JUST NEWS
A TWO-DAY LONG BANGLADESH CULTURAL FESTIVAL HAS STARTED IN SYLHET UNDER THE INITIATIVE OF SHILPAKALA ACADEMY
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেটে কর্মসম্পাদন ব্যবস্থাপনা ও শুদ্ধাচার কৌশল নিয়ে মন্ত্রীপরিষদ সচিবের আলোচনা সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগ আহবায়ক চপলকে কারণ দর্শানোর নোটিশ জকিগঞ্জ ও কানাইঘাটে চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সঙ্গে নাসিরের মতবিনিময় মাধবপুরে সার ও কীটনাশক দোকানে অভিযানে জরিমানা আদায় বিশ্বম্ভরপুরে বিনাধানের প্রচার ও সম্প্রসারণে মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত পোয়েটসপিডিয়া বাংলার কমিটি গঠন : নেতৃত্বে ৪ দেশের বাঙালি সিলেটে বাংলাদেশ ইয়ুথ ক্যাডেট ফোরামের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন সিলেট মহানগর বিএনপির ওয়ার্ড সম্মেলন শুরু হচ্ছে শুক্রবার থেকে হযরত শাহ পরাণের ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক ওরস শনিবার থেকে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে মহানগর মৎস্যজীবী লীগের আলোচনা সভা শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপন করলো ২৩ নম্বর ওয়ার্ড আ লীগ শেখ হাসিনার জন্মদিনে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আ লীগের দোয়া প্রবাসী সাত ব্যবসায়ীকে গ্রেফতারে জালালাবাদ এসোসিয়েশন উদ্বিগ্ন সিলেটে আজ থেকে দুদিনব্যাপী বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক উৎসব প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার জন্মদিনে সিলেট ছিল উৎসবমুখর সিলেটে টিলা কাটার অপরাধে দুই জনের ১৫ দিনের কারাদণ্ড

বড়লেখায় একমাসে সংঘটিত ৫টি লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ডে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে জনমনে

  • মঙ্গলবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৬

জালাল আহমদ, বড়লেখা : মৌলভীবাজারের বড়লেখায় গত একমাসে ৫টি লোমহর্ষক হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে। এতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে জনমনে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী আরো সক্রিয় না হলে পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে বলে সবাই ধারণা করছেন।
আওয়ামী লীগ নেতা ও প্যানেল চেয়ারম্যান এবং ব্রিটিশ নারী খুন হওয়ার পর সর্বশেষ পূর্ব বিরোধের জের ধরে আপন ভাতিজার হাতে খুন হন এক সিএনজি অটোরিক্সা চালক। এছাড়া আরো ২টি হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়। এসব ঘটনায় এ পর্যন্ত ৪ জনকে এলাকাবাসীর সহায়তায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অন্য ঘাতকদের গ্রেফতার করতে পুলিশি তৎপরতা অব্যাহত আছে বলে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা দাবি করেছেন।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ১৪ই অক্টোবর দুপুর সাড়ে ১২টায় সদর ইউনিয়নের কেছরীগুল গ্রামে জমিজমা সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধের জের ধরে আপন ভাতিজার দায়েরর কোপে আসুক আহমদ (৩৮) খুন হন। তিনি পেশায় ছিলেন সিএনজি অটোরিক্সা চালক ও কেছরীগুল গ্রামের মঈন উদ্দিন মনাইর ছেলে। হত্যাকাণ্ডের পর পরই ভাতিজা সুমন আহমদ পালিয়ে যায়।
৬ই অক্টোবর সকাল ১০টায় উপজেলার দাসেরবাজার ইউনিয়নের পশ্চিম গুলুয়া গ্রামের মৃত ললিত মোহন দাসের স্ত্রী মায়া রাণী দাসকে (৫৫) নিজকক্ষে ঢুকে কাঁচি দিয়ে কুপিয়ে খুন করে ভাসুরপুত্র নৃপেশ দাস সুনাই। এ লোমহর্ষক ঘটনার পর পরই এলাকাবাসী অভিযুক্ত নৃপেশ দাসকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই জাহাঙ্গীর আলম জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয়েছে বলে স্বীকার করে ঘাতক আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।
২৯শে সেপ্টেম্বর সকাল পৌণে ১১টায় পূর্ব বিরোধের জের ধরে উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবুল হোসেন আলমকে (৩৮) দা দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করে কাজল মিয়া। আবুল হোসেন আলম সায়পুর গ্রামের খলিলুর রহমানের ছেলে। এই ঘটনায় নিহতের বাবা কাজল মিয়াকে প্রধান আসামি করে আরও ৪/৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসমি দিয়ে থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরদিন ভোরে কাজল মিয়া ভারতে পালিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসীর হাতে ধরা পড়ে। পরে তাকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়।
কাজল মিয়া আদালতে এ হত্যাকাণ্ডের দায় স্বীকার করেছে। তবে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত সেই দা এখনও উদ্ধার হয়নি। আবুল হোসেন আলমের পরিবার ও এলাকাবাসীর দাবি, রাজনৈতিক কারণে পরিকল্পিতভাবে কাজল মিয়াকে দিয়ে জনপ্রিয় এই নেতা ও মেম্বারকে খুন করানো হয়েছে।
১৩ই সেপ্টেম্বর ভোররাতে উপজেলার চান্দগ্রামে নিজ বাড়িতে খুন হন বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত ব্রিটিশ নাগরিক ফাতির আলীর স্ত্রী মায়ারুন নেছা (৬৬)। পুত্রবধূর পরকীয়ার কারণেই খুন হন তিনি। এ ঘটনায় তার দেবর হারিছ আলী বাদি হয়ে দুই জনের নামোল্লেখ সহ আরও কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা আসামি দিয়ে থানায় মামলা করেন। এ ঘটনায় জড়িত পুত্রবধূ ফাহিমা ও ফাহাদ আহমদ সবুজ নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এই দুজন বড়লেখার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম হাসান জামানের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই অমিতাভ দাস তালুকদার জানান, গৃহবধূূ ফাহিমা তার স্বামীর অবর্তমানে অন্য একজনের সাথে অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। ঘটনার রাতে শ্বাশুড়ি বিষয়টি টের পাওয়ায় তাকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয়। এই ঘটনার মূল আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
একই দিন কোরবানির মাংস বণ্টন নিয়ে প্রতিপক্ষের দায়ের কোপে কুতুব আলী নামের এক ব্যক্তি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ ঘটনার পর পরই এলাকাবাসী হত্যাকারী আব্দুল জলিলকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেন। সে আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
বড়লেখা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহিদুর রহমান জানান, উপজেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে আছে।
সাম্প্রতিককালে সংঘটিত প্রায় সবকটি হত্যারহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest