সিলেটে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রথম প্রতিবাদ : আল আজাদ

Published: 06. Aug. 2019 | Tuesday

স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে ধ্বংসস্তুপের উপর বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনারবাংলা গড়ার লক্ষ্যে মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ এবং সরাসরি অংশগ্রহণকারী ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি-ন্যাপ ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি ত্রিদলীয় ঐক্য জোট গড়ে তুলে। পরবর্তী সময়ে মূলত এই তিন দলের সমন্বয়েই গঠিত হয় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগ-বাকশাল। তাই পঁচাত্তরের পনেরোই আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর এ তিনটি রাজনৈতিক দলই চরম সংকটে পড়ে। ভুগতে থাকে সিদ্ধান্তহীনতায়। সবচেয়ে বেকায়দায় ছিল আওয়ামী লীগ। কারণ বাহ্যিক দৃষ্টিতে দলটিই রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিল। রাষ্ট্রপতি পদের অবৈধ দখলদার স্বাধীনতার মহানায়কের হত্যাকারী খন্দকার মুশতাক আহমদ ও মন্ত্রীসভার প্রায় সব সদস্যই ছিলেন আওয়ামী লীগের। এনিয়ে এখনো দলটিকে প্রশ্নের মুখোমুখি হতে হয়।
রাজনীতি তখন নিষিদ্ধ। সামরিক আইন চলছে দেশে। ভয় আর আতংকে দিন কাটছে মানুষের। রাজনীতিবিদরা আত্মগোপনে। এ অবস্থায় সিলেট জেলায় (সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ মহকুমা মিলে) অক্টোবর মাসে কমরেড প্রসূন কান্তি রায়ের (বরুণ রায়) নেতৃত্বে সিপিবি সাংগঠনিক তৎপরতা শুরু করে। দলকে আবার সংগঠিত করার লক্ষ্যে শাখায় শাখায় করতে থাকে সভা। চালাতে থাকে রাজনৈতিক পরিস্থিতি পর্যালোচনা। ফলে নেতাকর্মীদের মধ্যে ফের চাঙ্গাভাব জেগে উঠে।
এক পর্যায়ে আওয়ামী লীগ, ন্যাপ ও সিপিবির একটি সভা আহ্বান করা হয় ৬ নভেস্বর সন্ধ্যায় শহরের মিরাবাজারে তখনকার ন্যাপ নেতা অ্যাডভোকেট দেওয়ান গোলাম কিবরিয়া চৌধুরীর বাসায়। এতে উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শাহ মোদাব্বির আলী, লুৎফুর রহমান, ন্যাপ নেতা গুলজার আহমদ, ইকবাল আহমদ চৌধুরী, শামসুল আলম চৌধুরী, অ্যাডভোকেট দেওয়ান গোলাম কিবরিয়া চৌধুরী, সিপিবি নেতা রফিকুর রহমান লজু, ফরিদ হায়দার চৌধুরী, সৈয়দ মোস্তফা কামাল, সুধীর বিশ্বাস, বাদল কর, জয়ন্ত চৌধুরী, বেদানন্দ ভট্টাচার্য, রেজওয়ান আহমদ, কয়েস চৌধুরী প্রমুখ।
অত্যন্ত গোপনীয়তা রক্ষা করে অনুষ্ঠিত এ সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া, রাতেই (সেদিন) সমস্ত শহরে পোস্টারিং করা হবে বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে। সার্বিক দায়িত্ব দেয়া হয় বাদল করকে। এর পরপরই কয়েকজন কাগজ আর কালি নিয়ে পাশেই সুধীর বিশ্বাসের বাসায় পোস্টার লিখতে বসে পড়েন।
যত দ্রুত সম্ভব পোস্টার লেখা শেষ করে একদল তরুণ কর্মী গ্রেফতার আতংক মাথায় নিয়ে-মৃত্যুভয় তুচ্ছ ভেবে গভীররাতে রাজপথে পা রাখেন। দলে ছিলেন, বাদল কর, বেদানন্দ ভট্টাচার্য, শ্যামল চক্রবর্তী (পুরঞ্জয় চক্রবর্তী বাবলা), মকসুদ বক্ত, এনামুল কবির চৌধুরী (আমেরিকা প্রবাসী চিকিৎসক), অঞ্জন চক্রবর্তী (প্রয়াত), বাদল পাল ও মিহির পাল। আরো কয়েকজনও ছিলেন। একজন-দু’জন করে ছোট ছোট দলে ভাগ হয়ে কাজে নামা হয়। কারণ দল বড় হলে পুলিশ বা সামরিক বাহিনীর চোখে পড়ে যাবার আশংকা ছিল।
পোস্টারিং শেষ হয় ভোররাতে। সব পোস্টারই লাগানো হয় চোখে পড়ার মতো জায়গা দেখে। এবার ফেরার পালা। কথা ছিল, কাজ শেষে সবাই বন্দরবাজার এলাকায় জড়ো হবেন; কিন্তু বাদল কর সেখানে পৌঁছে দেখেন, আর কেউ নেই-তিনি একা। আরো দেখতে পান, মেশিনগান সহ নানা ধরনের অস্ত্র হাতে সেনা সদস্যরা টহল দিচ্ছে। পরিস্থিতি জটিল বলে অনুমান করতে অসুবিধা হয়না। এটাও অনুমান করতে পারেন, কর্মীবাহিনী বিপদ টের পেয়ে এদিকে আর আসেনি বা এলেও বেশিক্ষণ থাকেনি করেনি। তাই একা একা অত্যন্ত সতর্কতার সাথে বাসার পথ ধরেন।
পরদিন ৭ নভেম্বর থেকে দেশের পরিস্থিতি ভিন্নরূপ ধারণ করে। ফলে আর কিছু করা হয়ে উঠেনি।

তথ্যের জন্যে ঋণ স্বীকার : প্রয়াত রাজনীতিবিদ ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব বাদল কর। তবে এ ব্যাপারে কারো কোন মত থাকলে বা কারো কাছে আর কোন তথ্য থাকলে তা দিয়ে সহযোগিতা করার অনুরোধ জানাচ্ছি।

Share Button
August 2019
M T W T F S S
« Jul    
 1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031  

দেশবাংলা

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com