JUST NEWS
SYLHET RANGE DIG MOFIZ UDDIN AHMED PPM SAID THAT NO ONE HAS THE RIGHT TO DESTROY HARMONY IN BANGLADESH
সংবাদ সংক্ষেপ
National Girl Child Day is celebrated in various programs in Sylhet কন্যা শিশুরা অধিকার সচেতন হলে সমাজে উপযুক্ত জায়গা করে নেবে Government has ensured equal rights for people of all religions: Nasir সরকার সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছে : নাসির No one has the right to destroy social harmony : Sylhet range DIG সামাজিক সম্প্রীতি নষ্ট করার অধিকার কারো নেই : শাল্লায় সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মাধবপুরে জাতীয় কন্যা শিশু দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা সুনামগঞ্জে মহানবমীতে মণ্ডপে মণ্ডপে দেবীর চরণে পুষ্পাঞ্জলি অর্পণ মধ্যনগরে দুর্গোৎসবের মহানবমীতে প্রতিটি মণ্ডপে ব্যাপক ভক্ত সমাগম সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিভিন্ন এলাকার পূজামণ্ডপ পরিদর্শন গোলাপগঞ্জ উপজেলা যুব উন্নয়ন কার্যালয়ে নার্সারি প্রশিক্ষণ কর্মশালা দক্ষিণ সুরমায় কাঁশবন রাস্তা সংস্কার দাবিতে স্মারকলিপি পেশ নবীগঞ্জে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের দুর্গাপূজা পরিদর্শন আঞ্জুমানে হেফাজতে ইসলাম মহানগর শাখার কর্মী সম্মেলন সম্পন্ন শ্রীমঙ্গলে কুমারী পূজার আনন্দে মেতেছিলেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা মধ্যনগরে বংশীকুণ্ডা ইউনিয়ন যুবদলের পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত

ময়নাতদন্ত শেষে চিন্তামনিতে দুই শিশুর দাফন সম্পন্ন ।। পিতা এখনো পলাতক

  • মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার চিন্তামনি গ্রামে সংঘটিত হত্যাকাণ্ডের পর থেকে পিতা এখনো নিখোঁজ। নিহত দুই শিশুপুত্রের মরদেহ ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে দাফন করা হয়েছে।
সোমবার সন্ধ্যার ঠিক পূর্ব মৃহূর্তে দয়ামির ইউনিয়নের চিন্তামনি গ্রামের পাশে ডোবার মতো জায়গায় রুজেল আহমদ (১১) ও মামুন আহমদ (৭) নামের দুই ভাইয়ের মরদেহ পাওয়া যায়। বড়ো ভাইয়ের মাথার পিছনে ছিল ধারালো অস্ত্রের ছয়টি কোপ। আর ছোটো ভাইয়ের মাথার পিছনে দুইটি কোপ ছাড়াও পেটে ছিল আরেকটি কোপ, যা দিয়ে নাড়ি-ভুরি বের হয়ে যায় বলে তাদের চাচাতো ভাই শাহেদ আহমদ রুহিন জানিয়েছেন।
তিনি জানান, দুপুরে রুজেল আহমদ ও মামুন আহমদের পিতা কৃষি শ্রমিক ছাতির আলী তাদেরকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী হাওরে যান। কিছু সময় পর বড়ো ছেলেকে দিয়ে কিছু মাছ পাঠান বাড়িতে। মাছ বাড়িতে পৌঁছে দিয়ে সে আবার বাবার কাছে ফিরে যায়; কিন্তু বিকেল পর্যন্ত তারা বাড়ি ফিরে না আসায় রুজেল আহমদ ও মামুন আহমদের মা স্বজনদেরকে খোঁজ নিতে অনুরোধ করেন।
শাহেদ আহমদ রুহিন জানান, বেশ কিছু সময় ধরে খোঁজাখুঁজির পর সবসময় মাছ পাওয়া যায়-এমন একটি পরিচিত ডোবার মতো জায়গায় রুজেল আহমদকে ডুবন্ত অবস্থায় ও মামুন আহমদকে ডোবার কিনারে আধা ডুবন্ত অবস্থায় মৃত পাওয়া যায়। খবর পেয়ে ওসমানীনগর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে।
তিনি বলেন, হত্যাকাণ্ডটি কে ঘটিয়েছে তা এখনো স্পষ্ট নয়। তার চাচা এখনো নিখোঁজ। ছাতির আলীর সাথে কারো কোন বিষয়ে শত্রুতা থাকার সম্ভাবনাও নেই। তবে তার স্ত্রীর সাথে প্রায় ৬ মাস ধরে বনিবনা হচ্ছিলনা। তাদের দুই ছেলের মাঝখানে একটি কন্যাসন্তান রয়েছে।
সিলেটের পুলিশ সুপার মো মনিরুজ্জামান চিন্তামনি গ্রামে ছাতির আলীর বাড়িতে গিয়ে শোকাহত স্বজনদের স্বান্ত্বনা দিয়েছেন।
ময়নাতদন্তের পর মরদেহ বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে বাদ আসর নামাজে জানাজা শেষে মরদেহ দুটি দাফন করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest