২৭ জানুয়ারি ২০২২

নিয়োগ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ একজন : ২০ বছর ধরে চাকরি করছে অন্যজন

Published: ২০. নভে. ২০২১ | শনিবার

এস এম সুরুজ আলী, হবিগঞ্জ : কাগজপত্র জাল করে হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার শাহজাহানপুর গ্রামের মঈন উদ্দিন খানের জায়গায় ২০ বছর ধরে কারারক্ষী পদে অন্য একজন চাকরি করছে।
তবে বিষয়টি আর গোপন থাকেনি। শেষপর্যন্ত ফাঁস হয়ে গেছে। তাই তদন্তে নেমেছে কারা কর্তৃপক্ষ। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় তোলপাড় চরছে।
২০০১ সালে শাহজাহানপুর গ্রামের নূর উদ্দিন খানের ছেলে মঈন উদ্দিন খান নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে কারারক্ষী পদে চাকরির আশায় কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে শারীরিক সামর্থ, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নেন। উত্তীর্ণও হন; কিন্তু তার কাছে নিয়োগপত্র আর আসেনি। অপেক্ষা করতে করতে তিনি শেষপর্যন্ত মনতলা বাজারে ফার্মেসি খুলে ঔষধের ব্যবসা শুরু করেন।
গত ১২ আগস্ট কারারক্ষী (ক্রমিক নং-২১৮৬২) হিসেবে মঈন উদ্দিন খান চাকরি করেন মর্মে শাহজাহানপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান বরাবর সিলেটের কারা উপমহাপরিদর্শক কার্যালয় থেকে (স্মারক নং-৫৮০০৪.৯১০০.০৬৬.০১.০০১.২০২১-২২২৪) একটি চিঠি আসে।
ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল হোসেন খান এই চিঠি সম্পর্কে মঈন উদ্দিন খানকে অবহিত করলে মঈন উদ্দিন খান তার নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে অন্য কেউ চাকরি করছে মর্মে ১৬ সেপ্টেবর মাধবপুর থানায় একটি জিডি করেন।
ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল হোসেন খান ১৬ নভেম্বর কারা উপ মহাপরিদর্শক মো কামাল হোসেনকে জানান, মঈন উদ্দিন খান একজন ফার্মেসি ব্যবসায়ী। তিনি কারারক্ষী হিসেবে চাকরি করেন না।
এ চিঠি পেয়ে সিলেটের কারা উপ মহাপরিদর্শক মঈন উদ্দিন খানকে সশরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে তিনি উপ মহাপরিদর্শকের সঙ্গে দেখা করে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় কারাগারে কারারক্ষী পদে নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেওয়াসহ বিস্তারিত তুলে ধরেন।
পরবর্তী সময়ে কারা উপ মহাপরিদর্শকের নির্দেশে হবিগঞ্জ জেল সুপারের পক্ষে জেলার জয়নাল আবেদীন ভূঞা মঈন উদ্দিন খান ও তার নাম-ঠিকানা ব্যবহার করে চাকরিরত কারারক্ষীকে কাগজপত্রসহ হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন। এই নির্দেশ অনুযায়ী মঈন উদ্দিন খান ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও গণ্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে কারাগারে হাজির হলেও অপরজন হাজির হননি। মঈন উদ্দিন খান জানান, জালিয়াতির বিষয়টি ফাঁস হয়ে যাওয়ায় সেই কারারক্ষী তাকে ২ লাখ টাকা দিয়ে বিষয়টি মিটমাট করতে চেয়েছিলেন; কিন্তু তিনি তাতে রাজি হয়নি।
এ ব্যাপারে জেলার জয়নাল আবেদীন ভূঞা জানান, তদন্ত প্রতিবেদনের ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Share Button
January 2022
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31