NEWSHEAD

পঁচিশে মার্চের কালরাতের স্বাক্ষী সুনামগঞ্জের সুরেশ দাসের শেষকৃত্য সম্পন্ন

Published: 23. Oct. 2016 | Sunday

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলে পাকিস্তানি হায়েনাদের বর্বরতার স্বাক্ষী মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের প্রবীণ সদস্য অ্যাডভোকেট সুরেশ চন্দ্র দাসের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।
এর আগে শুক্রবার সকাল ১০টায় তার মরদেহ সুনামগঞ্জ কেন্দ্রীয় শহীদমিনারে আনা হলে পুলিশের একটি চৌকস দল তাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান জানায়। এ সময় জেলা প্রশাসক শেখ রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো কামরুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাইজার মোহাম্মদ ফারাবি, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক জ্যেষ্ঠ সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট আপ্তাব উদ্দিন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেরেনূর আলী, আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট পীর মতিউর রহমান, জেলা জাসদের সভাপতি আ ত ম সালেহ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ইউনিট কমান্ডার নূরুল মোমেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
এরপর শহীদমিনারে তার মরদেহে রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
পরে শহরের ধোপাখালি শ্মশানঘাটে সুরেশ চন্দ্র দাসের শেষকৃত্যানুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।
বৃহস্পতিবার রাতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনে যাবার পথে সিলেটে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সিলেটের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তিনি মারা যান তিনি।
পঁচিশে মার্চের কালরাতে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলে বর্বরোচিত গণহত্যা চালিয়ে কয়েকশ ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারীকে নির্মমভাবে হত্যা করে। ঐ হত্যাকাণ্ড থেকে যে কয়েকজন বেঁচে গিয়েছিলেন সুনামগঞ্জের প্রখ্যাত আইনজীবী সুরেশ চন্দ্র দাস তাদের একজন।
মধ্যরাতে পশ্চিমা জল্লাদরা চারপাশ থেকে জগন্নাথ হলে মেশিনগানের গুলিবর্ষণ করতে থাকে। দক্ষিণ দিকে বাথরুমের লোহার রডের সিঁড়ি দিয়ে ছাদে উঠেন সুরেশ চন্দ্র দাশ। ছাদের উপরে গিয়ে পান আরো কয়েকজন সহপাঠীকে। সেখানে তাদের তিনজনকে লাইন করিয়ে গুলি করে পাক বাহিনী। গুলি খেয়ে অন্য সকলে মারা গেলেও সৌভাগ্য ক্রমে তিনি বেঁচে যান।

Share Button
November 2019
M T W T F S S
« Oct    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930  

দেশবাংলা