JUST NEWS
IN SYLHET TILL 8 AM ON SATURDAY 2 PEOPLE DIED DUE TO CORONA IN 24 HOURS : INFECTED 5 PEOPLE : DETECTION RATE 07.46
সংবাদ সংক্ষেপ
জগন্নাথপুরে মায়ের মরদেহ ঘরে রেখে এসএসসি পরীক্ষা দিলো মেয়ে সুনামগঞ্জে যুবদলের বিক্ষোভ মিছিলে পুলিশের বাঁধা ও হাতাহাতি সিলেট জেলা পরিষদ নির্বাচন থেকে সরে গেলেন ৭ সদস্য পদপ্রার্থী নদীগুলো বেঁচে না থাকলে দেশ অচল হয়ে যাবে : বিশ্ব নদী দিবসে জেলা প্রশাসক শারদীয় দুর্গোৎসব : মাধবপুরে নানা আয়োজনে মহালয়া অনুষ্ঠিত শেখ হাসিনার জন্মদিনে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কর্মসূচি বিশেষ ট্রাইব্যুনাল করে জামাত-শিবির চক্রের সকল হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি জাসদের শাল্লায় বর্ণাঢ্য কর্মসূচিতে উদযাপিত হলো মিনা দিবস ২০২২ মাধবপুরে ইউপি নির্বাচনে বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক আহত লাক্কাতুরা চা বাগানে ‘লাকড়ি তোড়া’র স্থানে সীমানা দেয়াল নির্মাণ দাবি সামাজিক বন্ধনের ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখার আহবানে মৌলভীবাজারে সম্প্রীতি সমাবেশ সিলেটে টিলা কাটার অপরাধে ৪ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড শাল্লায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদেরকে উপজেলা প্রশাসনের সহায়তা প্রদান মাধবপুরে জেলা পরিষদ সদস্য প্রার্থীর নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা হবিগঞ্জে হাইব্রিড ধানবীজ কোম্পানি ব্যাবিলনের ব্যবসায়িক সম্মেলন বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দেশে সামাজিক সম্প্রীতি ধ্বংস করা হয় : বিভাগীয় কমিশনার

একাত্তরের এদিনে কৃষ্ণপুরে পাকিস্তানিরা হত্যা করে ১২৭ জন বাঙালিকে

  • রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলকালে ১৮ই সেপ্টেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামে ১২৭ জন বাঙালিকে হত্যা করে; কিন্তু কোন শহীদ তালিকা এখনো তৈরি হয়নি। এছাড়া দিনটি প্রতিবছর নীরবে নিভৃতে পার হয়ে যায়। বধ্যভূমি সংরক্ষণের কাজও ২ বছরে শেষ হয়নি।
লাখাই ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর। হবিগঞ্জ ও ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার মধ্যবর্তী প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রাম। যোগাযোগ ব্যবস্থা বলতে বর্ষায় নৌকা আর শুকনো মৌসুমে পায়ে হাঁটা। গ্রামবাসীর শতকরা ৯৫ ভাগই সনাতন ধর্মাবলম্বী। বেশিরভাগ মানুষ লেখাপড়া জানেন।
১৮ই সেপ্টেম্বর ভোরে এলাকার রাজাকারদের সহযোগিতায় হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ চালায় কৃষ্ণপুরে। এ সময় গ্রামের বহু নারী-পুরুষ একটি পুকুরের পানিতে ডুব দিয়ে আত্মরক্ষা করতে সক্ষম হলেও জল্লাদরা এক লাইনে দাঁড় করিয়ে ব্রাশফায়ারে হত্যা করে ১২৭ জনকে। তবে এর মধ্যে অনেকই ছিলেন ছিলেন আশ্রয়গ্রহণকারী। কাউকে কাউকে হাওর থেকে খান সেনা ও রাজাকাররা ধরে এনে লাইন দাঁড় করায়। কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েও বেঁচে যান।
এই শহীদদের মধ্যে পরিচয় পাওয়া গেছে ৪৫ জনের। শহীদ পরিবারগুলো নিজস্ব উদ্যোগে কৃষ্ণপুর কমলাময়ী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে নিজস্ব উদ্যাগে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করেছেন। অন্যদিকে প্রায় ২ বছর ধরে সরকারি উদ্যোগে চলছে বধ্যভূমি সংরক্ষণের কাজ; কিন্তু তা আর শেষ হচ্ছেনা। এ অবস্থায় শহীদ পরিবারগুলোর দাবি, অবিলম্বে এ নির্মাণ কাজ শেষ করা হোক। দিনটি সরকারি উদ্যোগে পালন করার জন্যেও তারা দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest