২৭ জানুয়ারি ২০২২

ছাতকে কলেজছাত্র হত্যামামলায় ৩ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড : ২ জনই পলাতক

Published: ১০. জানু. ২০২২ | সোমবার

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ছাতকে কলেজছাত্র আল আমিন হত্যা মামলায় তিন আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ডের আদেশ হয়েছে।
সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টায় জেলা ও দায়রা জজ মো ওয়াহিদুজজামান শিকদার এ রায় ঘোষণা করেন।
দণ্ডপ্রাপ্তরা হলো, উপজেলার চরমহল্লা ইউনিয়নের ছনুয়া গ্রামের রফিক আলীর ছেলে আক্কাছ মিয়া, মৌজরাই গ্রামের আরজক আলীর ছেলে আজিজুল ইসলাম ও জাউয়াবাজার ইউনিয়নের লক্ষণসোম গ্রামের আব্দুল হাসিমের ছেলে সাইদুল হক। আক্কাছ মিয়া ও আজিজুল ইসলাম পলাতক রয়েছে।
মামলার বিবরণে উল্লেখ করা হয়েছে, ছাতক উপজেলার বড়কাপন গ্রামের আনফর আলীর ছেলে আল আমিন দেবেরগাঁও গ্রামে শফিক উদ্দিনের বাড়িতে লজিং থেকে জাউয়াবাজার ডিগ্রি কলেজের মানবিক বিভাগে লেখাপড়া করতো। সে ২০১৭ সালের এইচএসসি পরীক্ষার্থী ছিল; কিন্তু ২০১৬ সালে ১৭ অক্টোবর সকালে কলেজ ক্যাম্পাসে আসামিদের সঙ্গে তার কথা কাটাকাটি হয়।
আরও উল্লেখ করা হয়েছে, দুপুরে আল আমিন নিজের গ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। পথে আসামি আক্কাছ মিয়া, আজিজুল ইসলাম ও সাইদুল হক বড়কাপন পয়েন্টে আল আমিন ও তার বন্ধু দিলাল আহমদ, জুনেল আহমদ ও নাজমুল ইসলামকে কুপিয়ে আহত করে। গুরুতর অবস্থায় তাদেরকে কৈতক সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার আল আমিনকে মৃত ঘোষণা করেন এবং আহতদেরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ঘটনায় নিহত আল আমিনের পিতা আনফর আলী বাদি হয়ে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে ঘটনার দিনই ছাতক থানায় একটি হত্যামামলা দায়ের করেন।
মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই মো নূর মিয়া ২০১৭ সালের ৩০ জুন আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। আদালত ৬ নভেম্বর অভিযোগপত্র আমলে নেয়। মামলায় ২৩ জন সাক্ষী স্বাক্ষ্য দেন।
আসামি পক্ষের আইনজীবী প্রসেনজিৎ দে জানান, আসামি পক্ষ এই রায়ের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আপিল করবে।
রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী খায়রুল কবির রুমেন বলেন, এটি একটি চাঞ্চল্যকর মামলা। বাদি পক্ষ আদালতের রায়ে সন্তেুাষ প্রকাশ করেছে।
আসামি সাইদুল হক রায় ঘোষণাকালে আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পর তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয়।

Share Button
January 2022
M T W T F S S
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31