NATIONAL
Prime Minister Sheikh Hasina's visit to China has elevated bilateral relations to a comprehensive strategic cooperative partnership : Chinese media || প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফর দুদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে একটি ব্যাপক কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বে উন্নীত করেছে : চীনের বিভিন্ন গণমাধ্যম
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশের অভিযানে একদিনে দেড় হাজার বস্তা ভারতীয় চিনি আটক দক্ষিণ সুরমাসহ সিলেটের বিভিন্ন এলাকায় সড়কে ও পরীক্ষাকেন্দ্রে এখনও পানি সুনামগঞ্জে সংবাদিকদের সঙ্গে নবাগত পুলিশ সুপারের মতবিনিময় মৌলভীবাজারে ইউপি উপনির্বাচন ২৭ জুলাই || প্রতীক বরাদ্দ || ভোটগ্রহণ ইভিএমে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৫ কার্টন সিগারেট ও ৮ কেজি জর্দা আটক সিলেট বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে দক্ষিণ সুরমায় ত্রাণ বিতরণ শ্রীমঙ্গলে প্রতিপক্ষের হামলায় বার কাউন্সিলের পরীক্ষার্থী নিহত প্রবাসীরা দুর্যোগে-ক্রান্তিকালে দেশের মানুষের পাশে থাকেন : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ মৌলভীবাজারে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত || বিশেষ সম্মাননা প্রদান প্রবাসীরা দেশের অর্থনীতির অন্যতম চাবিকাঠি : মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সুশাসন নিশ্চিত করতে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করবেন সিলেটের নবাগত পুলিশ সুপার সিলেটে পুলিশের অভিযানে দেড় কোটি টাকার বেশি মূল্যের ভারতীয় চিনি আটক সিলেটের নতুন এসপি কর্মকাল শুরু করলেন মাজার জিয়ারত করে এস‌এমপি ডিবির অভিযানে আনুমানিক ১ কোটি ২০ লাখ টাকার চিনি আটক || গ্রেফতার ৫ মাধবপুরে সেই আলোচিত মা ও মেয়ের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ || বিচার দাবি

মহান বিজয়ের মাস ও যুদ্ধাপরাধের বিচার

  • শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

আল-আজাদ : বাঙালির ইতিহাসে বছরের প্রতিটি মাসই কোন না কোন কারণে স্মরণীয়-বরণীয়। এর মধ্যে ডিসেম্বর স্মরণীয় মহান মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের জন্যে। তাই প্রতি বছর এ মাসটিকে এ জাতি পরম ভালবাসায় বরণ করে। এবারও যথারীতি বরণডালা সাজিয়ে গৌরবোজ্জ্বল ডিসেম্বরকে বরণ করেছে।
এই দিনে জাতি এবারও শহীদমিনারে-স্মৃতিসৌধে-প্রতিকৃতিতে হৃদয় নিঙড়ানো শ্রদ্ধা ও ভালবাসা নিবেদন করেছে বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহানায়ক সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ত্রিশলাখ শহীদের প্রতি। প্রাণ উজাড় করা সম্মান নিবেদন করেছে লাল সবুজের পতাকা হাতে মায়ের কোলে ফিরে আসা বীর মুক্তিযোদ্ধা ও বীরাঙ্গনাদের প্রতি। অন্যদিকে ঘৃণার থু থু নিক্ষেপ করছে তাদের প্রতি, যারা সবসময়ই এই দেশ-এই জাতির সকল অর্জনের বিরুদ্ধে ছিল এবং আছে।
বাঙালির স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতায় উত্তরণ দীর্ঘ পথপরিক্রমায়। এই রক্ত পিচ্ছিল পথ অতিক্রমে এ জাতি বারবার এদেশের মাটিতেই জন্ম নেয়া কিছু মানুষের বাধার মুখে পড়েছে-বিশ্বাসঘাতকতার মুখোমুখি হয়েছে। একাত্তরে মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রত্যক্ষ করেছে মানুষরূপী এই দানবদের তাণ্ডব। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর এই সহযোগীরা এমন কোন অপকর্ম নেই যা করেনি। গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ইত্যাকার মানবতাবিরোধী কাজ তারা কখনো নিজেরা করেছে-কখনো খান সেনাদের দিয়ে করিয়েছে, যা যুদ্ধাপরাধের পর্যায়ে পড়ে। তাই স্বাধীন বাংলাদেশে যুদ্ধাপরাধের দায়ে এই দালাল-রাজাকার-আল বদর-আল শামসদের বিচার সময়ে দাবি হয়ে উঠে।
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের বন্দিশালা থেকে স্বাধীন স্বদেশে ফিরে আসার পর তার মহানুভবতা দিয়ে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেছিলেন। এই সাধারণ ক্ষমার আওতায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সহযোগীদের মধ্যে তারাই পড়েছিল যারা বাধ্য হয়ে পশ্চিমাদেরকে সহযোগিতা করেছিল কিংবা যারা বড় কোন অপরাধ যেমন গণহত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট জাতীয় যুদ্ধাপরাধ করেনি।
বঙ্গবন্ধুর সাধারণ ক্ষমায় যুদ্ধাপরাধীরা অন্তর্ভুক্ত ছিলনা। তাই তাদের বিচারের ব্যবস্থা করা হয়। কয়েকজন যুদ্ধাপরাধীর বিচার এবং মৃত্যুদণ্ড সহ বিভিন্ন ধরনের সাজাও হয়; কিন্তু পঁচাত্তরে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর সেই বিচারকাজ বন্ধ হয়ে যায়। এমনকি দালাল আইন পর্যন্ত বাতিল করে দেয়া হয়।
বাংলাদেশের ইতিহাসে পঁচাত্তর পরবর্তী দুই পর্বে প্রায় ২৮ বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় যারা ছিলেন তারা কেবল যুদ্ধাপরাধের বিচার বন্ধ আর দালাল আইন বাতিল করেননি-যুদ্ধাপরাধীদের ক্ষমতার ভাগ পর্যন্ত দিয়েছিলেন। লাল সবুজের পতাকা অর্জন ঠেকাতে যারা নির্বিচারে গণহত্যায় সহযোগিতা করেছিল, দুই লাখ বাঙালি নারীকে ভোগের জন্যে তুলে দিয়েছিল তাদের প্রভু পাকিস্তানিদের হাতে, ভোগ করেছিল নিজেরাও এবং ঘরবাড়ি পুড়িয়ে ও লুটপাট করে এক কোটি মানুষকে বাধ্য করেছিল সর্বস্বান্ত হয়ে প্রতিবেশী বন্ধুরাষ্ট্র ভারতে আশ্রয় নিতে, ক্ষমতার ভাগিদার হয়ে তারাই রক্তে সিক্ত সেই পতাকা উড়িয়ে দম্ভ ভরে উচ্চারণ করে, বাংলাদেশে কোন মুক্তিযুদ্ধ হয়নি, তাদের বিচার করার ক্ষমতাও নাকি কারো নেই।
এমনি পরস্থিতিতে এবং ইতিহাসের প্রয়োজনে বাঙালির মনে ফের একাত্তর জাগ্রত হতে শুরু করে। শাণিত হতে থাকে মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। বিশেষ করে আত্মপরিচয় অনুসন্ধানী জাতির নতুন প্রজন্ম নিজেদের পূর্বসূরিদের বীরত্বগাথা জানতে পেরে এবং নিজেদেরকে চিনতে পেরে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের প্রয়োজনীয়তাকে সামনে নিয়ে আসে। আবারো পরিণত করে সময়ের দাবিতে। এই দাবি পূরণেই কুখ্যাত যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হচ্ছে। ইতোমধ্যে শীর্ষস্থানীয় যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্ন করে সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডও কার্যকর করা হয়েছে।
এ প্রসঙ্গে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে, নতুন প্রজন্মের তথা জাতির হৃদস্পন্দন যথাযথভাবে উপলব্ধি করেই বাঙালির স্বাধিকার ও স্বাধীনতা আন্দোলন এবং মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালে তার নির্বাচনী অঙ্গীকারে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের বিষয়টি অগ্রাধিকার তালিকায় নিয়ে আসে। এই অঙ্গীকার পূরণেই দেশে যুদ্ধাপরাধের বিচার হচ্ছে-হবে।
অন্যদিকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধ করতে দেশে-বিদেশে চলছে ষড়যন্ত্র। লবিস্ট নিয়োগে বিনিয়োগ করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ অর্থ; কিন্তু প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরত্ন শেখ হাসিনার নৈতিক দৃঢ়তা আর দক্ষ নেতৃত্ব সব চক্রান্ত-ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্নভিন্ন করে দিয়ে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে যুদ্ধাপরাধের বিচারকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।
এবারের মহান বিজয়ের মাস যুদ্ধাপরাধের বিচারের গতিকে আরও বেগবান করুক এবং আইনের আওতায় নিয়ে আসুক সকল যুদ্ধাপরাধীকে-এ প্রত্যাশা থাকলো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest