বঙ্গবীরের নেতৃত্বে প্রমাণিত হয় বাঙালির তেজ বীরত্ব আর যুদ্ধকৌশল

Published: 16. Feb. 2021 | Tuesday

আল আজাদ
প্রায় দুইশ বছরের ব্রিটিশ শাসনের অবসানের মধ্য দিয়ে দেশ ভাগ হলো। জন্ম নিলো দুটি দেশ, পাকিস্তান ও ভারত। ভাগ হলো বাঙালি জাতিও। আমরা পাকিস্তানের অন্তর্ভুক্ত হয়ে নতুন করে আবদ্ধ হলাম পরাধীনতার শৃঙ্খলে। নতুন পরিচয়ে শাসকগোষ্ঠীর শোষণ প্রক্রিয়া বরং আরো বেশি গতিতে চলতে থাকলো। সর্বক্ষেত্রে আমাদের বঞ্চনার যন্ত্রণা হলো আরো তীব্র। এই শোষণ-বঞ্চনার বিরুদ্ধে আমাদেরকে আবারো গর্জে উঠতে হলো।
পাকিস্তান সামরিক বাহিনীতে বাঙালিদের জায়গা দেওয়া হতোনা অনুপযুক্ত বলে-ভীতু আখ্যায়িত করে। অথচ ১৯৬৫ সালে পাক-ভারত যুদ্ধে বাঙালিসেনাদের বীরত্বেই রক্ষা পেয়েছিল পাকিস্তান নামক রাষ্ট্রের অস্তিত্ব। এরপরও বাঙালি সৈনিক ও সেনানায়কদেরকে নানাভাবে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়।
পশ্চিমা শাসক-শোষকগোষ্ঠীর মিথ্যাচারের জবাব আমরা দিয়েছি ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে। আধুনিক সমরাস্ত্রে সজ্জিত পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মাত্র নয়মাসেই একদম সাধারণ অস্ত্রধারী বাঙালি যোদ্ধাদের কাছে পরাজয় বরণে বাধ্য হয়। এর মধ্যদিয়ে প্রমাণিত হয় বাঙালির তেজ, বীরত্ব আর যুদ্ধ কৌশল। আর এই যুদ্ধজয়ে প্রধান সেনাপতি ছিলেন, বঙ্গবীর জেনারেল এম এ জি ওসমানী। অথচ এই বাঙালি বীর সন্তানকে কর্নেল পদমর্যাদা নিয়ে পাকিস্তান সেনাবাহিনী থেকে অবসর নিতে হয়েছিল। পরবর্তী সময়ে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে রাজনীতিতে যোগ দিয়ে ১৯৭০ সালের নির্বাচনে জাতীয় পরিষদ সদস্য নির্বাচিত হন। একাত্তরে সার্থক নেতৃত্ব দেন মুক্তিবাহিনীর। এছাড়া দেশ পুনর্গঠনেও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।
এম এ জি ওসমানী অর্থাৎ মো আতাউল গণী ওসমানীর জন্ম ১৯১৮ সালের ১লা সেপ্টেম্বর উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা বাবার তখনকার কর্মস্থল সুনামগঞ্জে। পৈত্রিক নিবাস সিলেটের বর্তমান ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীরে। তার বাবার নাম খান বাহাদুর মফিজুর রহমান। মা জোবেদা খাতুন। এই দম্পতির তিন সন্তানের মধ্যে সবার ছোট এম এ জি ওসমানী। বাবার চাকরির সূত্রে বিভিন্ন জায়গায় তার শৈশব-কৈশোর অতিবাহিত হয়।
যেমন জন্ম সুনামগঞ্জে হলেও শিক্ষাজীন শুরু হয় আসামের গৌহাটিতে। পরের শিক্ষাজীবন সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ও আলীগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়। সেখানকার শিক্ষা সমাপন করে এই সাহসী পুরুষ সেনাবাহিনীতে যোগ দেন৷ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে একটি ব্যাটেলিয়ানের কমান্ডার হিসেবে যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন মিয়ানমার সেক্টরে। ১৯৪২ সালে উন্নীত হন মেজর পদে। তখন ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে ছিলেন সর্বকনিষ্ঠ মেজর। ১৯৪৭ সালে পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে যোগ দেওয়ার পর এম এ জি ওসমানী ১৯৪৯ সালে চিফ অফ জেনারেল স্টাফের ডেপুটি নিযুক্ত হন। ১৯৫১ সালে নিযুক্ত হন ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টর প্রথম ব্যাটেলিয়ন অধিনায়ক। তার নেতৃত্বেই চট্টগ্রাম সেনানিবাস প্রতিষ্ঠা লাভ করে। এছাড়াও অনেক গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন ও কৃতিত্বপূর্ণ অবদান রেখে ১৯৬৭ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি তিনি অবসর গ্রহণ করেন।
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়। অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল এম এ জি ওসমানী হন মুক্তিবাহিনীর প্রধান সেনাপতি। তিনি ১২ এপ্রিল থেকে মন্ত্রীর সমমর্যাদায় যুদ্ধ পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করে এমন রণকৌশল প্রণয়ন করেন, যার মূল লক্ষ্য ছিল, দক্ষ ও সংখ্যাধিক্য পাকিস্তান সেনাবাহিনীকে নিজেদের ছাউনিতে আটকে রাখা ও তাদেরকে যোগাযোগের সবগুলো মাধ্যম থেকে বিছিন্ন করে দেওয়া। পরবর্তী সময়ে রণাঙ্গনের বাস্তবচিত্র অনুধাবন করে এই অভিজ্ঞ সেনানায়ক গেরিলা যুদ্ধকৌশল অনুসরণ করতে থাকেন, যার সার্থক প্রয়োগে নাস্তানাবুদ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ৯৩ হাজার সেনা ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী অর্থাৎ ভারতীয় সামরিক বাহিনীর যৌথ কমান্ডের কাছে আত্মসমর্পণ করতে বাধ্য হয়।
১৯৭১ সালের ২৬ ডিসেম্বর কর্নেল ওসমানী খ্যাত এম এ জি ওসমানীকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর জেনারেল পদমর্যাদা প্রদান করা হয় এবং তিনি দেশের প্রথম সশস্ত্র বাহিনী প্রধান হিসেবে নিযুক্তি পান। পরের বছর অর্থাৎ ১৯৭২ সালের ১২ এপ্রিল তিনি তার এ দায়িত্ব থেকে অবসর নিয়ে মন্ত্রিসভায় অভ্যন্তরীণ নৌ যোগাযোগ, জাহাজ ও বিমান চলাচল মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করে অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে দেশগড়ার সংগ্রামকে এগিয়ে নিয়ে যান।
১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে গঠিত গণঐক্য জোটের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে। এছাড়াও দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। ১৯৮৪ সালের ১৬ ফেব্রুয়ারি দেশমাতৃকার এই সূর্যসন্তান, গণতন্ত্রের প্রশ্নে আপসহীন এবং সততা ও নিষ্ঠার অনুসরণীয় ব্যক্তিত্ব শেষনিশ্বাস ত্যাগ করেন।

Share Button
February 2021
M T W T F S S
« Jan    
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728

দেশবাংলা