NATIONAL
The Bangladesh government has decided to award the Peace Medal in the name of Father of the Nation Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman || বাংলাদেশ সরকার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে শান্তি পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে
সংবাদ সংক্ষেপ
সিলেটে প্রথম `এডভান্সড কৃষি গবেষণা’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলন বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ববির জন্মদিনে সিসিক মেয়রের দোয়া মাহফিল আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহারে শাল্লায় ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে সিলেটের তিন উপজেলায়ই নতুন মুখ || দুটিতে আওয়ামী লীগ একটিতে বহিষ্কৃত বিএনপি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় বিজনেস ক্লাব গঠিত ৭ এপিবিএনের অভিযানে ২ লক্ষাধিক ভারতীয় বিড়িসহ পিকআপ আটক Malaysian labour market will not stop : Shafique মালয়েশিয়ান শ্রমবাজারে জনশক্তি প্রেরণ বন্ধ হবে না : শফিকুর রহমান চৌধুরী অবসর জীবন সম্পর্কে আইজিপি : প্রথমে কিছুদিন বিশ্রাম ও ঘোরাঘুরি এরপর পরিকল্পনা শাল্লায় ব্লাস্ট রোগে বোরোধানের ক্ষতি || সহায়তা পাবেন ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে পুলিশের পাশাপাশি অভিভাবকদের সচেতন থাকার আহ্বান আইজিপির নতুন প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের দেশপ্রেমের শিক্ষা দিতে হবে : প্রতিমন্ত্রী শফিকুর রহমান চৌধুরী উপজেলা নির্বাচন || কোম্পানীগঞ্জে তিন বিএনপি নেতা বহিষ্কার সিকৃবিতে ওয়াপসার কর্মশালায় তথ্য প্রকাশ : সিলেটে ডিমের ঘাটতি দৈনিক ২৫ লাখ স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আধুনিক শিল্পায়নের গুরুত্ব অপরিসীম : বিসিক চেয়ারম্যান মাধবপুরে জায়গা সংক্রান্ত বিরোধের জেরে হামলা ও অগ্নিসংযোগের অভিযোগ

আয়নায় মুখ দেখলে আমেরিকা দেখতে পেতো নিজের কুৎসিত চেহারা

  • বৃহস্পতিবার, ১০ নভেম্বর, ২০১৬

আল-আজাদ : বর্তমান বিশ্বের একমাত্র মোড়ল আমেরিকা অন্যান্য দেশকে গণতন্ত্রের ছবক দেয়। অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কথায় কথায় মানবাধিকারের অভিযোগ তুলে। বিভিন্ন দেশের নির্বাচন নিয়ে মাথা ঘামায়। সন্ত্রাসের উছিলা করে যেকোন দেশে যখন তখন হানা দেয়-হানা দেয়ার হুমকি দেয়। এমনকি মিথ্যা অভিযোগে কোন কোন দেশের রাষ্ট্র বা সরকার প্রধানকে হত্যা করে অথবা তুলে নিয়ে বিচার করার মতো দাপট দেখায়।
এত যার ক্ষমতা এবং যে এত কিছু করতে পারে সে কিন্তু আয়নায় সামনে দাঁড়ায়না। যদি দাঁড়াতো তাহলে নিজের কুৎসিত চেহারাটা অবশ্যই দেখতে পেতো। তবে বিশ্ববাসী আমেরিকার এই রূপটা ভাল করে চেনে। চিনতে শুরু করেছে সেই দেশের সাধারণ মানুষও। তাইতো নতুন নির্বাচন শেষ হওয়া মাত্র ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যকে আলাদা করে নেয়ার পক্ষে রাজ্যবাসী রাজপথে নেমে এসেছে।
আমেরিকা বিভিন্ন দেশকে গণতন্ত্রের দীক্ষা দেয়; কিন্তু খোদ আমেরিকায় গণতন্ত্রের রূপ কি সেটা সদ্য সমাপ্ত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্প আর হিলারি ক্লিনটনের নির্বাচনী প্রচারণা ও বাকযুদ্ধে খোলাসা হয়ে গেছে।
কথাবার্তায় মনে হয়, মানবাধিকারের সবচেয়ে বড় প্রবক্তা আমেরিকা। বাংলাদেশে যখন কোন চিহ্নিত খুনি-সন্ত্রাসী র‌্যাব-পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধে মারা যায় তখন আমেরিকার ক্ষমতাসীনরা মানবাধিকার গেলো গেলো বলে চিৎকার করে। অথচ নিরস্ত্র ওসামা বিন লাদেনকে নাগালের মধ্যে পেয়েও গুলি করে হত্যা এবং লাশ সাগরে ভাসিয়ে দেয়ার সময় মানবাধিকারবোধ তাদের মধ্যে কাজ করেনা।
বিভিন্ন দেশের নির্বাচন নিয়ে প্রশ্ন তুলে আমেরিকা। অথচ তাদের দেশে জর্জ বুশ জুনিয়র দ্বিতীয়বার প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতে গিয়ে নির্বাচনে কি কেলেঙ্কারিই না করেছিলেন। এ প্রসঙ্গে উল্লেখ করতে পারি, তখন বাংলাদেশে আমেরিকার রাষ্ট্রদূত ছিলেন হ্যারি কে টমাস। সিলেটে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে নানা কটুক্তি করছিলেন। এক পর্যায়ে তাকে প্রশ্ন করেছিলাম, তাদের দেশের সাম্প্রতিক নির্বাচনী কেলেঙ্কারিকে তিনি কিভাবে দেখেন; কিন্তু না, তিনি উত্তর দেননি প্রশ্নটির। বরং ‘থ্যাংক ইউ’ ‘থ্যাংক ইউ’ বলে দ্রুত কেটে পড়েছিলেন। আর এবারতো নির্বাচনী সহিংসতায় একজনের প্রাণই গেছে।
আমেরিকা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে খুব বেশি সোচ্চার। বিশ্বের অন্যকোন দেশে কোন সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটলেই আমেরিকান সরকার চিৎকার শুরু করে। তাদের কথাবার্তা আর আচার আচরণেও মনে হয়, তারা যেমনি সন্ত্রাসকে সবচেয়ে বেশি ঘৃণা করে তেমনি দুনিয়া থেকে সন্ত্রাসের মূলোৎপাটনের একমাত্র ঠিকাদার তারা। অথচ তাদের দেশেই যত বড় বড় সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটছে। আমেরিকার মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঢুকে নিরপরাধ শিশুদের প্রায় নিয়মিত হত্যার মতো পৈশাচিক কাণ্ড তাদের ঘনিষ্ঠ বন্ধু পাকিস্তান ছাড়া আর কোথাও সংঘটিত হয়না।
ইরাকের প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন এক সময় আমেরিকাপন্থী বলে পরিচিত হলেও একপর্যায়ে বোল পাল্টে ফেলেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে আমেরিকা। তাই পারমাণবিক অস্ত্রের মিথ্যা অভিযোগ তুলে হামলা চালায় ইরাকে। ধ্বংসস্তুপে পরিণত করে সমৃদ্ধ শিল্প-সংস্কৃতির এই দেশটিকে। অথচ পরবর্তী সময়ে মর্কিন সরকার স্বীকার করেছে, এই অভিযোগ সত্য ছিলনা। লিবিয়াতেও প্রায় একই ঘটনা ঘটিয়েছে। জীবিত অবস্থায় ধরা পড়া মোয়ামের গাদ্দাফিকে হত্যায় সমর্থন জানিয়েছে প্রকাশ্যে। এ রকম উদাহরণ আরো আছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest