ফিরে দেখা বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের ঐতিহাসিক দিনটি

Published: 09. Jan. 2021 | Saturday

আল আজাদ
অকৃত্রিম শ্রদ্ধা আর ভালবাসার মিশেলে আবেগঘন ধারাবিবরণী। শব্দের অনুপম কারুকাজ। গলায় স্বাভাবিকতা ছাড়িয়ে কখনো ধ্বনির উত্তাপ আবার কখনো কখনো ধরে আসা। এমন দিনে ত্রিশলাখ স্বজনহারা; কিন্তু পরাধীনতার শৃঙ্খল ভাঙ্গার যুদ্ধ জয়ে গর্বিত বাঙালির কণ্ঠে এমনটাই স্বাভাবিক। রক্তসাগর পাড়ি দিয়ে স্বাধীনতার লালসূর্য উঠেছে। চোখের সামনে পতপত করে উড়ছে লালসবুজের নতুন পতাকা। উদ্দীপ্ত জনস্রোত। ‘জয়বাংলা’ ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগানে প্রকম্পিত রাজপথ আর তেজগাঁও আন্তর্জাতিক বিমান বন্দর। আকাশ-বাতাস প্রকম্পিত। সবকিছু থরথর করে কাঁপছে।
পুরো বাংলাদেশ যেন উঠে এসেছে রাজধানীতে। সবার দৃষ্টি মুক্ত আকাশপানে। সকল প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে একসময় পাখির মতো উড়ে এলো আকাশযান। উতলে উঠলো জনসমুদ্র। অযুত কণ্ঠের বজ্রধ্বনিতে গতি বেড়ে গেলো অনেকগুণ। আকস্মিক ধারাভাষ্যকার আশরাফুল আলমের উল্লসিত উচ্চারণ ‘ঐ তো নেতা’। ব্রিটিশ রাজকীয় বিমানের উন্মুক্ত দরজায় তখন কিউবার মহান নেতা ফিদেল ক্যাস্ট্রোর দৃষ্টিতে হিমালয় ছাড়িয়ে যাওয়া উচ্চতার মানুষটি। মুখভরা বিজয়ের হাসি। স্বভাবসুলভ ভঙ্গিতে হাত নাড়ছেন।
অনকক্ষণ ধরে কানভরে শুনছিলাম আর চোখভরে দেখছিলাম। না, এই দেখা টেলিভিশনে বা দিব্যচোখে নয়। দেখছিলাম মানসচক্ষের পর্দায়-ধারা বর্ণনায় একাত্ম হয়ে। এখনো বর্ষপরিক্রমায় ১০ জানুয়ারি ফিরে এলে মনে হয়, তেজগাঁও বিমান বন্দরে লাখো মানুষের একজন হয়ে যেন ঐতিহাসিক মুহূর্তটি প্রত্যক্ষ করছি।
১৯৭২ সালের এই দিনে পাকিস্তানি হানাদারমুক্ত বাংলাদেশ। একদিকে অনাবিল আনন্দ অন্যদিকে বুকে কষ্টের পাথর চাপা। কারণ স্বাধীন স্বদেশে স্বাধীনতার মহানায়ক অনুপস্থিত। তাৎক্ষণিক শহীদুল ইসলামের লেখা ও সুজেয় শ্যামের সুরে মাত্র ২৭ মিনিটে ধারণকৃত অজিত রায় ও সহশিল্পীদের কণ্ঠে ধ্বনিত বিজয়ের প্রথম গানে সেই দুঃখবোধের প্রকাশ ঘটে এমনি করে, ‘পাশে নেই আমাদের মহান নেতা-খুশির মাঝে তাই জাগে ব্যথা।’ এর মধ্য দিয়ে গোটা জাতির আবেগ-অনুভূতি ঝরে পড়ে।
একাত্তরের ১৬ ডিসেম্বর থেকে বাহাত্তরের জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত এই ছিল বাংলাদেশের বাস্তবচিত্র। বঙ্গবন্ধু কোথায় আছেন-কেমন আছেন কারো জানা ছিলনা। তাই গভীর উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠায় প্রতিটি মুহূর্ত পার করছিল সাড়ে সাতকোটি বাঙালি। কারণ পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী বিচারের নামে প্রহসনের মাধ্যমে এ জাতির হাজার বছরের আরাধ্য পুরুষকে হত্যার চক্রান্ত করছিল।
পাকিস্তানি শাসক চক্রের এই চক্রান্ত যাতে নস্যাৎ হয় সেজন্যে কত দোয়া-দরুদই না পড়েছেন বাংলাদেশের মানুষ। করেছেন পূজা-প্রার্থনা। গ্রামের একজন অতি সাধারণ নারী বাংলা-ইংরেজি লেখাপড়া না জানা আমার নানী নছিবা খাতুনও নফল নামাজ পড়েছিলেন, রোজা রেখেছিলেন এবং কোরান খতম করেছিলেন। রাজনীতি বুঝতেন না; কিন্তু বুঝতেন বঙ্গবন্ধু ছাড়া এ দেশে সুখ-শান্তি আসবেনা। প্রমাণিত হয়েছে, এই সত্যে বিন্দুমাত্র খাদ নেই।
পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসর রাজাকারদের হাত থেকে বেঁচে যাওয়া এক কিশোর। মুক্তিযুদ্ধের প্রথমদিক থেকে গ্রামে আছি। নিয়মিত বাংলাদেশ বেতার, আকাশবাণী ও বিবিসি’র খবর শুনি। এখনও শুনি; কিন্তু কান খাড়া থাকে মূলত: একটি খবরের আশায়। আর তা হলো, বঙ্গবন্ধুর ফিরে আসার। যদ্দূর মনে পড়ে, ৮ জানুয়ারি বিকেলের দিকে হঠাৎ কানে বাজলো সেই প্রত্যাশিত খবরটি, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে একটি বিমান পাকিস্তান ত্যাগ করেছে। তবে কোথায় যাচ্ছে তা বলা হলোনা। অজ্ঞাত গন্তব্যে যাত্রা। অতএব বেতার যন্ত্র থেকে কান সরানো সম্ভব হলোনা একটি বারের জন্যে। বারবার খবরটি প্রচারিত হচ্ছে। প্রতিবারই মনে হচ্ছে, এই যেন প্রথম শুনলাম। শোনার তৃপ্তি মেটেনা। সন্ধ্যার দিকে খবর শুনলাম, বঙ্গবন্ধু লন্ডন পৌঁছেছেন। কথা বলেছেন, অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমদ ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের সঙ্গে। বিবিসি রাতে হোটেল ক্যারিজনে বঙ্গবন্ধুর সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া ভাষণের কিছু অংশও প্রচার করেছিল।
১০ জানুয়ারি সকাল থেকেই কানের সঙ্গে বেতারযন্ত্র। দিল্লি থেকে আকাশবাণী সরাসরি অনুষ্ঠান সম্প্রচার করছে। সম্প্রচার করছে বাংলাদেশ বেতার। বঙ্গবন্ধু দিল্লি পৌঁছলেন। পেলেন একটি স্বাধীন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসাবে পূর্ণ মর্যাদা। ভারতের রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি ও প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বাঙালি জাতির মহান নেতাকে পালাম বিমানবন্দরে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানালেন।
প্রিয় স্বদেশের পবিত্র মাটি স্পর্শ করেন বঙ্গবন্ধু বেলা ১টার দিকে। যুক্তরাজ্য থেকে তাকে নিয়ে আসা রাজকীয় বিমান ‘কমেট’ ঢাকার আকাশে দেখা দেওয়া মাত্র তেজগাঁও বিমান বন্দরের জনসমুদ্র উছলে উঠে। উল্লাসে ফেটে পড়ে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা। সেই উচ্ছ্বাস বেতার তরঙ্গে এমনভাবে কানে এসে বাজছিল-মনে হচ্ছিল, চোখের সামনেই যেন সবকিছু ঘটছে।
তেজগাঁও বিমান বন্দর থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান। রাস্তার জনস্রোত পাড়ি দিয়ে বঙ্গবন্ধুকে সেখানে পৌঁছতে হয়েছিল প্রায় ৩ ঘণ্টায়। তখন তো আর টেলিভিশন দেখার সুযোগ ছিলনা; কিন্তু আবেগ জড়িত বেতারের ধারাভাষ্য সেই অভাবটা পূরণ করে দিয়েছিল।

Share Button
January 2021
M T W T F S S
« Dec    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

দেশবাংলা