মুক্তিযুদ্ধ অনুশীলন ও মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার সিলেট

Published: 08. Apr. 2017 | Saturday

আল আজাদ : মহান মুক্তিযুদ্ধের কথা বলতে বাঙালিদের বুক যখন গর্বে ফুলে উঠে তখন পাকিস্তানের সেবাদাস রাজাকার ও নব্য রাজাকারদের বুকজ্বালা হয়। কারণ তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা চায়নি-স্বাধীনতাকে মেনে নেয়নি। তাই স্বাধীনতার বিরুদ্ধে তাদের চক্রান্তও শেষ হয়নি। এই চক্রান্তের অংশ হিসেবেই ২১ বছর মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির মতো জঘন্য অপকর্মে লিপ্ত ছিল। আছে এখনো। এই চক্র মহানায়ককে বানায় খলনায়ক আর খলনায়ককে বানায় মহানায়ক। এ কারণে নতুন প্রজন্মকে বাঙালির হাজার বছরের ইতিহাসের সর্বোজ্জ্বল অধ্যায় মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানানো প্রসঙ্গ এলেই ফোঁসে উঠে-ছোঁবল মারতে উদ্যত হয়।
এই উদ্যত ফণাকে পদদলিত করেই বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ চর্চা অব্যাহত আছে। ইতিহাস নিয়ে দেশে-বিদেশে চলছে গবেষণা। এই প্রচেষ্টার অংশীদার হয়ে ২০১০ সালে গড়ে উঠে গবেষণা প্রতিষ্ঠান মুক্তিযুদ্ধ অনুশীলন সিলেট। এই প্রতিষ্ঠানটি মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে গবেষণার পাশাপাশি ভাষার মাস ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতার মাস মার্চ ও বিজয়ের মাস ডিসেম্বর বরণ, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা কমান্ডের সাথে যৌথভাবে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নবম ও দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্যে ‘মুক্তিযোদ্ধাদের মুখে মুক্তিযুদ্ধের কথা’ অনুষ্ঠান আয়োজন, মহানগর কমান্ডের সঙ্গী হয়ে বধ্যভূমি ও গণকবর খুঁজে বের করা ইত্যাদি কাজ করছে। এসব কর্মসূচিতে অংশ নেন, মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের রাজনীতিবিদ, সামাজিক ও পেশাজীবী নেতৃবৃন্দ এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা। প্রগতিশীল চিন্তা-চেতনার গণমাধ্যমগুলো এসব কর্মকাণ্ডের খবর প্রচার ও প্রকাশ করে থাকে।
২০১২ সালে এসে মুক্তিযুদ্ধ অনুশীলন সিলেটে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার গড়ে তোলার ঘোষণা দেয়। সেই সাথে আরো ঘোষণা করা হয়, আপাতত: এই পাঠাগারে ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নিকট থেকে বাঙালি, বাংলাদেশ, বঙ্গবন্ধু, অন্যান্য জাতীয় ব্যক্তিত্ব ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই সংগ্রহ করা হবে। এ বই সংগ্রহ অভিযান চলছে।
ইতোমধ্যে মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগারে বই দিয়ে সহযোগিতা করেছে মুক্তাক্ষর, সিলেট সিটি করপোরেশন, সিলেট চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি, সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি ও ভাষা সৈনিক মতীন উদ্দিন আহমদ জাদুঘর সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। এছাড়া ব্যক্তিগতভাবেও অনেকে বই দিয়েছেন। ক্রয়কৃত বইয়ের মূল্য বাবদ চেক মারফত অনুদান দিয়েছেন সংসদ সদস্য কেয়া চৌধুরী। উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগারে নগদ অর্থ গ্রহণ করা হয়না।
বাঙালির মুক্তিযুদ্ধ চলেছিল নয়মাস। তাই নয় সংখ্যাটিকে মুক্তিযুদ্ধ অনুশীলন ও মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগার বিশেষ মর্যাদা দিচ্ছে। আমরা অর্থাৎ উদ্যোক্তা ৯ জন। কার্যকরী পরিষদও ৯ জনের। ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও ডিসেম্বরকে বরণ করা হয় সকাল ৯টার সময়। আমাদের সভা হয় রাত ৯টায়। প্রতিষ্ঠান দুটির অবস্থানও সিলেট মহানগরীর পশ্চিম জিন্দাবাজারে ওয়েস্ট ওয়ার্ল্ড শপিং সিটির ৯ তলায়। এসবের কারণ, ৯ আমাদেরকে প্রেরণা যোগায়-রাজাকার ও নব্য রাজাকারদের সকল চক্রান্ত, ষড়যন্ত্র ও অপপ্রচার পায়ে দলে এগিয়ে যাবার সাহস দেয়।
মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সবার প্রতি আহ্বান, অন্তত একটি বই দিয়ে হলেও মুক্তিযুদ্ধ পাঠাগারে সহযোগিতা করুন।

Share Button
March 2019
M T W T F S S
« Feb    
 123
45678910
11121314151617
18192021222324
25262728293031

দেশবাংলা

Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com