JUST NEWS
SECENDERY SCHOOL CERTIFICATE-SSC EXAM RESULTS PUBLISHED ACROSS THE COUNTRY: PASS RATE IN SYLHET EDUCATION BOARD IS 78.82 PERCENT
সংবাদ সংক্ষেপ
নবীগঞ্জে নেশা জাতীয় দ্রব্যে আসক্তির প্রতিকারে সচেতনতা কর্মশালা লতিফা-শফি চৌধুরী মহিলা ডিগ্রি কলেজে ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম সিলেট রেলওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিদায়ী শিক্ষিকা সংবর্ধিত সিলেট ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রশংসা করলেন ডা ফারুক আহমেদ হবিগঞ্জে গানে গানে নন্দিত শিল্পী সুবীর নন্দীর জন্মবার্ষিকী উদযাপন মাধবপুরে আর্থিক অনুদান দেওয়া হলো আহত অটোরিকশা চালককে সোয়া ৫ লাখ টাকার বেশি জরিমানা আদায় করলো পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট জেলা প্রশাসন এবারও বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরণ করবে মহান বিজয়ের মাসকে SCC will formulate a realistic and far-reaching budget সিলেট গ্যাস ফিল্ডস’ সিবিএ নির্বাচনে কর্মচারী লীগের জয় লাভ আল-কবির টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির ভর্তিমেলার মেয়াদ বৃদ্ধি দিলোয়ারের পিতার মৃত্যুতে বিএনপি নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ নতুন সদস্য নিচ্ছে সিলেটে টেলিভিশন সাংবাদিকদের সংগঠন ইমজা সিলেটে ভারতীয় নাট্য গবেষকদের নিয়ে সুবর্ণযাত্রার ‘একান্ত আলাপন’ মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হলো সংসদীয় বিতর্ক সাংবাদিক আহমেদ ইমরানকে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

কোনো লাল চক্ষুকে আমরা পরোয়া করি না : ছাত্র শ্রমিক জনতার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধু

  • বুধবার, ২৩ মার্চ, ২০২২

আল আজাদ : ২৪ মার্চ বুধবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উপদেষ্টা সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দিন আহমদ ও ড কামাল হোসেন রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খানের উপদেষ্টাদের সঙ্গে আলোচনায় মিলিত হন। তাদের মধ্যকার আলোচনা দুই ঘণ্টা স্থায়ী হয়।
সেনাবাহিনী ও তাদের সহযোগীদের উস্কানিতে চট্টগ্রাম, মিরপুর ও সৈয়দপুরে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা সংঘটিত হয়। সেনাবাহিনী ও তাদের অনুচরেরা এ সময় আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে।
চট্টগ্রামে মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা চালান। সেনাবাহিনী ও তাদের দোসররা লুটতরাজ শুরু করে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দিন আহমদ এক বিবৃতিতে এসব ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, এতে সমস্যার রাজনৈতিক সমাধানের সম্ভাবনা বিপন্ন হয়ে পড়েছে।
যশোরে ইপিআর সেক্টর সদর দফতরে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করা হয়। ইপিআর জওয়ানরা ‘জয়বাংলা’ গান গেয়ে পতাকা উত্তোলন করে সামরিক কায়দায় অভিবাদন জানান।
বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে বাধভাঙ্গা জোয়ারের মতো মিছিল আসতে থাকে। মিছিলকারীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আমার মাথা কেনার সাধ্য কারো নেই। শহীদদের রক্তের সাথে আমি বেঈমানী করতে পারবোনা। আমি কঠোরতর নির্দেশ দেওয়ার জন্য বেঁচে না থাকলেও আপনারা সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন।
বিকেলে মৌলভীবাজারের অফিসের বাজারে ন্যাপ (ওয়ালী)-এর উদ্যোগে একটি জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। সৈয়দ মতিউর রহমান, গজনফর আলী চৌধুরী, শফকতুল ওয়াহেদ, সুনির্মল কুমার দেব মীন প্রমুখ এতে বক্তৃতা করেন।
পত্র-পত্রিকায় দিনটির চিত্র ফুটে উঠে এভাবে : করাচি থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে এসে ভিড়ে এমভি সোয়াত। জাহাজটিতে করে এসেছে ৫ হাজার ৬শ ৩০টি অস্ত্র। নৌ-বন্দরের ১৭ নম্বর জেটিতে নোঙর করা সোয়াত জাহাজ। অস্ত্র খালাস তত্ত্বাবধান করবে সেনাবাহিনী। সশস্ত্র অবস্থায় হাজির হয় তারা সেখানে। হাজার হাজার টন মাল খালাস করতে প্রয়োজন হাজার হাজার শ্রমিক। শ্রমিক নিয়োজিত আছে লক্ষাধিক; কিন্তু ইতোমধ্যেই তারা যোগ দিয়েছেন অসহযোগ আন্দোলনে। স্বাধীনতার যুদ্ধ করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন এখন নানাভাবে। তার উপর সোয়াত জাহাজের আগমন ক্ষুব্ধ করে তুলেছে তাদেরকে দারুণভাবে। কারণ তারা জেনে গেছেন, এতে রয়েছে অস্ত্র আর গোলাবারুদ। প্রতিটি অস্ত্রই ব্যবহৃত হতে পারে যে কোন বাঙালির বিরুদ্ধে। সোয়াতে করে আসা বুলেটটি ব্যবহৃত হতে পারে তার নিজেরও বুকে। তাই শ্রমিকদের সিদ্ধান্ত তারা খালাস করবেন না।
সোয়াতে করে অস্ত্র নিয়ে আসার প্রতিবাদে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন শ্রমিকরা। সেনাবাহিনী সেখানে পৌঁছলে প্রতিবাদরত ক্ষুব্ধ ৫০ হাজার শ্রমিক ঘেরাও করেন তাদেরকে। সেনা সদস্যরাও তাক করে বন্দুকের নল। দ্রাম, দ্রাম করে গর্জে উঠে তাদের হাতের অস্ত্র। আর লুটিয়ে পড়েননির্বাক বাঙালিরা। লাশের ওপর লাশ তার ওপর লাশ। ছুটছে রক্তের স্রোত। আহতদের চিৎকার আকাশ-বাতাস কাঁপিয়ে তুললেও কাঁপেনি সেদিন পাষণ্ড পাকিস্তানি সৈন্যদের হাত। হতাহতের সংখ্যা তাৎক্ষণিক জানা যায়নি নিশ্চিত করে। তবে পরবর্তীতে জানা যায়, সেদিন ২শ শ্রমিক প্রাণ দেন।
চট্টগ্রাম বন্দর যখন বাঙালির রক্তে লাল হয়ে উঠেছে, রক্তের বন্যা মিশে যাচ্ছে বঙ্গোপসাগরের সঙ্গে। তখনও রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খানের উপদেষ্টারা বৈঠক করছেন আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে। সেদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, সৈয়দ নজরুল ইসলাম তাজউদ্দিন আহমদ ও ড কামাল হোসেন। সামরিকজান্তার পক্ষে অংশগ্রহণ করেন, এম এম আহমদ, বিচারপতি এ আর কর্নেলিয়াস, লে জে পীরজাদা এবং কর্নেল হাসান। সকাল বিকাল বিকেল দুই দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
এদিন বঙ্গবন্ধুর বাসভবনের সামনে সমবেত ছাত্র-শ্রমিক-জনতার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ‘কোনো লাল চক্ষুকে আমরা পরোয়া করি না। বাঙালি জাতি বুলেটের আঘাত সইবে; কিন্তু তারা তাদের কাঙ্ক্ষিত ‘বাংলাদেশ’ কায়েম করেই ছাড়বে।’ তার নির্দেশে পাড়া-মহল্লায় স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী গড়ে ওঠে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest