NATIONAL
President Md Sahabuddin urged the universities to formulate modern curriculum || রাষ্ট্রপতি মো সাহাবুদ্দিন বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে যুগোপযোগী কারিকুলাম প্রণয়নের জোর তাগিদ দিয়েছেন
সংবাদ সংক্ষেপ
ছাতকে সড়ক দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালেন নতুন প্রজন্মের জনপ্রিয় বাউলশিল্পী পাগল হাসান মহানগর ডিবির অভিযানে প্রায় ৩ লাখ টাকার ভারতীয় পণ্যসহ গ্রেফতার ১ স্মার্ট সিলেট সিটি বিনির্মাণে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে : আনোয়ারুজ্জামান ১৭ এপ্রিল স্বাধীন বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক ভিত্তিমূল রচিত হয় : বিভাগীয় কমিশনার হাওরজুড়ে ধান আর ধান || বোরোর বাম্পার ফলন || শাল্লায় ফসল কাটা নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা এম ইলিয়াস আলীর গুম দিবসে সিলেট জেলা বিএনপির কর্মসূচি বিশ্বনাথে সাবেক চেয়ারম্যানের বাড়িতে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রঙ মিস্ত্রির মৃত্যু চালের বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের নতুন নীতিমালা মেনে চলতে চেম্বার সভাপতির আহবান শাল্লা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিলেন ১৭ জন বড় ধরনের বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেলো সিলেটের কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র শাল্লায় মঙ্গল শোভাযাত্রা ও গানে গানে শুভ নববর্ষ উদযাপিত নতুন বাংলা বছরকে বরণ করতে প্রস্তুত জাতি || ঘরে ঘরে বরণডালা কথায় গানে ও নৃত্যে পুরনো বছরকে বিদায় আর নতুন বছরকে স্বাগত জানালো নাট্য পরিষদ নগরবাসীকে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মেয়র আনোয়ারুজ্জামান নববর্ষের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা

মহান শিক্ষা দিবস : প্রাণ দিয়ে প্রতিহত করা হয় আইয়ুবের শিক্ষানীতি

  • বুধবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০

পাকিস্তানের সামরিক স্বৈরশাসক আইয়ুব খান বন্দুকের জোরে ক্ষমতা দখল করেন ১৯৫৮ সালের ৭ অক্টোবর। এর প্রায় ২ মাস পর ৩০ ডিসেম্বর শিক্ষা সচিব এস এম শরীফের একটি কমিশন গঠন করেন জাতীয় শিক্ষানীতি প্রণয়নের লক্ষ্যে। শরীফ কমিশন নামে খ্যাত এই কমিশন ১৯৫৯ সালের ২৬ আগস্ট প্রতিবেদন পেশ করে। এতে শিক্ষা বিষয়ে যেসব প্রস্তাবনা করা হয়েছিল সেগুলো প্রকারান্তরে শিক্ষা সংকোচনের পক্ষে গিয়েছিল।
প্রস্তাবিত ২৭ অধ্যায়ে বিভক্ত প্রতিবেদনে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা ক্ষেত্রে ছাত্র বেতন বর্ধিত করার প্রস্তাব ছিল। এতে প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চতর স্তর পর্যন্ত সাধারণ, পেশামূলক শিক্ষা, শিক্ষক প্রসঙ্গ, শিক্ষার মাধ্যম, পাঠ্যপুস্তক, হরফ সমস্যা, প্রশাসন, অর্থবরাদ্দ, শিক্ষার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বিষয়ে বিস্তারিত সুপারিশ উপস্থাপন করা হয়। আইয়ুব সরকার এই প্রতিবেদনের সুপারিশ গ্রহণ ও ১৯৬২ সাল থেকে বাস্তবায়ন শুরু করে।
শরীফ কমিশনের শিক্ষা সংকোচন নীতি কাঠামোতে শিক্ষাকে তিন স্তরে ভাগ করা হয় : প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চতর। এতে ৫ বছরে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও ৩ বছরে উচ্চতর ডিগ্রি কোর্স এবং ২ বছরের স্নাতকোত্তর কোর্সের ব্যবস্থা থাকবে বলে প্রস্তাব করা হয়। উচ্চশিক্ষা ধনিকশ্রেণির জন্য সংরক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছিল। এজন্য পাস নম্বর ধরা হয় শতকরা ৫০, দ্বিতীয় বিভাগ শতকরা ৬০ ও প্রথম বিভাগ শতকরা ৭০। সেই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বায়ত্তশাসনের পরিবর্তে পূর্ণ সরকারি নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা, বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে রাজনীতি নিষিদ্ধ করা ও ছাত্র-শিক্ষকদের কার্যকলাপের উপর তীক্ষ্ণ নজর রাখার প্রস্তাব করে।
শিক্ষকদের কঠোর পরিশ্রম করাতে ১৫ ঘণ্টা কাজের বিধানও রাখা হয়েছিল। প্রতিবেদনের শেষ পর্যায়ে বর্ণমালা সংস্কারের প্রস্তাব ছিল।
দেশের বিভিন্ন ছাত্র সংগঠন এই শিক্ষানীতির বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। ঢাকা কলেজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্ব স্ব দাবির ভিত্তিতে জুলাই-আগস্ট মাস জুড়ে আন্দোলন চলতে থাকে।
এ আন্দোলন কর্মসূচির ধারাবাহিকতায় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্বে ১৭ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী হরতাল পালনের ঘোষণা দেওয়া হয়। সেদিন সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে হাজার হাজার মানুষ সমাবেশে উপস্থিত হন। সমাবেশ শেষে মিছিল বের হয়। জগন্নাথ কলেজে গুলি হয়েছে-এমন একটি খবর পেয়ে মিছিল দ্রুত নবাবপুরের দিকে যাত্রা শুরু করে; কিন্তু হাইকোর্টের সামনে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। তবে মিছিলকারীরা সংঘাতে না গিয়ে আবদুল গনি রোড ধরে অগ্রসর হন। তখন পুলিশ মিছিলের পেছন থেকে লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাস ও গুলিবর্ষণ করে। এতে মোস্তফা, ওয়াজিউল্লাহ ও বাবুল শহীদ হন।
সারাদেশে মিছিলে পুলিশ গুলি করে। টঙ্গীতে ছাত্র-শ্রমিক মিছিলে পুলিশের গুলিতে সুন্দর আলী নামে এক শ্রমিক শহীদ হন বলে খবর পাওয়া যায়।
সূত্র : উইকিপিডিয়া

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

সংবাদ অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest