JUST NEWS
DURGA PUJA THE BIGGEST FESTIVAL OF TRADITIONAL BENGALIS ACROSS THE COUNTRY INCLUDING SYLHET HAS STARTED.
সংবাদ সংক্ষেপ
মৌলভীবাজারে ১ হাজার ৭টি পূজামণ্ডপ নিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসব হবিগঞ্জে দুর্গাপূজায় আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে ওয়াচ টাওয়ার উদ্বোধন দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে সুনামগঞ্জ শ্রীরামকৃষ্ণ আশ্রমে বস্ত্র বিতরণ নবীগঞ্জ কল্যাণ সমিতির সাধারণ সভা ও ৭৮ শিক্ষার্থীকে বৃত্তি প্রদান অস্বাভাবিক সরকার আনা ও পাকিস্তানপন্থার রাজনীতি প্রতিহত করবে জাসদ : লোকমান আহমদ রামকৃষ্ণ সেবাশ্রম সেনাপতি টিলায় সিলেট বিবেকের অনুদান হস্তান্তর লায়ন্স ক্লাব অব সিলেট সুরমার শোভাযাত্রা ও ফ্রি মেডিক্যাল ক্যাম্প প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উপলক্ষে এতিম ছাত্রদের মাঝে খাবার বিতরণ দুর্গাপূজা উপলক্ষে সিলেট বিবেকের পক্ষ থেকে বস্ত্র বিতরণ সবাই এখন যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করছে : নবীগঞ্জে মিলাদ গাজী শারদীয় দুর্গোৎসব : আজ মহাসপ্তমী || আওয়ামী লীগ ও সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের শুভেচ্ছা সিলেটে ছাড়পত্র ছাড়া পাহাড়-টিলা কাটায় ব্যবহৃত এক্সেভেটর জব্দ || মামলা প্রক্রিয়াধীন সুনামগঞ্জে আর্ন্তজাতিক প্রবীণ দিবসে শোভাযাত্রা ও আলোচনা সভা হবিগঞ্জে দুর্গাপূজায় ৯৫ ব্যাচ এসোসিয়েশনের উপহার বিতরণ হবিগঞ্জে শিল্পকলা একাডেমির মনোমুগ্ধকর অ্যাক্রোবেটিক প্রদর্শনী হবিগঞ্জে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা

একাত্তরের ২১শে নভেম্বর পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয় সিলেটের জকিগঞ্জ

  • রবিবার, ২০ নভেম্বর, ২০১৬

শ্রীকান্ত পাল, জকিগঞ্জ : একাত্তরের ২১শে নভেম্বর সিলেটের জকিগঞ্জ পাকিস্তানি হানাদার মুক্ত হয়।
টানা ১২ ঘণ্টা শ্বাসরুদ্ধকর যুদ্ধের মাধ্যমে ভারতীয় মিত্রবাহিনীর সহযোগিতায় মুক্তিযোদ্ধারা জকিগঞ্জ থানা সদর সহ আশেপাশের এলাকা হানাদার মুক্ত করেন।
মুক্তিবাহিনীর স্পেশাল কামান্ডার সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মাসুক উদ্দিন আহমদ জানান, সেক্টর কমান্ডার চিত্ত রঞ্জন দত্ত, মিত্র বাহিনীর দায়িত্বপ্রাপ্ত সামরিক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার ওয়াটকে, কর্নেল বাগচি, জাতীয় সংসদ সদস্য দেওয়ান ফরিদ গাজী, প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য আবদুল লতিফ ও আব্দুর রহিম সহ ভারতের মাছিমপুর সেনানিবাসে জকিগঞ্জকে মুক্ত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। ঐ পরিকল্পনায় ছিল কিভাবে কুশিয়ারা নদীর ওপারে ভারতের করিমগঞ্জ শহরকে ক্ষতিগ্রস্ত না করে জকিগঞ্জ দখল করা যায় ।
পরিকল্পনা অনুসারে ২০শে নভেম্বর রাতে মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী ৩টি দলে বিভক্ত হয়ে অভিযান শুরু করে। প্রথম দল লোহার মহলের দিকে এবং দ্বিতীয় দল আমলসিদের দিকে অগ্রসর হয়। মূল দল জকিগঞ্জ কাস্টমঘাট বরাবর করিমগঞ্জ কাস্টম ঘাটে অবস্থান নেয়।
প্রথম ও দ্বিতীয় দল নিজ নিজ অবস্থান থেকে কুশিয়ারা নদী অতিক্রম করে জকিগঞ্জের দিকে অগ্রসর হয়। মুক্তিবাহিনী তিন দিক থেকে ঘিরে ফেলেছে ভেবে পাকসেনারা আটগ্রাম-জকিগঞ্জ সড়ক দিয়ে পালাতে থাকে। এরই মধ্যে প্রথম ও দ্বিতীয় দল ভারত থেকে জকিগঞ্জে পৌঁছে যায়। মূল দল কুশিয়ারা নদী পার হয়ে জকিগঞ্জ শহরে প্রবেশ করে। তখন কাস্টম ঘাটে নদীরচরে পাক সেনাদের বুলেটে শহীদ হন ভারতীয় মিত্রবাহিনীর মেজর চমন লাল ও তার দুই সহযোগী। এ সময় কয়েকজন পাক সেনাকে আটক করা হয়।
এভাবেই মুক্ত হয় জকিগঞ্জ। ভোরে জকিগঞ্জের মাটিতেই প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে দেয়া হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest