NATIONAL
Prime Minister and Awami League President Sheikh Hasina said that Awami League came to power to give something to the people of the country but BNP comes to take || প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে দেশের জনগণকে কিছু দেওয়ার জন্য; কিন্তু বিএনপি আসে নিতে
সংবাদ সংক্ষেপ
Shafiq Chowdhury exchanged Eid greetings বিমানবন্দরে খোয়া যাওয়া এক প্রবাসীর ফোন ও পাসপোর্ট আরেক প্রবাসীর ঘর থেকে উদ্ধার প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী সংক্ষিপ্ত সফরে যুক্তরাজ্য যাচ্ছেন নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরীর সিলেটে বর্ষবরণ || জেলা প্রশাসনের মঙ্গল শোভাযাত্রা সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধু মুজিব : ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা || ম আমিনুল হক চুন্নু বিশেষ আয়োজন || বঙ্গবন্ধু মুজিব : ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা Eid-ul-Fitr is celebrated all over the country Prime Minister greeted all Freedom Fighters ডা জহিরুল ইসলাম অচিনপুরীর ফুফুর মৃত্যুতে প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরীর শোক দক্ষতা অর্জন করে ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করতে হবে সততার সঙ্গে : শফিক চৌধুরী মৌলভীবাজারে ঈদুল ফিতরের ৩টি জামাত হলো পৌর ঈদগা ময়দানে দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মার সুখ সমৃদ্ধি ও বিশ্বশান্তি কামনা করে ঈদুল ফিতর উদযাপিত চুনারুঘাটে বিপুল পরিমাণ জাল নোটসহ ১ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯ পবিত্র ঈদুল ফিতর রাতে পোহালেই || সিলেটে প্রধান জামাত ঐতিহাসিক শাহী ঈদগায় সিলেটবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ

যুক্তরাষ্ট্রের মুঠোফোন টিভি কম্পিউটার ওয়াই ফাই ও রেডিও নিষিদ্ধ শহর গ্রিন বাংক

  • বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

গোলাম সাদত জুয়েল : বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ আমেরিকা-যেখানে ৯৭ শতাংশ মানুষ মুঠোফোন (সেলফোন) ব্যবহার কর। স্মার্টফোন ব্যবহার করে ৪৭ শতাংশ আমেরিকান। আমেরিকার জনসংখ্যা ৩৭ কোটি। এর সিংহ ভাগ মানুষ মুঠোফোন ব্যবহার করছে । গত ১৫ বছরে আমেরিকায় মুঠোফোন ব্যবহার বেড়েছে ৭০ শতাংশ। মুঠোফোন ছাড়া কোন আমেরিকান এক দিন কেন কয়েক ঘণ্টাও চলতে পারবে না। অথচ আমেরিকার একটি শহরের মানুষ মুঠোফোন ছাড়া চলে। শহরের লোকসংখ্যা ১৪৭ জন। শহরটি ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার কোলাহল হীন নীরব শহর খ্যাত গ্রিন বাংক। শহরটরি ঊনিশ শতকের প্রথম দিকে গোরাপত্তন। সেখানে আছে বিজনেস স্ট্রিপ সেন্টার, আর্ট সেন্টার, এনটিক শপ, বাসকেট স্টোর, গ্রিন বাংক এনকরড স্কুল, পোস্ট অফিস, ডলার জেনারেল ও একটি বারবার শপ, জাতীয়ভাবে স্বীকৃত নাম্বার ১ রোরাল লাইব্রেরি (প্রতিষ্ঠিত ২০০৩ সালে) ও একটি গ্যাস স্টেশন। বছরে ২৫০০০ পর্যটক শহরটি দেখতে আসেন।
গ্রিন ব্যাংক শহরে প্রবেশের পর মুঠোফোন বা বেতারযন্ত্রের কোনো নেটওয়ার্ক মিলবে না। তারবিহীন ইন্টারনেট ব্যবহারের ওয়াই-ফাই প্রযুক্তিও নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়বে। খোদ মার্কিন মুলুকেরই শহর এটি, অবস্থান ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের অ্যালেগেনি পার্বত্য এলাকায়। গ্রিন ব্যাংকের আরেক নাম ‘যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে নীরব শহর’। সারাক্ষণ মুঠোফোন আর ইন্টারনেট যোগাযোগে অভ্যস্ত শহরবাসী যে কেউ সেখানে গেলে নিজেকে বিচ্ছিন্ন ভেবে আতঙ্কিত হয়ে উঠতে পারেন। মুঠোফোন বা স্মার্ট ফোন সহ তারবিহীন যন্ত্রপাতি সেখানে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এই নিষেধাজ্ঞা কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।
প্রযুক্তি বিশ্বজুড়েই জীবন ও যোগাযোগের ধরনে নিরন্তর পরিবর্তন ঘটালেও গ্রিন ব্যাংকে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো ইচ্ছে করেই বন্ধ রাখা হয়েছে। এমনকি মাইক্রোওয়েভ বা অতি ক্ষুদ্র তরঙ্গের ব্যবহারেও বিধিনিষেধ আছে। তার মানে এই নয় যে, গ্রিন বাংকের বাসিন্দারা অনগ্রসর ও অতীতমুখী অথবা প্রযুক্তি নিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত। বরং উল্টোটাই সত্যি। অ্যালেগেনি পর্বতমালা এলাকায় একদল গবেষক মহাবিশ্বের সুদূর প্রান্তে সশব্দে ফেটে পড়া ছায়াপথের আওয়াজ শুনছেন। এই সংকেত বা শব্দ অত্যন্ত ক্ষীণ, যা মুঠোফোন থেকে নির্গত শক্তির মাধ্যমে ভেসে যেতে পারে। এতে ছায়াপথের উৎপত্তি রহস্য জানতে উদ্‌গ্রীব বিজ্ঞানীদের গবেষণায় বিঘ্ন ঘটবে।
গ্রিন বাংক শহরটিতে ১৪৭ জন অধিবাসী বাস করে। ১৯৩২ সালে যখন বেল ল্যাব ইনস্টল করছিলেন সারা আমেরিকায় টেলি কমিউনিকেশন টান্সমিশন, তখন আমেরিকায় ইলেক্ট্রিক্যাল প্রকৌশলী হায়ার করে ডিসকাভার চেষ্টা করছিলেন সকল ধরনের শব্দ, দ্যা মিলকি ওয়ে গ্যালাক্সি, মাইক হলসটাইন, যিনি একজন টেলিস্কোপ ম্যানেজার, তার কাজ ছিল টেলিস্কোপের মাধ্যমে শব্দের তরঙ্গ খুঁজে বেড়ানো। দু দশক পরে আমেরিকা অনুধাবন করে, তাদের ইনভেস্ট করতে হবে দূরের শব্দ তরঙ্গ, যা টেলিস্কোপের মাধ্যমে সম্ভব; কিন্তু কোথায় টেলিস্কোপ স্থাপন করা যায়। ‍১৯৫৮ সালে তারা পেয়ে যায় গ্রিন ব্যাংক ৩৮তম প্যারালাল যা আইডিয়াল ফর মিলকিওয়ে। তখন তারা ১৩ হাজার স্কয়ার ফুটের জায়াগা কুইট জোন হিসাবে ঘোষনা করে।। গ্রিন ব্যাংক শহরে স্থাপন করা হয় বৃহদাকার টেলিস্কোপ এবং শহরটিকে রাখা হয় দিনরাত শব্দের নীরব জায়গা হিসাবে। কল ধরনের ইলেকট্রনিক্স সুবিধা বিহীন এলাকা হিসাবেও ঘোষণা করা হয়। এমনকি শহরের অটোমেটিক দরজাও খুলে ফেলা হয়। নিষিদ্ধ করা হয় মুঠোফোন, টিভি, কম্পিউটার, ওয়াই ফাই ও রেডিও সহ সকল তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার। তবে শহরের ১৪৭ জন অধিবাসী ল্যান্ড ফোন বা তারের সাহা্য্য ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন; কিন্তু তা খুব ধীর গতির। খুব সীমিত করে ফেলা হয় শহরের সকল ইলেকট্রিক ব্যবহার ।
তাই ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার পূর্বাঞ্চলের অর্ধেক, ভার্জিনিয়ার নির্দিষ্ট কিছু অংশ থেকে শুরু করে মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যের সীমান্ত পর্যন্ত মুঠোফোন ও অন্যান্য তারবিহীন যন্ত্রের ব্যবহার সীমিত আর গ্রিন ব্যাংকে পুরোপুরিই বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ। কারণ, এ শহরের কাছাকাছি এলাকায় বিজ্ঞানীরা স্থাপন করেছেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় রেডিও টেলিস্কোপ (রবার্ট সি বার্ড গ্রিন ব্যাংক টেলিস্কোপ)। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল রেডিও অ্যাস্ট্রোনমি অবজারভেটরি এটি নিয়ন্ত্রণ করে। দুই একর এলাকা জুড়ে বসানো সুবিশাল যন্ত্রটির ওজন ৭৭ লাখ ১১ হাজার কেজির বেশি। এটি কোটি কোটি মাইল দূরের আওয়াজ শুনতে পায়। গ্রিন ব্যাংক টেলিস্কোপ প্রকল্পের প্রধান বিজ্ঞানী জে লকম্যান জানান, ‘ছোট্ট গ্রামীণ একটা পরিবেশে তারা অত্যন্ত উচ্চ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করার সমন্বিত পরিবেশ পেয়েছেন। অতি ধীর শব্দ শুনতে চাইলে আশপাশের সব কোলাহল বন্ধ রাখা চাই।’

গোলাম সাদত জুয়েল : সাংবাদিক, ফ্লোরিডা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

সংবাদ অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest