NATIONAL
Prime Minister Sheikh Hasina's visit to China has elevated bilateral relations to a comprehensive strategic cooperative partnership : Chinese media || প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চীন সফর দুদেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ককে একটি ব্যাপক কৌশলগত সহযোগিতামূলক অংশীদারিত্বে উন্নীত করেছে : চীনের বিভিন্ন গণমাধ্যম
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশের অভিযানে একদিনে দেড় হাজার বস্তা ভারতীয় চিনি আটক দক্ষিণ সুরমাসহ সিলেটের বিভিন্ন এলাকায় সড়কে ও পরীক্ষাকেন্দ্রে এখনও পানি সুনামগঞ্জে সংবাদিকদের সঙ্গে নবাগত পুলিশ সুপারের মতবিনিময় মৌলভীবাজারে ইউপি উপনির্বাচন ২৭ জুলাই || প্রতীক বরাদ্দ || ভোটগ্রহণ ইভিএমে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ৫ কার্টন সিগারেট ও ৮ কেজি জর্দা আটক সিলেট বিভাগ উন্নয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে দক্ষিণ সুরমায় ত্রাণ বিতরণ শ্রীমঙ্গলে প্রতিপক্ষের হামলায় বার কাউন্সিলের পরীক্ষার্থী নিহত প্রবাসীরা দুর্যোগে-ক্রান্তিকালে দেশের মানুষের পাশে থাকেন : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী সুনামগঞ্জ জেলা যুবলীগের উদ্যোগে বন্যার্তদের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ মৌলভীবাজারে বিশ্ব জনসংখ্যা দিবস পালিত || বিশেষ সম্মাননা প্রদান প্রবাসীরা দেশের অর্থনীতির অন্যতম চাবিকাঠি : মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সুশাসন নিশ্চিত করতে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণ করবেন সিলেটের নবাগত পুলিশ সুপার সিলেটে পুলিশের অভিযানে দেড় কোটি টাকার বেশি মূল্যের ভারতীয় চিনি আটক সিলেটের নতুন এসপি কর্মকাল শুরু করলেন মাজার জিয়ারত করে এস‌এমপি ডিবির অভিযানে আনুমানিক ১ কোটি ২০ লাখ টাকার চিনি আটক || গ্রেফতার ৫ মাধবপুরে সেই আলোচিত মা ও মেয়ের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ || বিচার দাবি

বঙ্গবন্ধুর ‘ছয়দফা’ মনু মিয়াদের রক্তে সিক্ত পথ ধরে পৌঁছলো বাঙালির এক দফায়

  • বুধবার, ৭ জুন, ২০২৩

আল আজাদ : ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি। পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর জাতীয় সম্মেলন। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সেখানে বাঙালির মুক্তিসনদ হিসেবে ‘ছয়দফা’ দাবি উত্থাপন করেন শেখ মুজিবুর রহমান। খবরটি পেয়েই কান খাড়া হয়ে যায় পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠীর। অনেক রাজনৈতিক দলও আঁতকে উঠে। এমনকি কেউ কেউ ছয়দফাকে সিআইএর চক্রান্ত আর ভারতের ষড়যন্ত্র বলে কটুক্তি করতেও তখন দ্বিধাবোধ করেননি, যদিও পরবর্তী সময়ে প্রমাণিত হয়েছিল, বাঙালির নিজস্ব আবাসভূমি প্রতিষ্ঠার মূলমন্ত্র এই ছয়দফাতেই নিহিত ছিল।
১৯৬৬ সালের ১ মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করেই তিনি ‘আমাদের বাঁচার দাবি ছয়দফা’ নিয়ে ছুটে যেতে থাকেন সর্বস্তরের মানুষের কাছে। তুলে ধরতে থাকেন এর যৌক্তিকতা। এতে মানুষ সাড়া দেয়।
ছয়দফার সমর্থনে ১৯৬৬ সালের ৭ জুন আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানে হরতাল আহবান করে। অভাবনীয় সাড়া মেলে সর্বস্তরের মানুষের নিকট থেকে; কিন্তু হরতাল দমনে হিংস্রতার আশ্রয় নেয় পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী। লেলিয়ে দেয় পুলিশ ও ইপিআর। ঢাকা ও নারায়নগঞ্জসহ বিভিন্ন জায়গায় গুলি চালায় সরকারি পেটুয়া বাহিনী। এতে শহীদ হন সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার বড়দেশ (নয়াগ্রাম)-এর ফখরুল মৌলা খান (মনু মিয়া) সহ অনেক বীর বাঙালি। এই সফল হরতালের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের ছয়দফার প্রতি বাঙালি জাতির অকুণ্ঠ সমর্থন সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়।
বঙ্গবন্ধু ঘোষিত ঐতিহাসিক ছয়দফা ছিল নিম্নরূপ
প্রথমদফা : শাসনতান্ত্রিক কাঠামো ও রাষ্ট্রীয় প্রকৃতি
দেশের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো এমনি হতে হবে, যেখানে পাকিস্তান হবে একটি ফেডারেশন ভিত্তিক রাষ্ট্রসংঘ এবং এর ভিত্তি হবে লাহোর প্রস্তাব। সরকার হবে সংসদীয় পদ্ধতির। আইন পরিষদের ক্ষমতা হবে সার্বভৌম এবং এই পরিষদও নির্বাচিত হবে সার্বজনীন ভোটাধিকারের ভিত্তিতে জনসাধারণের সরাসরি ভোটে।
দ্বিতীয়দফা : কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা
কেন্দ্রীয় (ফেডারেল) সরকারের ক্ষমতা কেবলমাত্র দু’টি ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ থাকবে-যথা দেশরক্ষা ও বৈদেশিক নীতি। অবশিষ্ট সকল বিষয়ে অঙ্গরাষ্ট্রগুলোর ক্ষমতা থাকবে নিরঙ্কুশ।
তৃতীয়দফা : মুদ্রা ও অর্থ সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
মুদ্রার ব্যাপারে নিম্নলিখিত দু’টির যেকোন একটি প্রস্তাব গ্রহণ করা যেতে পারে।
(ক) সমগ্র দেশের জন্যে দু’টি পৃথক অথচ অবাধে বিনিময়যোগ্য মুদ্রা চালু থাকবে।
অথবা
(খ) বর্তমান নিয়মে সমগ্র দেশের জন্যে কেবলমাত্র একটি মুদ্রাই চালু থাকতে পারে। তবে সে ক্ষেত্রে শাসনতন্ত্রে এমন ফলপ্রসূ ব্যবস্থা রাখতে হবে, যাতে করে পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে মূলধন পাচারের পথ বন্ধ হয়। এ ক্ষেত্রে পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক ব্যাংকিং রিজার্ভেরও পত্তন করতে হবে এবং পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক আর্থিক ও অর্থবিষয়ক নীতি প্রবর্তন করতে হবে।
চতুর্থদফা : রাজস্ব, কর ও শুল্ক সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
ফেডারেশনের অঙ্গরাষ্ট্রগুলোর কর বা শুল্ক ধার্যের ব্যাপারে সার্বভৌম ক্ষমতা থাকবে। কেন্দ্রীয় সরকারের কোনরূপ কর ধার্যের ক্ষমতা থাকবেনা। তবে প্রয়োজনীয় ব্যয় নির্বাহের জন্যে অঙ্গরাষ্ট্রীয় রাজস্বের একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের প্রাপ্য হবে। অঙ্গরাষ্ট্রগুলোর সবরকম করের শতকরা একই হারে আদায়কৃত অংশ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তহবিল গঠিত হবে।
পঞ্চমদফা : বৈদেশিক বাণিজ্য বিষয়ক ক্ষমতা
(ক) ফেডারেশনভুক্ত প্রতিটি অঙ্গরাষ্ট্রের বহির্বাণিজ্যের পৃথক হিসাব রক্ষা করতে হবে।
(খ) বহির্বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা অঙ্গরাষ্ট্রগুলোর এক্তিয়ারাধীন থাকবে।
(গ) কেন্দ্রের জন্যে প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা সমান হারে অথবা সর্বসম্মত কোন হারে অঙ্গরাষ্ট্রগুলোই মিটাবে।
(ঘ) অঙ্গরাষ্ট্রগুলোর মধ্যে দেশজ দ্রব্যাদির চলাচলের ক্ষেত্রে শুল্ক বা কর জাতীয় কোন বাধা-নিষেধ থাকবেনা।
(ঙ) শাসনতন্ত্রে অঙ্গরাষ্ট্রগুলোকে বিদেশে নিজ নিজ বাণিজ্যিক প্রতিনিধি প্রেরণ এবং স্বস্বার্থে বাণিজ্যিক চুক্তি সম্পাদনের ক্ষমতা দিতে হবে।
ষষ্ঠদফা : আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠনের ক্ষমতা
আঞ্চলিক সংহতি ও শাসনতন্ত্র রক্ষার জন্যে শাসনতন্ত্রে অঙ্গরাষ্ট্রগুলোকে স্বীয় কর্তৃত্বাধীনে আধাসামরিক বা আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠন ও রাখার ক্ষমতা দিতে হবে। নৌবাহিনীর সদর দপ্তর পূর্ব পাকিস্তানে থাকবে।
পুস্তিকা আকারে প্রথমে ছয়দফা প্রকাশ করা হয়। এর ভূমিকায় বলা হয়েছিল, ‘ভারতের সাথে বিগত সতেরো দিনের যুদ্ধের অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ রেখে জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে দেশের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো সম্পর্কে আজ নতুনভাবে চিন্তা করে দেখা অত্যাবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে। যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে শাসনকার্য নির্বাহের ক্ষেত্রে বাস্তব যেসব অসুবিধা দেখা দিয়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতেই এই প্রশ্নটির কথা আজ অস্বীকার করবার উপায় নেই যে, জাতীয় সংহতি অটুট রাখার ব্যাপারে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের প্রগাঢ় আন্তরিকতা ও দৃঢ় সংকল্পই দেশকে এই অস্বাভাবিক জরুরী অবস্থাতেও চরম বিশৃঙ্খলার হাত হতে রক্ষা করেছে।’
এই ছয়দফা গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলে যে কেউ বুঝে নিতে পারে যে, এই দাবিগুলো পাকিস্তানের শাসক-শোষক গোষ্ঠীর পক্ষে মেনে নেওয়া কোনভাবেই সম্ভব ছিলনা। কারণ তারা নিশ্চিত ছিল, ছয়দফা মেনে নিলে রাষ্ট্রক্ষমতা তাদের হাতছাড়া হয়ে যাবে। বন্ধ হয়ে যাবে বাঙালিকে শোষণ করার সকল পথ। একারণে তারা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নেয়।
বাঙালিরা পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর সেই ষড়যন্ত্র ধরে ফেলতে পেরেছিল। তাই রক্তাক্ত-ঐতিহাসিক সাতই জুনের নির্দেশিত পথ ধরেই এগিয়ে চলে এবং ছয়দফাকে রূপাস্তরিত করে একদফায়। আর তা হলো স্বাধীনতা। একাত্তরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে সেই স্বাধীনতাই অর্জিত হয়। এখন বাকি অর্থনৈতিক মুক্তি। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা সেই অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যেই তো জাতিকে নিয়ে এগিয়ে চলেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest