সিলেটে বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম আহ্বায়ক

Published: 28. Oct. 2016 | Friday

বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম, ইউকের কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক মোহাম্মদ মনির হোসাইন ২৫শে অক্টোবর সিলেট মহানগরীর পশ্চিম জিন্দাবাজারে একটি অভিজাত রেস্টুরেন্ট সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় করেন।
এই মতবিনিময় সভায় তিনি তাদের সংগঠনের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন। তার এই বক্তব্য প্রকাশ করা হলো।
সম্মানিত সাংবাদিক বন্ধুরা

আপনারা জেনে আনন্দিত হবেন যে, সুদূর যুক্তরাজ্যে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে আমরা একটি সংগঠন গড়ে তুলেছি। এই সংগঠনের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও কর্মপরিকল্পনা দেশবাসীকে জানাতেই আপনারদের সামন দাঁড়িয়েছি। আমি আশাবাদী, আমাদের প্রতি আপনাদের সহযোগিতার হাত সবসময় প্রসারিত থাকবে।
আমাদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য
১) মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা জনগণের মধ্যে শাণিত করা এবং নতুন প্রজন্মকে এই চেতনায় উজ্জীবিত করা।
২) বঙ্গবন্ধুর আদর্শের আলোকে আদর্শিক রাজনীতির চর্চা।
৩) জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ জনগণের কাছে তুলে ধরতে বিভিন্ন কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা।
বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আজীবন জনগণের ভাগ্যোন্নয়নের জন্য কাজ করে গেছেন এবং তিনি আদর্শিক রাজনীতির এক উজ্জ্বল আলোকবর্তিকা। সততা, নিষ্ঠা আর একাগ্রতাই ছিল তাঁর রাজনৈতিক জীবনের প্রতিপাদ্য। তাঁর জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত নিবেদিত ছিল এদেশের জনগণের কল্যাণে। এই কল্যাণ সাধন করতে গিয়ে যৌবনের চৌদ্দটি বছর কাটিয়েছেন জেলে। মানুষ যেখানে পরিবার-পরিজন নিয়ে স্বাচ্ছন্দে জীবন কাটাতে চায় সেখানে বঙ্গবন্ধু শুধু জনগণের জন্য জীবনকে উ্ৎসর্গ করতে সদা প্রস্তুত ছিলেন এবং জীবন দিয়ে তা প্রমাণও করে গেছেন। এমন আদর্শিক এবং নিবেদিত রাজনৈতিক জীবন ইতিহাসে একেবারেই বিরল।
কিন্তু প্রশ্ন হচ্ছে, আমরা যারা বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির উত্তরাধিকারী দাবিদার, তারা কতটুকু তাঁর আদর্শিক রাজনীতি মন ও মননে ধারণ করি। পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে নীতিহীনতা, চাটুকারিতা, বৈষয়িক অর্জন, হানাহানি ও মারামারি রাজনীতির অপরিহার্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে দীর্ঘকাল বাংলাদেশ শাসিত হয়েছে সামরিক স্বৈরাচার ও স্বাধীনতা বিরোধী-যুদ্ধাপরাধীদের দ্বারা। তারা শুধু মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকেই বিকৃত করতে চেষ্টা করেনি, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকেও ধ্বংস করার সার্বিক প্রচেষ্টা চালিয়েছে। সাময়িকভাবে তারা সফল হলেও কালের বিবর্তনে ও ইতিহাসের চিরায়ত নিয়মে শেষপর্যন্ত ব্যর্থ হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও ইতিহাস আপন মহিমায় আজ আবার সমুজ্জ্বল। আমরা আবার মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে শাণিত করছি, উজ্জীবিত হচ্ছে নতুন প্রজন্ম।
বঙ্গবন্ধু কন্যা, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি, যাদেরকে আইন করে খুনের দায় থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছিল এবং তারাও দম্ভ করে বলেছিল, তাদের বিচার কেউ করতে পারবে না; কিন্তু তাদেরও বিচার হয়েছে, রায় কার্যকর হয়েছে, জাতি অভিশাপ মুক্ত হয়েছে। তামাদি হওয়া যুদ্ধাপরাধীদের বিচার, যা বাংলাদেশের মানুষকে প্রায় ভুলিয়েই দেয়া হয়েছিল, যুদ্ধাপরাধীদের গাড়িতে আমাদের আবেগময় জাতীয় পতাকা উড়ানোর সুযোগ করে দেয়া হয়েছিল, সেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচারও শুরু হয়েছে এবং চলমান রয়েছে। শীর্ষ যুদ্ধাপরাধীদের রায় ইতোমধ্যে কার্যকর হয়েছে।
দেশে হত দরিদ্রের সংখ্যা সাড়ে শতকরা ১২ ভাগ। এছাড়াও অর্থনীতির সকল সূচক বলে দিচ্ছে দেশ নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ থেকে পরিপূর্ণ মধ্যম আয়ের দেশের দিকে ধাবমান। উন্নত ও পশ্চিমা বিশ্বের নেতৃবৃন্দ সহ অন্যান্য দেশ ও সরকার প্রধানরা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসায় পঞ্চমুখ। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ও সংস্থা তাঁর যোগ্যতর নেতৃত্বের স্বীকৃতিস্বরূপ তাকে বিভিন্ন পদকে ভূষিত ও সম্মানিত করছে। তাঁর এই সাফল্যের মূল চাবিকাঠি হলো দেশপ্রেম, দৃঢ়তা, বিশ্বস্ততা, একাগ্রতা, মানবিকতা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের লালন-পালন, স্বচ্ছ ও সাধারণ জীবনযাপন, ভোগ নয় ত্যাগেই তৃপ্তি-এই আদর্শ। তাই তিনি জাতিকে পিতার মতোই দৃঢ়তার সাথে স্বপ্ন দেখাতে পারেন, ভিশন ২০২১ এবং ২০৪১, যার আলোকে গড়ে উঠবে মধ্যম আয়ের দেশ থেকে উন্নত বাংলাদেশ।
শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ হচ্ছে আধুনিকতার ছোঁয়ায় রঞ্জিত একবিংশ শতাব্দির উপযোগী রাজনীতির একটি সূত্র। এই সূত্র ধরেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে-এগিয়ে যাবে। শেখ হাসিনার এই নতুন ধারার রাজনীতি শুধু দেশবাসীর কাছেই নয়, সমগ্র বিশ্বের বিস্ময়। এ রাজনীতি শুধু অথনীতিতেই নতুন মাত্রা যোগ করেনি, গণতান্ত্রিক রাজনীতিতেও এক মৌলিক পরিবর্তন সূচনা করেছে।
আমাদের দেশের রাজনীতি দীর্ঘদিন ধরে যেখানে নীতিহীনতা, সন্ত্রাস আর জঙ্গিবাদের শৃঙ্খলে আবদ্ধ, সেখানে জননেত্রী শেখ হাসিনার আধুনিক ও নতুন ধারার রাজনীতি তাদেরকে সন্ত্রাস ও নীতিহীনতার রাজনীতি থেকে বের হয়ে আসার একটি সুবর্ণ সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছে। রাজনীতিতে উস্কানিমূলক বক্তব্য, অসহনশীলতা, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের কোন স্থান নেই। এই বিষয়গুলো যত তাড়াতাড়ি বিরোধী রাজনীতিকদের উপলব্ধিতে আসবে, তারা আধুনিক বিশ্বের পরিবর্তিত রাজনীতির ধারায় দীক্ষা নিয়ে, মানবিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে মানুষের ভাগ্যোন্নয়নের রাজনীতিতে ব্রতী হবেন ততই তা হবে তাদের নিজেদের জন্য, দেশ ও জাতির জন্য মঙ্গলজনক এবং দেশের উন্নয়নও দ্রুততর বেগে ধাবিত হবে।
কিন্তু শংকার বিষয় হলো, শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১-এর মর্ম কথা দেশবাসী অনুধাবন করতে পারলেও দলীয় নেতাকর্মীরা অনুধাবন কিংবা চর্চা ও জানার চেষ্টা করছেন কি। ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ অনুযায়ী দেশ গড়তে, মধ্যম আয়ের দেশ-উন্নত দেশ গড়তে, দেশ ও জাতিকে নেতৃত্ব দেয়ার মতো যোগ্যতা সম্পন্ন নেতৃত্ব সৃষ্টি করতে হবে। শেখ হাসিনার ভিশনের লক্ষ্যই হলো, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় শোষণমুক্ত সমাজ ব্যবস্থা কায়েম করা। পরিপূর্ণ আধুনিক ও মানবিক বাংলাদেশ গড়ে তোলা। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে প্রয়োজন জ্ঞান-বিজ্ঞান-তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষ আদর্শিক কর্মী বাহিনী। আদর্শিক, আধুনিক ও মানবিক মূল্যবোধে দীক্ষিত কর্মী বাহিনী ছাড়া স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়া কঠিন হবে। এ জন্যে শিক্ষা ব্যবস্থায় আনতে হবে গুণগত পরিবর্তন। আর্থ-সামাজিক ও রাজনৈতিক পরিবর্তনের সাথে সামঞ্জস্য ঘটাতে সক্ষম একটি শিক্ষা ব্যবস্থা।
বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম, ইউকে উপরোল্লেখিত বাস্তবতার আলোকে ব্রতী হয়েছে সাধ্যমত আদর্শিক কর্মী বাহিনী গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখার। যাদের মন-মননে থাকবে নির্ভেজালভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ আর জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১-এর মর্মবাণী। যে কর্মী বাহিনী হবে জ্ঞানে-বিজ্ঞানে-তথ্য প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধ। দীক্ষা নেবে ভোগ নয়-ত্যাগের। শুধু তাই নয় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যতই ঝড়ঝঞ্জা আসুক অকুতোভয়ে সম্মিলিতভাবে প্রতিরোধ করবে প্রশ্নাতীতভাবে। এটা হলো আমাদের ভিশন। আর এই ভিশনের আলোকে বিলেতে যেমন আমরা নবীন-প্রবীণ লেখক, সাংবাদিক ও গবেষকদের সমন্বয়ে গড়ে তুলেছি বঙ্গবন্ধু লেখক ও সাংবাদিক ফোরাম, তেমনি বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশেও গড়ে তুলতে চাই একই ধরনের সংগঠন বা শাখা। এ জন্যে আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত সকলের সহযোগিতা চাই।
আমাদের কর্মপরিকল্পনা
১) দেশে-প্রবাসে সেমিনার সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করা এবং গবেষণামূলক প্রবন্ধ, প্রবন্ধ সংকলন ও বই প্রকাশ করা। ইতোমধ্যেই আমরা ‘মুজিব মানেই মুক্তি’ শিরোনামে একটি বই প্রকাশ করেছি। আমাদের প্রকাশের তালিকায় আছে আরো তিনটি বই, ‘বঙ্গবন্ধুর দ্বিতীয় বিপ্লব’, বেগম মুজিবকে নিয়ে, ‘শেখ মুজিবের রেণু’ ও জননেত্রী  শেখ হাসিনাকে নিয়ে আরেকটি প্রবন্ধের বই। এছাড়া ‘শেখ মুজিবের রেণু’ বই নিয়ে হাউস অব কমন্সে সেমিনারও করবো। বইগুলো আগামী একুশের বইমেলায় পাওয়া যাবে। এছাড়া বিলেতের সাংস্কৃতিক, সামাজিক ও সাহিত্য সংগঠনগুলোকে নিয়ে সম্মিলিতভাবে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী পালনের প্রক্রিয়া শুরু করেছি। আমাদের ভিশন হলো, এখন যে যাত্রা শুরু হবে তার ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর জন্ম শতবার্ষিকী সম্মিলিতভাবে ব্যাপক আয়োজনের মধ্য দিয়ে পালন করা।
সারা বিশ্বের মুজিবাদর্শের নেতাকর্মীদের প্রতি আমাদের আহ্বান, আপনারাও বঙ্গবন্ধুর জন্ম ও শাহাদাত বার্ষিকী সম্মিলিতভাবে পালন করুন।
২) আদর্শহীনতার বিরুদ্ধে সংগ্রাম শুরু করে জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা।
৩) শিক্ষা ব্যবস্থার মান ও গুণগত পরিবর্তন সাধিত করতে জ্ঞান-বিজ্ঞান-তথ্য প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষা ব্যবস্থা প্রবর্তনে সাধ্যমত ভূমিকা রাখা।
৪) প্রবাসীরা শুধু বৈদেশিক মুদ্রারই যোগান দিতে সক্ষম নন, শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ অনুসারে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নেও ভুমিকা রাখতে সক্ষম। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রবাসীরা উন্নত বিশ্বে লেখাপড়া ও কাজ করার ফলে দক্ষ, পেশাদার, নীতিনিষ্ঠ এবং জ্ঞান-বিজ্ঞানে অধিকতর পারদর্শী হন। তাদের মানবিক মূল্যবোধ ও দেশপ্রেম প্রশ্নাতীত। তাই তাদের কাজে লাগাতে পারলে দেশ ও জাতি অধিকতর উপকৃত হবে। যার উৎকৃষ্ট উদাহরণ ভারত, সিঙ্গাপুর, চায়না প্রভৃতি দেশ। উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করে যদি তাদের কাজে লাগানো যায় তাহলে দেশ ও জাতির প্রতি তাদের মমত্ববোধ আরো গভীর হবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠাও ত্বরান্বিত হবে।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় শেখ হাসিনা।

Share Button
July 2018
M T W T F S S
« Jun    
 1
2345678
9101112131415
16171819202122
23242526272829
3031  

দেশবাংলা

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com