JUST NEWS
THE DISTRICT ADMINISTRATION CELEBRATED WORLD RIVER DAY IN SYLHET
সংবাদ সংক্ষেপ
মহিউদ্দিন শীরুর মৃত্যুবার্ষিকীতে জেলা প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন লাখাই বিএনপির মতবিনিময় সভায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার ঘোষণা জগন্নাথপুরে ‘পিউরিয়া’ ফুড প্রোডাক্টের আউটলেট উদ্বোধন জগন্নাথপুরে মায়ের মরদেহ ঘরে রেখে এসএসসি পরীক্ষা দিলো মেয়ে সুনামগঞ্জে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাঁধা ও হাতাহাতি সিলেট জেলা পরিষদ নির্বাচন থেকে সরে গেলেন ৭ সদস্য পদপ্রার্থী নদীগুলো বেঁচে না থাকলে দেশ অচল হয়ে যাবে : বিশ্ব নদী দিবসে জেলা প্রশাসক শারদীয় দুর্গোৎসব : মাধবপুরে নানা আয়োজনে মহালয়া অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার জন্মদিনে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কর্মসূচি বিশেষ ট্রাইব্যুনাল করে জামাত-শিবির চক্রের সকল হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি জাসদের শাল্লায় বর্ণাঢ্য কর্মসূচিতে উদযাপিত হলো মিনা দিবস ২০২২ মাধবপুরে ইউপি নির্বাচনে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত লাক্কাতুরা চা বাগানে ‘লাকড়ি তোড়া’র স্থানে সীমানা দেয়াল নির্মাণ দাবি সামাজিক বন্ধনের ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখার আহবানে মৌলভীবাজারে সম্প্রীতি সমাবেশ সিলেটে টিলা কাটার অপরাধে ৪ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড শাল্লায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদেরকে উপজেলা প্রশাসনের সহায়তা প্রদান

মাধবপুরে ছেলের মৃত্যুর জন্যে দায়ীদের বিচারের আশায় মা : জামিনে আসামিরা

  • শুক্রবার, ১৬ অক্টোবর, ২০২০

মাধবপুর প্রতিনিধি : হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার উত্তর সুরমা গ্রামের আল আমিনের মা ছেলের মৃত্যুর জন্যে দায়ীদের বিচারের আশায় দিন গুণছেন। অন্যদিকে অভিযুক্তরা আদালত থেকে জামিন নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে প্রকাশ্যে। এ কারণে সন্তানহারা মায়ের কষ্টের আগুন দ্বিগুণ হয়ে জ্বলছে।
উপজেলার উত্তর সুরমা গ্রামের মৃত আজদু মিয়ার যুবক ছেলে আল আমিনের (৩৫) সঙ্গে একই গ্রামের মৃত আক্কল আলীর ছেলে মো দুদ মিয়া ও মৃত খোরশেদ মিয়ার ছেলে মো সমসু মিয়ার বিরোধ চলছিল। প্রতিপক্ষের দীর্ঘদিনের বিরামহীন অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েন তিনি। একপর্যায়ে অসহ্য হয়ে গত ১৬ এপ্রিল সন্ধ্যার দিকে বিষপান করে ছটপট করতে থাকেন।
পরিবারের লোকজন দ্রুত আল আমিনকে মাধবপুর উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে পাঠানো হয় হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালে। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে প্রেরণ করা হয় সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে; কিন্তু শেষরক্ষ হয়না। পরদিন তিনি মারা যান। এ সময় তার প্যান্টের পকেট থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করেন স্বজনরা। তাতে লেখা ছিল, ‘আমাকে নিয়ে আর চিন্তা করতে হবে না। দুদ মিয়া আর সমসু মিয়ার কারণে আমি আজ মরে গেলাম। আমি জানি, তারা আমাকে বাঁচতে দিবে না।’
ছেলের মৃত্যুর জন্যে মো দুদ মিয়া সহ ৮ জনকে দায়ী করে আল আমিনের মা রাহেলা বেগম বাদি হয়ে মাধবপুর থানায় ১৯ এপ্রিল একটি মামলা (নম্বর ১৫) দায়ের করেন; কিন্তু পুলিশ একজন আসামিকেও গ্রেফতার করতে পারেনি।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা তেলিয়াপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই ধ্রুবেশ চক্রবর্তীর সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এই মামলার আসামিরা জামিনে রয়েছেন। তাই গ্রেফতার করা যাচ্ছে না।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest