NATIONAL
Prime Minister Sheikh Hasina said that the police force should also be prepared to keep pace with the changing nature of crime in the era of modern science and technology || প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আধুনিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির যুগে অপরাধের ধরন পাল্টানোর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে পুলিশ বাহিনীকেও সেভাবে প্রস্তুত থাকতে হবে
সংবাদ সংক্ষেপ
স্বাধীনতা দিবসেই উদ্বোধন শহীদ স্মৃতি উদ্যানের রাস্তাসহ অন্যান্য স্থাপনার : সিসিক মেয়র দেশ বাঁচাতে হলে এই সরকারকে বিতাড়িত করতে হবে : এমরান চৌধুরী মাহা—ইমজা মিডিয়া কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে দল আহ্বান মেধা বিকাশে সুশিক্ষার বিকল্প নেই : আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী সিলেটের জকিগঞ্জ থানা পুলিশের অভিযানে ৬ ডাকাত গ্রেফতার সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সভা সোমবার সিলেটে বর্ণিল আয়োজনে বরণ করা হলো মহান স্বাধীনতার মাস মার্চকে মহান স্বাধীনতার মাস মার্চ শুরু || সিলেটে বরণ করা হবে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রায় এনইইউবিতে অ্যাডভোকেট ইকবাল অধ্যাপক খলিল ও অধ্যাপক শিবলী স্মরণ Bangladesh Govt fixes Ramadan office timing গোলাপগঞ্জে নিখোঁজ দুই মাদরাসা ছাত্রীকে ৪৮ ঘন্টার মধ্যে দক্ষিণ সুরমায় উদ্ধার করেছে র‌্যাব ৯ জুড়ীতে জালনোট প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধিমূলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত মাধবপুরে রাতের আঁধারে অগ্নিসংযোগ || আতংকে দিন কাটছে নারীদের অপরাধ নিয়ন্ত্রণে সারাদেশে ‘ক’ গ্রুপে ৩য় সিলেট জেলা পুলিশ সিলেটে পরিবহন শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ধর্মঘট ১০ ঘণ্টা পর প্রত্যাহার পর্যটন খাতে প্রবাসীরা বিনিয়োগ করলে একশ ভাগ সহায়তা দেওয়া হবে : সিলেটে ফারুক খান

প্রভাবশালীদের কবল থেকে রক্ষায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ দাবি

  • বৃহস্পতিবার, ৫ মে, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : সিলেটের ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের কাদিপুর গ্রামবাসী একটি প্রভাবশালী মহলের কবল থেকে রক্ষা পেতে প্রশাসনের সহযোগিতা চেয়েছেন। দাবি জানিয়েছেন আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের। বৃহস্পতিবার বিকেলে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবে আহুত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানানো হয়।
সংবাদ সংবাদ সম্মেলনে গ্রামবাসীর পক্ষে আনোয়ার হোসেন লিখিত বক্তব্যে অভিযোগ করেন, গ্রামের দরছ আলী, লুৎফুর রহমান, অলিউর রহমান, হাবিবুর রহমান, মিজানুর রহমান, কবির মিয়া ও তাদের সহযোগীরা এলাকায় মামলাবাজ হিসেবে পরিচিত। তারা সাবেক ইউপি সদস্য নেপুর আলী, যুক্তরাজ্য প্রবাসী সাজ্জাদুর রহমান, জাবেদ আহমদ, আনোয়ার হোসেন, রুহেল মিয়া ও কামাল আহমদ বিভিন্ন জনের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও বানোয়াট ঘটনা দিয়ে একাধিক মামলা দায়ের করেছে। মানহানিকর ও বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে। নানা ধরনের হুমকিও দিচ্ছে।
এতে উল্লেখ করা হয়, বিরোধের সূত্রপাত গ্রামের একটি সরকারি রাস্তার নামকরণ নিয়ে। ২০১৭ সালে হঠাৎ লুৎফুর রহমানের পিতা ধন মিয়ার নামে নামকরণের সাইনবোর্ড তাতে লাগিয়ে দেওয়া হয়। তবে ইউপি সদস্য নেপুর আলীসহ গ্রামবাসী প্রশাসনের সহযোগিতায় সাইনবোর্ডটি অপসারণ করেন। এতে প্রতিহিংসা পরায়ণ হয়ে দরছ আলী ও লুৎফুর রহমান পক্ষ নেপুর আলী, সাজ্জাদুর রহমান ও জাবেদ আহমদ পক্ষের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা ও সাজানো মামলা দায়েরের পথ বেছে নেয়।
দরছ আলী ও লুৎফুর রহমান পক্ষের আনোয়ার আলীকে বাদি করে নেপুর আলীসহ গ্রামের নীরিহ ৯ জনকে আসামি দিয়ে গত ১৬ এপ্রিল ওসমানীনগর থানায় মামলা করানো হয় বলে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করা হয়।
আরও উল্লেখ করা হয়, প্রভাবশালী মহলের কবির মিয়া, দুধাই মিয়া, রিপন মিয়া, দিলোয়ার হোসেন ও মিজানুর রহমান এক মহিলাকে তার স্বামীর সহযোগিতায় আটকে রেখে ধর্ষণসহ নানারকম নির্যাতন করে। সেই নারী এক সুযোগে পালিয়ে গিয়ে তৎকালীন ইউপি সদস্য নেপুর আলীর শরণাপন্ন হয়। তিনি তাকে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে যাওয়ার পরামর্শ দেন। পরে এই নারী তার স্বামী চুনু মিয়াসহ দুধাই মিয়া, রিপন মিয়া, কবির মিয়া, দিলোয়ার হোসেন ও মিজানুর রহমানকে আসামি করে ওসমানীনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ তখন দু’জনকে গ্রেফতার করলেও মামলাটি তদন্তাধীন থাকা অবস্থায় অর্থের প্রলোভনে পড়ে বাদি মিজানুর রহমানসহ ৫ আসামিকে চেনে না বলে আদালতকে অবহিত করে।
গত ২৬ এপ্রিল প্রভাবশালী মহলটি ধন মিয়ার বাড়িতে লোকজন জমিয়ে সেই নারী ও তার মাকে উপস্থিত রেখে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নেপুর আলী ও সাজ্জাদ আলীর নামে অপ্রচার চালায়। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের কাছে গিয়ে বাদির সন্ধান চাইলে তারা অপারগতা প্রকাশ করে।
এখানেই শেষ নয়। ২০১৭ সালের দরছ আলী ও তার সহযোগী মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে একই গ্রামের মতছির আলীকে মারপিট করা হয়। এ ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের করেন মতছির আলীর স্ত্রী সালমা বেগম। এরপর থেকে আসামি পক্ষ সালমা বেগমসহ তার পরিবারকে মামলা তুলে নিতে হুমকিধামকি দিয়ে যাচ্ছে।
আরও অভিযোগ করা হয়, মিজানুর রহমান ২০১৯ সালের নাসির উদ্দিন নামের একজনকে ইজারাদার দেখিয়ে কাদিপুর গ্রামের জাবেদ আহমদকে আসামি করে গ্রামের একটি দিঘিতে বিষ প্রয়োগে মাছ মেরে ফেলার অভিযোগে মামলা দায়ের করে। তবে আদালত মামলা থেকে জাবেদ আহমদকে অব্যাহতি দেয়।
এ বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে প্রকাশ্যে গ্রামের সরকারি রাস্তা থেকে কয়েকটি বড় গাছ কেটে নিয়ে বিক্রি করা হয়; কিন্তু অভিযোগটি প্রমাণিত হওয়ার পরও ধামাচাপা পড়ে গেছে। উল্টো প্রতিবাদী গ্রামবাসী ষড়যন্ত্রমূলক মামলায় আসামি হয়েছেন।
গত ১৫ মার্চ বিশ্বনাথ উপজেলা সদরে মারামারি ও শ্লীলতাহানির অভিযোগে ২২ মার্চ আদালতে মামলা দায়ের করে বিশ্বনাথ পুরান বাজার এলাকার এক নারী। এতে কাদিপুর গ্রামের প্রবাসী সাজ্জাদুর রহমান, আনোয়ার হোসেন, জাবেদ আহমদ, কামাল হোসেন ও রুহেল আহমদকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। অথচ এই নারীর সঙ্গে তাদের কোনোদিন দেখাই হয়নি বলে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়। মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদনে অভিযুক্তরা ভালো মানুষ হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।
গত ২৭ মার্চ বালাগঞ্জ উপজেলার বরাকপুর গ্রামের এক নারী নেপুর আলী ও জাবেদ আহমদকে আসামি করে আদালতে মানবপাচার আইনের মামলায় দায়ের করে। তবে তদন্ত প্রতিবেদনে মামলাটি সাজানো বলে উল্লেখ করা হয়েছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে দাবি করা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

সংবাদ অনুসন্ধান

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest