JUST NEWS
CORONA UPDATE IN SYLHET DIVISION ON AUGUST 09 : TILL 8 AM SAMPLE TEST SYLHET 84 SUNAMGANJ 0 MOULVIBAZAR 4 HABIGANJ 4>IDENTIFIED SYLHET 4 SUNAMGANJ 0 MOULVIBAZAR 0 HABIGANJ 0<>RATE 04.21<>RECOVERY SYLHET 10 SUNAMGANJ 0 MOULVIBAZAR 0 HABIGANJ 0<>DEATH SYLHET 0
সংবাদ সংক্ষেপ
মাসখানেক পরেই সবকিছুই ঠিক হয়ে যাবে : বিদ্যুৎ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা মন্ত্রী সিলেটে বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির নির্বাচন শুক্রবার জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে সুনামগঞ্জে জাপার মিছিল সমাবেশ হবিগঞ্জে কারবালা স্মৃতির নানা প্রতীকসহ তাজিয়া মিছিল || ‘হায় হোসেন’ ‘হায় হোসেন’ মাতম সিলেটে ১৪ দলীয় জোটের শরিক ৫ দলের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ জ্বালালি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ওয়ার্কার্স পার্টির মানববন্ধন রজব আলী খানের মৃত্যুবার্ষিকীতে আলোচনা ও দোয়া মাহফিল গোলাপগঞ্জে প্রায় ৬ হাজার পিস ইয়াবা ও সোয়া ২ লাখ টাকাসহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার মাধবপুরে শ্মশানের রাস্তা জোরপূর্বক বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ নবীগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধা সুরঞ্জন দাস ও তার সহধর্মিণীর স্মরণে শোকবই জগন্নাথপুরে কৃষক হত্যা মামলায় ৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড উমেদনগর শিক্ষা ও উন্নয়ন ফোরামের উদ্যোগে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান সিলেট শিক্ষা বোর্ডের উদ্যোগে স্কুল ও কলেজে বঙ্গবন্ধুর বই বিতরণ নবীগঞ্জে বঙ্গমাতার জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা ও সেলাই মেশিন বিতরণ বাংলাদেশী আমেরিকান ক্রিকেটারদের চ্যাম্পিয়নশিপ লড়াই সেপ্টম্বরে বঙ্গমাতা ছিলেন বঙ্গবন্ধুর ছায়াসঙ্গী : সম্প্রীতি বাংলাদেশের আলোচনা সভায় পরিকল্পনা মন্ত্রী

যুক্তরাষ্ট্রের মুঠোফোন টিভি কম্পিউটার ওয়াই ফাই ও রেডিও নিষিদ্ধ শহর গ্রিন বাংক

  • বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

গোলাম সাদত জুয়েল : বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী দেশ আমেরিকা-যেখানে ৯৭ শতাংশ মানুষ মুঠোফোন (সেলফোন) ব্যবহার কর। স্মার্টফোন ব্যবহার করে ৪৭ শতাংশ আমেরিকান। আমেরিকার জনসংখ্যা ৩৭ কোটি। এর সিংহ ভাগ মানুষ মুঠোফোন ব্যবহার করছে । গত ১৫ বছরে আমেরিকায় মুঠোফোন ব্যবহার বেড়েছে ৭০ শতাংশ। মুঠোফোন ছাড়া কোন আমেরিকান এক দিন কেন কয়েক ঘণ্টাও চলতে পারবে না। অথচ আমেরিকার একটি শহরের মানুষ মুঠোফোন ছাড়া চলে। শহরের লোকসংখ্যা ১৪৭ জন। শহরটি ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার কোলাহল হীন নীরব শহর খ্যাত গ্রিন বাংক। শহরটরি ঊনিশ শতকের প্রথম দিকে গোরাপত্তন। সেখানে আছে বিজনেস স্ট্রিপ সেন্টার, আর্ট সেন্টার, এনটিক শপ, বাসকেট স্টোর, গ্রিন বাংক এনকরড স্কুল, পোস্ট অফিস, ডলার জেনারেল ও একটি বারবার শপ, জাতীয়ভাবে স্বীকৃত নাম্বার ১ রোরাল লাইব্রেরি (প্রতিষ্ঠিত ২০০৩ সালে) ও একটি গ্যাস স্টেশন। বছরে ২৫০০০ পর্যটক শহরটি দেখতে আসেন।
গ্রিন ব্যাংক শহরে প্রবেশের পর মুঠোফোন বা বেতারযন্ত্রের কোনো নেটওয়ার্ক মিলবে না। তারবিহীন ইন্টারনেট ব্যবহারের ওয়াই-ফাই প্রযুক্তিও নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়বে। খোদ মার্কিন মুলুকেরই শহর এটি, অবস্থান ওয়েস্ট ভার্জিনিয়া অঙ্গরাজ্যের অ্যালেগেনি পার্বত্য এলাকায়। গ্রিন ব্যাংকের আরেক নাম ‘যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে নীরব শহর’। সারাক্ষণ মুঠোফোন আর ইন্টারনেট যোগাযোগে অভ্যস্ত শহরবাসী যে কেউ সেখানে গেলে নিজেকে বিচ্ছিন্ন ভেবে আতঙ্কিত হয়ে উঠতে পারেন। মুঠোফোন বা স্মার্ট ফোন সহ তারবিহীন যন্ত্রপাতি সেখানে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। এই নিষেধাজ্ঞা কেউ অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার সুযোগ রয়েছে।
প্রযুক্তি বিশ্বজুড়েই জীবন ও যোগাযোগের ধরনে নিরন্তর পরিবর্তন ঘটালেও গ্রিন ব্যাংকে সার্বক্ষণিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো ইচ্ছে করেই বন্ধ রাখা হয়েছে। এমনকি মাইক্রোওয়েভ বা অতি ক্ষুদ্র তরঙ্গের ব্যবহারেও বিধিনিষেধ আছে। তার মানে এই নয় যে, গ্রিন বাংকের বাসিন্দারা অনগ্রসর ও অতীতমুখী অথবা প্রযুক্তি নিয়ে ভীতসন্ত্রস্ত। বরং উল্টোটাই সত্যি। অ্যালেগেনি পর্বতমালা এলাকায় একদল গবেষক মহাবিশ্বের সুদূর প্রান্তে সশব্দে ফেটে পড়া ছায়াপথের আওয়াজ শুনছেন। এই সংকেত বা শব্দ অত্যন্ত ক্ষীণ, যা মুঠোফোন থেকে নির্গত শক্তির মাধ্যমে ভেসে যেতে পারে। এতে ছায়াপথের উৎপত্তি রহস্য জানতে উদ্‌গ্রীব বিজ্ঞানীদের গবেষণায় বিঘ্ন ঘটবে।
গ্রিন বাংক শহরটিতে ১৪৭ জন অধিবাসী বাস করে। ১৯৩২ সালে যখন বেল ল্যাব ইনস্টল করছিলেন সারা আমেরিকায় টেলি কমিউনিকেশন টান্সমিশন, তখন আমেরিকায় ইলেক্ট্রিক্যাল প্রকৌশলী হায়ার করে ডিসকাভার চেষ্টা করছিলেন সকল ধরনের শব্দ, দ্যা মিলকি ওয়ে গ্যালাক্সি, মাইক হলসটাইন, যিনি একজন টেলিস্কোপ ম্যানেজার, তার কাজ ছিল টেলিস্কোপের মাধ্যমে শব্দের তরঙ্গ খুঁজে বেড়ানো। দু দশক পরে আমেরিকা অনুধাবন করে, তাদের ইনভেস্ট করতে হবে দূরের শব্দ তরঙ্গ, যা টেলিস্কোপের মাধ্যমে সম্ভব; কিন্তু কোথায় টেলিস্কোপ স্থাপন করা যায়। ‍১৯৫৮ সালে তারা পেয়ে যায় গ্রিন ব্যাংক ৩৮তম প্যারালাল যা আইডিয়াল ফর মিলকিওয়ে। তখন তারা ১৩ হাজার স্কয়ার ফুটের জায়াগা কুইট জোন হিসাবে ঘোষনা করে।। গ্রিন ব্যাংক শহরে স্থাপন করা হয় বৃহদাকার টেলিস্কোপ এবং শহরটিকে রাখা হয় দিনরাত শব্দের নীরব জায়গা হিসাবে। কল ধরনের ইলেকট্রনিক্স সুবিধা বিহীন এলাকা হিসাবেও ঘোষণা করা হয়। এমনকি শহরের অটোমেটিক দরজাও খুলে ফেলা হয়। নিষিদ্ধ করা হয় মুঠোফোন, টিভি, কম্পিউটার, ওয়াই ফাই ও রেডিও সহ সকল তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার। তবে শহরের ১৪৭ জন অধিবাসী ল্যান্ড ফোন বা তারের সাহা্য্য ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারেন; কিন্তু তা খুব ধীর গতির। খুব সীমিত করে ফেলা হয় শহরের সকল ইলেকট্রিক ব্যবহার ।
তাই ওয়েস্ট ভার্জিনিয়ার পূর্বাঞ্চলের অর্ধেক, ভার্জিনিয়ার নির্দিষ্ট কিছু অংশ থেকে শুরু করে মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যের সীমান্ত পর্যন্ত মুঠোফোন ও অন্যান্য তারবিহীন যন্ত্রের ব্যবহার সীমিত আর গ্রিন ব্যাংকে পুরোপুরিই বন্ধ রেখেছে কর্তৃপক্ষ। কারণ, এ শহরের কাছাকাছি এলাকায় বিজ্ঞানীরা স্থাপন করেছেন বিশ্বের সবচেয়ে বড় রেডিও টেলিস্কোপ (রবার্ট সি বার্ড গ্রিন ব্যাংক টেলিস্কোপ)। যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল রেডিও অ্যাস্ট্রোনমি অবজারভেটরি এটি নিয়ন্ত্রণ করে। দুই একর এলাকা জুড়ে বসানো সুবিশাল যন্ত্রটির ওজন ৭৭ লাখ ১১ হাজার কেজির বেশি। এটি কোটি কোটি মাইল দূরের আওয়াজ শুনতে পায়। গ্রিন ব্যাংক টেলিস্কোপ প্রকল্পের প্রধান বিজ্ঞানী জে লকম্যান জানান, ‘ছোট্ট গ্রামীণ একটা পরিবেশে তারা অত্যন্ত উচ্চ প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করার সমন্বিত পরিবেশ পেয়েছেন। অতি ধীর শব্দ শুনতে চাইলে আশপাশের সব কোলাহল বন্ধ রাখা চাই।’

গোলাম সাদত জুয়েল : সাংবাদিক, ফ্লোরিডা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest