NEWSHEAD

তাহিপুরে গলাকাটা মরদেহের পরিচয় মিলেছে : মা আর ভগ্নিপতিই ঘাতক

Published: 05. Aug. 2019 | Monday

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার অচিন্তপুর এলাকা থেকে উদ্ধারকৃত গলাকাটা মরদেহটি দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পাথারিয়া ইউনিয়নের আসামমোড়া গ্রামের যুবক অলিউর রহমানের। এই হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত যুবকটির মা আর ভগ্নিপতি। এছাড়া একজন ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যও জড়িত রয়েছেন।
সোমবার বিকেলে সুনামগঞ্জ সদর থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে ওসি সহিদুর রহমান জানান, গত ২১ জুলাই অচিন্তপুর এলাকায় সড়কের পাশের একটি ডোবায় অলিউর রহমানের গলাকাটা মরদেহ পাওয়া যায়। ঐ সময় দেশজুড়ে গলাকাটা গুজব চলছিল। খুনিচক্র সেই গুজবকে কাজে লাগাতে চেষ্টা করে।
তিনি জানান, অলিউর রহমান হত্যার ব্যাপারে তার পিতা গোলাপ মিয়া ৬ জনকে আসামি করে সুনামগঞ্জ সদর মডেল থানায় একটি মামলা দয়ের করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশ তদন্তে নামলে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য রেবিয়ে আসতে থাকে। এতে দেখা যায়, ভাড়াটিয়া খুনিদের দিয়ে এই হত্যাকাণ্ডটি ঘটানো হলেও মূল পরিকল্পনাকারী ছিলেন, অলিউর রহমানের ভগ্নিপতি পার্শ্ববর্তী দিরাই উপজেলার ধলকুতুব গ্রামের ফখর উদ্দিন। আরো ভয়ঙ্কর তথ্য হলো, হত্যা পরিকল্পনায় জড়িত ছিলেন অলিউর রহমান মা জয়ফুল বেগম ও স্থানীয় ইউপি সদস্য রওশন আলী।
পুলিশ আরও জানায়, ২০১৮ সালের ৩ জানুয়ারি বালিশচাপা দিয়ে নিজের স্ত্রীকে হত্যার পর মরদেহ পুকুরে ফেলে দেয় অলিউর রহমান। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলায় আসামি করা হয়, সে, ফখর উদ্দিন ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যকে। মামলাটি সিআইডি তদন্ত করছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরো জানানো হয়, এরপর থেকেই শুরু হয় পারিবারিক কলহ। একপর্যায়ে গা ঢাকা দেয় অলিউর রহমান। কয়েকদিন পর শ্বাশুড়িকে ফোন করে স্ত্রী হত্যায় নিজের সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে নেয়। এতে মামলার অন্যান্য আসামি ক্ষিপ্ত হয়ে অলিউর রহমানকে হত্যা করায়। পুলিশ ভাড়ায় হত্যাকাণ্ড ঘটানোর অভিযোগে সুনামগঞ্জ শহরের বড়পাড়ার এনাম ও কুতুবপুর গ্রামের রাজমিস্ত্রী মুহিতুল ও ফখর উদ্দিনকে গ্রেফতার করে। এ তিনজনই হত্যাকাণ্ডে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে।

Share Button
December 2019
M T W T F S S
« Nov    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  

দেশবাংলা