JUST NEWS
RAB 9 SYLHET ARRESTS ONE PERSON WITH 1850 KG OF INDIAN SUGAR IMPORTED BY EVADING CUSTOMS AND TAXES
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেট ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের ক্রীড়া প্রতিযোগিতা সম্পন্ন সিলেটের বিক্ষোভ সমাবেশ সফলে কোম্পানীগঞ্জ বিএনপির প্রস্তুতি সভা বিশ্বনাথে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ইলিয়াস আলীকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি প্রবাসীদের শ্রমিকদের মাঝে আনজুমানে খেদমতে কুরআনের শীতবস্ত্র বিতরণ ছাতকের পল্লীতে আব্দুল জলিল ও জহুরা বিবি ফ্রি মেডিক্যাল সেন্টার সিলেট অঞ্চলে এক ইঞ্চি জমিও পতিত না রাখার নির্দেশনা বাস্তবায়নে করণীয় নির্ধারণ জীবনে সফল হতে নিয়মানুবর্তিতা ও শৃঙ্খলা প্রয়োজন : ড জহিরুল হক এনইইউবির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যানের মৃত্যুবার্ষিকী পালন আবাসন ব্যবসায় গতি ও ক্রেতার আস্থা ফিরিয়ে আনতে মেলার আয়োজন করছে সারেগ মাধবপুরে গাঁজা ও পিকআপসহ মাদক কারবারি আটক শাহজালাল জামেয়ার বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল থেকে আরেক ধাপ এগিয়ে স্মার্ট বাংলাদেশের পথে : হাবিব Staying the Course : Journey of ‘Bengal’ Civilian মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির স্প্রিং সেমিস্টারের শিক্ষার্থীদের ওরিয়েন্টেশন র‌্যাবের অভিযানে ভারতীয় ১৮৫০ কেজি চিনি সহ একজন গ্রেফতার প্রথম মুক্তাঞ্চল জকিগঞ্জের স্বীকৃতির দাবিতে প্রয়োজনে দেশে-বিদেশে আন্দোলন

উত্তাল মার্চ : স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে সিলেটে পশ্চিমা পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ

  • রবিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২১

৩ মার্চ বুধবার আন্দোলন আরো ক্ষিপ্র হয়ে উঠে। ঢাকায় আগের রাত থেকে ঐদিন পর্যন্ত সেনাবাহিনীর গুলিতে কমপক্ষে ১৬ জন প্রাণ হারায় এবং অসংখ্য আহত হয়। সংগ্রামী জনতা আগের রাতের শহীদের মরদেহ নিয়ে খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ছাত্র-শিক্ষকরা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
সকালে রাজারবাগ পুলিশ লাইন সেনাবাহিনী দখল করে নিয়েছে-এ ধরনের একটি গুজব ছড়িয়ে পড়লে মানুষ যার যা আছে তাই নিয়ে সেখানে হাজির হয়।
গুলির ঘায়ে আহতদের জন্যে রক্ত দিতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে এত বেশি ভীড় জমে উঠে যে, রক্ত নেয়ার জন্যে শেষ পর্যন্ত ডাক্তারের সংখ্যা অপ্রতুল হয়ে যায়। সেখানে তখন সারি সারি মরদেহ আর বুক ফাটা আর্তনাদ। শত শত লোক শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে মর্গে এসে ভীড় জমায়। কয়েকজন ছাত্র মর্গেই কান্নাই ভেঙ্গে পড়ে।
সকালে বটতলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে গণহত্যার প্রতিবাদে একটি সভা অনুষ্ঠিত হয়।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলোতে তখন চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। ছাত্ররা ছোট ছোট সভায় মিলিত হয়ে গণহত্যার প্রতিবাদ জানাতে থাকে। সকালে ৫টি মরদেহ নিয়ে ছাত্র-জনতার একটি শোক মিছিল বের হলে এক মর্মস্পর্শী দৃশ্যের অবতারণা হয়।
ছাত্র ইউনিয়ন শহীদ মিনারে একটি সমাবেশের আয়োজন করে। আরো কয়েকটি ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকেও একই স্থানে পৃথক পৃথক সমাবেশের আয়োজন করা হয়।
বাংলাদেশের সর্বত্র হরতাল পালিত হয়। চট্টগ্রামে ৭৯ জন গুলিতে প্রাণ হারায়। এছাড়া প্রায় ৩শ জন আহত হয়।
রাষ্ট্রপতি ভবন থেকে এক ঘোষণায় ইয়াহিয়া খান সংকট নিরসনের লক্ষ্যে জাতীয় পরিষদের সংসদীয় দলের ১১ জন নেতাকে ১০ মার্চ ঢাকায় একটি বৈঠকে মিলিত হবার আমন্ত্রণ জানালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তা প্রত্যাখ্যান করেন।
বিকেলে পল্টন ময়দানে এক জনসভায় বঙ্গবন্ধু শান্তিপূর্ণভাবে সত্যাগ্রহ আন্দোলন চালিয়ে যাবার আহবান জানান।
তিনি বলেন, আমাদেরকে মৃত্যু ভয় দেখিয়ে লাভ নেই। আমরা প্রাণ দিতে জানি। আমাদের অর্থে পরিচালিত সেনাবাহিনীকে বিদেশী শত্রæর হামলা মোকাবেলার জন্যে রাখা হয়েছে, বাঙালিদের মারার জন্যে নয়।
সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, আপনারা নির্ভীকভাবে সংবাদ পরিবেশন করুন। কারো বিধি-নিষেধ মানবেন না।
হরতাল চলাকালে সকালে সিলেটে নয়াসড়কে খাজাঞ্চী বাড়িতে অবস্থিত ইপিআর সেক্টর সদর দফতর থেকে ছাত্র-জনতার একটি বিক্ষোভ মিছিলে গুলি বর্ষণ করা হয়। এতে যেন বারুদে আগুন লাগে। সেই সাথে গুজব ছড়িয়ে পড়ে, একজন নিহত হয়েছে। অমনি চারদিক হতে মুক্তিপাগল মানুষ দলে দলে ছুটে গিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাও করে। বেলা আনুমানিক ১টায় পশ্চিমা সেনা কর্মকর্তা সরফরাজ খান সেখানে পৌঁছলে অনেকের মধ্যেই স্বজন হত্যার প্রতিশোধ গ্রহণের তীব্র স্পৃহা জেগে উঠে। তবে উপস্থিত নেতৃবৃন্দ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে সক্ষম হন।
বিকেল ৪টার দিকে রেজিস্টারি মাঠে ছাত্রলীগ একটি সভার আয়োজন করে। এতে সভাপতিত্ব করেন, সংগঠনের জেলা সভাপতি সদর উদ্দিন চৌধুরী। বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মুনিম, সমাজকল্যাণ ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক সিরাজ উদ্দিন আহমদ এবং জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মকসুদ ইবনে আজিজ লামা।
সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা থেকে অপ্রত্যাশিতভাবে ১২ ঘণ্টার জন্যে সান্ধ্য আইন জারি করা হয়। তবে তা উপেক্ষা করে জনগণ রাজপথে নেমে এলে গ্রেফতার করা হয় ৩৩ জনকে। এর মধ্যে কারো কারো ওপর অকথ্য নির্যাতনও চালানো হয়।
সুনামগঞ্জে সর্বাত্মক হরতাল পালিত হয়; কিন্তু স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলনকে কেন্দ্র করে ছাত্রনেতাদের সাথে পশ্চিমা পুলিশের সংঘর্ষ বাঁধে।-আল আজাদ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest