বাঙালির গর্জে উঠার মাস মার্চ ১৯৭১

Published: 02. Mar. 2021 | Tuesday

আল আজাদ
২ মার্চ মঙ্গলবার ঢাকায় পূর্ণ দিবস হরতাল পালিত হয়। বিক্ষুব্ধ ছাত্র-জনতার উপর সামরিক বাহিনী কয়েক দফা গুলি বর্ষণ করে। এতে বহু লোক হতাহত হয়। তা সত্ত্বেও ঢাকা নগরী মিছিলের বজ্রধ্বনিতে প্রকম্পিত হতে থাকে। সরকারি কর্মচারীরা কাজে যোগদান থেকে বিরত থাকেন। বাঙালি পুলিশ ও ইপিআর (এখন বিজিবি) জওয়ানরা জনতার সাথে সহযোগিতা করতে শুরু করেন।
পল্টন ময়দানে ন্যাপ (ওয়ালী)-এর উদ্যোগে একটি জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। বক্তারা এতে অবিলম্বে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহবান করে জনপ্রতিনিধিদের কাছে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানান।
জাতীয় লীগের উদ্যোগেও বায়তুল মোকাররমের সামনে আরেকটি জনসভা অনুষ্ঠিত হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি ছাত্রসভা অনুষ্ঠিত হয়। এই সভা বটতলায় হওয়ার কথা ছিল। পরে বিপুল জনসমাগমের কারণে তা কলা ভবনের কাছে সরিয়ে নেয়া হয়। এতে ছাত্ররা হাত তুলে শপথ গ্রহণ করেন। সভায় অসহযোগ আন্দোলন শুরুর প্রস্তাব গ্রহণ ছাড়াও সর্বপ্রথম স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় যে কোন ত্যাগ স্বীকারের শপথ গ্রহণ এবং স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়ানো হয়।
রাতে পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষ ঢাকা শহরে সান্ধ্য আইন জারি করে; কিন্তু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হল ও শ্রমিক এলাকা সমূহ থেকে এর বিরুদ্ধে স্লোগান উঠে ‘সান্ধ্য আইন মানি না’ ‘জয় বাংলা’ ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো-বাংলাদেশ স্বাধীন করো’। ছাত্র-জনতা মিছিল নিয়ে রাস্তায় বেরিয়ে পড়ে এবং পথে পথে অবরোধ গড়ে তুলে। রাত ৯টা হতে বিভিন্ন এলাকা থেকে গুলি বর্ষণের শব্দ ভেসে আসতে থাকে।
এর আগে বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক বিবৃতিতে উল্লেখ করেন, নিরস্ত্র কিশোরদের উপর গুলি বর্ষণে অন্তত ২ জন নিহত ও বহু আহত হয়েছে। এই কিশোররা বাংলাদেশের প্রতি গুরুতর অবমাননার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাচ্ছিল।
তিনি অবিলম্বে সামরিক আইন প্রত্যাহার ও জনপ্রতিনিধিদের ন্যায্য অধিকার প্রয়োগের বাঁধা দূর করার দাবি জানান। সেই সাথে ৩ মার্চ থেকে ৬ মার্চ পর্যন্ত সকাল ৬টা থেকে ৮ ঘণ্টা সর্বাত্মক হরতাল, ৩ মার্চ জাতীয় শোক দিবস পালন, বেতার, টেলিভিশন ও সংবাদপত্রে ঘটনাবলী সম্পর্কে বাঙালি নেতাদের বক্তৃতা বিবৃতি না ছাপলে বা প্রচার না করলে সকল বাঙালির অসহযোগিতার কর্মসূচি ঘোষণা করেন। আরো বলেন, ৭ মার্চ পরবর্তী কর্মপন্থা জানানো হবে।
সিলেট, সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জের পরিস্থিতি উত্তপ্ত থাকলেও বড় ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি। মৌলভীবাজারে ৫ দিনের লাগাতার হরতাল শুরু হয়।

১৯৭০ সালের ডিসেম্বরে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে বাঙালির মুক্তিসনদ ছয়দফার পক্ষে রায় দেয় তখনকার পূর্ব বাংলার সাড়ে সাতকোটি মানুষ। ঐতিহাসিক এ রায়ের পরিপ্রেক্ষিতে জাতির অবিসংবাদিত নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নতুন করে আশায় বুক বাঁধে সাড়ে সাতকোটি বাঙালি। শোষিত-বঞ্চিত জাতিকে নতুন স্বপ্ন হাতছানি দিতে থাকে অবিরত। পাকিস্তানের শাসনভার বাঙালির হাতে আসবে। অবসান হবে পশ্চিমা শাসন-শোষণের। অমিত সম্ভাবনার এ জাতি মাথা উঁচু করে দাঁড়াবে বিশ্বের বুকে; কিন্তু নিমিষে সেই স্বপ্ন গুড়িয়ে দেয় পাকিস্তানের ক্ষমতালোভী শাসকগোষ্ঠী। জগৎবাসীকে হতবাক করে ১৯৭১ সালের ১ মার্চ সোমবার পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খান ৩ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদ অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করে বসেন। এর পরপরই প্রশাসনিক পদ সমূহে নানা পরিবর্তন সাধন করা হয়।
এক বিবৃতির মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করার সাথে সাথে সারা পূর্ব বাংলায় তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। ঢাকা শহর বিক্ষোভ মিছিলে পূর্ণ হয়ে উঠে। অফিস-আদালত ছেড়ে কর্মচারীরা রাস্তায় নেমে আসেন। মিছিলসহ অগণিত মানুষ হোটেল পূর্বাণীর সামনে এসে জড়ো হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাদেরকে ধৈর্য্য না হারিয়ে পরিস্থিতি মোকাবেলার আহবান জানান।
ইতোমধ্যে পল্টন ময়দানে একটি বিরাট জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। দেয়ালগুলো হাতে লেখা পোস্টারে ভরে যায়। ছাত্ররা বিক্ষোভ মিছিলসহ প্রথমে শহীদ মিনারে ও পরে হোটেল পূর্বাণীতে পৌঁছেন।
বিকেলে পল্টন ময়দানে একটি স্বত্বঃস্ফূর্ত জনসমাবেশে ছাত্র ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।
বঙ্গবন্ধু হোটেল পূর্বাণীতে এক সাংবাদিক সম্মেলনে দু’দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন এবং সর্বাত্মক কর্মসূচি শুরু করার আভাস দেন।
তিনি জানান, ৭ মার্চ পূর্ণাঙ্গ কর্মসূচির রূপরেখা ঘোষণা করা হবে। এর পর থেকে পাকিস্তানি কর্তৃপক্ষের বদলে বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে জনগণ পরিচালিত হতে থাকে। তাদের মধ্যে সশস্ত্র প্রস্তুতির তাগিদ তীব্র হয়ে উঠে। ছাত্র-জনতা লাঠি, রড প্রভৃতি নিয়ে মিছিলে আসতে শুরু করে।
পাকিস্তানি শাসকচক্র দেশের অখণ্ডতা ও সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে কোন ছবি, খবর, অভিমত, বিবৃতি, মন্তব্য ইত্যাদি মুদ্রণের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে; কিন্তু বাস্তবে গণবিক্ষোভের সামনে এই নিষেধাজ্ঞা কাগুজে আদেশে পরিণত হয়।
সিলেটে ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন পৃথক পৃথক বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে তৎকালীন জাতীয় পরিষদ সদস্য দেওয়ান ফরিদ গাজীর বাসায় বিভিন্ন দলের নেতারা মিলিত হয়ে ব্যাপক আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেন, পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে এগুতে হবে।
সুনামগঞ্জে ইয়াহিয়া খানের গণবিরোধী সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে প্রতিবাদমুখর হবার আহবান জানিয়ে ছাত্রলীগ সাথে সাথে মাইকে প্রচারণা শুরু করে দেয়। পরবর্তী সময়ে পুরাতন মহাবিদ্যালয় ভবনে সংগঠনের মহকুমা সভাপতি সুজাত আহমদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন, সাধারণ সম্পাদক তালেব উদ্দিন আহমদ, মুজিবুর রহমান চৌধুরী প্রমুখ। ইতোমধ্যে রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যেও পারিস্পরিক যোগাযোগ শুরু হয়ে যায়।
মৌলভীবাজারে ছাত্রলীগ ও ছাত্র ইউনিয়ন আলাদা আলাদা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে চৌমুহনায় একটি পথসভা অনুষ্ঠিত হয়।
হবিগঞ্জে তাৎক্ষণিকভাবে টাউন হল প্রাঙ্গণ থেকে ছাত্র ইউনিয়ন একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে।

Share Button
April 2021
M T W T F S S
« Mar    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
2627282930  

দেশবাংলা