NATIONAL
Prime Minister and Awami League President Sheikh Hasina said that Awami League came to power to give something to the people of the country but BNP comes to take || প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেছেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে দেশের জনগণকে কিছু দেওয়ার জন্য; কিন্তু বিএনপি আসে নিতে
সংবাদ সংক্ষেপ
Shafiq Chowdhury exchanged Eid greetings বিমানবন্দরে খোয়া যাওয়া এক প্রবাসীর ফোন ও পাসপোর্ট আরেক প্রবাসীর ঘর থেকে উদ্ধার প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী সংক্ষিপ্ত সফরে যুক্তরাজ্য যাচ্ছেন নেতাকর্মী ও সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরীর সিলেটে বর্ষবরণ || জেলা প্রশাসনের মঙ্গল শোভাযাত্রা সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধু মুজিব : ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা || ম আমিনুল হক চুন্নু বিশেষ আয়োজন || বঙ্গবন্ধু মুজিব : ইতিহাস স্বীকৃত গণমানুষের অবিসংবাদিত নেতা Eid-ul-Fitr is celebrated all over the country Prime Minister greeted all Freedom Fighters ডা জহিরুল ইসলাম অচিনপুরীর ফুফুর মৃত্যুতে প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরীর শোক দক্ষতা অর্জন করে ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করতে হবে সততার সঙ্গে : শফিক চৌধুরী মৌলভীবাজারে ঈদুল ফিতরের ৩টি জামাত হলো পৌর ঈদগা ময়দানে দেশ জাতি ও মুসলিম উম্মার সুখ সমৃদ্ধি ও বিশ্বশান্তি কামনা করে ঈদুল ফিতর উদযাপিত চুনারুঘাটে বিপুল পরিমাণ জাল নোটসহ ১ জনকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৯ পবিত্র ঈদুল ফিতর রাতে পোহালেই || সিলেটে প্রধান জামাত ঐতিহাসিক শাহী ঈদগায় সিলেটবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানালেন জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ

বঙ্গবন্ধুর ছয়দফাই ছিল বাঙালির একদফা-স্বাধীনতা : আল আজাদ

  • সোমবার, ৮ জুন, ২০২০

সাতই জুন, ঐতিহাসিক ছয়দফা দিবস। ১৯৬৬ সালে আওয়ামী লীগের ডাকে দিনটি পালন করতে গিয়ে সিলেটের বিয়ানীবাজারের বীর সন্তান মনু মিয়া সহ অনেকে ঢাকায় শহীদ হন। এই বীর শহীদদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাই।
‘মুক্তির মন্দির সোপানও তলে’ অগণিত প্রাণ বলিদানের ফলশ্রুতিতে ১৯৪৭ সালে দক্ষিণ এশিয়ায় ব্রিটিশ শাসনের অবসান হলো। ভাগ হলো বিশাল ভারত ভূখণ্ড। জন্ম নিলো দুটি রাষ্ট্র-পাকিস্তান ও ভারত। বঙ্গভঙ্গের পরিণামে পূর্ব বাংলা নামে পরিচিতি পাওয়া বাঙালি অধ্যুষিত এলাকাটি অন্তর্ভুক্ত হলো পাকিস্তানে। পরবর্তী সময়ে এর নতুন নামকরণ হয় পূর্ব পাকিস্তান, যা ১৯৭১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে নয় মাসের রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিশ্ব মানচিত্রে বাংলাদেশ নামে একটি স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে সগৌরবে জায়গা করে নেয়।
বাংলাদেশের এই আত্মপ্রকাশের পিছনে রয়েছে দীর্ঘ ও রক্তাক্ত ইতিহাস। অন্যভাবে বলতে গেলে, এদেশের স্বাধীনতা এমনি এমনি অর্জিত হয়নি। এজন্যে জাতিকে প্রায় দুই যুগ রক্তপিচ্ছিল পথ ধরে কখনো ধীর লয়ে আবার কখনো দ্রুত গতিতে হাঁটতে হয়েছে। আত্মোৎসর্গ করতে হয়েছে বার বার। ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে অপরিসীম। সর্বশেষ ত্রিশলাখ জীবন, তিনলাখ মা-বোনের সম্ভ্রম ও অপরিসীম ত্যাগের বিনিময়ে লাল-সবুজের পতাকাটি অর্জিত হয়।
আমরা পদে পদে কঠিন পরীক্ষা আর প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হয়েছি; কিন্তু কোন কিছুর কাছেই পরাজয় মেনে নেইনি। প্রতিবারই জয়ী হয়েছি-অসাধ্য সাধন করেছি-অসম্ভবকে সম্ভব করেছি। এ কারণে বিশ্বে একমাত্র বাঙালিরাই বড় গলায় বলতে পারে, আমাদের মনোজগতের অভিধান থেকে ‘পরাজয়’, ‘অসাধ্য’, ‘অসম্ভব’ ইত্যাদি শব্দ অনেক আগেই মুছে গেছে।
এই যে গৌরবোজ্জ্বল বিজয় অর্জন আর অসাধ্য সাধন ও অসম্ভবকে সম্ভব করা-সেই লক্ষ্য নির্ধারিত হয়ে গিয়েছিল মহান ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। তখনই বাঙালি নেতৃত্ব উপলব্ধি করতে সক্ষম হন যে, পাকিস্তানে অন্তর্ভুক্ত হয়ে জাতি নতুন করে পরাধীনতার শৃঙ্খলে আবদ্ধ হয়েছে। তবে এই শৃঙ্খল ভাঙ্গার স্বপ্ন যার দু’চোখে দোলা দেয়-মনের গভীরে প্রোথিত হয় তিনি তখনকার ছাত্রনেতা শেখ মুজিবুর রহমান। প্রিয় মাতৃভাষা রক্ষার সংগ্রামে নেতৃত্ব দেওয়ার মধ্য দিয়ে তার সেই স্বপ্নপূরণের পথযাত্রা শুরু হয়। এরপর কত বাধা, কত বিপত্তি, কত যন্ত্রণা, কত নির্যাতন, কত হুমকি, কত লোভনীয় প্রস্তাব আর কত চক্রান্ত; কিন্তু কোন কিছুই তাকে লক্ষ্য থেকে বিচ্যুৎ করতে পারেনি। বরং আরো সাহসী করেছে এবং লক্ষ্য ধরে পথচলায় গতি দিয়েছে।
যেকোন লক্ষ্য অর্জনে গণমুখি সংগঠন প্রয়োজন। সঠিক নেতৃত্ব অপরিহার্য। বাঙালির স্বাধীনতার লক্ষ্য অর্জনের সংগ্রামে যে সংগঠনটি মুখ্য ভূমিকা পালন করে সেটি হচ্ছে আওয়ামী লীগ, যার নেতুত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই অবিসংবাদিত নেতার নেতৃত্বেই এ জাতির স্বাধিকার আন্দোলন ‘শত সংগ্রামের পথ বেয়ে’ স্বাধীনতায় উপনীত হয়।
১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী মুসলিম লীগের প্রতিষ্ঠা; কিন্তু বাঙালি জাতিসত্তার অন্যতম প্রধান উপাদান যেহেতু অসাম্প্রদায়িকতা সেহেতু ১৯৫৫ সালে নতুন এ রাজনৈতিক দলটির নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে দেওয়া হয়। আর তখন থেকেই এ জাতির মনোজগতে আওয়ামী লীগের অবস্থান পোক্ত হতে শুরু হয়।
আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন মজলুম জননেতা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ও গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী সহ পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী মুসলিম লীগের প্রগতিশীল অংশের নেতৃবৃন্দ। এর প্রথম কার্যকরী পরিষদে ছিলেন, সভাপতি মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, সহ সভাপতি আতাউর রহমান খান, শাখাওয়াৎ হোসেন ও আলী আহমদ খান, সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক, যুগ্ম সম্পাদক শেখ মুজিবুর রহমান, খন্দকার মোশতাক আহমদ ও এ কে রফিকুল হোসেন এবং কোষাধ্যক্ষ ইয়ার মোহাম্মদ খান। এতে দেখা যায়, শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন তখন দ্বিতীয় সারির নেতা; কিন্তু নিজের প্রজ্ঞা ও কর্মতৎপরতার সুবাদে তিনি হয়ে উঠেছিলেন নতুন এ রাজনৈতিক দলটির প্রাণশক্তি। তার অসাধারণ সাংগঠনিক দক্ষতা রাতারাতি আওয়ামী লীগকে চারাগাছ থেকে মহীরূহে পরিণত করে। এই নিরন্তর কর্মযজ্ঞের ধারাবাহিকতায়ই ষাটের দশকের মাঝামাঝি সময়ে এসে তিনি ঘোষণা করলেন বাঙালির ‘মুক্তিসনদ ছয়দফা’। গ্রহণ করলেন বিশালাকার এ রাজনৈতিক দলটির মূল নেতৃত্ব। এ জাতি তো হাজার বছর ধরে অপেক্ষা করছিল এমনি এক নেতৃত্বের জন্যেই, যে নেতৃত্ব নিঃসঙ্কোচে উচ্চারণ করতে পারবে অধিকারের কথা। ভাঙতে পারবে পরাধীনতার শৃঙ্খল। এনে দিতে পারবে মুক্তির আস্বাদ। তাই গোটা জাতি শেখ মুজিবুর রহমানকে বরণ করলো হৃদয় নিঙড়ানো ভালবাসায়। অভিসিক্ত করলো ত্রাণকর্তা হিসেবে। ভূষিত করলো ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধিতে। একজন রাজনৈতিক নেতার এমন জনপ্রিয়তার নজির ইতিহাসে খুব একটা নেই।
বঙ্গবন্ধু ঘোষিত ছয়দফাতেই মূলত পাকিস্তানের কবর রচিত হয়ে গিয়েছিল। পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী বুঝে নিয়েছিল, ছয়দফা দাবি মেনে নিলে সংখ্যাগরিষ্ঠ বাঙালিরা পাকিস্তানের ক্ষমতায় ভাগ বসিয়ে দেবেই। আদায় করে নেবে সকল ন্যায্য পাওনা। বন্ধ হয়ে যাবে পূর্ববাংলাকে শোষণ করার সকল পথ। তাই তারা ছয়দফাকে নানা অপবাদ দিয়ে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’ দায়ের করে; কিন্তু জনরোষে শাসকগোষ্ঠীর সকল চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র ব্যর্থ হয়ে যায়।
কি ছিল সেই ছয়দফাতে-আজকের প্রজন্মের অনেকেই তা জানেনা। তাই এখানে উল্লেখ করা হলো।

প্রথমদফা : শাসনতান্ত্রিক কাঠামো ও রাষ্ট্রীয় প্রকৃতি
দেশের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো এমনি হতে হবে যেখানে পাকিস্তান হবে একটি ফেডারেল ভিত্তিক রাষ্ট্রসংঘ এবং এর ভিত্তি হবে লাহোর প্রস্তাব। সরকার হবে সংসদীয় পদ্ধতির। আইন পরিষদের ক্ষমতা হবে সার্বভৌম এবং এই পরিষদ নির্বাচিত হবে সার্বজনীন ভোটাধিকারের ভিত্তিতে জনসাধারণের সরাসরি ভোটে।
দ্বিতীয়দফা : কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা
কেন্দ্রীয় (ফেডারেল) সরকারের ক্ষমতা কেবলমাত্র দুটি ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ থাকবে-যথা দেশরক্ষা ও বৈদেশিক নীতি। অবশিষ্ট সকল বিষয়ে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর ক্ষমতা থাকবে নিরঙ্কুশ।
তৃতীয়দফা : মুদ্রা ও অর্থ সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
মুদ্রার ব্যাপারে নিম্নলিখিত দুটির যেকোন একটি প্রস্তাব গ্রহণ করা যেতে পারে।
(ক) সমগ্র দেশের জন্যে দুটি পৃথক অথচ অবাধে বিনিময়যোগ্য মুদ্রা চালু থাকবে।
অথবা
(খ) বর্তমান নিয়মে সমগ্র দেশের জন্যে কেবলমাত্র একটি মুদ্রাই চালু থাকতে পারে। তবে সে ক্ষেত্রে শাসনতন্ত্রে এমন ফলপ্রসূ ব্যবস্থা রাখতে হবে যাতে করে পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে মূলধন পাচারের পথ বন্ধ হয়। এ ক্ষেত্রে পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক ব্যাংকিং রিজার্ভেরও পত্তন করতে হবে এবং পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক আর্থিক ও অর্থ বিষয়ক নীতি প্রবর্তন করতে হবে।
চতুর্থদফা : রাজস্ব, কর ও শুল্ক সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
ফেডারেশনের অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর কর বা শুল্ক ধার্যের ব্যাপারে সার্বভৌম ক্ষমতা থাকবে। কেন্দ্রীয় সরকারের কোনরূপ কর ধার্যের ক্ষমতা থাকবেনা। তবে প্রয়োজনীয় ব্যয় নির্বাহের জন্যে অঙ্গরাষ্ট্রীয় রাজস্বের একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের প্রাপ্য হবে। অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর সবরকম করের শতকরা একই হারে আদায়কৃত অংশ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তহবিল গঠিত হবে।
পঞ্চমদফা : বৈদেশিক বাণিজ্য বিষয়ক ক্ষমতা
(ক) ফেডারেশনভুক্ত প্রতিটি অঙ্গ রাষ্ট্রের বহির্বাণিজ্যের পৃথক হিসাব রক্ষা করতে হবে।
(খ) বহির্বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর এক্তিয়ারাধীন থাকবে।
(গ) কেন্দ্রের জন্যে প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা সমানহারে অথবা সর্বসম্মত কোন হারে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোই মিটাবে।
(ঘ) অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে দেশজ দ্রব্যাদির চলাচলের ক্ষেত্রে শুল্ক বা কর জাতীয় কোন বাধা-নিষেধ থাকবেনা।
(ঙ) শাসনতন্ত্রে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোকে বিদেশে নিজ নিজ বাণিজ্যিক প্রতিনিধি প্রেরণ এবং স্বস্বার্থে বাণিজ্যিক চুক্তি সম্পাদনের ক্ষমতা দিতে হবে।
ষষ্টদফা : আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠনের ক্ষমতা
আঞ্চলিক সংহতি ও শাসনতন্ত্র রক্ষার জন্যে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোকে স্বীয় কর্তৃত্বাধীন আধা সামরিক বা আঞ্চলিক সেনাবাহিনী গঠন ও রাখার ক্ষমতা দিতে হবে।

গণতন্ত্র ছাড়া উন্নয়ন বা অর্থনৈতিক মুক্তি সম্ভব নয়। আওয়ামী লীগ এ বিশ্বাস নিয়েই প্রতিষ্ঠা লগ্ন থেকে গণতন্ত্রের জন্যে আন্দোলন শুরু করে। এ আন্দোলনের মাঝেই নিহিত ছিল বাঙালির স্বাধিকার সংগ্রাম, যার চূড়ান্ত লক্ষ্য ছিল স্বাধীনতা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিপুণ কারিগরের মতো সেই স্বাধীনতার স্বপ্ন এঁকে দেন জাতির সামনে। জাতি অকুতোভয়ে এগিয়ে যায় রক্ত পিচ্ছিল পথ ধরে। সফল হয় লক্ষ্য অর্জনে। অন্যদিকে স্বপ্নের কারিগর বঙ্গবন্ধুকে সহ্য করতে হয় অকথ্য নির্যাতন-নিপীড়ন; কিন্তু কোন কিছুই এ মহান শিল্পীর তুলিকে স্তদ্ধ করতে পারেনি। তাইতো এক নদী রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতা অর্জিত হলো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

সংবাদ অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest