JUST NEWS
SAMMYABADI DAL CENTRAL POLITBURO MEMBER COMRADE DHIREN SINGH PASSED AWAY
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে কেউ মাদক ও ব়্যাগিংয়ে জড়ালে কঠোর ব্যবস্থা : উপাচার্য নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটির ভর্তি মেলায় প্রথম দিনেই অভুতপূর্ব সাড়া ইব্রাহিম আলী স্মৃতি মেধাবৃত্তি পরীক্ষার পুরস্কার বিতরণ খুব শিগগির Sammyabadi Dal leader Dhiren Singh is no more সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রীয় পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড ধীরেন সিংহ মারা গেছেন : শোক প্রকাশ মাধবপুরে তেলবাহী ট্রেনের ইঞ্জিন বিকল || রেল লাইনের দুপাশে যানজট সাম্যবাদী দলের কেন্দ্রীয় পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড ধীরেন সিংহ মারা গেছেন বিতর্কিত নতুন পাঠ্যপুস্তক মানুষ গ্রহণ করবে না : হুছামুদ্দীন চৌধুরী ফুলতলী শেখ মনির জন্মদিন উপলক্ষে হবিগঞ্জে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি কর্মগুণে জমির আহমদ মানুষের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন : হাবিব জকিগঞ্জে শুরু হয়েছে বঙ্গবন্ধু মিনি নাইট ফুটবল টুর্নামেন্ট মাহা-সিলেট জেলা প্রেসক্লাব ক্যারমে চ্যাম্পিয়ন আরিফ-আশরাফ Dialogue on Present Situation of Health Services নানা কর্মসূচিতে পালিত হলো সুনামগঞ্জ ও হবিগঞ্জ মুক্ত দিবস CPB ML leaders met the Chinese ambassador গণচীনের বিদায়ী রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সিপিবি এমএল নেতাদের সাক্ষাত

ঐতিহাসিক ৭ই জুনের পথ ধরেই ছয়দফা হয় একদফা : আল আজাদ

  • বুধবার, ৭ জুন, ২০১৭

১৯৬৬ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি। পশ্চিম পাকিস্তানের লাহোরে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর জাতীয় সম্মেলন। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সেখানে বাঙালির মুক্তিসনদ হিসেবে ‘ছয়দফা’ দাবি উত্থাপন করেন শেখ মুজিবুর রহমান। খবরটি পেয়েই কান খাড়া হয়ে যায় পশ্চিমা শাসক গোষ্ঠীর। অনেক রাজনৈতিক দলও আঁতকে উঠে। এমনকি কেউ কেউ ছয়দফাকে সিআইএর চক্রান্ত আর ভারতের ষড়যন্ত্র বলে কটুক্তি করতেও তখন দ্বিধাবোধ করেননি তখন, যদিও পরবর্তী সময়ে প্রমাণিত হয়েছিল, বাঙালির নিজস্ব আবাসভূমি প্রতিষ্ঠার মূলমন্ত্র এই ছয়দফাতেই নিহিত ছিল। তাই বাঙালিরা ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষে ঐতিহাসিক রায় ঘোষণা করে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাতে জাতির ভবিষ্যৎ নির্ধারণের গুরু দায়িত্ব নিঃসঙ্কোচে তুলে দেয়।
ইতিহাসের পাতা উল্টালে দেখা যায়, ১৯৬৩ সালের ৫ই ডিসেম্বর গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ইন্তেকাল করলে আওয়ামী লীগ নানা কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে। তখন শক্ত হাতে দলটির হাল ধরেন শেখ মুজিবুর রহমান। অল্পদিনের মধ্যে আওয়ামী লীগকে বিপর্যস্ত অবস্থা থকে টেনে তুলে একটি মজবুত ভিতের উপর দাঁড় করাতে সক্ষম হন তিনি। এরপর আর এ দলটিকে পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি।
১৯৬৬ সালের ১লা মার্চ শেখ মুজিবুর রহমান আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। নতুন দায়িত্ব গ্রহণ করেই তিনি ‘আমাদের বাঁচার দাবি ছয়দফা’ নিয়ে ছুটে যেতে থাকেন সর্বস্তরের মানুষের কাছে। তুলে ধরতে থাকেন এর যৌক্তিকতা। মানুষ সাড়া দেয়। অকুণ্ঠ সমর্থন জানাতে থাকে ছয়দফার প্রতি। আশায় আশায় বুক বাঁধতে থাকেন প্রিয় নেতা। নিরন্তর ছুটে চলা অব্যাহত থাকে তার। ভয় পেয়ে যায় পাকিস্তানি শাসক-শোষকরা। তাই আবারো চক্রান্তের জাল বুনে। সাজায় ‘আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা’; কিন্তু কোন কিছুই বঙ্গবন্ধুর অবিস্মরণীয় উত্থান ও অভীষ্ঠ লক্ষ্যের অগ্রযাত্রাকে ঠেকাতে পারেনি।
ছয়দফার সমর্থনে ১৯৬৬ সালের ৭ই জুন আওয়ামী লীগ পূর্ব পাকিস্তানে হরতাল আহ্বান করে। অভাবনীয় সাড়া মেলে সর্বস্তরের মানুষের নিকট থেকে; কিন্তু হরতাল দমনে হিংস্রতার আশ্রয় নেয় পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী। লেলিয়ে দেয় পুলিশ ও ইপিআর। ঢাকা ও নারায়নগঞ্জ সহ বিভিন্ন জায়গায় গুলি চালায় সরকারি পেটুয়া বাহিনী। এতে শহীদ হন সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার বড়দেশ (নয়াগ্রাম) গ্রামের ফখরুল মৌলা খান (মনু মিয়া) সহ অনেক বীর বাঙালি। এই সফল হরতালের মধ্য দিয়ে আওয়ামী লীগের ছয়দফার প্রতি বাঙালি জাতির অকুণ্ঠ সমর্থন সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়।
বঙ্গবন্ধু ঘোষিত ঐতিহাসিক ছয়দফা ছিল নিম্নরূপ।
প্রথমদফা : শাসনতান্ত্রিক কাঠামো ও রাষ্ট্রীয় প্রকৃতি
দেশের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো এমনি হতে হবে যেখানে পাকিস্তান হবে একটি ফেডারেশন ভিত্তিক রাষ্ট্রসংঘ এবং এর ভিত্তি হবে লাহোর প্রস্তাব। সরকার হবে সংসদীয় পদ্ধতির। আইন পরিষদের ক্ষমতা হবে সার্বভৌম এবং এই পরিষদও নির্বাচিত হবে সার্বজনীন ভোটাধিকারের ভিত্তিতে জনসাধারণের সরাসরি ভোটে।
দ্বিতীয়দফা : কেন্দ্রীয় সরকারের ক্ষমতা
কেন্দ্রীয় (ফেডারেল) সরকারের ক্ষমতা কেবলমাত্র দুটি ক্ষেত্রেই সীমাবদ্ধ থাকবে-যথা দেশরক্ষা ও বৈদেশিক নীতি। অবশিষ্ট সকল বিষয়ে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর ক্ষমতা থাকবে নিরঙ্কুশ।
তৃতীয়দফা : মুদ্রা ও অর্থ সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
মুদ্রার ব্যাপারে নিম্নলিখিত দুটির যেকোন একটি প্রস্তাব গ্রহণ করা যেতে পারে।
(ক) সমগ্র দেশের জন্যে দুটি পৃথক অথচ অবাধে বিনিময়যোগ্য মুদ্রা চালু থাকবে।
অথবা
(খ) বর্তমান নিয়মে সমগ্র দেশের জন্যে কেবলমাত্র একটি মুদ্রাই চালু থাকতে পারে। তবে সে ক্ষেত্রে শাসনতন্ত্রে এমন ফলপ্রসূ ব্যবস্থা রাখতে হবে যাতে করে পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে মূলধন পাচারের পথ বন্ধ হয়। এ ক্ষেত্রে পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক ব্যাংকিং রিজার্ভেরও পত্তন করতে হবে এবং পূর্ব পাকিস্তানের জন্যে পৃথক আর্থিক ও অর্থ বিষয়ক নীতি প্রবর্তন করতে হবে।
চতুর্থদফা : রাজস্ব, কর ও শুল্ক সম্বন্ধীয় ক্ষমতা
ফেডারেশনের অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর কর বা শুল্ক ধার্যের ব্যাপারে সার্বভৌম ক্ষমতা থাকবে। কেন্দ্রীয় সরকারের কোনরূপ কর ধার্যের ক্ষমতা থাকবেনা। তবে প্রয়োজনীয় ব্যয় নির্বাহের জন্যে অঙ্গরাষ্ট্রীয় রাজস্বের একটি অংশ কেন্দ্রীয় সরকারের প্রাপ্য হবে। অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর সবরকম করের শতকরা একই হারে আদায়কৃত অংশ নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের তহবিল গঠিত হবে।
পঞ্চমদফা : বৈদেশিক বাণিজ্য বিষয়ক ক্ষমতা
(ক) ফেডারেশনভুক্ত প্রতিটি অঙ্গ রাষ্ট্রের বহির্বাণিজ্যের পৃথক হিসাব রক্ষা করতে হবে।
(খ) বহির্বাণিজ্যের মাধ্যমে অর্জিত বৈদেশিক মুদ্রা অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর এক্তিয়ারাধীন থাকবে।
(গ) কেন্দ্রের জন্যে প্রয়োজনীয় বৈদেশিক মুদ্রার চাহিদা সমান হারে অথবা সর্বসম্মত কোন হারে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোই মিটাবে।
(ঘ) অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে দেশজ দ্রব্যাদির চলাচলের ক্ষেত্রে শুল্ক বা কর জাতীয় কোন বাধা-নিষেধ থাকবেনা।
(ঙ) শাসনতন্ত্রে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোকে বিদেশে নিজ নিজ বাণিজ্যিক প্রতিনিধি প্রেরণ এবং স্বস্বার্থে বাণিজ্যিক চুক্তি সম্পাদনের ক্ষমতা দিতে হবে।
ষষ্ঠদফা : আঞ্চলিক সেনা বাহিনী গঠনের ক্ষমতা
আঞ্চলিক সংহতি ও শাসনতন্ত্র রক্ষার জন্যে শাসনতন্ত্রে অঙ্গ রাষ্ট্রগুলোকে স্বীয় কর্তৃত্বাধীনে আধা সামরিক বা আঞ্চলিক সেনা বাহিনী গঠন ও রাখার ক্ষমতা দিতে হবে। নৌ বাহিনীর সদর দফতর পূর্ব পাকিস্তানে থাকবে।
পুস্তিকা আকারে প্রথমে ছয়দফা প্রকাশ করা হয়। এর ভূমিকায় বলা হয়েছিল, ‘ভারতের সাথে বিগত সতেরো দিনের যুদ্ধের অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ রেখে জনগণের বৃহত্তর স্বার্থে দেশের শাসনতান্ত্রিক কাঠামো সম্পর্কে আজ নতুনভাবে চিন্তা করে দেখা অত্যাবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে। যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে শাসনকার্য নির্বাহের ক্ষেত্রে বাস্তব যেসব অসুবিধা দেখা দিয়েছিল, তার পরিপ্রেক্ষিতেই এই প্রশ্নটির কথা আজ অস্বীকার করবার উপায় নেই যে, জাতীয় সংহতি অটুট রাখার ব্যাপারে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণের প্রগাঢ় আন্তরিকতা ও দৃঢ় সংকল্পই দেশকে এই অস্বাভাবিক জরুরী অবস্থাতেও চরম বিশৃঙ্খলার হাত হতে রক্ষা করেছে।’
এই ছয়দফা গভীরভাবে বিশ্লেষণ করলে যে কেউ বুঝে নিতে পারে যে, এই দাবিগুলো পাকিস্তানের শাসক-শোষক গোষ্ঠীর পক্ষে মেনে নেয়া কোনভাবেই সম্ভব ছিলনা। কারণ তারা নিশ্চিত ছিল, ছয়দফা মেনে নিলে রাষ্ট্রক্ষমতা তাদের হাতছাড়া হয়ে যাবে। বন্ধ হয়ে যাবে বাঙালিকে শোষণ করার সকল পথ। একারণে তারা ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নেয়।
বাঙালিরা পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর সেই ষড়যন্ত্র ধরে ফেলতে পেরেছিল। তাই রক্তাক্ত-ঐতিহাসিক ৭ই জুনের নির্দেশিত পথ ধরেই এগিয়ে চলে এবং ছয়দফাকে রূপান্তরিত করে একদফায়। আর তা হলো স্বাধীনতা। একাত্তরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে সেই স্বাধীনতাই অর্জিত হয়। এখন বাকি অর্থনৈতিক মুক্তি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা সেই অর্থনৈতিক মুক্তির লক্ষ্যেই তো দিন বদলের সনদ বাস্তবায়নের মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ডাক দিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest