ঘরবন্দি জীবনে ফিরে দেখা বর্ষবরণ : আল আজাদ

Published: 14. Apr. 2020 | Tuesday

শুভ নববর্ষ। নতুন বাংলা বছর শুরু। প্রথমদিন পয়লা বৈশাখ। প্রায় তিন যুগ পর এই প্রথম বৈশাখি আয়োজন থেকে বঞ্চিত হলাম। উপলব্ধিটা ভীষণ কষ্টের; কিন্তু উপায় নেই। কারণ বিশ্বজুড়ে ভয়ংকর ‘করোনা’র থাবা। প্রিয় স্বদেশ বাংলাদেশও মুক্ত নয়। তবে কেন জানি মনে বিশ্বাস জাগে, এই মহামারির খামচা বাংলা মায়ের বুকে তেমন গভীর হবেনা। কেননা, বাঙালিকে ‘দাবায়া’ রাখার নজির নেই। সকল বিপদ-বিপর্যয় কাটিয়ে এ জাতি বারবার ঠিকই মাথা তুলে দাঁড়িয়েছে।

পুরনো অভ্যেস বইপড়া আর নিত্যদিনের পেশাগত দায়িত্ব পালনের পরেও মনে হয়, ঘরবন্দি জীবনে অলস সময় প্রচুর। তাই বারবার পিছন ফিরে তাকাতে ইচ্ছে করে। এমন দিনে ছিলে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রস্তুতি। নতুন পিঠাপুলি মুখে দিয়েই বাসা থেকে বের হয়ে যাওয়া। এখানে অনুষ্ঠান ওখানে অনুষ্ঠান। বর্ষবরণ শোভাযাত্রা, নাচ, গান আর শুভেচ্ছা বিনিময়। অন্তত এই একদিন পরিপূর্ণভাবে নিজের আত্মপরিচয়ে খুঁজে পাওয়া। যখন নিজে সরাসরি কোন আয়োজনে যুক্ত থাকতাম তখনতো আগের রাতে ঘুম ছিল অকল্পনীয়। যেমন নাট্য আর সংস্কৃতিজগতের বর্তমান প্রজন্ম টানা পরিশ্রমের পরেও দুচোখ এক দণ্ড এক করতে পারেনা। এমনকি ‘করোনা’র মতো মহাদুর্যোগেও মানুষের মুখে অন্ন যোগাতে দিনরাত জাতির জন্যে আশা জাগানিয়া পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

প্রতিবছর প্রথমদিনে যে বিষয়টি খুব বেশি মনে পড়ে-সেটি হলো, সিলেটে প্রথম বৈশাখি মেলা, যা না হলে সুরমাপারে বৈশাখি আয়োজনের ইতিহাস নিশ্চয়ই অন্যরকম হতো। কারো কারে মনে হতে পারে, আত্মপ্রচার। তবু মনে করি, এই স্মৃতিচারণের মধ্য দিয়ে সিলেটের নাট্য-সংস্কৃতিঅঙ্গনে তখনকার এমন কিছু নিবেদিতপ্রাণ মানুষের কথা উঠে আসবে যাদের মধ্যে অনেকের নাম এখন আর উচ্চারিত হয়না। যারা কঠিন জীবনসংগ্রামে থেকেও সময় দিতেন। এজন্যে যাদেরকে কতনা হুমকির মুখোমুখি হতে হতো। কয়েকজন ইতোমধ্যে না ফেরার দেশে চলে গেছেন। সেই প্রিয়জনদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছি।

বাঙালি জীবনে নববর্ষ অনাবিল আনন্দধারা। গুরুত্বপূর্ণও। তাই এ দিনটির জন্যে বছরব্যাপী মানুষ অপেক্ষায় থাকে অধীর আগ্রহ নিয়ে। সাজাতে থাকে বরণডালা। চৈত্রের মাঝামাঝিতেই আরম্ভ হয়ে যায় প্রস্তুতি। অতঃপর কালবৈশাখির রুদ্রতাকে সঙ্গী করে পয়লা বৈশাখ এসে বাংলার ঘরে ঘরে দরজায় করাঘাত করে।

নতুন বছরকে স্বাগত জানানোর একটি অন্যতম প্রধান আয়োজন বৈশাখি মেলা। বাংলাদেশের প্রান্তিক জনপদ সিলেটেও এরকম সাংবাৎসরিক আয়োজন ছিল অনেক আগে থেকেই। তবে সাংগঠনিক উদ্যোগে এখানে বৈশাখি মেলার আয়োজন তিন যুগ আগের। ১৩৯০ সালে এখানে প্রথম এর আয়োজন করা হয়।

উদ্যোগটি ছিল যৌথ। উদ্যোক্তা ছিল, দেশের প্রথম অসাম্প্রদায়িক জাতীয় শিশু-কিশোর সংগঠন খেলাঘর ও প্রগতিশীল সাংস্কৃতিক সংগঠন উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী। এই অসাধ্য সাধনে প্রথমেই সহযোগিতার হাত প্রসারিত করে সিলেট মহানগরীর মিরাবাজার এলাকায় অবস্থিত মডেল হাই স্কুল কর্তৃপক্ষ। সিলেটের অন্যতম প্রাচীন এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রহমানের ভূমিকা ছিল এক্ষেত্রে বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এছাড়া মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারার রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও পেশাজীবী নেতৃবৃন্দ এবং বৃদ্ধিজীবীরাও নানাভাবে সহায়তা করেন।

আশির দশকের গোড়ার দিকে সিলেট অঞ্চলে খেলাঘর ও উদীচীর সাংগঠনিক অবস্থা ছিল খুবই ভাল। শাখা বিস্তৃত ছিল তখনকার প্রতিটি মহকুমা ও থানা এমনকি প্রত্যন্ত গ্রাম পর্যন্ত। সংগঠন দুটির আলাদা আলাদা কার্যালয় ছিল। থাকতো নিয়মিত সাংগঠনিক কাজকর্ম। প্রতিটি সাহিত্য আসর ও অন্যান্য অনুষ্ঠান হতো জমজমাট। অথচ দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি তখন প্রগতিশীলতার অনুকূলে ছিলনা। চলছিল কখনো কড়া আবার কখনো খানিকটা শিথিল সামরিক শাসন। এমন পরিবেশ-পরিস্থিতিতে কর্মী-সংগঠকদের অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হতো। প্রতিটি কর্মসূচি প্রণয়ন করতে হতো চুলচেরা হিসেব-নিকেশ করে। অর্থাৎ অনেককিছু ভেবে-চিন্তে আর দায়-দায়িত্ব কাঁধে নিয়ে প্রতিটি পদক্ষেপ নিতে হতো।

১৯৮৩ সাল। বাংলাদেশে তখন চলছে কড়া সামরিক শাসন। পরিবেশ বৈরী। তবু ভিন্ন ভিন্ন কর্মধারায় একই পথের যাত্রী সমমনা ও পারস্পরিক সহযোগী সংগঠন খেলাঘর ও উদীচী যৌথভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করে বৈশাখী মেলার। যেমনি সিদ্ধান্ত অমনি তা বাস্তবায়নের পদক্ষেপ। কর্মীরা সকল ভয়-শঙ্কা উপেক্ষা করে ঝাঁপিয়ে পড়লেন কাজে। এগিয়ে এলেন পুরনো দিনের কর্মী-সংগঠকরা। প্রতিদিন বিকেল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত চলতো কর্মতৎপরতা। কারণ প্রথম সারির কর্মী-সংগঠকদের বেশিরভাগই বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। নয়াসড়কে শ্রী শ্রী বিশ্বম্বর জিউড় আখড়ার বাইরের দিকের একটি কক্ষে উদীচী কার্যালয় থেকে সকল কর্মকাণ্ড পরিচালিত হতো।

সিলেটে সাংগঠনিক উদ্যোগে প্রথম বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয় ১৩৯০ সনে (ইংরেজি বছর ছিল ১৯৮৩)। আয়োজনটি ছিল মডেল হাই স্কুলের ক্যাম্পাস জুড়ে। দোকান সাজানো হয়েছিল বারান্দায়। অনুষ্ঠান মঞ্চ ছিল মাঠে। জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে একদিনের এ বৈশাখী মেলা উদ্বোধন করেন, রস সাহিত্যিক সৈয়দ মুজতবা আলীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু প্রগতিশীল বুদ্ধিজীবী ও প্রবীণ আইনজীবী সয়ফ-উল-আলম খান। এসময় খেলাঘর ও উদীচীর সাংগঠনিক পতাকা উত্তোলন করেন, খেলাঘর জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক আল আজাদ ও উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী সিলেট জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা পুরঞ্জয় চক্রবর্তী বাবলা। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কয়েকজন বিশেষ অতিথিও ছিলেন।

উদ্যোগটি বাস্তবায়নে একটি প্রস্তুতি পরিষদ গঠন করা হয়। এর আহ্বায়ক ছিলেন খেলাঘর সিলেট জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক আল আজাদ। যুগ্ম আহ্বায়ক উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর জেলা সংসদের সাধারণ সম্পাদক পুরঞ্জয় চক্রবর্তী বাবলা। এছাড়া অনেক সদস্য ছিলেন। সবার নাম স্মরণে নেই। যদি কেউ মনে করিয়ে দেন তাহলে কৃতার্থ হবো।

যে নামগুলো সবসময় মনকে নাড়া দেয়, সেই শ্রদ্ধেয় আর প্রিয়জনেরা হলেন, উদীচীর আবুল মনসুর, মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট বেদানন্দ ভট্টাচার্য, মুক্তিযোদ্ধা অঞ্জন চক্রবর্তী, চিত্রশিল্পী অরবিন্দ দাসগুপ্ত, মকসুদ বক্ত, ডা এনামুল কবির চৌধুরী, ডা সালেহ আহমদ আলমগীর, ডা ইকবাল আনোয়ার, শ্রীপদ ভট্টাচার্য, ভবতোষ চৌধুরী, শমসের হোসেইন, রঞ্জিত সরকার, এনায়েত হাসান মানিক, অ্যাডভোকেট আবিদ আলী, নিরোদ নাথ, শিবানী চৌধুরী, আরতি পাল, মালতি পাল, শবনম কিবরিয়া ও শান্ত সিংহ এবং খেলাঘরের অ্যাডভোকেট তবারক হোসেইন, তাজুল ইসলাম বাঙ্গালী, তুহিন কান্তি ধর, মাহমুদুল হক ওসমানী, অরুণ সরকার, মোস্তফা সাজ্জাদ নাসের, সুদীপ চৌধুরী মান্না ও কাজল কান্তি দে। এছাড়াও বিভিন্নজন বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেন।

প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত ৯-১০টা পর্যন্ত আমরা দল বেঁধে মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় ব্যক্তি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা তুলতাম। এক টাকা, দুই টাকা, পাঁচ টাকা ও একশ টাকা কিংবা কমবেশি। কেউ না করেননি। শূন্য হাতে ফিরিনি কারো নিকট থেকে। এমনকি অনেক রিক্সাচালকও রিক্সা থামিয়ে সাধ্যমতো আর্থিক সহযোগিতা করেছেন। আমাদের সর্বমোট বাজেট ধরা হয়েছিল সর্বোচ্চ ৩ হাজার টাকা। আর চাঁদা উঠেছিল ২ হাজার ৭শ টাকার একটু বেশি। তাই আমাদেরকে অর্থের দিক দিয়ে তেমন কোন সমস্যায় পড়তে হয়নি।

সেদিন সন্ধ্যায় কালবৈশাখি প্রচণ্ড আঘাত হানে। সবকিছু এলোমেলো করে দেয়। আমরা এজন্যে প্রস্তুত ছিলাম। জেনারেটর ছিল। তাই বেকায়দায় পড়তে হয়নি। বরং আমাদের মনে হয়েছিল, বৈশাখের রুদ্ররূপ আয়োজনকে সার্থক করে দিলো। আকস্মিক ঝড়, প্রতিটি স্টলের সামনে দ্রুত গতিতে স্বেচ্ছাসেবকদের অবস্থান গ্রহণ, তাৎক্ষণিক মোমবাতি জ্বালানোর চেষ্টা ইত্যাদি সবাইকে বেশ আত্মতৃপ্তিই দেয়।

একথা জোর দিয়ে বলতেই পারি, প্রথম আয়োজনের সফলতা পরবর্তী কয়েকটি বৈশাখি মেলা আয়োজনে সবাইকে সাহসী করে তুলে।

Share Button
August 2020
M T W T F S S
« Jul    
 12
3456789
10111213141516
17181920212223
24252627282930
31  

দেশবাংলা