NATIONAL
The Bangladesh government has decided to award the Peace Medal in the name of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman || বাংলাদেশ সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে শান্তি পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেটে প্রথম `এডভান্সড কৃষি গবেষণা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ববির জন্মদিনে সিসিক মেয়রের দোয়া মাহফিল আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে শাল্লায় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে সিলেটের তিন উপজেলায়ই নতুন মুখ || দুটিতে আওয়ামী লীগ একটিতে বহিষ্কৃত বিএনপি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস ক্লাব গঠিত ৭ এপিবিএনের অভিযানে ২ লক্ষাধিক ভারতীয় বিড়িসহ পিকআপ আটক Malaysian labour market will not stop : Shafique মালয়েশিয়ান শ্রমবাজারে জনশক্তি প্রেরণ বন্ধ হবে না : শফিকুর রহমান চৌধুরী অবসর জীবন সম্পর্কে আইজিপি : প্রথমে কিছুদিন বিশ্রাম ও ঘোরাঘুরি এরপর পরিকল্পনা শাল্লায় ব্লাস্ট রোগে বোরোধানের ক্ষতি || সহায়তা পাবেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে পুলিশের পাশাপাশি অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহ্বান আইজিপির নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমের শিক্ষা দিতে হবে : প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী উপজেলা নির্বাচন || কোম্পানীগঞ্জে তিন বিএনপি নেতা বহিষ্কার সিকৃবিতে ওয়াপসার কর্মশালায় তথ্য প্রকাশ : সিলেটে ডিমের ঘাটতি দৈনিক ২৫ লাখ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আধুনিক শিল্পায়নের গুরুত্ব অপরিসীম : বিসিক চেয়ারম্যান মাধবপুরে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ

মোটরযানের গতিসীমা নির্দেশিকা রোডক্র্যাশ কমাতে ও অকাল মৃত্যু ঠেকাতে ভূমিকা রাখবে

  • রবিবার, ১২ মে, ২০২৪

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের জারি করা মোটরযানের গতিসীমা নির্দেশিকা রোডক্র্যাশ ও প্রতিরোধযোগ্য অকাল মৃত্যু ঠেকাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশ অভিমত রেখেছে।
একই সঙ্গে আশা প্রকাশ করেছে, এই নির্দেশিকার যথাযথ বাস্তবায়ন ২০৩০ সালের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা-এসডিজি অনুযায়ী সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ও আহতের সংখ্যা অর্ধেকে কমিয়ে আনতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।
সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই অভিমত ও আশাবাদ প্রকাশ করা হয়।
সংগঠনটি আরও জানায়, বর্তমান সরকার দেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে অভূতপূর্ব ভূমিকা রাখছে। এরপরেও রোডক্র্যাশ বাড়ছে। একইসঙ্গে বাড়ছে হতাহতের সংখ্যা। দেশের সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম প্রধান কারণ দ্রুত ও বেপরোয়া গতিতে গাড়ি চালানো। পাশাপাশি মোটর সাইকেলের অনিয়ন্ত্রিত গতি প্রতিনিয়ত দেশের কর্মক্ষম তরুণসহ অনেকের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছে। এ অবস্থায় রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশ দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বের অন্যান্য দেশ থেকে প্রাপ্ত অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে বাংলাদেশের সড়কে গতিসীমা নিয়ন্ত্রণের জন্য সরকারি নির্দেশনার দাবি করে আসছিল।
গত ৫ মে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় মোটরযানের গতিসীমা নির্দেশিকা প্রণয়নে গ্রামাঞ্চল ও শহরের ঘনত্বের মতো বিষয়গুলো বিবেচনায় নিয়েছে। রাস্তার ধরন ও প্রকৃতি অনুযায়ী বিভিন্ন মোটরযানের গতি ভিন্ন ভিন্ন করা হয়েছে, যা সড়ক নিরাপত্তার জন্য মানসম্মত বিষয় বলে মনে করে সংগঠনটি। তবে এক্ষেত্রে লেন ভিন্ন করলে নির্দেশিকাটির বাস্তবায়ন সহজতর হবে।
রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশ আশা প্রকাশ করে যে, সরকার এ ব্যাপারে আশু পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।
একই সঙ্গে সংগঠনটি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে, এই নির্দেশিকাটি বাস্তবায়ন করা গেলে দুর্ঘটনা ও সড়কে অকাল মৃত্যু কমিয়ে আনা সম্ভব হবে। বিশেষভাবে প্রণিধানযোগ্য যে, এই নির্দেশিকা বাস্তবায়ন করলে সড়কে নারী, শিশু ও বৃদ্ধসহ ঝুঁকিপূর্ণ পথচারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।
মোটরযানের গতিসীমা নির্দেশিকা জারি করায় সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্টদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়ে সংগঠনটি আরও জানায়, যেহেতু এক্সপ্রেসওয়ে ও মহাসড়কে যথাযথ এক্সেস কন্ট্রোল নেই সেহেতু যানবাহনের ধরন অনুযায়ী গাড়ির যে গতিসীমা নির্ধারণ করা হয়েছে, সেটি সড়ক ব্যবহারকারীদের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের দৃষ্টিকোণ থেকে বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সঠিক।
আবার নির্দেশিকার কিছু বিষয়ে বিশেষ করে মোটরসাইকেলের গতিসীমা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে তা রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশের দৃষ্টিগোচর হয়েছে।
এ ব্যাপারে রোড সেফটি কোয়ালিশন বাংলাদেশের বক্তব্য হচ্ছে, গ্রামাঞ্চল ও শহরের জন্য মোটরসাইকেলের গতিসীমা নির্ধারণ করায় সড়কে চলাচলের জন্য শিশু, নারী ও বৃদ্ধরা উপকৃত হবেন। আবার মোটরসাইকেলের গতি কম থাকার ফলে দুর্ঘটনা ঘটলেও হতাহত কম হবে। এছাড়াও গতি কম থাকার ফলে মোটরসাইকেলের কন্ট্রোলিংয়ে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যাবে, যা অপ্রত্যাশিক দুর্ঘটনা এড়াতে সহায়তা করবে। বিশ্বের অনেক দেশ শহরাঞ্চলে সড়ক নিরাপত্তার জন্য মোটরসাইকেলের গতিসীমা কমিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশেও অনুরূপভাবে গতি সীমা বাস্তবায়ন করলে সড়কে দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি কমানো সম্ভব হবে।
বাংলাদেশে সড়কে নিহত ও আহতের ঘটনাসমূহ প্রতিরোধযোগ্য হওয়া সত্ত্বেও সড়ক পরিবহন আইন ২০১৮ প্রণয়ন করা হলে বিগত ৬ বছরে কোনো গতিসীমা নির্দিষ্ট না থাকায় এই সমস্যার সমাধান অর্জন করা সম্ভব হয়নি।
এই নির্দেশিকা জারি করায় সরকারকে অভিনন্দন জানানোর পাশাপাশি এটি অবিলম্বে বাস্তবায়নের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আর্কষণ করা হয়।
রোড সেফটি কোয়ালিশনের সদস্য বুয়েটের সড়ক দুর্ঘটনা গবেষণা ইনস্টিটিউট-এআরআই, নিরাপদ সড়ক চাই-নিসচা, ব্র্যাক, ঢাকা আহসানিয়া মিশন, বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, সেন্টার ফর ইনজুরি প্রিভেনশন ও রিসার্চ, ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ অর্থপেডিক্স সোসাইটি, বিএনএনআরসি, ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা ফাউন্ডেশন। সূত্র বিএনএনআরসি

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest