JUST NEWS
A NAVAL POLICEMAN WAS BEATEN TO DEATH IN BANYACHANG : KILLER ARRESTED
সংবাদ সংক্ষেপ
বানিয়াচংয়ে এক নৌ পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে হত্যা || ঘাতক গ্রেফতার পুরুষদের সঙ্গে তাল মিলিয়ে নারীরাও গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব দিচ্ছেন : বিভাগীয় কমিশনার সিলেট ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন সিলেটের বিক্ষোভ সমাবেশ সফলে কোম্পানীগঞ্জ বিএনপির প্রস্তুতি সভা বিশ্বনাথে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি প্রবাসীদের শ্রমিকদের মাঝে আনজুমানে খেদমতে কুরআনের শীতবস্ত্র বিতরণ ছাতকের পল্লীতে আব্দুল জলিল ও জহুরা বিবি ফ্রি মেডিক্যাল সেন্টার সিলেট অঞ্চলে এক ইঞ্চি জমিও পতিত না রাখার নির্দেশনা বাস্তবায়নে করণীয় নির্ধারণ জীবনে সফল হতে নিয়মানুবর্তিতা ও শৃঙ্খলা প্রয়োজন : ড জহিরুল হক এনইইউবির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যানের মৃত্যুবার্ষিকী পালন আবাসন ব্যবসায় গতি ও ক্রেতার আস্থা ফিরিয়ে আনতে মেলার আয়োজন করছে সারেগ মাধবপুরে গাঁজা ও পিকআপসহ মাদক কারবারি আটক শাহজালাল জামেয়ার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল থেকে আরেক ধাপ এগিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশের পথে : হাবিব Staying the Course : Journey of ‘Bengal’ Civilian মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির স্প্রিং সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন

নবীগঞ্জে যুদ্ধাপরাধী গোলাপের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত শুরু

  • মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর, ২০১৬

উত্তম কুমার পাল হিমেল, নবীগঞ্জ : মানবতাবিরোধী অপরাধ মামলায় হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার গজনাইপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল খায়ের গোলাপের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়েছে।
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের একটি তদন্ত দল মঙ্গলবার সকালে সরেজমিন তদন্তকাজ শুরু করেছে। তদন্তকালে গ্রামবাসী ও মামলার বাদির সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়।
মাহমদপুর গ্রামের মৃত মতিউর রহমান উমরা মিয়ার ছেলে আবুল খায়ের গোলাপের বিরুদ্ধে এ বছরের ১৩ই মার্চ আন্তার্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে উপজেলার আতানগীরি গ্রামের রইছ উল্লার স্ত্রী সুকুরি বিবি অভিযোগ দায়ের করেন।
এতে তিনি অভিযোগ করেন, আবুল খায়ের গোলাপ স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে রাজাকার বাহিনীর সংগঠক ছিলেন। দিনারপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে স্থাপিত পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ক্যাম্পে তার নেতৃত্বে বিভিন্ন স্থান থেকে নারীদের ধরে এনে ধর্ষণ সহ পাশবিক নির্যাতন করা হতো।
আরও অভিযোগ করা হয়, ১২ই নভেম্বর বিকাল ৪টায় আবুল খায়ের গোলাপের নেতৃত্বে একদল পাক সেনা সুকুরি বিবির বসত ঘরে হানা দিলে তিনি ঘরের পিছনের দরজা দিয়ে বের হয়ে দৌঁড় দিলে এই আসামি তাকে ধরে ফেলে। পরে তাকে পাক বাহিনীর হাতে তুলে দেয়।
পাক হানাদার বাহিনী তাদের ক্যাম্পে তাকে নিয়ে গিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। আবুল খায়ের গোলাপও বাদিনীকে ধর্ষণ করে বলে তিনি অভিযোগ করেন। এছাড়াও ঐ গ্রামের আরো অনেক নারীকে জোর পূর্বক ধরে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। আসামি পক্ষ প্রভাবশালী হওয়ায় এতদিন তিনি নীরব ও আত্মগোপনে ছিলেন।
আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালের তদন্তদলের প্রধান নূর হোসেন সাংবাদিকদের জানান, আবুল খায়ের গোলাপের বিরুদ্ধে কিছু দিনের মধ্যেই তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest