JUST NEWS
POLICE WILL TAKE ALL MEASURES TO KEEP DHAKA OPERATIONAL AROUND DECEMBER 10 : HOME MINISTER ASADUZZAMAN KHAN KAMAL IN SHAISTAGANJ
সংবাদ সংক্ষেপ
মাধবপুরে মাদক ব্যবসায় জড়িত অভিযোগে একজন গ্রেফতার ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত সিলেটে বাংলাদেশ নারী মুক্তি সংসদের জেলা সম্মেলন অনুষ্ঠিত দক্ষিণ সুরমায় সততা ছাত্রকল্যাণ সমিতির কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা মাহা-সিলেট জেলা প্রেসক্লাব অভ্যন্তরীণ ক্রীড়া প্রতিযোগিতার ফলাফল দক্ষিণ সুরমায় ন্যাশনাল স্পোর্টিং ক্লাব মেধাবৃত্তি পরীক্ষার পুরস্কার বিতরণ Country’s economy will return to previous place দেশের অর্থনীতি ধীরে ধীরে আবার আগের জায়গায় এসে যাবে : পরিকল্পনা মন্ত্রী সিলেটে বাংলাদেশ বৌদ্ধ যুব পরিষদের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ তেলিয়াপাড়া স্মৃতিসৌধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বিমান প্রতিমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন ১০ ডিসেম্বর ঘিরে ঢাকাকে সচল রাখতে সব ব্যবস্থা নেবে পুলিশ : শায়েস্তাগঞ্জে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রতিবন্ধী দিবসে সুনামগঞ্জে শোভাযাত্রা আলোচনা চেয়ার বিতরণ সিলেটে নানা কর্মসূচিতে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় প্রতিবন্ধী দিবস পালিত জৈন্তাপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে জেলা আ লীগের শোক সিলেটে রেড ক্রিসেন্ট সেবা কার্যক্রমকে আরও উন্নত ও বিস্তৃত করতে চান নাসির সিলেটে ৫ দফা দাবিতে মিছিল ও সমাবেশ করেছে চা শ্রমিক অধিকার আন্দোলন

অপূর্ণ থাকছেনা কিছুই || চা শ্রমিকদেরকে ভূমির অধিকার ও ঘর দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

  • শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০২২

আল আজাদ : অপূর্ণ থাকছেনা কিছুই। সব দাবিই পূরণ হবে। চা শ্রমিকদের এ নিশ্চয়তা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। আবারও দৃঢ় কণ্ঠে সরকার প্রধান ঘোষণা করেছেন, দেশে কেউ গৃহহীন-ভূমিহীন থাকবেনা। চায়ের রাজ্যে কঠিন জীবনসংগ্রামী এই জনগোষ্ঠীও ভূমির মালিক হয়ে অন্য সবার মতো পূর্ণ নাগরিক অধিকার নিয়ে বাংলাদেশে বসবাস করবে।
শনিবার বৃষ্টিস্নাত বিকেল ঠিক সাড়ে ৪টায় সিলেট মহানগরীর লাক্কাতুরায় চা বাগান পরিবেষ্টিত গলফ মাঠে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে চা শ্রমিকদের সঙ্গে আবেগঘন পরিবেশে কথা বলতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলছিলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ব্রিটিশ ও পাকিস্তানি আমলে সকল প্রকার সুবিধাবঞ্চিত এই জনগোষ্ঠীকে বাংলাদেশে নাগরিকত্ব দিয়েছিলেন। উদ্যোগ নিয়েছিলেন দেশের প্রতিটি মানুষকে মাথাগোঁজার ঠাঁই করে দিতে; কিন্তু দিয়ে যাওয়ার সময় পাননি। এর আগেই তাকে হত্যা করা হয়। তাই বঙ্গবন্ধুর মেয়ে হিসেবে তিনি পিতার স্বপ্ন পূরণ করবেন। তার সরকার ইতোমধ্যে গৃহহীন ও ভূমিহীনদেরকে জমিসহ ঘর উপহার দিয়েছে।
সিলেটের লাক্কাতুরা, মৌলভীবাজারের পাত্রখলা, হবিগঞ্জের চণ্ডিছড়া ও চট্টগ্রামের কর্ণফুলি চা বাগানে জেলার বিভিন্ন চা বাগান থেকে সমবেত কয়েক হাজার চা শ্রমিক ভিডিও কনেফারেন্সে যোগ দেন। কথা বলেন, দু’জন করে। এর আগে প্রত্যেক জেলা প্রশাসক প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান।
কথা বলতে গিয়ে আবেগআপ্লুত চা শ্রমিকরা অঝোরে কাঁদছিলেন আর বলছিলেন, ১৯ দিনের আন্দোলনকালে কাউকে পাশে পাননি তারা। তবু হতাশ হননি। কারণ মনেপ্রাণে বিশ্বাস ছিল, তাদের মা ‌‘শেখের বেটি’ অবশ্যই পাশে দাঁড়াবেন। কাজে ফেরার ব্যবস্থা করে দেবেন তাদেরকে; কিন্তু এভাবে এত তাড়াড়াড়ি প্রধানমন্ত্রীর দেখা পাওয়ার আর কথা বলার কল্পনাই করেননি।
চা শ্রমিকরা বলেন, জাতির পিতা বেঁচে থাকলে তাদের সমস্যাগুলো অনেক আগেই সমাধান হয়ে যেতো। তারা আরও উন্নত জীবন পেতেন। তাদেরকে আন্দোলন করতে হতোনা।
আরও জানান, তারা যে আটা পান তা পর্যাপ্ত নয়। চা বাগান স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এমবিবিএস ডাক্তার না থাকায় চিকিৎসার জন্যে অন্যখানে যেতে হয়। তাও অ্যাম্বুলেন্স না থাকায় প্রায়ই সময় মতো যাওয়া যায়না। মাতৃত্বকালীন ছুটি ছয়মাস হওয়া দরকার। শিক্ষার সুযোগ অপর্যাপ্ত। গ্রাচুয়িটি নেই। পরিবারের সকল সদস্য কাজ পায়না। আরও কিছু সমস্যাও তুলে ধরেন। তবে একজন নারী শ্রমিকের ‘ভূমিহীন’ বদনাম ঘুচানোর আবেদন প্রধানমন্ত্রীকে ভীষণভাবে নাড়া দেয়।
কথা বলতে গিয়ে সবাই উল্লেখ করেন, ১৯৭০ সালে বঙ্গবন্ধুকে চা শ্রমিকরা কথা দিয়েছিলেন ‘নৌকা’য় ভোট দেবেন। দিয়েছিলেন। দিচ্ছেন। দিয়ে যাবেন।
কথিত সুশীল সমাজ থেকে যোজন যোজন দূরে থাকা চা শ্রমিকদের বুকের গভীর থেকে উঠে আসা কৃতজ্ঞতাপূর্ণ কথামালা আর কষ্টকর জীবনগাঁথা শুনতে গিয়ে বঙ্গবন্ধুকন্যাও আবেগতাড়িত হয়ে পড়েন। মনে খুলে কথা বলতে আহ্বান জানান সবাইকে। প্রশংসা করে বলেন, ‘কি সুন্দর করে কথা বলে সবাই’। চট্টগ্রামের এক নারী চা শ্রমিকের চিকিৎসারও দায়িত্ব নেন। এক চা কন্যার উচ্চশিক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি শিক্ষকতার কথা শুনে সন্তোষ প্রকাশ করেন।
চা শ্রমিকদের প্রতিটি প্রত্যাশা পূরণে প্রধানমন্ত্রীর আশ্বাসে বারবার ‘জয়বাংলা’ ‘জয় বঙ্গবন্ধু’ ও ‘শেখ হাসিনার সরকার-বারবার দরকার’ স্লোগানে চা বাগানগুলো মুখরিত হচ্ছিল।
প্রধানমন্ত্রীর সম্মানে নৃত্য পরিবেশন করে পাত্রখলা চা বাগানের একদল চা শ্রমিক ও কর্ণফুলি চা বাগানের একদল চা শিশু। যদিও দু’টি দলেরই একটি করে নৃত্য পরিবেশনের ঘোষণা দেওয়া হয়েছিল; কিন্তু বঙ্গবন্ধুকন্যার ইচ্ছে অনুযায়ী প্রতিটি দলকে দু’টি করে নৃত্য পরিবেশন করতে হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More

লাইক দিন সঙ্গে থাকুন

স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest