JUST NEWS
ATTEMPTS TO DESTROY NON-COMMUNAL CONSCIOUSNESS ARE MAJOR OBSTACLES IN THE WAY OF DEVELOPMENT AND PROGRESS: VC OF METROPOLITAN UNIVERSITY
সংবাদ সংক্ষেপ
লাগামহীন দুর্নীতির কারণে দেশ তলাবিহীন ঝুড়িতে পরিণত হয়েছে নবীগঞ্জে জাঁকজমকভাবে জ্ঞান ও বিদ্যাদেবী সরস্বতীর পূজা অনুষ্ঠিত নবীগঞ্জে জামিআ আরাবিয়া দিনারপুর মাদরাসার ইসলামী সম্মেলন দক্ষিণ সুরমার পিরোজপুরে ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্প ও শীতবস্ত্র বিতরণ সাংস্কৃতিক জাগরণে সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করে ‘স্মার্ট’ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার জামেয়া আমিনিয়া মংলিপার মাদরাসার ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত লাউয়াইতে তৈমুর খান বাদশাই স্মৃতি মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু লন্ডনে ‘রাউই’ নাশীদ ব্যান্ডের অভিষেক ও সাংস্কৃতিক সন্ধা অনুষ্ঠিত কাজিরবাজারে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে সিলেট মহানগর জামায়াত গোয়াইনঘাটে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ও ৮ জুয়াড়ি গ্রেফতার জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন বইপাঠ ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতা GDF distributed winter clothes among disabled people দেড়শতাধিক প্রতিবন্ধীর মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলো জিডিএফ সিলেটে গ্রীন জেমস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজে পুুরস্কার বিতরণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারীদের মাঝে আদর্শ শিক্ষক ফোরামের শীতবস্ত্র বিতরণ অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিনষ্টের অপচেষ্টা উন্নয়ন ও প্রগতির পথে বড় বাধা : ড জহিরুল হক

একাত্তরের এদিনে কৃষ্ণপুরে পাকিস্তানিরা হত্যা করে ১২৭ জন বাঙালিকে

  • রবিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

হবিগঞ্জ প্রতিনিধি : ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলকালে ১৮ই সেপ্টেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামে ১২৭ জন বাঙালিকে হত্যা করে; কিন্তু কোন শহীদ তালিকা এখনো তৈরি হয়নি। এছাড়া দিনটি প্রতিবছর নীরবে নিভৃতে পার হয়ে যায়। বধ্যভূমি সংরক্ষণের কাজও ২ বছরে শেষ হয়নি।
লাখাই ইউনিয়নের কৃষ্ণপুর। হবিগঞ্জ ও ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার মধ্যবর্তী প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রাম। যোগাযোগ ব্যবস্থা বলতে বর্ষায় নৌকা আর শুকনো মৌসুমে পায়ে হাঁটা। গ্রামবাসীর শতকরা ৯৫ ভাগই সনাতন ধর্মাবলম্বী। বেশিরভাগ মানুষ লেখাপড়া জানেন।
১৮ই সেপ্টেম্বর ভোরে এলাকার রাজাকারদের সহযোগিতায় হানাদার পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ চালায় কৃষ্ণপুরে। এ সময় গ্রামের বহু নারী-পুরুষ একটি পুকুরের পানিতে ডুব দিয়ে আত্মরক্ষা করতে সক্ষম হলেও জল্লাদরা এক লাইনে দাঁড় করিয়ে ব্রাশফায়ারে হত্যা করে ১২৭ জনকে। তবে এর মধ্যে অনেকই ছিলেন ছিলেন আশ্রয়গ্রহণকারী। কাউকে কাউকে হাওর থেকে খান সেনা ও রাজাকাররা ধরে এনে লাইন দাঁড় করায়। কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েও বেঁচে যান।
এই শহীদদের মধ্যে পরিচয় পাওয়া গেছে ৪৫ জনের। শহীদ পরিবারগুলো নিজস্ব উদ্যোগে কৃষ্ণপুর কমলাময়ী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে নিজস্ব উদ্যাগে স্মৃতিসৌধ নির্মাণ করেছেন। অন্যদিকে প্রায় ২ বছর ধরে সরকারি উদ্যোগে চলছে বধ্যভূমি সংরক্ষণের কাজ; কিন্তু তা আর শেষ হচ্ছেনা। এ অবস্থায় শহীদ পরিবারগুলোর দাবি, অবিলম্বে এ নির্মাণ কাজ শেষ করা হোক। দিনটি সরকারি উদ্যোগে পালন করার জন্যেও তারা দাবি জানিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest