NATIONAL
The Bangladesh government has decided to award the Peace Medal in the name of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman || বাংলাদেশ সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে শান্তি পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেটে প্রথম `এডভান্সড কৃষি গবেষণা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ববির জন্মদিনে সিসিক মেয়রের দোয়া মাহফিল আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে শাল্লায় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে সিলেটের তিন উপজেলায়ই নতুন মুখ || দুটিতে আওয়ামী লীগ একটিতে বহিষ্কৃত বিএনপি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস ক্লাব গঠিত ৭ এপিবিএনের অভিযানে ২ লক্ষাধিক ভারতীয় বিড়িসহ পিকআপ আটক Malaysian labour market will not stop : Shafique মালয়েশিয়ান শ্রমবাজারে জনশক্তি প্রেরণ বন্ধ হবে না : শফিকুর রহমান চৌধুরী অবসর জীবন সম্পর্কে আইজিপি : প্রথমে কিছুদিন বিশ্রাম ও ঘোরাঘুরি এরপর পরিকল্পনা শাল্লায় ব্লাস্ট রোগে বোরোধানের ক্ষতি || সহায়তা পাবেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে পুলিশের পাশাপাশি অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহ্বান আইজিপির নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমের শিক্ষা দিতে হবে : প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী উপজেলা নির্বাচন || কোম্পানীগঞ্জে তিন বিএনপি নেতা বহিষ্কার সিকৃবিতে ওয়াপসার কর্মশালায় তথ্য প্রকাশ : সিলেটে ডিমের ঘাটতি দৈনিক ২৫ লাখ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আধুনিক শিল্পায়নের গুরুত্ব অপরিসীম : বিসিক চেয়ারম্যান মাধবপুরে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ

বঙ্গবন্ধু মুজিব : ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা || ম আমিনুল হক চুন্নু

  • শুক্রবার, ১২ এপ্রিল, ২০২৪

বাঙালির ইতিহাস সুপ্রাচীন। কিন্তু সে ইতিহাসে বাংলাদেশ নেই। সে ইতিহাস বাঙালিদের অনেকগুলি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জনপদের কথা বলে। এই জনপদগুলিই পরিচিত ছিল এক একটি রাজ্য হিসেবে। এসব রাজ্যের শাসকদেরকে ইতিহাস অভিহিত করেছে রাজা হিসাবে। বাংলাভাষী বিস্তীর্ণ জনপদে কত রাজ্য, কত রাজা। মোগল শাসনামল, বিশেষ করে সম্রাট আকবরের রাজত্বকালে, তাঁদের সাম্রাজ্যের বিস্তৃতির সাথে সাথে বাংলাভাষীদের এসব রাজ্য পদানত হয়েছে দিল্লীর। ক্রমে ক্রমে এইসব ক্ষুদ্র রাজ্যের বিলুপ্তি ঘটলেও বাঙালিদের ওপর দিল্লীর অধীনতা স্থায়ী থেকেছে বৃটিশ শাসন পর্যন্ত। এরপর দ্বিধাবিভক্ত বাংলা। একটি অংশ পশ্চিমবঙ্গ, রয়ে গেল দিল্লীর অধীনেই। আর একটি অংশ অধীনস্থ হলো পাকিস্তানের। কিছুদিন পর্যন্ত এই অংশটির নামের সাথে বাংলা যুক্ত থাকলেও শাসকদের ইচ্ছায় পূর্ববঙ্গ পরিণত হয়েছিল পূর্ব পাকিস্তানে।
পাকিস্তানের অধীনতায় ন্যস্ত হওয়া সেই পূর্ব পাকিস্তান মাত্র পঁচিশ বছরেই মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে স্বাধীন বাংলাদেশ হিসাবে। এই স্বাধীনতা অর্জন সহজ কাজ ছিল না। অনেক সংগ্রাম, অনেক রক্তদান, অনেক প্রাণ বিসর্জন, অনেক নিপীড়ন-নির্যাতন, জেল-জুলুম এবং শেষ অব্দি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অস্ত্র হাতে নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ করে পাকিস্তানের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে হয়েছে এই স্বাধীনতা। ভারতীয় উপমহাদেশে এমন মুক্তিযুদ্ধের ঘটনা আর কোথাও নেই। স্বাধীনতার জন্য এমন সশস্ত্র লড়াই, ত্রিশ লক্ষ মানুষের আত্মদান, সর্বাধুনিক অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত একটি সুপ্রশিক্ষিত সৈন্যবাহিনীর মোকাবিলা করা, তাদের বর্বর নির্যাতনের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে সাফল্য লাভের এমন দৃষ্টান্ত কেবল বাঙালিরাই স্থাপন করেছে। এ গৌরব কেবলই বাংলাদেশের বাঙালিদের। আর এই সাফল্যের নেতা হিসাবে ইতিহাসে স্থান করে নিয়েছেন শেখ মুজিবুর রহমান। জাতি যাকে `বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে ভূষিত করে হৃদয়ে স্থান দিয়ে রেখেছে।
হ্যাঁ, বঙ্গবন্ধুই বাঙালিদের প্রথম একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা। পশ্চিমবঙ্গ ও ছোট রাজ্য ত্রিপুরাকে বাদ দিয়ে বাকি পুরো বাংলাভাষী অঞ্চল নিয়ে এমন একটি স্বাধীন বাঙালি রাষ্ট্র ইতিহাসে আগে কখনও ছিল না। এদিক দিয়ে, বাঙালিদের একটি পৃথক স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার কৃতিত্বের জন্য বাঙালি জাতির কাছে এবং ইতিহাসে শেখ মুজিবুর রহমানের স্থান অনন্য।
১৯২০ সালের ১৭ মার্চে জন্ম নেয়া এই ক্ষণজন্মা মহাপুরুষ টুঙ্গিপাড়ার এক অভিজাত মুসলিম পরিবারে জন্ম নেন। বঙ্গবন্ধুর বেড়ে ওঠার সামাজিক ও পারিবারিক বলয়ের সঙ্গে যিনি সার্বক্ষণিক সাহচর্য দিয়ে ছিলেন, তিনি আর কেউ নন, পিতা শেখ লুৎফুর রহমান। `অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তে বারবার স্মরণ করেছেন নিবেদিতপ্রাণ জন্মদাতার কথা। পুরো বইটি পড়ার পর বাবা জীবনভর কিভাবে তাঁকে বটবৃক্ষের মতো ছায়া দিয়েছেন তেমন মুগ্ধতার বিস্ময়ও পাঠককে আপ্লুত করে। এমন পিতৃভক্তের নজির আমরা পাই বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জীবনব্যাপী সৃজন-সাধনায়। পিতা মহর্ষি দেবেন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর কনিষ্ঠ সন্তান রবীন্দ্রনাথের সার্বিক মনন, আদর্শ আর ব্যক্তিত্বে পর্বত সমান অস্তিত্ব নিয়ে বিরাজ করতেন। রবীন্দ্র ভক্ত আর অনুরাগী বঙ্গবন্ধুকে প্রত্যক্ষ করি তেমন সম্মানিত আসনে। সেখানে শেখ লুৎফুর রহমান তাঁর সামগ্রিক অবয়র নিয়ে সন্তানকে প্রতিনিয়ত অনুপ্রাণিত এবং চেতনায় সমৃদ্ধ করেছেন। শুধু পারিবারিক আবহেই নয়, বৃহত্তর সামাজিক আঙিনা এবং অতি প্রাসঙ্গিক রাজনৈতিক আদর্শ ও সার্বক্ষণিক উদ্দীপকের ভূমিকায়ও পাশে থেকেছেন।
সময়টা ছিল বিংশ শতাব্দির সামাজিক, রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক বিভাজনের এক উন্মত্ত পর্ব। ১৯০৫ সালে বঙ্গ ব্যবচ্ছেদ, ১৯০৬ সালে সর্ব ভারতীয় মুসলিম লীগ প্রতিষ্ঠা। এসবের সাংঘর্ষিক প্রতিক্রিয়ায স্বদেশী আন্দোলনের অনিবার্য ঘটনা প্রবাহ সেখানে অবিভক্ত ভারতকে ক্রান্তিকালের দুঃসময় অতিক্রমণ করিয়ে আরও ভয়াবহ অবস্থার দিকে নিয়ে যাচ্ছিল, তারই বিক্ষুদ্ধ চিত্র বঙ্গবন্ধুর আত্মকথনে অত্যন্ত সাবলীলভাবে বর্ণিত হয়েছে। ১৯১১ সালে বঙ্গভঙ্গ রদ, ১৯১৪ সাল থেকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের দামামা বেজে ওঠা, পরবর্তী সময়ে মহাত্মা গান্ধীর অসহযোগ আন্দোলন সব মিলিয়ে যে উত্তেজক পরিবেশ পরাধীন ভারতকে অস্থিতিশীল পর্যায়ে দাঁড় করায় তেমন সংকটকালে জাতির জনকের জন্ম সেও যেন এক ঐতিহাসিক পরম্পরা।
পরাধীন-অবহেলিত ও নিষ্পেষিত এই জাতিকে শতাব্দির মহানায়ক স্বাধীনতার স্বাদ দিয়েছিলেন। এদেশের দুঃখী দরিদ্র মানুষের জন্য বঙ্গবন্ধুর নিরন্তর, নিরলস সংগ্রাম এবং দাবি আদায়ের দীর্ঘ কারাবাসের মুখে দৃঢ় মনোবল তাঁকে করে তুলেছিল জীবন্ত কিংবদন্তি। বাঙালির হাজার বছরের স্বাধীনতার স্বপ্নকে যিনি বাস্তবায়িত করেছিলেন, তিনি এই স্বাধীনতার স্বাদ বাঙালিদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন-মহাকালের মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পৃথিবীর ইতিহাসে এক একটি জাতির জন্য এক একজন মহানায়কের জন্ম হয়। বাঙালি জাতির জন্যও বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়েছিল। বাঙালির মহানায়ক বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে আজও বাঙালি পরাধীনতার বেড়াজাল থেকে মুক্ত হতে পারত না।
সাহিত্যিক ও ছড়াকার অন্নদা শংকর রায় বঙ্গবন্ধুর কীর্তিকে স্মরণ করে ১৯৭১ সালের ৬ ডিসেম্বর লিখেছিলেন কালজয়ী পঙক্তি- ”যতকাল রবে পদ্মা যমুনা/গৌরী মেঘনা বহমান/ততকাল রবে কীর্তি তোমার/শেখ মুজিবুর রহমান/দিকে দিকে আজ অশ্রুগঙ্গা/রক্তগঙ্গা বহমান/তবু নাই ভয় হবে হবে জয়/জয় মুজিবুর রহমান।”
বঙ্গবন্ধু হঠাৎ মহানায়কে পরিণত হননি। নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে তিনি মহানায়কে পরিণত হয়েছিলেন। কিশোর বয়সেই তিনি সক্রিয় রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন৷ গোপালগঞ্জের মিশন স্কুলে অষ্টম শ্রেণিতে অধ্যয়নকালে বিট্রিশবিরোধী আন্দোলনে যোগদানের কারণে তিনি ১৯৩৮ সালে প্রথমবারের মতো গ্রেফতার হয়ে কারাবরণ করেন। এরপর থেকে শুরু হয় বঙ্গবন্ধুর সংগ্রামী জীবনের অভিযাত্রা। তিনি তাঁর সহকর্মীদের নিয়ে ১৯৪৮ সালে ছাত্রলীগ গঠন করেন। ১৯৪৯ সালে আওয়ামী লীগ গঠনে ও বিস্তারে তাঁর বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। ১৯৪৮ সালের দেশ বিভাগ ও স্বাধীনতা আন্দোলন, ১৯৪৯ সালের নানকার বিদ্রোহ, ১৯৫০ সালের তেভাগা আন্দোলন, ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৫৭ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি কাগমারি সম্মেলন, ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ছয়দফা আন্দোলন ও ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান পেরিয়ে ১৯৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে তিনি বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতায় পরিণত হন।
১৯৫০, এপ্রিল মাসে রাজশাহী জেলে পুলিশের গুলিতে নিহত তেভাগা আন্দোলনের নেতাদের লাশের পাশে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু মুজিব ওয়াদা করেছিলেন,তাঁর দল ক্ষমতায় গেলে পূর্ববাংলার কৃষক অবশ্যই তেভাগা পাবে। ১৯৪৯, জানুয়ারি নানকার বিদ্রোহী নেতা অপর্ণা পাল চৌধুরীকে কৃষক মুক্তির জন্যে লড়বেন বলে কথা দিয়েছিলেন। তিনি ১৯৫০, জানুয়ারি মাসে জেল হাসপাতালে ইলা মিত্রের শয্যা পাশে দাঁড়িয়ে বললেন, “দিদি তোমার ত্যাগ বৃথা যাবে না”, ১৯৫৪ সালে তাঁকে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার জন্য ভারতে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন তখনকার সর্বকনিষ্ঠ মন্ত্রী শেখ মুজিব।
ওয়াদা ভঙ্গ করেননি প্রিয় মুজিব। ১৯৭৫ সালের জানুয়ারিতে তেভাগা দাবি মেনে নিয়ে নতুন কৃষিনীতি ঘোষণা করলেন জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান। আর সেটাই তাঁর প্রাণ যাওয়ার সবচেয়ে বড় কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল।
বঙ্গবন্ধু চীনে ১৯৫২ সালের অক্টোবর মাসে অনুষ্ঠিত এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় আঞ্চলিক শান্তি সম্মেলনে যখন অংশ নেন, তখন তিনি ছিলেন ৩২ বছরের তরুণ রাজনৈতিক নেতা। এর দুই বছর পর অর্থাৎ ১৯৫৪ সালে তিনি জেলে রাজবন্দী থাকা অবস্থায় তাঁর অভিজ্ঞতার আলোকে ‘আমার দেখা নয়া চীন’- নামে বই রচনা করেন। শান্তি সম্মেলনে যোগ দিয়ে মাত্র ২২ দিন চীন ভ্রমণে সরকারে দেওয়া নানা অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে একজন অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন সমাজবিজ্ঞানীর মতো বাস্তবকে ব্যাখা করেছেন। অংশগ্রহণমূলক পর্যবেক্ষণে প্রাপ্ত-তথ্য উপাত্তের আলোকে ভিনদেশের সমাজ, সংস্কৃতি ও রাজনৈতিক বাস্তবতাকে স্বদেশের প্রেক্ষাপটের সঙ্গে তুলনামূলক আলোচনায় উপস্থাপন করেছেন, যেখানে কার্যত বঙ্গবন্ধুকে মনে হয়েছে গভীর অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন একজন সমাজতান্ত্রিক ও নৃ-বিজ্ঞানীর অবয়রে। চীন ভ্রমণে বঙ্গবন্ধু তৎসময়ের অনেক রাজনৈতিক নেতার যেমন সরাসরি সান্নিধ্য লাভ করেন, তেমনি তিনি প্রত্যক্ষ করেছেন নয়া চীনের আর্থসামাজিক-রাজনৈতিক বাস্তবতা আর সাধারণ জনগণের অবস্থাও।
বঙ্গবন্ধু তাঁর রাজনৈতিক জীবনে কোনো সময়েই অন্যায়ের কাছে মাথা নত করেনি এবং তাঁর কাছে সবচেয়ে মূল্যবান ছিলো জনমত ও জনগণ। তবে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের বার্তা ছিল তাঁর কাছে সঠিক স্বচ্ছ। ব্রিটিশ উপনিবেশ থেকে মুক্তি পেয়ে বাঙালি আবার যে নব্য পাকিস্তান উপনিবেশের ফাঁদে পা দিয়েছে বায়ান্নর ভাষা আন্দোলনের মাধ্যমে সে বার্তাটি পেয়ে তিনি ধীরে ধীরে স্বাধীনতা আন্দোলনের পথ পরিক্রমায় বঙ্গবন্ধু ১৯৬৬’র ৫ ফেব্রুয়ারি লাহোরে সম্মিলিত বিরোধী দলগুলোর এক কনভেনশনে ‘‘ছয়দফা” দাবি উত্থাপন করেন। বঙ্গবন্ধু চেয়েছিলেন, ছয়দফার আন্দোলন সূচনার পূর্বে এর একটি পূর্ব প্রতিক্রিয়া যাচাই করতে। এই উদ্যোগকে সামনে রেখে ছয়দফাকে তিনি কনভেনশনের বিষয়সূচিতে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব করেন; কিন্তু সভাপতি চৌধুরী মোহাম্মদ আলী ছয়দফা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনায় অস্বীকৃতি জানান। বঙ্গবন্ধুর উদ্যোগ সফল হলো এবং তিনি বুঝতে পারলেন স্বাধিকারের দাবি নিয়ে শুধুমাত্র বাঙালি জনগণই তাঁর সঙ্গী হবে, ঔপনিবেশিক শক্তির মহোদয়রা তাঁকে কোনো অবস্থাতেই সহযোগিতা করবেন না।
কনভেনশনে যখন ছয়দফা দাবি উত্থাপনে ব্যর্থ হলেন তখন বেরিয়ে এসে ছয়দফা বিষয়ে তাঁর দল এবং বাঙালি কতোটুকু আপসহীন এ বার্তাটি শাসকদের দিতে চেষ্টা করেন। ছয়দফা বাঙালিকে এক স্বতন্ত্র আত্মমর্যাদাশীল জাতি হিসেবে চিনতে ও জানতে শিখিয়েছে। ছয়দফার উপর ভিত্তি করেই আন্দোলন, নির্বাচন ও স্বাধীনতা যুদ্ধ সংঘটিত হয়েছে। স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা লাভ করে বাঙালি জাতীয়তাবাদের বিকাশ সম্ভব হয়েছে ছয়দফার জন্যই৷
জনগণের মাঝে স্বস্তি-শান্তি ও তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন সংগ্রাম করেছেন। ছয়দফা কর্মসূচি উপস্থাপনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু রাজনীতির শীর্ষে উঠে আসেন। দক্ষিণ এশিয়ায় সেটি ছিল গণঅধিকার প্রতিষ্ঠার সনদ। এক সময় আন্দোলনের ক্ষিপ্ততা এমন পর্যায়ে উপনীত হয়েছিল যে তাঁকে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় ১ নম্বর আসামির তালিকায় অধিভুক্ত করা হয়; কিন্তু গণমানুষের আন্দোলন ও আন্তর্জাতিক দাবির মুখে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার পরাজিত হয়। বঙ্গবন্ধু বেকসুর খালাস পেয়ে যান। বঙ্গবন্ধু ছিলেন ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা। নিপীড়িত মানুষের নেতা।
ভারতের স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা নেতাজি সুভাসচন্দ্র বসুর একটি বিখ্যাত উক্তি- “তোমরা আমাকে রক্ত দাও, আমি তোমাদের স্বাধীনতা দিব।” আন্তর্জাতিক বিশ্বে সুভাসচন্দ্র ছিলেন একজন বিশ্ব রাজনীতিক। প্রথম ও দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কাল থেকে তিনি আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব। তারও অনেক পরে এসে স্বাধীনতার জন্য সুদৃঢ়ভাবে বঙ্গবন্ধু বলেছেন-‘‘রক্ত যখন দিয়েছি রক্ত আরো দেব, এদেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাআল্লাহ। এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম-এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।”
প্রকাশ থাকে যে, দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের সর্বশেষ পর্যায়ে ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চের উত্থাল জনসমুদ্রে বঙ্গবন্ধুর এই ভাষণটি ছিল বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হওয়ার আগাম সংকেত। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা অর্জনের এমন অঙ্গীকার পৃথিবীর কম নেতার মাঝেই পাওয়া যায়।
বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার জন্য এই ভাষণটি ঐতিহাসিক এবং এর গুরুত্ব অপরিসীম। এই ভাষণের প্রেরণায় তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের সমগ্র মানুষ স্বাধীনতার জন্য ব্যাকুল ও উদ্দীপ্ত উত্থাল হয়ে উঠেছিল। এই ভাষণের মূল প্রেরণা শুধু বাংলাদেশে নয়, পৃথিবীর স্বাধীনতা বঞ্চিত নিপীড়িত মানুষকে জাগিয়ে তোলার ক্ষেত্রেও যথেষ্ট প্রেরণাদায়ক ও শক্তি-উদ্দীপক হতে পারে।
অন্য কিছু না হলেও মুধু ৭ই মার্চের ভাষণের কারণেও বঙ্গবন্ধু তৃতীয় বিশ্ব তথা আন্তর্জাতিক বিশ্বে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন, কেননা সেই ভাষণে নিপীড়িত গণমানুষের মুক্তির কথা আছে। আত্মসম্মানের আহবান আছে। স্বাধীনতার কথা আছে। তবে ৭ই মার্চের সেই ভাষণের মূলকথা ছিল স্বাধীন বাংলাদেশ।
রাজনৈতিকভাবে বঙ্গবন্ধুর বিচক্ষণতা ও মেধা ছিল প্রখর। গণমাধ্যমের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে তাঁর চৌকস নেতৃত্বে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সংগ্রাম বেগবান হয়। শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী এবং মজলুম জননেতা মাওলানা ভাসানী রাজনৈতিক উত্তরসূরী হিসেবে একমাত্র বঙ্গবন্ধু ছিলেন সবচেয়ে সার্থক ও সফল নেতা। এ ক্ষেত্রে রাষ্ট্রনায়ক হিসেবেও তিনি ছিলেন শক্তিশালী এবং খ্যাতিমান। পাকিস্তান আমলে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার ও মুক্তির জন্য লড়াই করেন। ১৯৬৯-এর গণআন্দোলনের পর ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনে তাঁর দল নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে; কিন্তু পাকিস্তানি শাসকগণ আওয়ামী লীগ তথা বঙ্গবন্ধুকে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে গড়িমসি করতে থাকে। শুধু তা-ই নয়, পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠী পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের ওপর নির্যাতন ও নিপীড়ন চালাতে থাকে। জেনারেল ইয়াহিয়া খান পাকিস্তানের ক্ষমতা দখল করার পর সর্বশেষ ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ রাতে ঢাকা শহরসহ বিভিন্ন শহরে গণহত্যা চালায় এবং বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। দুনিয়ার কূটনীতি, গণমাধ্যম, রাষ্ট্রযন্ত্র কারো কাছেই কোনো খবর ছিল না বঙ্গবন্ধু কোথায়? তিনি কি বেঁচে আছেন? তিনি কি কারাগারে? কোথায় সে কারাগার? তাঁকে কি মেরে ফেলা হযেছে? না! এরকমটা কেউ ভাবতে চাননি, কল্পনাও করতে চাননি। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের সময় জাতিসংঘের মহাসচিব ছিলেন বার্মার কূটনীতিক উ থান্ট। এই নামটি প্রথম শুনেছিলাম রৌয়াইল উচ্চবিদ্যালয়ের আমাদের সকলের প্রিয় শিক্ষক (ইতিহাস পড়াতেন) আশিকুর রহমান (আশিক) স্যারের কাছে। এই স্মৃতি আজও মনের মাঝে রয়ে গেছে। তবে ১৯৭১ সালের ২৫ শে মার্চ দিবাগত রাত (২৬ শে মার্চ) বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার খবরটুকু ছাড়া বাঙালি বা গোটা দুনিয়ার কাছে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে কোনো খবরই ছিল না। এই অন্ধকারাচ্ছন্ন সময় ছিল ১৯৭১ সালের আগস্ট অবধি।

তবে ইতিহাসের নৃশংসতম গণহত্যা সংঘটিত হয় ২৫ মার্চ ১৯৭১-এ। নিরস্ত্র বাঙালির ওপর ঝাঁপিয়ে পড়া বর্বর পাকিস্তান সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধের শুরুও সেই কালরাত থেকে। ২৬ মার্চ স্বাধীনতার ঘোষণার মধ্য দিয়ে সমগ্র দেশব্যাপী সর্বাত্মক মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। ১৯৭১ সালে ৪ এপ্রিল সিলেট বিভাগের হবিগঞ্জ জেলার মাধবপুর উপজেলার তেলিয়াপাড়া চা বাগানের বড়ো বাংলোর সভা থেকেই মুক্তি বাহিনীর সামরিক শাখা গঠন করে মুক্তিযুদ্ধ চালিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছিল। সভায় সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছিলেন- কর্নেল (অব) এম এ জি ওসমানী। সভায় যুদ্ধকালীন একটি জাতীয় সরকার ১৪ এপ্রিল ‘৭১ গঠন করা হয়েছিল। সর্বসম্মতিক্রমে নাম দেয়া হয়েছিল “মুজিব নগর”- সরকার এবং মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়কের দায়িত্বে ছিলেন কর্নেল (অব) মহম্মদ আতাউল গণি ওসমানী। একটি প্রশিক্ষিত সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে নিরস্ত্র মানুষের “যা আছে তাই নিয়ে”-মোকাবিলা খুব সহজ ব্যাপার ছিল না। তবুও চরম দুঃসময়ে বাঙালি হতবিহ্বল না হয়ে সাহসের সঙ্গে পরিস্থিতি সামাল দিয়ে দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে লাখ লাখ শহীদের ত্যাগ ও রক্তস্রোতের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করে।
স্বাধীনের পর পাকিস্তানি কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধুর মুক্তির খবর এসেছিল ১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি। পাকিস্তান থেকে তখন বাংলাদেশে আসার সরাসরি কোনো যোগাযোগ ছিল না। ভারতের সঙ্গেও ছিল তাদের বিচ্ছিন্নতা। তাই বঙ্গবন্ধু বেছে নিয়েছিলেন লন্ডন হয়ে ঢাকা আসার পথ। লন্ডন হয়ে আসতে দু’দিন সময় লেগে গিয়েছিল। সেখানে তাঁকে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির মর্যাদা দেওয়া হয়। তা সরকারি সফর ছিল না। তবুও মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে স্বাধীন হওয়া একটি দেশের রাষ্ট্র প্রধানের ভাবমূর্তি ব্রিটিশদের কাছে ভিন্ন মর্যাদায় অধিষ্ঠিত ছিল। সে মর্যাদা তারা বঙ্গবন্ধুকে দিতে কার্পণ্য করেননি। বক্তব্য দিয়েছেন বঙ্গবন্ধু সাংবাদিক সম্মেলনে ও সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হীথের সঙ্গে।

১০ জানুয়ারি প্রত্যুষে ব্রিটিশ রয়্যাল এয়ারফোর্সের একটি বিশেষ বিমানে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। পথে যাত্রা বিরতি নয়াদিল্লিতে। ভারতের রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি ও প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বিমান বন্দরে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান। ওই দিন দুপুর ২টায় দিল্লী থেকে বঙ্গবন্ধুকে বহনকারী বিমান বাংলার মাটি স্পর্শ করলে সৃষ্টি হয় এক আবেগঘন মুহূর্ত৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী তাজ উদ্দিন আহমদ ও মুক্তিবাহিনীর সর্বাধিনায়ক এম এ জি ওসমানীকে জড়িয়ে ধরে অশ্রুসিক্ত নয়নে, আবেগময় চেহেরায় জাতির প্রতি, জনগণের প্রতি অভিব্যক্তি প্রকাশ করেছিলেন। বিকেল ৫ ঘটিকায় রেসকোর্স ময়দানে প্রায় ১০ লাখ লোকের উপস্থিতিতে ভাষণ দিতে গিয়ে বঙ্গবন্ধু আবেগ-আপ্লুত হয়ে বলেছিলেন,-“নেতা হিসেবে নয়, ভাই হিসেবে আমি আমার দেশবাসীকে বলছি-সাধারণ মানুষ যদি আশ্রয় না পায়, খাবার না পায়, যুবকরা যদি চাকরি বা কাজ না পায়, তাহলে আমাদের এ স্বাধীনতা ব্যর্থ হয়ে যাবে।” এখন আমাদের অনেক কাজ করতে হবে। বক্তৃতারত অবস্থায় বঙ্গবন্ধুর কন্ঠ বারবার বাকরুদ্ধ হয়ে আসছিল। রুমাল দিয়ে চোখ মুছে নিচ্ছিলেন। প্রায় ১৭ মিনিটের ভাষণ ছিল বাঙালি জাতির জন্য দিকনির্দেশনা।
তাছাড়া বিচারপতি হাবিবুর রহমানের রাজনৈতিক ঘটনাপঞ্জি ১৯৭১-২০১১’- গ্রন্থের ৩১ পৃষ্ঠায় এক অসাধারণ কথোপকথন আমরা দেখতে পাই। ১৯৭২ সালের ২৪ জানুয়ারি অস্ত্র সমর্পণের দিন মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু মুজিব বলেছিলেন,- ‘‘আমি তোমাদের তিন বছর কিছু দিতে পারব না। আরও তিন বছর যুদ্ধ চললে তোমরা যুদ্ধ করতে না?‘’ উত্তর আসে-“করতাম-করতাম।।” তিনি তখন বলেছেন, “তাহলে মনে করো যুদ্ধ চলছে, তিন বছর যুদ্ধ চলবে! সেই যুদ্ধ দেশ গড়ার যুদ্ধ। অস্ত্র হবে লাঙ্গল আর কোদাল।” ১৯৭২ সালের সেই সমাবেশে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কেবল তিন বছর সময় চেয়েছিলেন। কী আশ্চর্য! ঘাতকরা তাঁকে ঠিক ওই তিন বছরের মাথায়ই হত্যা করার পরিকল্পনা করেছিল।
বঙ্গবন্ধু বহির্বিশ্বের শীর্ষ পর্যায়ের আন্তর্জাতিক সম্মেলনে যোগদান করতে শুরু করেন৷ তাঁর মাঝে বিশ্বনেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় ও আলাপ আলোচনায় অনুপম দক্ষতা লক্ষ্য করা যায়। কমনওয়েলথের সদস্য পদ লাভের পর বঙ্গবন্ধু কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন।
১৯৭৩ সালে সম্মেলনে যাওয়ার সময়ও তিনি বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সমর্থনদানকারী বন্ধুদের কথা ভোলেননি। তাই অটোয়া যাওয়ার পথে বেলগ্রেডে প্রেসিডেন্ট টিটোর সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য যুগোস্লোভ সরকারের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন। টিটো শুধু যুগোস্লাভিয়ার প্রেসিডেন্ট নন, তিনি ছিলেন জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনের অন্যতম স্থপতি। নেহেরু, নাসের, সুকর্নর সঙ্গে তাঁর নামও সমস্বরে উচ্চারিত। সোভিয়েত ইউনিয়নের এককালের নেতা স্তালিনের সঙ্গে আদর্শগত বিরোধের পর সামরিক জোট নিরপেক্ষ আন্দোলন গড়ে তোলার জন্য তিনি ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু, মিসরের প্রেসিডেন্ট জামাল আব্দুল নাসেরের সঙ্গে একযোগে নিরলস ভূমিকা রাখেন। রাষ্ট্রীয়ভাবে নতুন রাষ্ট্র বাংলাদেশ জোটনিরপেক্ষ পররাষ্ট্রনীতি সমূহের প্রতি বিশ্বাস এবং একাত্মতার ঘোষণার মাধ্যমে হয়ে ওঠে সেসব নীতির সমর্থক।
তবে জোটনিরপেক্ষ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর সাথে ফিদেল ক্যাস্ত্রোর দেখা হয়। ফিদেল জিজ্ঞেস করেছিলেন, নতুন সরকারের প্রশাসনে কাদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে? আত্মবিশ্বাস নিয়ে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, পাকিস্তান ফেরত অভিজ্ঞ কর্মকর্তাদের। কথাটি শুনেই ফিদেল বলেছিলেন, “হিজ এক্সসেলেন্সি ইউ আর ডেড।” আপনি যাদের নিয়োগ দিয়েছেন এরা আপনার বিশ্বস্ত নয়, মুক্তিযোদ্ধারাই আপনার প্রধান বিশ্বস্ত ও নির্ভরযোগ্য আপনজন।”
বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, এদের তো কোনোও অভিজ্ঞতা নেই। ফিদেল বলেছিলেন, মুক্তিযুদ্ধই তাঁদের অভিজ্ঞতা, বাদবাকি মুক্তিযুদ্ধের পরিকল্পনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে তারা অভিজ্ঞ হয়ে উঠবে। এসব প্রশ্ন সামনে রেখে তারই আলোকে ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছিল, তা কেউ কখনো ভাবতে পারেনি। তবু কেন অবিশ্বাস্য এই ঘটনা ঘটে গেল? এ প্রশ্নের উত্তর আজও বাঙালিরা খুঁজে পায়নি। তবে উত্তর খোঁজার চেষ্টা চলছে।

তাছাড়া বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর তাজউদ্দিন, জেনারেল এম এ জি ওসমানীসহ পরিচিত নেতৃবৃন্দকে তিনি সরিয়ে খন্দকার মোশতাকের মতো মীরজাফরদের কাছে টেনে নেন৷ স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি, লুটপাটে দেশ ছেয়ে গিয়েছিল। বঙ্গবন্ধু প্রকাশ্যে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর ভাষায় বক্তৃতা করেছেন। দ্রব্যমূল্যর চরম উর্ধগতি, আইন শৃঙ্খলার অবনতি, ‘৭৪ সালের দুর্ভিক্ষ ইত্যাদি কারণে সরকার দিশেহারা হয়ে যায়। বঙ্গবন্ধু আক্ষেপ করে বলতেন,- “বিদেশ থেকে আমি ভিক্ষা করে গরীব মানুষের জন্য সাহায্য নিয়ে আসি; কিন্তু চাটার দল সেটাও খেয়ে ফেলে।”। বঙ্গবন্ধুর হৃদয় ছিল সমুদ্রের মতো বিশাল। তিনি সবাইকে বিশ্বাস করতেন ও ভালবাসতেন৷ তার মতো দেশপ্রেমিক নেতা হাজার বছরেও খুব কম জন্মায়।
সমাজতান্ত্রিক কিউবার নেতা ফিদেল ক্যাস্ত্রো বলেন, ‘‘আমি হিমালয় দেখিনি, শেখ মুজিবকে দেখেছি।” পররাষ্ট্র নীতির ক্ষেত্রে যুদ্ধ নয়, সবার সাথে বন্ধুত্ব এই নীতির কারণে পাকিস্তানের সাথে সম্পর্ক স্বাভাবিক করণের জন্য হয়ত সদ্য স্বাধীন দেশে জুলফিকার আলী ভুট্টোকে নিমন্ত্রণ করে ঢাকায় নিয়ে এসেছিলেন। এগুলিসহ তাঁর বিভিন্ন পদক্ষেপ আন্তর্জাতিক এবং অভ্যন্তরীণ ষড়যন্ত্রেরও কারণ হয়ে গিয়েছিল।
মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে থেকেই মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়। সেই ষড়যন্ত্র একটা রূপ নেয় ১৫ আগস্ট ১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের প্রায় সব সদস্যকে হত্যা করার মধ্য দিয়ে। এরপর প্রায় ৪৯ বছর কেটে গেল, সেই ষড়যন্ত্র শেষ হলো না। এখনো চলছে৷ এখন সময় পাল্টাচ্ছে। টার্গেট এবং পরিস্থিতিও পাল্টাচ্ছে।
তবে খুনের সাথে জড়িত ছিল তার আজীবনের রাজনৈতিক সহকর্মী ও কিছু দলীয় অনুসারীরা। হত্যার পেছনে উচ্চাভিলাসের প্রতিহিংসা এবং সুযোগসন্ধানী চক্রান্ত ক্রিয়াশীল ছিল। এই মিলিত সংক্রান্তে তাঁকে খুন করা হয়েছে৷ দলে ও জনমনে চক্রান্তকারীদের তেমন প্রভাব কিংবা ভাবমূর্তি ছিল না। প্রশ্ন আসে, তাহলে দল ও দলের নেতাকর্মীদের এই হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে রাস্তায় নামতে দেখা গেল না কেন?
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর নোবেলজয়ী পশ্চিম জার্মানির নেতা উইনি ব্রানডিট যথার্থই বলেছিলেন, ‘‘মুজিবকে হত্যার পর বাঙালিদের আর বিশ্বাস করা যায় না। যে বাঙালি শেখ মুজিবকে হত্যা করতে পারে, তারা যেকোনো জঘন্য কাজ করতে পারে।”
বাঙালিদের প্রতি অতল ভালোবাসায় বঙ্গবন্ধু নিজের ব্যক্তিগত চাওয়া-পাওয়া, সুখ-আরাম-আয়েশকে বিসর্জন দিয়েছেন। পরিবারের প্রতি দায়িত্বকে গৌণ করেছেন। ফাঁসির রজ্জু গলায় পরতে নিজের জীবনকে তুচ্ছ করেছেন। তাই কোনো বাঙালি তাঁকে হত্যা করে আত্মঘাতি হবে তা বঙ্গবন্ধুর কল্পনায়ও ঠাঁই ছিল না।
কিন্তু ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর থেকেই বাংলাদেশের রাজনীতির গতিপথ পাল্টে যায়। কেননা ১৫ আগস্টের পর স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাস পাল্টে যায়। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী চার জাতীয় নেতা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যপ্টেন মনসুর আলী ও কামরুজ্জামানকে মীর জাফর মোশতাকের নির্দেশে জেলখানার মধ্যে বন্দি অবস্থায় হত্যা করে ওই একই ঘাতক দল।
শাসনক্ষমতা চলে যায় সম্পূর্ণভাবে মুক্তিযুদ্ধের শত্রুপক্ষের হাতে। তারাই নানা রঙে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের শাসনক্ষমতায় বসে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, স্বাধীনতার আদর্শ, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলার স্বপ্ন সব বিসর্জন দিয়ে প্রাক ‘৭১-এর আদর্শে ফিরে যাওয়ার অনুশীলন চালাতে থাকে। ২১ বছর বাংলাদেশ স্বাধীনতার উল্টো স্রোতে চলতে থাকে। ইতোমধ্যে এই সময়ে একটা নতুন প্রজন্ম বেড়ে ওঠে তাদের দেখানো পাকিস্তানি আদর্শের হাওয়ায়। তাদের মন ও মগজে ঢুকিয়ে দেওয়া হয় মুক্তিযুদ্ধের বিকৃত ইতিহাস।
প্রকৃত ইতিহাসকে নাকি কোনো কিছু দিয়েই ঢেকে রাখা যায় না। মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস ফিরে আসতে শুরু করে বঙ্গবন্ধুর জীবিত দুই কন্যা (শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা) বিদেশের নির্বাসন থেকে ফিরে আসার পর থেকে। শেখ হাসিনা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে ফিরে আসে মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার কথা বলার পরিবেশ৷ তবে সেটাও স্বল্পকালের জন্য। ১৯৯৬ থেকে ২০০০ পর্যন্ত। এরপর আবার বাংলাদেশের ক্ষমতা আওয়ামী লীগের হাতছাড়া হয়ে যায়। তারপর ২০০৮ সাল থেকে আজ অবধি এক নাগাড়ে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার ফলে দেশ অকল্পনীয় উন্নয়ন অর্জন করতে পেরেছে। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে অনেকের ফাঁসি কার্যকর করেছে। দেশ যখন শনৈ: শনৈ: উন্নতির পথে এগিয়ে চলেছে, সেই সময় নতুন করে আবার ষড়যন্ত্রের কথা শোনা যাচ্ছে।
তাই দেশপ্রেমিক সব শক্তিকে এই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে সদা-সর্বদা সজাগ থাকতে হবে। স্বাধীনতার শত্রুরা যেন আর কোনো সুযোগ না পায়। বাঙালি জাতি আর যেন কোনো ষড়যন্ত্রের শিকার না হয়।
বর্ণবাদ বিরোধী নেতা, নিপীড়িত মানুষের মহান নেতা নেলসন ম্যান্ডেলার একটি বিখ্যাত উক্তি মনে পড়ছে। তিনি বলেছেন, ‘‘সম্পন্ন করবার আগে সবকিছুই অসম্ভব মনে হয়!’’
সত্যিকার অর্থে যেকোনো অসম্ভবকে জয় করতে হলে কঠিন সিদ্ধান্ত ও সৎ সাহস রাখতে হয়। বঙ্গবন্ধুর মাঝে সে রকম সৎ সাহস ও দৃঢ়তা ছিল। জীবনে তিনি অনেক সাহসী ভূমিকা নিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক জীবনের প্রতিটি অধ্যায়কে বিচার বিশ্লেষণ করলে দেখা যাবে, তিনি কতটা ত্যাগী এবং সৎ সাহসী নেতা ছিলেন৷ তিনি অনেক অসম্ভবকে সম্ভব করার চেষ্টা করেছেন এবং সফলও হয়েছেন।
তৃতীয় বিশ্বসহ আন্তর্জাতিক বিশ্বে বঙ্গবন্ধুর বিচক্ষণ রাজনৈতিক পরিচিতি ছিল ঈর্ষনীয় এবং তিনি একজন সফল নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলেন।
অতএব, আমাদের উচিত সকল স্বার্থের উর্ধ্বে থেকে বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবনের অবদানের প্রতি অকুণ্ঠ সমর্থন ও শ্রদ্ধা জানানো।
আল্লাহ কৃতজ্ঞতা পছন্দ করেন। এ মুহূর্তে মেরি ডেভিসের বিখ্যাত উক্তি মনে পড়ে গেল। তিনি বলেন, “আমি যত বেশি কৃতজ্ঞ, আমি তত বেশি সৌন্দর্য দেখি।”
আর সৌন্দর্য দেখার জন্য তীক্ষ্ণ মেধা ও দূরদর্শিতার প্রয়োজন। সেটি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মধ্যে ছিল। বঙ্গবন্ধু মানুষকে ভালোবেসেছিলেন এবং মানুষের ভালোবাসাও অর্জন করেছিলেন। তাই বঙ্গবন্ধু মুজিব ছিলেন নিপীড়িত ও ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা।

লেখক : কলামিস্ট, গবেষক, লোকসাহিত্যিক ও সমাজবিজ্ঞানী, প্রতিষ্ঠাতা অধ্যক্ষ, নূরজাহান মেমোরিয়াল মহিলা ডিগ্রি কলেজ, সিলেট, পিএইচডি ফেলো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest