NATIONAL
On the occasion of Eid-ul-Azha, RAB's intelligence surveillance is continuing at every station to ensure the safety of the Eid journey of people at home || ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের ঈদযাত্রা নিরাপদ করতে প্রতিটি স্টেশনে র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত রয়েছে
সংবাদ সংক্ষেপ
শাল্লায় বীর মুক্তিযোদ্ধা জমিলা খাতুনের ইন্তেকাল || রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ৩য় ধাপে নির্বাচিতদের শপথ গ্রহণ সিসিকের প্রথম মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানের ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী পালিত সিলেটে এবার ট্রাকভর্তি পাথরের নিচ থেকে পৌণে ১২ লাখ টাকার চিনি উদ্ধার আটক ২ ত্রাণ নিয়ে নিজের নির্বাচনী এলাকায় বন্যার্তদের ঘরে ঘরে প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী শাল্লায় শিক্ষা ও চিকিৎসায় সহযোগিতার হাত বাড়ালেন প্রকৌশলী সৌমেন সেন হবিগঞ্জে জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট || দাম উঠছে ৪ লাখের উপরে মাধবপুরে কোরবানির পশুর হাটে ব্যস্ত সময় পার করছেন ক্রেতা-বিক্রেতারা কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ২৮৮ বোতল ভারতীয় মদসহ গ্রেফতার ১ কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিতদের দেশে বা বিদেশে চাকরির অভাব নেই : প্রতিমন্ত্রী শফিক চৌধুরী কার্যকর হয়নি রাজনের খুনিদের মৃত্যুদণ্ড || পরিবার পায়নি অর্থমন্ত্রীর ৫ লাখ টাকা সিলেটে ৭ এপিবিএনের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত সাবেক মেয়র প্রার্থী গ্রেফতার ঢাকা সিএমএইচ থেকে চিকিৎসা শেষে বাসায় ফিরলেন ড আব্দুল মোমেন কেউ যেন প্রকৃতি ও পরিবেশের ক্ষতি করতে না পারে || বিভাগীয় কমিশনারের নির্দেশ সিলেট বিভাগ ভূমিহীন ও গৃহহীন মুক্ত ঘোষণা || ঘর পেলো আরও ১৮৩টি পরিবার সিকৃবির মাৎস্য বিজ্ঞান অনুষদের ডিন হিসেবে দায়িত্ব নিলেন ড নির্মল চন্দ্র রায়

ফিরে দেখা ১৯৮৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর : আল আজাদ

  • রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

১৯৮৮ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর। নির্ধারিত যুদ্ধক্ষেত্র ছিল ঐতিহ্যবাহী এবং দেশের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমসি কলেজ, যা তখন সরকারি কলেজ নামে পরিচিত ছিল। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ যুদ্ধাপরাধীদের উত্তরসূরিদের সংগঠন ছাত্র শিবিরকে বিতাড়িত করবে ক্যাম্পাস থেকে। কারণ ঐ মৌলবাদী ছাত্র সংগঠনটি অশান্ত করে তুলেছিল গোটা সিলেটের শিক্ষাঙ্গনকে। ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের মূল লক্ষ্য ছিল, আগে এমসি কলেজকে ‘রগকাটা রাজনীতি’ মুক্ত করার। তাই কয়েকদিন ধরে প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়।
তখন থাকতাম এমসি কলেজ মাঠ সংলগ্ন দক্ষিণ বালুচর এলাকায়। বর্তমানে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আমার মেজোভাই সুজাত মনসুর ছিল ছাত্র রাজনীতিতে অত্যন্ত সক্রিয়। সেই সুবাদে প্রস্তুতি পর্বের একটা অংশ সম্পন্ন হয়েছিল আমাদের বাসায়। সকাল ১০টার দিকে ছাত্র ইউনিয়নের কিছু নেতাকর্মী সেই প্রস্তুতি সম্পন্ন করে এমসি কলেজের দিকে অগ্রসর হলে আমি বাসা থেকে বের হয়ে আগের সিদ্ধান্ত মতো সোবহানিঘাট এলাকায় পরবর্তী সময়ে গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইকবাল আহমদ চৌধুরীর বাসায় চলে যাই। সেখানে ছিলেন আরো কয়েকজন রাজনৈতিক নেতা। আমাদের দায়িত্ব ছিল টেলিফোনে সার্বিক পরিস্থিতির খবর সংগ্রহ এবং সরবরাহ করা অর্থাৎ যতটা সম্ভব সমন্বয় সাধন করা। নেতৃবৃন্দ অন্যান্য রাজনৈতিক দল ও ছাত্র সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছিলেন। আর আমি যোগাযোগ রাখছিলাম এমসি কলেজ কর্তৃপক্ষ, সাংবাদিক ও পুলিশের সঙ্গে। মাঝে মধ্যে ফোন আসছিল ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে। ইতোমধ্যে দেশের অনেক জায়গায় জানাজানি হয়ে গিয়েছিল যে, সিলেটে ‘রগকাটা রাজনীতি’র কবর রচনা হতে যাচ্ছে। প্রতিটি মুহুর্ত আমাদের গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছিল।
সকাল ১১টার দিকে প্রথম খবর আসে আম্বরখানা থেকে, গোলাপগঞ্জ এমসি একাডেমির নবম শ্রেণির ছাত্র এনামুল হক জুয়েল শহীদ হয়েছে। ছাত্র শিবিরের ধাওয়া খেয়ে হুরায়রা ম্যানশনের (তখন নাম ছিল হোসনা ম্যানশন) দোতলায় উঠতে গিয়ে নিচে পড়ে গুরুতর আহত হয় সে। তাকে সাথে সাথে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার জীবনাবসান হয়। এ খবর মুহুর্তেই ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে। অন্যদিকে এমসি কলেজে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে ততক্ষণে। এতে আহত নেকড়ের মতো ক্ষেপে যায় ছাত্র শিবির। তাই চৌহাট্টা, আম্বরখানা ও শাহী ঈদগা এলাকাকে পরিণত করে রণক্ষেত্রে। সশস্ত্র আক্রমণ চালাতে থাকে সাধারণ ছাত্রদের উপরও। পুলিশের ভূমিকা ছিল প্রশ্নবিদ্ধ, যে কারণে ছাত্র শিবির বেশ সুযোগ পেয়ে যায় বলে অভিযোগ উঠে। এই সুযোগেই শাহী ঈদগা এলাকায় এমসি কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র মুনির-ই-কিবরিয়া চৌধুরী ও মদন মোহন কলেজের স্নাতক (বাণিজ্য) দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তপন জ্যোতি দে পুলককে গুরুতর আহত করে। সবমিলিয়ে ঐদিন আহত হয় ৩৫ জন। পুলিশ গ্রেফতার করে তখনকার যুবলীগের জেলা সভাপতি ইফতেখার হোসেন শামীম ও আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগের ১২ জনকে। এছাড়া এমসি কলেজ, সরকারি কলেজ, মদন মোহন কলেজ ওসরকারি আলিয়া মাদ্রাসা অনির্দিষ্টকালের জন্যে বন্ধ ঘোষণা করা হয়।
ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তপন জ্যোতি দে পুলক (বাড়ি সুনামগঞ্জের বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার কচুখালি গ্রামে) ২৬ সেপ্টেম্বর ভোরে আর মুনির-ই-কিবরিয়া চৌধুরী (বাড়ি সিলেট মহানগরীর আগপাড়া এলাকায়) সন্ধ্যায় শাহাদাত বরণ করে।
উলে­খ্য, মুনির-ই-কিবরিয়া চৌধুরী, তপন জ্যোতি দে পুলক ও এনামুল হক জুয়েল জাসদ-এর সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগের সঙ্গে যুক্ত ছিল।
এই তিন বীর শহীদের রক্তে সিক্ত সিলেট তখন ঠিকই ‘রগকাটা রাজনীতি’ মুক্ত হয়েছিল; কিন্তু কয়েকদিন না যেতেই সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ আব্দুল হক স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ে আব্দুস সালাম নামের এক ছাত্র শিবির কর্মীর প্রশ্নবিদ্ধ মৃত্যুকে কেন্দ্র করে ‘রগকাটা রাজনীতি’র প্রবর্তক দুষ্টচক্রটি আবার সিলেটের রাজনীতির মাঠে আবির্ভুত হয়ে যায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest