JUST NEWS
DURGA PUJA THE BIGGEST FESTIVAL OF TRADITIONAL BENGALIS ACROSS THE COUNTRY INCLUDING SYLHET HAS STARTED.
সংবাদ সংক্ষেপ
নবীগঞ্জ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সভা ও ৭৮ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান অস্বাভাবিক সরকার আনা ও পাকিস্তানপন্থার রাজনীতি প্রতিহত করবে জাসদ : লোকমান আহমদ রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম সেনাপতি টিলায় সিলেট বিবেকের অনুদান হস্তান্তর লায়ন্স ক্লাব অব সিলেট সুরমার শোভাযাত্রা ও ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে এতিম ছাত্রদের মাঝে খাবার বিতরণ দুর্গাপূজা উপলক্ষে সিলেট বিবেকের পক্ষ থেকে বস্ত্র বিতরণ সবাই এখন যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করছে : নবীগঞ্জে মিলাদ গাজী শারদীয় দুর্গোৎসব : আজ মহাসপ্তমী || আওয়ামী লীগ ও সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের শুভেচ্ছা সিলেটে ছাড়পত্র ছাড়া পাহাড়-টিলা কাটায় ব্যবহৃত এক্সেভেটর জব্দ || মামলা প্রক্রিয়াধীন সুনামগঞ্জে আর্ন্তজাতিক প্রবীণ দিবসে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা হবিগঞ্জে দুর্গাপূজায় ৯৫ ব্যাচ এসোসিয়েশনের উপহার বিতরণ হবিগঞ্জে শিল্পকলা একাডেমির মনোমুগ্ধকর অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী হবিগঞ্জে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা এফবিসিসিআইর কর্মশালায় সিলেট চেম্বার প্রতিনিধিদের অংশগ্রহণ প্রবীণদের প্রতি নবীনদের শ্রদ্ধাবোধ ও দায়িত্ববোধ জাগিয়ে তোলার আহ্বান প্রবীণ দিবসে সিলেটে করোনার ছোঁবলে আরও একজনের মুত্যু || সংক্রমণ বৃদ্ধি

মৌলভীবাজারের জুড়ী হানানদার মুক্ত হয় ৫ ডিসেম্বর

  • শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০

সাইফুল ইসলাম সুমন, জুড়ী : একাত্তরের ৫ ডিসেম্বর মৌলভীবাজারের জুড়ী পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর দখলমুক্ত হয়।
১ ও ২ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী ৪ নম্বর সেক্টরের রানীবাড়ী সাব সেক্টরভুক্ত সকল ক্যাম্পের মুক্তিযোদ্ধারা দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেন। ৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬ টায় ভারতের বাগপাশা থেকে অগ্রসর হয়ে রাঘনা নামক স্থানে জুরী নদীর উপর অস্থায়ী সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশে প্রবেশ করে তারা সীমান্তবর্তী ফুলতলা ইউনিয়নের ফুলতলা বাজার বিনাবাধায় দখল করে নেন। রাতের মধ্যেই পার্শ্ববর্তী সাগরনাল ইউনিয়নের ডিফেন্সও দখলে চলে আসে। সেখানে ক্যাপ্টেন সুখ লালসহ কিছু সৈন্য থেকে যান। অন্যরা জুড়ীর দিকে অগ্রসর হতে থাকেন। তবে রত্না চা বাগানের কাছে তারা পাক বাহিনী দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হন। তবে কয়েকদফা গোলাগুলির পর পশ্চিমা জল্লাদরা পিছু হটে কাপনাপাহাড় চা বাগানের নিকট চলে যায়। যৌথ বাহিনীও সেখানে ডিফেন্স নেয়। পরদিন দিনভর প্রচণ্ড যুদ্ধ চলে। এতে উভয়পক্ষে বেশ কিছু হতাহতের পর রাতেই খান সেনারা জুড়ীর দিকে পালিয়ে আসে।
কাপনাপাহাড় থেকে মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী দুইভাগে বিভক্ত হয়ে একদল কুলাউড়া শত্রুমুক্ত করতে গাজীপুর চা বাগানের রাস্তা ধরে অগ্রসর হতে থাকে। অপরদল জুড়ীর দিকে এগিয়ে চলে। পরদিন ৪ ডিসেম্বর ভারতের কুম্ভিগ্রাম বিমানবন্দর থেকে কয়েকটি বিমান জুড়ী ও কুলাউড়াতে শেলিং করতে থাকে। এই শেলিংয়ের মুখে জুড়ীতে অবস্থানরত পাকিস্তানি দখলদার বাহিনী টিকতে না পেরে রাতেরবেলা পালিয়ে যায়। আর সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে লাল-সবুজের পতাকা হাতে বীর সেনানীরা শহরে প্রবেশ করে ‘জয়বাংলা’ স্লোগানে চারদিক মুখরিত করে তুলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest