JUST NEWS
TODAY WORLD TOURISM DAY IS BEING CELEBRATED IN VARIOUS PROGRAMS ACROSS THE COUNTRY INCLUDING SYLHET
সংবাদ সংক্ষেপ
বিশ্বনাথ উপজেলা জাতীয় পার্টির মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত খন্দকার মুক্তাদিরের সুস্থতা কামনায় গোয়াইনঘাটে বিএনপির দোয়া মাহফিল দারুল আইতাম হালিমাতুস সাদিয়া এতিমখানায় অভিভাবক সমাবেশ পর্যটন উন্নয়ন মহাপরিকল্পনায় কক্সবাজারের পরেই থাকছে সিলেট : বিভাগীয় কমিশনার ডিআইজির সঙ্গে সিলেট উইমেনস জার্নালিস্ট ক্লাবের সৌজন্য সাক্ষাত বালাগঞ্জ সরকারি কলেজে মহিউদ্দিন শীরু স্মরণে আলোচনা সভা নাসিব ও এনপিওর উৎপাদনশীলতার গুরুত্ব নিয়ে সেমিনার পরিবেশ ও প্রতিবেশের ক্ষতিসাধন : সাড়ে ৪ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ ধার্য শারদীয় দুর্গোৎসব : রাজনগরে ৭৭টি পূজামণ্ডপে অনুদান বিতরণ সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে লায়ন্স ক্লাব অব সিলেট সুরমার বৃক্ষরোপণ শুরু সিলেট মোবাইল পাঠাগারের ৭৯৪ তম সাহিত্য আসর অনুষ্ঠিত শাল্লায় কৃষিতে আধুনিক প্রযুক্তি বিষয়ক দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ মহিউদ্দিন শীরুর মৃত্যুবার্ষিকীতে জেলা প্রেসক্লাবের শ্রদ্ধা নিবেদন লাখাই বিএনপির মতবিনিময় সভায় খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার ঘোষণা জগন্নাথপুরে ‘পিউরিয়া’ ফুড প্রোডাক্টের আউটলেট উদ্বোধন জগন্নাথপুরে মায়ের মরদেহ ঘরে রেখে এসএসসি পরীক্ষা দিলো মেয়ে

অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান শিক্ষার্থীদের অন্তরাত্মার জাগ্রত সত্তা

  • বৃহস্পতিবার, ৩০ জুলাই, ২০২০

শাহ মনসুর আলী নোমান : একজন আদর্শ শিক্ষকের কখনও মৃত্যু হয় না; তিনি তাঁর সততা, দক্ষতা, যোগ্যতা, দেশপ্রেম, ত্যাগের মহিমা ও নৈতিকতার মাধ্যমে ছাত্রদের মনোজগতে অমরত্বের বীজ বপন করে যান।
২৭ জুলাই শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-শাবিপ্রবির তৃতীয় উপাচার্য এবং সমাজকর্ম বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা ও বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানের চৌদ্দতম মৃত্যুবার্ষিকী।
তিনি সমকালীন বিরল একজন আদর্শবান শিক্ষক হিসেবে ছাত্রদের শুধু স্বপ্নই নয়, স্বপ্ন পূরণের পথ বাতলে দিতেন এবং সঠিক রাস্তা দেখাতেন।
আমাদের দেশের প্রায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এখন সততা নির্বাসিত, শিষ্টাচার দুর্লভ, বেশির ভাগ শিক্ষার্থী পথভ্রষ্ট ও বিভ্রান্ত। সমাজ ও রাষ্ট্রে নৈতিক অবক্ষয়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর অগ্নিমশাল নিয়ে ব্রতী যে শিক্ষক তিনিই পারেন আলোর পথ দেখাতে। আর সেই আলোর ফেরিওয়ালা অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানের কর্ম ও শিক্ষাজীবন ছিল সাফল্যে পরিপূর্ণ। গণতন্ত্র, সুশাসন, কথা বলার স্বাধীনতা, মানবাধিকার এবং সমাজকর্ম শিক্ষার প্রসারে তিনি অনবদ্য ভূমিকা রেখে গেছেন। তার সক্রিয় উদ্যোগ ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে যাত্রা শুরু করে সমাজকর্ম বিভাগ এবং ১৯৯৪ সালে সমাজকর্ম বিভাগের প্রথম ব্যাচের ক্লাস শুরু হয়।
আমি তার সরাসরি ছাত্র না হলেও আমরা একই উপজেলার অধিবাসী হওয়াতে স্যারের সাথে ব্যক্তিগতভাবে আমার ঘনিষ্ঠ হবার সুযোগ হয়েছিল।
যতদূর মনে পড়ে, ১৯৯৮ সাল থেকে তার মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত সিলেটে ও নবীগঞ্জে স্যারের প্রায় সব সভা-সেমিনারে শ্রোতা হিসেবে অংশগ্রহণের সুযোগ হয়েছিল। তখন আমি এম সি কলেজে স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলাম। এমনকি তিনি উপাচার্য ও সমাজকর্ম বিভাগের শিক্ষক থাকাকালীন তার অফিসে বেশ কয়েকবার দেখা হয়। তিনি আমাদেরকে বেশ সময় দিতেন এবং নবীগঞ্জবাসীর খোঁজখবর নিতেন। স্থানীয়, জাতীয় সকল পর্যায়ের মানুষের সাথে সুসম্পর্ক ছিল স্যারের। বিভিন্ন সভা-সেমিনারে তিনি বলতেন, ‘মানুষকে ভালবাসার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি পাওয়া যায়, সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সমাজের কল্যাণে কাজ করে যেতে হবে। দেশ-জাতি ও সমাজের উন্নয়নে নারী শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষা মানুষের মানবীয় বৃত্তিগুলোর বিকাশ ঘটায়। আমাদের স্বাধীনতার মূল চেতনা সবার কাছে পৌঁছে দেয়ার লক্ষ্যে আমাদের দলমত নির্বিশেষে কাজ করে যেতে হবে।’
বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ও সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের ভাষায়, ‘মানুষের মঙ্গলচিন্তা শিক্ষাবিদ মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানকে সবসময় আচ্ছন্ন করে রাখত। তার জীবনে সাম্যবাদ ও অসাম্প্রদায়িকতা ছিল ধ্রুবতারার মতো। সবধরনের গোঁড়ামি, ধর্মান্ধতা ও কুপমণ্ডুকতার বিরুদ্ধে তিনি ছিলেন সোচ্চার। তাঁর নৈতিকতা থেকে বর্তমান প্রজন্মের অনেক কিছু শেখার আছে।’ (দৈনিক প্রথম আলো, ০৭/০৮/২০১০)
শাবিপ্রবির সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড মোহাম্মদ আমিনুল হক ভূঁইয়ার মতে, ‘প্রফেসর এম হাবিবুর রহমান ছিলেন একজন আদর্শ শিক্ষক, তাই তাঁর গড়া বিভাগের কার্যক্রমে এর পরিচয় পাওয়া যায়।’ (দৈনিক সিলেটের ডাক, ২৪/০৮/২০১৬)
তিনি ছিলেন লিডার অব দ্যা লিডার্স, একজন সক্রিয় চিন্তার মানুষ, আলোর ফেরিওয়ালা, সুচিন্তাবিদ, সমাজবিজ্ঞানী ও সমাজ গবেষক। মুক্তবুদ্ধির প্রবক্তা, প্রগতিশীল, অসাম্প্রদায়িক, মানবতাবাদী, বৈষম্যবিরোধী, সুশাসনের একজন দিশারী। এই খ্যাতনামা শিক্ষাবিদ এবং সমাজসেবীর জন্ম হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার চান্দপুর গ্রামে (বাউসা ইউনিয়ন)।
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) সমাজকর্ম বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান ছিলেন সে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির একজন জনপ্রিয় নেতা। তিনি রাবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদকও ছিলেন।
তিনি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য এবং রেজিস্ট্রার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি এখানকার সমাজকর্ম বিভাগের প্রতিষ্ঠাতা বিভাগীয় প্রধান ও সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডীন হিসেবে খুবই দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৯৭ সালে শাবিপ্রবির উপাচার্য হিসেবে যোগদান করেন। অবসর গ্রহণের পর সিলেট মেট্রোপলিটন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত। তার কার্যকালেই ১৯৯৮ সালে শাবিপ্রবির প্রথম সমাবর্তন অনুষ্ঠিত হয়।
দু’টি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ এবং ৩৬০ আউলিয়ার পদস্পর্শে ধন্য পুণ্যভূমি সিলেট বিভাগে জন্মগ্রহণ করেছেন অনেক জ্ঞানী-গুণী, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ ও বিজ্ঞজন। সিলেটরত্ন সাবেক স্পীকার, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্র সচিব, সফল কূটনীতিবিদ হুমায়ুন রশিদ চৌধুরীর প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় আজ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিজ্ঞান প্রযুক্তি, শিক্ষা ও গবেষণায় অনবদ্য ভূমিকা পালন করে আসছে।
অধ্যাপক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান একজন সুদক্ষ প্রশাসক হিসেবে কর্মক্ষেত্রে সহযোগিতামূলক পরিবেশ তৈরি করতে পেরেছিলেন এবং তাঁর আমলে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ও সুকীর্তি বৃদ্ধি পায়। তিনি যেমন পেশায় একজন শিক্ষক ছিলেন, জীবনের শেষদিন পর্যন্ত লেখাপড়ার মধ্যেই তিনি নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন।
এই মহান শিক্ষক আমাদের জন্য রোলমডেল। তিনি যে কর্মগুলো রেখে গেছেন সেগুলোকে লালন ও পালন করতে পারলে প্রতিষ্ঠিত হবে একটি সুখী, সুন্দর ও আলোকিত বাংলাদেশ। মুক্ত চিন্তা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় একজন আদর্শিক সৈনিক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান স্যার মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে সোচ্চার ছিলেন। সামাজিক প্রচলিত কুসংস্কার, অন্ধকার ও ধর্মীয় গোঁড়ামি দূর করতে হলে সাংস্কৃতিক চর্চার কোন বিকল্প নেই বলে তিনি বিশ্বাস করতেন। তিনি আধুনিক রাষ্ট্র ও উদার সমাজব্যবস্থা গঠনের স্বপ্ন দেখেছেন আজীবন। বিভিন্ন সময় তিনি বিভিন্ন দলমতের সিনিয়র, জুনিয়র, শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ে বসতেন এবং আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করতেন। তিনি সহজেই ক্ষমা করতে পারতেন।
তার ১২তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণসভায় শাবিপ্রবির বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন বলেন, ‘হাবিবুর রহমান একজন আদর্শ শিক্ষক, ভাল গবেষক, দূরদর্শী প্রশাসক ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রযাত্রায় তাঁর অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।’ তিনি ছিলেন একজন সত্যিকারের শিক্ষক, যিনি দলমতের ঊর্ধ্বে থেকে আমৃত্যু সত্য, সুন্দর, প্রগতি ও আলোকিত সমাজ বিনির্মাণে কাজ করে গেছেন।
স্যার ব্যক্তিগত এবং সাংসারিক জীবনেও খুবই বিনয়ী, সফল ও আকর্ষণীয় ব্যক্তিত্বের অধিকারী ছিলেন। তার সন্তানেরা উচ্চ শিক্ষিত এবং নিজ নিজ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত। তার ছেলে এনামুল হাবিব (যুগ্ম সচিব) বর্তমানে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের অধীনে এলজিএসপি-৩ প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক হিসেবে কর্মরত। এর আগে তিনি সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও রংপুরের জেলা প্রশাসক ছিলেন।
মানবতা ও আলোর ফেরিওয়ালা এই কীর্তিমান পুরুষ ২৭ জুলাই ২০০৬ সালে অগণিত শুভাকাঙ্খী, শিক্ষার্থী ও আপনজনকে ছেড়ে এই পৃথিবী থেকে বিদায় নেন। তার ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকীতে বিনম্র শ্রদ্ধা। মহান আল্লাহপাক স্যারকে তাঁর কর্মের জন্য জান্নাতের সর্বোচ্চ দরজা প্রদান করুন।

লেখক উপাচার্যের একান্ত সচিব, নর্থ ইস্ট ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More
স্বত্ব : খবরসবর ডট কম
Design & Developed by Web Nest