JUST NEWS
ATTEMPTS TO DESTROY NON-COMMUNAL CONSCIOUSNESS ARE MAJOR OBSTACLES IN THE WAY OF DEVELOPMENT AND PROGRESS: VC OF METROPOLITAN UNIVERSITY
সংবাদ সংক্ষেপ
বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ক শুধু ভৌগোলিক নয়-আত্মিকও কামাল হত্যার বিচার দাবিতে তিন ওয়ার্ড বিএনপি পরিবারের মানববন্ধন দাবি পূরণ না হলে সোমবার থেকে সিলেট-জকিগঞ্জ রুটে পরিবহন শ্রমিক কর্মবিরতি শুরু কারামুক্ত সিলেট বিএনপির তিন নেতাকে সংবর্ধনা জ্ঞাপন লাগামহীন দুর্নীতির কারণে দেশ তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে নবীগঞ্জে জাঁকজমকভাবে জ্ঞান ও বিদ্যাদেবী সরস্বতীর পূজা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে জামিআ আরাবিয়া দিনারপুর মাদরাসার ইসলামী সম্মেলন দক্ষিণ সুরমার পিরোজপুরে ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্প ও শীতবস্ত্র বিতরণ সাংস্কৃতিক জাগরণে সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করে ‘স্মার্ট’ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার জামেয়া আমিনিয়া মংলিপার মাদরাসার ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত লাউয়াইতে তৈমুর খান বাদশাই স্মৃতি মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু লন্ডনে ‘রাউই’ নাশীদ ব্যান্ডের অভিষেক ও সাংস্কৃতিক সন্ধা অনুষ্ঠিত কাজিরবাজারে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে সিলেট মহানগর জামায়াত গোয়াইনঘাটে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ও ৮ জুয়াড়ি গ্রেফতার জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন বইপাঠ ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতা GDF distributed winter clothes among disabled people

নানকার কৃষক বিদ্রোহ : অধিকার আদায়ে চেতনার দীপ্ত প্রতিক || আব্দুল ওয়াদুদ

  • শুক্রবার, ১৯ আগস্ট, ২০২২

১৯৪৯ সালের ১৮ আগস্ট মানব সভ্যতার ইতিহাসে যুক্ত হয়েছিল একটি নির্মম অধ্যায়। এ দিন সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলায় (তখনকার থানা) সংঘটিত হয় ঐতিহাসিক নানকার কৃষক বিদ্রোহ। ব্রিটিশ আমলের ঘৃণ্য নানকার প্রথার বিরুদ্ধে সংগ্রাম করতে গিয়ে উপজেলার সানেশ্বর ও উলুউরী গ্রামের মধ্যবর্তী সুনাই নদীর তীরে ইপিআরের গুলিতে নিহত হন পাঁচ কৃষক। এর ১৫ দিন আগে সুনাই নদীর খেয়াঘাটে জমিদারের লাঠিয়ালদের হাতে আরও এক কৃষক প্রাণ হারান।
এই আত্মদানে রক্তাক্ত পরিসমাপ্তি ঘটে নানকার আন্দোলনের। তবে এর ফলশ্রুতিতে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার জমিদারী প্রথা বাতিল ও নানকার প্রথা রদ করে কৃষকদের জমির মালিকানার স্বীকৃতি দিতে বাধ্য হয়।
বাঙালি জাতির সংগ্রামের ইতিহাসে বিশেষ করে অধিকারহীন মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য যে সকল গৌরবমণ্ডিত আন্দোলন-বিদ্রোহ সংগঠিত হয়েছিল তার মধ্যে নানকার বিদ্রোহ অন্যতম। নানকার বিদ্রোহ ছিল পাকিস্তান আমলে বাঙালিদের অধিকার আদায়ের প্রথম সফল সংগ্রাম।
উর্দু বা ফার্সি শব্দ ‘নান’ এর বাংলা প্রতিশব্দ রুটি। তাই রুটির বিনিময়ে যারা কাজ করতেন তাদেরকে বলা হতো ‘নানকার’। আর রুটির বিনিময়ে কাজের যে প্রথা তাকেই ‘নানকার প্রথা’ বলা হয়।
ব্রিটিশ আমলে সামন্তবাদী ব্যবস্থার সবচেয়ে নিকৃষ্টতম শোষণ পদ্ধতি ছিল এই নানকার প্রথা। নানকার প্রজারা জমিদারের দেওয়া বাড়ি ও সামান্য কৃষিজমি ভোগ করতেন; কিন্তু এই জমি বা বাড়ির উপর তাদের মালিকানা ছিলনা। তারা বিনা মজুরিতে জমিদার বাড়িতে বেগার খাটতেন। তাদের এই বেগার খাটাকে তখন ‘হদ-বেগারি’ বলা হতো। চুন থেকে পান খসলেই তাদের উপর চলতো অমানুষিক নির্যাতন। নানকার প্রজার জীবন ও শ্রমের উপর ছিল জমিদারদের সীমাহীন অধিকার।
নানকার আন্দোলনের সংগঠক কমরেড অজয় ভট্টাচার্যের দেওয়া তথ্য মতে, সে সময় বৃহত্তর সিলেটের ৩০ লাখ জনসংখ্যার ১০ ভাগ ছিল নানকার এবং নানকার প্রথা মূলত: বাংলাদেশের উত্তর পূর্বাঞ্চলে অর্থাৎ বৃহত্তর সিলেটে চালু ছিল। ১৯২২ সাল থেকে ১৯৪৯ সাল পর্যন্ত কমিউনিস্ট পার্টি ও কৃষক সমিতির সহযোগিতায় বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, বড়লেখা, কৃলাউড়া, বালাগঞ্জ ও ধর্মপাশা থানায় নানকার আন্দোলন গড়ে উঠে।
বিয়ানীবাজারে নানকার বিদ্রোহ : ঐতিহাসিক নানকার বিদ্রোহের সূতিকাগার ছিল বিয়ানীবাজার থানা। সামন্তবাদী শোষণ ব্যবস্থার বিরুদ্ধে বিয়ানীবাজার অঞ্চলের নানকার ও কৃষকরা সর্বপ্রথম বীরত্বপূর্ণ সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েন। লাউতা বাহাদুরপুর অঞ্চলের জমিদারা ছিলেন অতিমাত্রায় অত্যাচারী। তাদের অত্যাচারে নানকার, কৃষক সবাই ছিলেন অতিষ্ঠ। লোকমুখে শোনা যায়, বাহাদুরপুর জমিদার বাড়ির সামনের রাস্তায় স্যান্ডেল বা জুতা পায়ে হাঁটা যেত না। ছাতা টাঙ্গিয়ে চলা বা ঘোড়ায় চড়াও ছিল অপরাধমূলক কাজ। কেউ এর ব্যতিক্রম করলে তাকে কঠোর শাস্তি দেওয়া হতো। জমিদারদের এমন অত্যাচারে অতিষ্ঠ হলেও তাদের শক্তির সামনে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ করার সাহস কারোরই ছিল না। শোনা যায়, নিজের ঘরের দরজা বন্ধ করেও কেউ জমিদারদের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস পেত না।
ঐক্যবদ্ধ নানকার কৃষক : দিনে দিনে জমিদারদের অত্যাচার বাড়ত থাকে। সেই সঙ্গে বাড়তে থাকে মানুষের মনের ক্ষোভ। এই অনাচারের প্রতিকার চায় সবাই। তাই গোপনে গোপনে চলে শলাপরামর্শ। কেউ কেউ আবার সাহস সঞ্চার করে একাই প্রতিবাদ করেন। এ সময় নানকার ও কৃষকদের সংগঠিত করতে কৃষক সমিতি ও কমিউনিস্ট পার্টি সক্রিয় হয়। অজয় ভট্টাচার্যের নেতৃত্বে চলতে থাকে নানকারসহ সকল নির্যাতিত জনগণকে সংগঠিত করার কাজ।
নানকার আন্দোলনের সংগঠক : নিপীড়িত মানুষকে সংগঠিত করতে সে সময় অজয় ভট্টাচার্যের সঙ্গে কাজ করেন নঈমউল্লাহ, নজিব আলী, জোয়াদ উল্লাহ, আব্দুস সোবহান পটল, আকবর আলী, শিশির ভট্টাচার্য, ললিত পাল, শৈলেন্দ্র ভট্টাচার্য, অপর্ণা পাল, সুষমা দে, অসিতা পাল ও সুরথ পাল সহ কয়েকজন। তাদের নেতৃত্বে নানকার কৃষকরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে প্রকাশ্যে বিদ্রোহ ঘোষণা করেন জমিদারদের বিরুদ্ধে।
১৯৪৭ সালে ভারত বিভক্ত হলে পাকিস্তানের সাম্প্রদায়িক সরকার জমিদারদের পক্ষ নিয়ে নানকার আন্দোলন দমন করার ঘোষণা দেয়। গ্রামে গ্রামে পুলিশ ঘাঁটি স্থাপন করে চালানো হয় নির্যাতন। এতে নানকার আন্দোলন থেমে না গিয়ে আরও ব্যাপক হয় ও বিভিন্ন অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় জমিদারদের লাঠিয়ালদের নির্যাতনে সুনাই নদীর খেয়াঘাটে নিহত হন রজনী দাস।
প্রকাশ্য বিদ্রোহ : শুরু হয় জমিদারদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য বিদ্রোহ, বন্ধ হয়ে যায় খাজনা দেওয়া-এমনকি জমিদারদের হাট-বাজারের কেনাকাটা পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়া হয়। জমিদার বাড়িতে কর্মরত সকল দাসি-বাদিসহ সবাই কাজ থেকে বেরিয়ে আসেন
। বিভিন্ন জায়গায় জমিদার ও তাদের লোকজনকে ধাওয়া করে তাড়িয়ে দেয়ার ঘটনাও ঘটে। এতে ভীত সন্ত্র জমিদাররা পাকিস্তান সরকারের শরণাপন্ন হয়ে নানকার আন্দোলনকে ‌‘হিন্দুদের ভারতপন্থী আন্দোলন’ ও ‘পাকিস্তান বিরোধী আন্দোলন’ বলে নালিশ করে এ অঞ্চলের নানকার বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন জানান। জমিদারদের প্ররোচনায় সরকার বিদ্রোহ দমনের সিদ্ধান্ত নেয় এবং বিদ্রোহ দমন করতে অজয় ভট্টাচার্য সহ অনেক নেতাকে গ্রেফতার করে।
সানেশ্বরে পুলিশের গুলি : ১৭ আগস্ট ছিল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের শ্রাবণী সংক্রান্তি। প্রথম দিনের উৎসব আরাধনা শেষে পরদিন মনসা পূজার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে গভীর রাতে বিছানার গা এলিয়ে দেন সানেশ্বর ও উলুউরির মানুষ। ভোরে উঠে পূজা অর্চনা, আনন্দ উৎসব আরও কত কি ভাবতে ভাবতে গভীর ঘুমে ঢলে পড়েন সবাই; কিন্তু ১৮ আগস্ট ভোরের সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে পাকিস্তান সরকারের ইপিআর ও জমিদারদের পেটোয়া বাহিনী আক্রমণ করে সানেশ্বরে। ঘুমন্ত মানুষ শকুনের আচমকা ঝাঁপটায় ঘুম ভেঙ্গে দিগ্বিদিক পালাতে থাকেন। সানেশ্বর গ্রামের লোকজন পালিয়ে পার্শ্ববর্তী উলুউরিতে আশ্রয় নেন। উলুউরি গ্রামে পূর্ব থেকেই অবস্থান করছিলেন নানকার আন্দোলনের নেত্রী অপর্ণা পাল, সুষমা দে, অসিতা পাল ও সুরথ পাল। তাদের নেতৃত্বে উলুউরি ও সানেশ্বর গ্রামের কৃষক নারী-পুরষ সরকারি বাহিনীর মুখোমুখি দাঁড়াবার প্রস্তুতি নেন এবং লাঠি, হুজা, ঝাটা ইত্যাদি নিয়ে মরণ ভয় তুচ্ছ করে সানেশ্বর ও উলুউরি গ্র্রামের মধ্যবর্তী সুনাই নদীর তীরে সম্মুখ যুদ্ধেলিপ্ত হন সরকারি ও জমিদার বাহিনীর সঙ্গে; কিন্তু ইপিআরের আগ্নেয়াস্ত্রের সামনে লাঠিসোটা নিয়ে বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি কৃষকরা। ঘটনা স্থলেই ঝরে পড়ে পাঁচটি তাজা প্রাণ কৃষক ব্রজনাথ দাস (৫০), কটুমনি দাস (৪৭), প্রসন্ন কুমার দাস (৫০), পবিত্র কুমার দাস (৪৫) ও অমূল্য কুমার দাস (১৭)। আহত হন হৃদয় রঞ্জন দাস, দীননাথ দাস, অদ্বৈত চরণ দাসসহ অনেকে। বন্দি হন আন্দোলনের নেত্রী অপর্ণা পাল, সুষমা দে, অসিতা পাল ও উলুউরি গ্রামের প্রকাশ চন্দ্র দাস, হিরণবালা দাস, প্রকাশ চন্দ্র দাস প্রিয়মণি দাস, প্রহলাদ চন্দ্র দাস ও মনা চন্দ্র দাস। বন্দিদের উপর চালানো হয় অমানুষিক নির্যাতন। নির্যাতনে আন্দোলনের নেত্রী অন্তঃসত্ত্বা অপর্ণা পালের গর্ভপাত ঘটে। পালিয়ে যাওয়া বিদ্রোহীদের ধরার জন্য পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয় সানেশ্বর ও উলুউরি গ্রমে।
এ ঘটনার পর আন্দোলনে উত্তাল হয় সারাদেশ। অবশেষে ১৯৫০ সালে প্রবল আন্দোলনের মুখে সরকার জমিদারি প্রথা বাতিল ও নানকার প্রথা রদ করে কৃষকদের জমির মালিকানা দিতে বাধ্য হয়।

লেখক : আব্দুল ওয়াদুদ, সভাপতি, বিয়ানীবাজার সাংস্কৃতিক কমান্ড।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest