JUST NEWS
SECENDERY SCHOOL CERTIFICATE-SSC EXAM RESULTS PUBLISHED ACROSS THE COUNTRY: PASS RATE IN SYLHET EDUCATION BOARD IS 78.82 PERCENT
সংবাদ সংক্ষেপ
নবীগঞ্জে নেশা জাতীয় দ্রব্যে আসক্তির প্রতিকারে সচেতনতা কর্মশালা লতিফা-শফি চৌধুরী মহিলা ডিগ্রি কলেজে ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রাম সিলেট রেলওয়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বিদায়ী শিক্ষিকা সংবর্ধিত সিলেট ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশনের প্রশংসা করলেন ডা ফারুক আহমেদ হবিগঞ্জে গানে গানে নন্দিত শিল্পী সুবীর নন্দীর জন্মবার্ষিকী উদযাপন মাধবপুরে আর্থিক অনুদান দেওয়া হলো আহত অটোরিকশা চালককে সোয়া ৫ লাখ টাকার বেশি জরিমানা আদায় করলো পরিবেশ অধিদপ্তর সিলেট জেলা প্রশাসন এবারও বর্ণাঢ্য আয়োজনে বরণ করবে মহান বিজয়ের মাসকে SCC will formulate a realistic and far-reaching budget সিলেট গ্যাস ফিল্ডস’ সিবিএ নির্বাচনে কর্মচারী লীগের জয় লাভ আল-কবির টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটির ভর্তিমেলার মেয়াদ বৃদ্ধি দিলোয়ারের পিতার মৃত্যুতে বিএনপি নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ নতুন সদস্য নিচ্ছে সিলেটে টেলিভিশন সাংবাদিকদের সংগঠন ইমজা সিলেটে ভারতীয় নাট্য গবেষকদের নিয়ে সুবর্ণযাত্রার ‘একান্ত আলাপন’ মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটিতে অনুষ্ঠিত হলো সংসদীয় বিতর্ক সাংবাদিক আহমেদ ইমরানকে সিলেট জেলা প্রেসক্লাবের সংবর্ধনা

সিলেট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল গণহত্যা দিবস ৯ এপ্রিল

  • শুক্রবার, ৮ এপ্রিল, ২০২২

আল আজাদ : পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ছাব্বিশে মার্চের প্রথম প্রহরে সিলেট শহরের বুকে ঝাঁপিয়ে পড়ে। মহকুমা শহর হবিগঞ্জ তখন মুক্ত। সেখানে রাত ৪টার দিকে জাতীয় পরিষদ সদস্য কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর কাছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণা সংক্রান্ত তারবার্তাটি পৌঁছে। এর সঙ্গে সঙ্গেই খোয়াই পারে প্রতিরোধের প্রলয়শিখা জ্বলে উঠে। অথচ অস্ত্র বলতে ছিল মাত্র তিনটি বন্দুক আর একটি রিভলবার। অবশ্য সাধারণ মানুষের হাতে ছিল ‘যার যা কিছু আছে তাই’। চা শ্রমিকরা এসেছিলেন তীর-ধনুক নিয়ে। তবে পরদিন সরকারি অস্ত্রাগারের সাড়ে ৫০০ রাইফেল ও ২২ হাজার গুলি দখল করা হয়।
হবিগঞ্জে মুক্তিযুদ্ধ সংগঠিত করার ক্ষেত্রে এ সময় জাতীয় পরিষদ সদস্য অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল এম এ রব, মোস্তফা আলী ও এ কে লতিফুর রহমান চৌধুরী (কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী) এবং প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য এনামুল হক মোস্তফা শহীদ, মাওলানা আসাদ আলী, ডা আবুল হাসেম, গোপালকৃষ্ণ মহারত্ন ও আব্দুল আজিজ চৌধুরী এবং অন্যান্য রাজনৈতিক নেতাও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। একাত্ম হন ছুটিতে থাকা মেজর সি আর দত্ত। প্রতিরোধ লড়াইয়ে অংশ নিতে তখন বিক্ষুব্ধ ছাত্র-শ্রমিক-জনতার সংখ্যা বাড়তে থাকে, যদিও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সেনা সদস্য আর কেউ প্রথম দিকে ছিলেন না।
কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীর অধিনায়কত্বে মুক্তি বাহিনী সিলেট শহরের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। এ খবর পেয়ে খান সেনারা মৌলভীবাজার থেকে পালিয়ে পিছিয়ে এসে শেরপুর ফেরি অতিক্রম করে বিবিয়ানা নদীর উত্তরপারে অবস্থান নেয়। মুক্তিসেনারা সেখানে পৌঁছেন ২৯ মার্চ। দু’দিন চলে যায় নীরবে। এপ্রিলের প্রথমদিন থেকে শুরু হয় প্রচণ্ড যুদ্ধ। সামনা সামনি একদম। এক পর্যায়ে হানাদাররা পিছু হটতে শুরু করে। পেছন দিকে আঘাত হানতে থাকেন বাংলার সূর্য সন্তানরা। লড়াই হয় সাদিপুর ও রশিদপুরে। সবখানেই শত্রুরা পরাজিত হয়। অনেকে মারাও যায়।
একইদিন আখালিয়ায় তৎকালীন বাঙালি ইপিআর জওয়ান, আশেপাশের এলাকার অবসরপ্রাপ্ত সেনা ও আনসার সদস্য এবং সাধারণ মানুষের সঙ্গে পাকিস্তানি হানাদার সেনাদের তীব্র লড়াই হয়।
শেরপুর থেকে একের পর এক বিজয় অর্জন করে মুক্তিবাহিনী সিলেট শহরতলির দক্ষিণ সুরমায় পৌঁছে। সেদিন ছিল ৭ এপ্রিল। এর আগেরদিন সন্ধ্যায় বিয়ানীবাজার সড়ক ধরে শহরে পৌঁছে যান জাতীয় পরিষদ সদস্য দেওয়ান ফরিদ গাজী, আওয়ামী লীগ নেতা সিরাজ উদ্দিন আহমদ ও ক্যাপ্টেন আব্দুর রব। ইতোপূর্বে ক্যাপ্টেন এম এ মুত্তালিবও সহযোদ্ধাদের নিয়ে তামাবিল সড়ক হয়ে এখানে পৌঁছেন। পশ্চিমারা ততক্ষণে উত্তরদিকে সালুটিকরে বিমান বন্দরে চলে যায়।
পাকিস্তানি হানাদাররা ৭ এপ্রিল সকাল থেকে আকাশ পথে সিলেট শহরে হামলা শুরু করে। ফলে জেলা কারাগারের ভেতরে ৭ জন বন্দি প্রাণ হারান। ১টি গরুও মারা যায়। এ অবস্থাতেই সন্ধ্যার দিকে সেখান থেকে মৌলভীবাজার থেকে নির্বাচিত প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য আজিজুর রহমান ও ব্যোমকেশ ঘোষকে মুক্ত করা হয়। পরদিন বের করা হয় সর্বমোট ১ হাজার ২শ ৩৮ জন করা বন্দিকে। এর মাঝে কয়েকজন বামপন্থীও ছিলেন।
খান সেনারা ৯ এপ্রিল প্রচণ্ড লড়াইয়ের পর সিলেট শহর পুনর্দখল করে নেয়। সেই সঙ্গে মেতে উঠে পৈশাচিক উল্লাসে হত্যাযজ্ঞে। তখনকার সময় দেশের অন্যতম সেরা চিকিৎসক শামসুদ্দিন আহমদ তখন সিলেট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সহকর্মীদের নিয়ে আহত মুক্তিযোদ্ধা-জনতার চিকিৎসা করছিলেন সকল ভয়ভীতি উপেক্ষা করে; কিন্তু বেশিক্ষণ এ মহৎ কাজটি অব্যাহত রাখতে পারলেন না। সকাল সোয়া ১১টার দিকে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ঢুকে জল্লা­াদরা তার প্রিয় ছাত্র ও সহযোগী ডা শ্যামল কান্তি লালা সহ তাকে হত্যা করে। এর আগে পাকসেনা কর্মকর্তা মেজর রিয়াদ খানের প্রশ্নের জবাবে ডা শামসুদ্দিন আহমদ অপকটে নিজের পরিচয় প্রকাশ করেন। সেদিন সেবক মাহমুদুর রহমান, এ্যাম্বুলেন্স চালক কোরবান আলী এবং আরো অনেকে ঘাতকদের নিষ্ঠুরতার শিকার হন।
১৯৬৯ সালে ডা শামসুদ্দিন আহমদ রাজশাহীতে কর্মরত ছিলেন। গণঅভ্যুত্থানের শহীদ ড শামসুজ্জোহার মরদেহ ময়নাতদন্তের ভার পড়ে তার ওপর। শাসক চক্র চাপ দেয় তাকে সাজানো প্রতিবেদন দাখিল করার জন্যে; কিন্তু তিনি তা দিতে অস্বীকৃতি জানান।
এছাড়া একাত্তরের ২৬ মার্চের পর আহত পাকিস্তানি হানাদার সেনাদের সেনা ছাউনিতে গিয়ে চিকিৎসা করতে রাজী না হওয়ায় সামরিক কর্তৃপক্ষ দেশমাতৃকার সাহসী সন্তান মানবদরদী স্বাধীনতা প্রত্যাশী ডা শামসুদ্দিন আহমদের ওপর প্রচণ্ড ক্ষেপে গিয়ে এভাবে প্রতিশোধ নেয়।
ছবি : পল্লব ভট্টাচার্য

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest