বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিশ্বনাথের চাউলধনী হাওরের জোড়াখুন মামলার বিচার দাবি

Published: 07. Oct. 2021 | Thursday

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার চাউলধনী হাওরে কৃষক ছরকুম আলী দয়াল ও স্কুলছাত্র সুমেল আহমদের খুনিদের বিশেষ ট্রাইব্যুনালে বিচারের দাবি জোরদার হয়ে উঠেছে।
বুধবার দুপুরে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে চাউলধনী হাওর রক্ষা ও কৃষক বাঁচাও আন্দোলন এ দাবি জানায়।
সংবাদ সম্মেলনে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার এবং চাউলধনী হাওরের ইজারা ও দশঘর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির নিবন্ধন বাতিলের দাবিও জানানো হয়।
একই সঙ্গে বিশ্বনাথ থানার সাবেক ওসি শামীম মূসা, এসআই ফজলু, সমবায় কর্মকর্তা কৃষ্ণা রাণী তালুকদার ও মৎস্য কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম ভূঁইয়াকে আইনের আওতায় এনে বিচারের মুখোমুখি করার দাবি জানানো হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, চাউলধনী হাওর রক্ষা ও কৃষক বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুহিবুর রহমান, নজির উদ্দিন, আহমদ আলী, মো মানিক মিয়া, শাহাব উদ্দিন, মো শামসুদ্দিন, মাওলানা ছমিরউদ্দিন ও মোহাম্মদ ইব্রাহিম।
এতে বলা হয়, দশঘর মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির নামের অবৈধ সংগঠন ৬ বছরের জন্য চাউলধনী হাওরের ১৭৮ দশমিক ৯৮ একর সরকারি জমি ইজারা নেয়। কৃষ্ণা রানী তালুকদার ও সফিকুল ইসলাম ভূঁইয়ার যোগসাজশে অযোগ্য হয়েও সংগঠনটি ইজারা পায়। পরে তারা সাবলিজ প্রদান করে ইসলামপুর গ্রামের মৃত আফতাব আলীর ছেলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী অমৎস্যজীবী সাইফুল ও তার সহযোগীদেরকে, যা বেআইনি। তারা গত ১০ বছর ধরে কৃষকদের জমি দখল করে পানি সেচ দিয়ে বা শুকিয়ে মাছ ধরে বাধার সৃষ্টি করে একমাত্র ফসল ইরি-বোরোর বীজ বপন ও চারা রোপণে। এ কারণে শতকোটি টাকার ধান উৎপাদন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
আবুল কালাম অভিযোগ করেন, গত ২৮ জানুয়ারি চৈতননগর গ্রামের কৃষক ছরকুম আলী দয়াল নিজের কৃষি জমিতে কাজ করতে গেলে সাইফুল ও তার লোকজন মিলে তাকে হত্যা করে নিরাপদে পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় বিশ্বনাথ থানায় ৩০ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করতে গেলে নিহতের ভাতিজা আহমদ আলীকে বারবার ফিরিয়ে দেওয়া হয়। পরে জনতার চাপে ৫ দিন পর থানা মামলা নেয়। তবে ওসি শামীম মূসা ও তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ফজলু অপরাধীদের নানাভাবে সহযোগিতা করেছেন। এছাড়া নিরপেক্ষ তদন্ত না করে মাত্র ৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। পরে বাদির নারাজি আবেদনে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন-পিবিআই মামলাটি পুনঃতদন্ত করছে।
আবুল কালাম সংবাদ সম্মেলনে বলেন, একপর্যায়ে সাইফুল ও তার দলবল মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্পে বরাদ্দের ৬৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করতে নির্ধারিত স্থানে মাটি না কেটে চৈতননগরের নজির উদ্দিনের নিজস্ব জমি ও বাড়িতে জোরপূর্বক মাটি কাটতে যায়। মুরব্বিদের নিয়ে নজির উদ্দিন বিষয়টি জানতে চাইলে সাইফুল ও তার সহযোগীরা হামলা চালায়। গুলি ছুঁড়ে। এতে নজির উদ্দিনের ভাতিজা স্কুলছাত্র সুমেল আহমদ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। নজির উদ্দিন ও সুমেল আহমদের পিতা মানিক মিয়াসহ ৪ জন গুলিবিদ্ধ হন। এ ঘটনায় সুমেল আহমদের চাচা ইব্রাহিম আলী সিজ্জিল বাদি হয়ে সাইফুলকে প্রধান আসামি করে ২৭ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ১৫/১৬ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি দিয়ে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
সংবাদ সম্মেলনে আরও অভিযোগ করা হয়, সুমেল আহমদ হত্যাকাণ্ডের পর সাইফুলকে ঘটনাস্থল থেকে পালাতে সহযোগিতা ও আলামত নষ্ট করার বিষয়ে এলাকাবাসী উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিত ও মৌখিকভাবে জানিয়েছেন। তবুও অপরাধীরা ধরাছোঁয়ার বাইরে। পুলিশ সাইফুলের দুটি পাসপোর্ট জব্দ করলেও পাসপোর্ট ছাড়িয়ে নিতে থানা ফটকে আসা এই আসামিতে গ্রেফতার করেনি।
সংবাদ সম্মেলনে আরও বলা হয়, আসামিরা ১৫ ও ১৬ সেপ্টেম্বর উচ্চ আদালতে গেলে সাইফুল ও তার সহযোগী নজরুল, সদরুল, সিরাজ ও আছরিককে ২৮ দিনের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেওয়া হয়। বাকি ১৫ আসামিকে আদালত ৬ সপ্তাহের জামিন দেয়। এরপর থেকেই সাইফুল ও তার লোকজন মামলা তুলে নিতে দুই মামলার বাদিদের হুমকি দিচ্ছে। এ কারণে দুটি জিডিও করা হয়েছে।
আবুল কালাম চাউলধনী হাওরের জমির সঙ্গে কৃষকদের জমির সীমানা নির্ধারণের দীর্ঘদিনের দাবির পর হাইকোর্টে রিটের পরিপ্রেক্ষিতে সিলেটের জেলা প্রশাসককে সীমানা নির্ধারণের যে নির্দেশ উচ্চ আদালত দিয়েছে তা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানান।
তিনি অভিযোগ করেন, মৎস্য কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া সরেজমিনে তদন্তে না গিয়েই অজ্ঞাত কারণে কৃষকদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দিয়েছেন।

Share Button
October 2021
M T W T F S S
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031