JUST NEWS
ATTEMPTS TO DESTROY NON-COMMUNAL CONSCIOUSNESS ARE MAJOR OBSTACLES IN THE WAY OF DEVELOPMENT AND PROGRESS: VC OF METROPOLITAN UNIVERSITY
সংবাদ সংক্ষেপ
সাংস্কৃতিক জাগরণে সকল অপশক্তিকে প্রতিহত করে ‘স্মার্ট’ বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার অঙ্গীকার জামেয়া আমিনিয়া মংলিপার মাদরাসার ওয়াজ মাহফিল অনুষ্ঠিত লাউয়াইতে তৈমুর খান বাদশাই স্মৃতি মিনি ফুটবল টুর্নামেন্ট শুরু লন্ডনে ‘রাউই’ নাশীদ ব্যান্ডের অভিষেক ও সাংস্কৃতিক সন্ধা অনুষ্ঠিত কাজিরবাজারে অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে সিলেট মহানগর জামায়াত গোয়াইনঘাটে সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি ও ৮ জুয়াড়ি গ্রেফতার জাতীয় গ্রন্থাগার দিবস উপলক্ষ্যে চিত্রাঙ্কন বইপাঠ ও আবৃত্তি প্রতিযোগিতা GDF distributed winter clothes among disabled people দেড়শতাধিক প্রতিবন্ধীর মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করলো জিডিএফ সিলেটে গ্রীন জেমস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজে পুুরস্কার বিতরণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারীদের মাঝে আদর্শ শিক্ষক ফোরামের শীতবস্ত্র বিতরণ অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিনষ্টের অপচেষ্টা উন্নয়ন ও প্রগতির পথে বড় বাধা : ড জহিরুল হক ফরহাদ ও উমেদের মামলা প্রত্যাহার দাবি স্বেচ্ছাসেবক দল নেতাদের ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন রাষ্ট্রদূতের আলীম ইন্ডাস্ট্রিজ কারখানা পরিদর্শন মাধবপুরে চোরাই মোবাইল ফোন ও ল্যাপটপ সহ পাচারকারী গ্রেফতার সুনামগঞ্জের বেদে পল্লীতে প্রশাসনের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

উত্তাল মার্চ : এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম

  • সোমবার, ৮ নভেম্বর, ২০২১

৭ মার্চ রবিবার। এ দিনটির জন্যে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় গোটা বাঙালি জাতি। কারণ আগেই জানা হয়ে গিয়েছিল, এদিন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রমনা রেসকোর্স ময়দানে আয়োজিত জনসভায় ভাষণ দেবেন। ঘোষণা করবেন অসহযোগ আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ও দিক নির্দেশনা। তাই সারাদেশ জুড়ে সেকি উচ্ছ্বাস। সকাল থেকেই জনস্রোত ছুটে চলে সভাস্থলের দিকে। এমনকি বিভিন্ন জেলা থেকেও অনেকে সেখানে গিয়ে উপস্থিত হন প্রিয় নেতার বজ্রকণ্ঠের বজ্রধ্বনি শোনার জন্যে। ফলে রমনা রেসকোর্স ময়দান জনসমুদ্রে পরিণত হয়।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক সময় এসে সেই জনসমুদ্রে হাজির হলেন। কবি নির্মলেন্দু গুণের ভাষায়,
শত বছরের শত সংগ্রাম শেষে রবীন্দ্রনাথের মতো দৃপ্ত পায়ে হেঁটে
অত:পর কবি এসে জনতার মঞ্চে দাঁড়ালেন।
তখন পলকে দারুণ ঝলকে তরীতে উঠিল জল,
হৃদয়ে লাগিল দোলা
জনসমুদ্রে জাগিল জোয়ার সকল দুয়ার খোলা-
কে রোধে তাঁহার বজ্রকণ্ঠ বাণী?
গণসূর্যের মঞ্চ কাঁপিয়ে কবি শোনাল তাঁর অমর কবিতাখানি;
‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম,
এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’
বঙ্গবন্ধুর এই ঘোষণা ছিল সাড়ে সাতকোটি বাঙালির প্রাণের উচ্চারণ। তাই স্বাধীনতার চূড়ান্ত লক্ষ্য চোখে নিয়ে উদীপ্ত লাখো জনতা যার যা কিছু আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত হতে ঘরে ফিরে চলে।
ওইদিনের জনসভা সম্পর্কে পরদিন পত্র-পত্রিকার সংবাদ-প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘মুহর্মুহু গর্জনে ফেটে পড়ছে জনসমুদ্রের উত্তাল কন্ঠ। স্লোগানের ঢেউ একের পর এক আছড়ে পড়ছে। লক্ষ কন্ঠে এক আওয়াজ। বাঁধ না মানা দামাল হাওয়ায় সওয়ার লক্ষ কণ্ঠের বজ্র শপথ। হাওয়ায় পতপত করে উড়ছে পূর্ব বাংলার মানচিত্র আঁকা সবুজ জমিনের ওপর লাল সূর্যের পতাকা। লক্ষ হস্তে শপথের বজ্রমুষ্ঠি মুহুর্মুহু উত্থিত হচ্ছে আকাশে। জাগ্রত বীর বাঙালির সার্বিক সংগ্রামের প্রত্যয়ের প্রতীক, সাতকোটি মানুষের সংগ্রামী হাতিয়ারের প্রতীক বাঁশের লাঠি মুহুর্মুহু স্লোগানের সাথে সাথে উত্থিত হচ্ছে আকাশের দিকে। এই ছিল গতকাল রমনা রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক সভার দৃশ্য।’
বঙ্গবন্ধু মঞ্চে আরোহন করেন বিকেল ৩টা ২০ মিনিটে; কিন্তু ফাল্গুনের সূর্য ঠিক মাথার ওপরে উঠার আগে থেকেই স্লোগান চলছে। মাইকে এসে স্লোগান দিচ্ছেন ছাত্রলীগ নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, আ স ম আব্দুর রব, শাহজাহান সিরাজ ও আব্দুল কুদ্দুছ মাখন। স্লোগান দিচ্ছেন আওয়ামী লীগ স্বেচ্ছাসবক বাহিনীর প্রধান আব্দুর রাজ্জাক। লক্ষ কণ্ঠে ফিরে আসছে স্লোগানের জবাব বজ্র নির্ঘোষে। স্লোগানের ফাঁকে ফাঁকে নেতৃবৃন্দ দিচ্ছেন টুকরো বক্তৃতা। মঞ্চ থেকে স্লোগান শেষ হলে স্লোগান উঠছে মাঠের বিভিন্ন স্থান থেকে। স্লোগান দিচ্ছে ছাত্র-শ্রমিক-কৃষক-মজুর-মেহনতি জনতা। স্লোগান দিচ্ছে সর্বস্তরের জনগণ। স্লোগান দিচ্ছে মহিলারা। স্লোগানে স্লোগানে সভাস্থলে ক্রমে বেড়ে গেছে সংগ্রামের উদ্দীপনা, শপথের প্রাণবহ্নি। স্লোগানের ভাষা ছিল ‘জয়বাংলা-জয়বাংলা’, ‘আপস না সংগ্রাম-সংগ্রাম সংগ্রাম’, ‘আমার দেশ তোমার দেশ-বাংলাদেশ বাংলাদেশ’, ‘পরিষদ না রাজপথ-রাজপথ রাজপথ’, ‘ষড়যন্ত্রের পরিষদে-বঙ্গবন্ধু যাবে না’, ‘ঘরে ঘরে দুর্গ-গড়ে তুলো গড়ে তুলো’ ইত্যাদি। যেসব স্লোগান সব চেয়ে বেশি উঠে সেগুলো হলো, ‘বীর বাঙালি অস্ত্র ধরো-বাংলাদেশ স্বাধীন করো’, ‘ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ো-বাংলাদেশ স্বাধীন করো’ ও ‘তোমার দেশ আমার দেশ-বাংলাদেশ বাংলাদেশ’।
রাষ্ট্রপতি ইয়াহিয়া খানের বেতার ভাষণের জবাবে ওইদিন এক বিবৃতিতে বঙ্গবন্ধু বলেন, অনির্দিষ্টকালের জন্যে জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত রাখার স্বেচ্ছাচারমূলক ও অযাচিত কাজের বিরুদ্ধে জনগণের অধিকার আদায় করতে গিয়েই বাঙালি সন্তানরা শহীদ হয়েছেন।
ডাকসু ও ছাত্রলীগ নেতারা উপনিবেশবাদী শক্তির লেলিয়ে দেয়া বাহিনীর গুলি বর্ষণে শহীদদের স্মরণে সরকারি-বেসরকারি ভবনসহ সর্বত্র প্রতিদিন কালো পতাকা উত্তোলনের আহবান জানান।
রেসকোর্স ময়দানে প্রদত্ত বঙ্গবন্ধুর ভাষণ বেতারে প্রচার করতে না দেওয়ায় বাঙালি বেতার কর্মচারীরা কাজে যোগদান থেকে বিরত থাকেন। এতে ঢাকা বেতার সাময়িকভাবে বন্ধ হয়ে যায়। পরে সামরিক আইন কর্তৃপক্ষ ভাষণ প্রচারের অনুমতি দিলে সকল কর্মচারী কাজে যোগ দেন। এর পর থেকে ২৫ মার্চ পাক হানাদার বাহিনীর আক্রমণের পূর্ব পর্যন্ত ঢাকা বেতার বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ মতো পরিচালিত হয়। সামরিক আইন কর্তৃপক্ষ কেবল করাচী থেকে সংবাদ সম্প্রচার করাতে সক্ষম হয়েছিল।
রাতে সামরিক আইন কর্তৃপক্ষের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সিলেট বেতার থেকে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণের গুরুত্বপূর্ণ অংশ আঞ্চলিক পরিচালক ম ন মুস্তফা, সহকারী আঞ্চলিক পরিচালক জমির সিদ্দিকী, অনুষ্ঠান সংগঠক মনওয়ার আহমদ, বার্তা সম্পাদক মহিউদ্দিন আহমদ, অনুষ্ঠান ঘোষক আনোয়ার মাহমুদ, সংবাদ পাঠক বদরুল হোসেন রাজু ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ওদুদ জায়গীরদার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ‘বিশেষ সংবাদ বুলেটিন’ হিসেবে প্রচার করেন।
এই ‘বিশেষ সংবাদ বুলেটিন’ প্রচার চলাকালেই সিলেট শহরের টিলাগড় এলাকায় পাকিস্তানি সেনারা বেতার ভবনে প্রবেশ করে। অপদস্ত করে আঞ্চলিক প্রকৌশলী .. সাইফুল ওদুদ জায়গীরদারকে। প্রমাণ নিশ্চিহ্ন করতে আনোয়ার মাহমুদ দ্রুত হাতে লেখা পাণ্ডুলিপিটি গিলে ফেলেন।
মৌলভীবাজারে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে উঠে।-আল আজাদ

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest