২৭ জানুয়ারি ২০২২

মহানগরীর কাকলি শপিং সেন্টার দখল মামলা ও হামলার অভিযোগ

Published: ১৪. জানু. ২০২২ | শুক্রবার

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেট মহানগরীর জিন্দাবাজার এলাকায় অবস্থিত কাকলি শপিং সেন্টার দখল করতে মামলা দায়ের ও হামলা চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে।
বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে মহানগরীর দাড়িয়াপাড়ার মৃত আজিমুল হকের ছেলে ফজলুল হক মোর্শেদ এ অভিযোগ করেন।
তিনি তার চাচাতো ভাই মুজিবুল হক জাবেদ ও ভোলার কবির আহমদ নামের এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও তাকে হত্যার চেষ্টার অভিযোগও তুলেন।
ফজলুল হক মোর্শেদ অভিযোগ করেন, তার পৈতৃক সম্পত্তি জিন্দাবাজারের কাকলি শপিং সেন্টার ১৩ বছর পরিচালনা করেছেন তার চাচাতো ভাই মুজিবুল হক জাবেদ। তিনি মার্কেটের ভাড়াটিয়া ভোলার অধিবাসী বর্তমানে মহানগরীর কাজী ইলিয়াছ এলাকার বাসিন্দা কবির আহমদের সঙ্গে মিলে বিদ্যুৎ বিলের ৪৯ লাখ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। এমনকি হোল্ডিং ট্যাক্স, ইনকাম ট্যাক্স, শ্রমিকদের বেতন ও ব্যাংক ঋণ পরিশোধ না করে কয়েক কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছেন।
তার আরও অভিযোগ, তারা দোকানকোটা অবৈধভাবে দখল ও বিক্রি করেছেন।
তিনি জানান, মুজিবুল হক জাবেদকে নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৪ সালে কাকলি শপিং সেন্টারের দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয় আমমোক্তারনামার মাধ্যমে। ২০১৭ সালে মার্কেটের সব দায়িত্ব বুঝিয়ে দেওয়া হয় তাকে। তিনি তখন থেকে কিস্তিতে প্রতি মাসে বকেয়া বিল ও ট্যাক্স পরিশোধ করছেন। এ অবস্থায় ৩ মাস আগে হত্যার উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা চালানো হয়। তিনি এ ব্যাপারে থানায় অভিযোগ দিলেও কোন সহযোগিতা পাননি।
তিনি বলেন, গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর শুক্রবার রাত দেড়টার দিকে কাকলি শপিং সেন্টারে আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণ করে। সেই রাতে মুজিবুল হক জাবেদ ও কবির আহমদ মার্কেট দখলের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে পরদিন দুপুর ১২টার দিকে মার্কেটের সামনে প্রাণনাশের ও মার্কেট দখলের উদ্দেশ্যে তার উপর হামলা চালান। তিনি থ্রিপল নাইনে কল দিলেও কোন সহযোগিতা পাননি। উল্টো অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তাকে দায়ী করে কোতয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেন। তারা নাকি নবম তলায় তাকে আগুন লাগাতে দেখেছেন বলে দাবি করেছেন। অথচ এ ব্যাপারে অনলাইন পত্রিকায় মুজিবুল হক জাবেদ নিজেই বলেছিলেন, শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। ফায়ার সার্ভিসও তাই বলছে। এছাড়া সেদিন শুক্রবার ছিল। তাই মার্কেট বন্ধ অবস্থায় কারও নবমতলায় যাওয়ার কোন সুযোগই ছিলনা।
ফজলুল হক মোর্শেদ কোতয়ালি থানায় তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলাটি উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে দাবি করেন। আরও অভিযোগ করেন, কবির আহমদ সপ্তম তলায় আড়াই হাজার বর্গফুটের একটি অফিস স্পেস জোরপূর্বক দখল করে রেখেছেন। এখানেই শেষ নয়-একটি জাল রেজিস্ট্রারি বায়না করে তার নামে সমনও পাঠিয়েছেন। মার্কেটটি সাইথইস্ট ব্যাংকের কাছে দায়বদ্ধ। তাই বায়নার কোন সুযোগ নেই। এটা তার একটি জালিয়াতি।
ফজলুল হক মোর্শেদ বলেন, মুজিবুল হক জাবেদ ও কবির আহমদের অব্যাহত হুমকি ও হামলায় তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। গত ৮ জানুয়ারি বিকেলে তার ভাই এনামুল হক খোর্শেদের উপরও মার্কেটের সামনে হামলা হয়। এ ব্যাপারে তারা দুটি মামলা দায়ের করেছেন।
মুজিবুল হক জাবেদ ও কবির আহমদ প্রভাব বিস্তার করে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকেও তার বিপক্ষে কাজে লাগাচ্ছেন। কবির আহমদ জালিয়াতি করে কোটি কোটি টাকার গাড়ি-বাড়ির মালিক হয়েছে। তার একাধিক আইডি কার্ড রয়েছে এবং ৭/৮টি গাড়ির মালিক তিনি। একসময় তিনি অবৈধভাবে লোকজন বিদেশ পাঠাতেন। সিলেটে কোটি কোটি টাকার ফ্ল্যাট ও জমির মালিক হয়েছেন। ফজলুল হক মোর্শেদ এমন অভিযোগও করেন।
তিনি তার পৈতৃক সম্পত্তি ও জানমালের নিরাপত্তায় সিলেটের প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট সবার সুদৃষ্টি কামনা করেন।

Share Button
January 2022
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31