JUST NEWS
SHARIDIYA DURGOTSAV HAS BEEN COMPLETED ALL OVER THE COUNTRY INCLUDING SYLHET THROUGH IDOL WORSHIP
সংবাদ সংক্ষেপ
Human chain in Jagannathpur demanding withdrawal of ‘false’ case যুবলীগের জেলা সম্মেলন সফল করতে মাধবপুরে বিশেষ বর্ধিত সভা জগন্নাথপুরে ডাক্তারের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার দাবিতে মানববন্ধন Nominations for Jagannathpur Upazila Parishad election are over জাতীয় জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন দিবসে সুনামগঞ্জে শোভাযাত্রা ও আলোচনা জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল : চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী ১৩ হবিগঞ্জে কেন্দ্রীয় শ্রমিক লীগ সাধারণ সম্পাদকের জন্মবার্ষিকী পালিত মাধবপুরে জন্ম নিবন্ধনে সাফল্যে ইউপি চেয়ারম্যানকে সম্মাননা প্রদান তামাক কোম্পানিগুলোর প্রচার বন্ধের দাবিতে সুনামগঞ্জে অবস্থান কর্মসূচি শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ড সায়েম উদ্দিন More awareness in birth and death registration : Debjit Singh জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধনে আরও সচেতনতা দরকার || আইন দিয়ে সব করা যায়না : দেবজিৎ সিংহ প্রবাসীরা দেশের উন্নয়নের অংশীদার : জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নাসির খান সিলেট থেকেই স্বৈরাচারের বিদায় ঘণ্টা বাজাতে চান কাইয়ুম চৌধুরী সাংবাদিক মীর্জা সোহেলের মায়ের ইন্তেকাল || জেলা প্রেসক্লাবের শোক Bangladesh does not want war || will take action if hurt : Mannan

পাকিস্তানি হানাদাররা যেভাবে সিলেট শহরের বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ে

  • সোমবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
 আল-আজাদ : পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী একাত্তরের ২৬শে মার্চের প্রথম প্রহরে খাদিম নগরের অস্থায়ী সামরিক ছাউনি পল্লী উন্নয়ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে সিলেট শহরের বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ে। একসাথে প্রচণ্ড শব্দে গর্জে উঠে অসংখ্য আধুনিক মারণাস্ত্র। পাশবিক উন্মত্ততায় রাতের নীরবতা ভেঙ্গে খান খান হয়ে যায়। সকল টেলিফোন সংযোগ বিচিছন্ন করে দেয়া হয়। পাড়া-মহল­ায় তীব্র আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

ইতোমধ্যে রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ঘর ছেড়ে বেড়িয়ে পড়েন। প্রতিরোধ আন্দোলন শুরু হয়ে যায়। স্বাধীনতার অগ্নিমন্ত্রে দীক্ষিত টগবগে যুবকরা অবরোধ গড়ে তুলতে আরম্ভ করেন শহরের প্রধান প্রধান রাস্তায়। আকাশ-বাতাস কাঁপিয়ে মুহুর্মুহু স্ল­াগান চলতে থাকে। সবার মনে বজ্র শপথ, প্রাণ যায় যাক-তবু পশ্চিমা হায়নার দলকে রুখতে হবে।
পাকিস্তানি জল্ল­াদরা প্রথমেই সিলেট শহরের মিরাবাজার-জতরপুর এলাকায় একদল দুঃসাহসী যুবকের অবরোধের মুখোমুখি হয়। অমনি হত্যার নেশায় উন্মত্ত হয়ে উঠে গুলি ছুঁড়ে এলোপাতাড়ি। সাথে সাথে আব্দুস সামাদ ফকির নামের বামপন্থী রাজনীতির সমর্থক এক দামাল ছেলের বক্ষ বিদীর্ণ হয়। রাজপথে বয়ে যায় রক্তের স্রোত। এর মধ্য দিয়ে প্রিয় স্বদেশকে ভালবেসে আত্মদানের এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপিত হয়।
এই নির্মম হত্যাকাণ্ড এবং গৌরবোজ্জ্বল আত্মদানের কাছাকাছি সময়ে দেশ ত্যাগের উদ্দেশ্যে সীমান্তের দিকে যাবার পথে ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’র অন্যতম আসামি মেজর (অব) এম এ মুত্তালিব টিলাগড় চৌমুহনায় দু’জন শত্রুকে হত্যা করেন। সিলেট শহরে এই প্রথম পশ্চিমাদের রক্ত ঝরে। তবে বড় ধরনের প্রতিরোধ যুদ্ধটি আরো কয়েকদিন পরে সংঘটিত হয়।
পাকিস্তানি হানাদার সেনারা ২৬শে মার্চ ভোর ৫টা থেকে শহরে সান্ধ্য আইন জারি করে, যা ২৮শে মার্চ পর্যন্ত বলবৎ থাকে।
এসব ঘটনার আগে ২৫শে মার্চ বিকেলে পুলিশের মাধ্যমে জাতীয় সংসদ সদস্য দেওয়ান ফরিদ গাজীর নিকট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি তারবার্তা আসে; কিন্তু তৎকালীন পুলিশ সুপার আব্দুল কুদ্দুছ সেটি লুকিয়ে রাখেন। অবশ্য দেশপ্রেমিক একজন সিপাহীর মাধ্যমে তা এক সময় প্রাপকের কাছে পৌঁছে যায়।
এভাবেই সিলেটে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest