো, এটা তার দাবি। আর দাবিটাও যথার্থ। কারণ আমরা যাকে বা যাদেরকে খুঁজছি এতো সে-ই, তাদেরই একজন। তাকে সুযোগ না দিলে সিআইপি’র এ আয়োজনটাই ব্যর্থ হয়ে যাবে।
প্রসঙ্গত: বলে নেই, সিআইপি’র লক্ষ্য প্রতিটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচি থেকে দু’য়েকজন সংবাদকর্মী বের করে আনা। এ যাবৎ তাই হয়েছে। তবে ব্যতিক্রম ঘটলো নারীদের জন্যে আয়োজিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে। এই প্রথম প্রশিক্ষণ কর্মসূচি শুরুর আগে এমনকি আমার বা আমার সহকর্মীদের সাথে দেখা-সাক্ষাৎ হবার আগেই যেন একজনকে পেয়ে গেলাম।
বাস্তবেও হলো তাই। ওই প্রশিক্ষণ কর্মসূচি থেকে রাহেনা বেগমই প্রথম বেরিয়ে আসে। সাংবাদিকতার জগতে পা রাখে আমার একজন একনিষ্ঠ সহকর্মী হিসেবে। সিআইপি’র একজন প্রতিবেদক হিসেবে তার সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি। সে-ই বিলকিস আক্তার সুমিকে সিআইপি’তে নিয়ে আসে। আমাকে বাধ্য করে সুমিকে সিআইপি কর্মীদলের একজন হিসেবে নিতে, যদিও একই প্রশিক্ষণে সুমিও ছিল; কিন্তু তার মাঝে তখন একজন সংবাদকর্মীর কোন সম্ভাবনা কারো চোখে পড়েনি। লেখালেখিতেও সে কাঁচা। তবে রাহেনা তার মাঝে অন্য সম্ভাবনা দেখেছিল। তাই আমি যত বলছিলাম, সুমি কাজ করতে পারবেনা, রাহেনা তত বলছিল, পারবে। শেষপর্যন্ত তার কথাই আমাকে মেনে নিতে হয়েছিল। তার বিশ্বাসটা যে কতবড় সত্য ছিল সেটা ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে।
রাহেনা এবং সুমি ছাড়াও সিআইপি’তে আরো দু’জন নারী প্রতিবেদক ছিল-ছালমা আক্তার মুন্নী ও শাহেলা চৌধুরী। তারা নিজের থেকেই এসেছিল। কোন প্রশিক্ষণ ছিলনা তাদের। তবে ভালই কাজ করছিল; কিন্তু শেষপর্যন্ত তারা এ পেশায় থাকেনি। এ চারজন মিলে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সিআইপি কার্যালয়কে মাতিয়ে রাখতো। দারুণ মিল ছিল তাদের মধ্যে। তাই বলে টুকটাক কিছূ মান-অভিমান যে হতো না-তা নয়। মাঝে মধ্যে আমরা দল বেঁধে বেড়াতে যেতাম। খুব মজা হতো। রাহেনাই মজা করতো সবচেয়ে বেশি। সারাক্ষণ সবাইকে হাসি-খুশি রাখার চেষ্টা করতো। ওর সাথে কথা না বলে থাকা যেতো না।
আমি ওদেরকে বলতাম সিআইপি’র চারকন্যা। তাদেরকে দায়িত্ব ভাগ করে দিয়েছিলাম। রাহেনা চ্যানেল আই’র কাজে আমাকে সহযোগিতা করতো। এ জন্যে তাকে আমি বিভিন্ন জায়গায় সিলেটে ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার প্রথম নারী সাংবাদিক হিসেবে পরিচয় করিয়ে দিতাম। যেহেতু ওই সময় সিলেটে প্রায় লাগাতার বোমা হামলা চলছিল সেহেতু ঢাকা থেকে চ্যানেল আই’র সংবাদ টিম সিলেট আসতো। এই সংবাদ টিমের সাথেও কাজ করেছে সে। সবার সাথে এত ভাল সম্পর্ক হয়েছিল যে, তার বিয়ের কার্ড ঢাকায় পৌঁছতে দেরি হওয়ায় অনেকে অভিমান করে তাকে ফোন পর্যন্ত করেছিলেন। এভাবেই সে খুব সহজে মানুষের আপন হয়ে যেতো।
একদিন এসে বললো, দৈনিক ‘শ্যামল সিলেট’ কয়েকজন রিপোর্টার নিয়োগ করবে। পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছে। সে আবেদন করবে। অনুমতি চাইলো। দিলাম। যথারীতি মৌখিক পরীক্ষা দিয়েই ছুটে এলো সিআইপি কার্যালয়ে। বললো, সম্পাদক চৌধুরী মুমতাজ আহমদকে একটা ফোন করতে। করলাম। অপর প্রান্ত থেকে মুমতাজ সরাসরি জানতে চাইলেন, রাহেনা আমার প্রার্থী কি না। বললাম, হ্যাঁ। ঝটপট বলে উঠলেন, ওর ফলাফল ভাল। এই নামের পাশে টিক চিহ্ন দিলাম। বলবেন, কাল যেন পত্রিকা দেখে। ওর মাঝে সম্ভাবনা আছে।
সেই থেকে রাহেনার কার্যকর সাংবাদিকতা জীবনের শুরু। আর আমার স্বপ্ন পূরণের সূচনা। তাই নির্দ্বিধায় বলতে পারি, রাহেনা আমার স্বপ্ন পূরণের প্রথম কারিগর। আমার কাছে তার এই পরিচয় সবচেয়ে বড় হয়ে থাকবে।
আমার স্বপ্ন ছিল, সিলেটে সাংবাদিকতায় নারীদের অংশ গ্রহণ বাড়ানো। উদ্দেশ্য ছিল, সুরমা পারে সাংবাদিকতায় নারীদের অনুপস্থিতির লজ্জা দূর করা। রাহেনা সেই লজ্জা দূর করতে পাহাড় সমান বাধা ডিঙ্গিয়ে ছুটে এসেছিল। তাই তাকে আমি ‘রবি’ বলে সম্বোধন করতাম। কারণ তার আলোতেই পরবর্তী অন্যরা আলোকিত হয়েছিল।
কিন্তু সেই আলো নিভে গেলো হঠাৎ করেই। কোলের একমাত্র সন্তান সুকন্যাকে একা রেখে ২০০৭ সালের ২৪ মে রাহেনা আত্মহননের মধ্য দিয়ে নতুন জীবনের শুরুতেই জীবনের ইতি টেনে দিলো।

Share Button
July 2020
M T W T F S S
« Jun    
 12345
6789101112
13141516171819
20212223242526
2728293031  

দেশবাংলা